দ্বিতীয় তৈলপ (রাজত্বকাল: আনুমানিক ৯৭৩-৯৯৭ খ্রিস্টাব্দ; অপর নাম: দ্বিতীয় তৈল; উপাধি: অহবমল্ল) ছিলেন দক্ষিণ ভারতের পশ্চিম চালুক্য রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা। তৈলপ নিজেকে পূর্ববর্তী বাতাপির চালুক্যদের বংশধর বলে দাবি করতেন[১] এবং প্রাথমিকভাবে তারদাবাদি-১০০০ প্রদেশ (অধুনা কর্ণাটক রাজ্যের বিজয়পুর জেলা) থেকে রাষ্ট্রকূট সম্রাটের অধীনস্থ সামন্ত শাসক হিসেবে রাজ্য শাসন করতেন।[২] পরমার রাজা সিয়কের আক্রমণে রাষ্ট্রকূট সাম্রাজ্য পর্যুদস্ত হলে[৩] তৈলপ রাষ্ট্রকূট রাজা দ্বিতীয় কর্ককে সিংহাসনচ্যূত করে নতুন রাজবংশ প্রতিষ্ঠা করেন।[৪]

তৈলপ
অহবমল্ল
Tailapa II
দ্বিতীয় তৈলপের প্রাচীন কন্নড় শিলালিপি, আনু. ৯৯১ খ্রিস্টাব্দ
পশ্চিম চালুক্য সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা
রাজত্বআনু. ৯৭৩ – আনু. ৯৯৭ (২৪ বছর)
পূর্বসূরিদ্বিতীয় কর্ক
উত্তরসূরিসত্যশরায়
বংশধরসত্যশরায়, দশবর্মণ
রাজবংশচালুক্য

নর্মদাতুঙ্গভদ্রা নদীর মধ্যবর্তী পশ্চিম দাক্ষিণাত্য ভূখণ্ডে নিজ নিয়ন্ত্রণ সুদৃঢ় করতে তৈলপকে বহু বছর ব্যয় করতে হয়েছিল। ক্রমে শিলাহর সহ একাধিক পূর্বতন রাষ্ট্রকূট সামন্ত রাজবংশ তৈলপের সার্বভৌমত্ব স্বীকার করে নেয়।[৫] তৈলপ সফলভাবে চোল ও পরমার বহিরাক্রমণকে প্রতিরোধ করেন এবং আক্রমণকারী পরমার রাজা মুঞ্জকে বন্দী ও হত্যা করেন।[৬] তৈলপের সেনাধ্যক্ষ বরপ অধুনা গুজরাত রাজ্যের অন্তর্গত লাট অঞ্চল জয় করে লাট চালুক্য শাসক বংশের প্রতিষ্ঠা করেন।[৭] তৈলপের উত্তরসূরিরা দ্বাদশ শতাব্দী পর্যন্ত পশ্চিম দাক্ষিণাত্য ভূখণ্ডে নিজেদের কর্তৃত্ব বজায় রেখেছিলেন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. K. A. Nilakanta Sastri 1957, পৃ. 72।
  2. K. A. Nilakanta Sastri 1960, পৃ. 319।
  3. A. S. Altekar 1960, পৃ. 297।
  4. A. S. Altekar 1960, পৃ. 299।
  5. K. A. Nilakanta Sastri 1960, পৃ. 321।
  6. Krishna Narain Seth 1978, পৃ. 103-104।
  7. K. A. Nilakanta Sastri 1960, পৃ. 322।

গ্রন্থপঞ্জিসম্পাদনা