দেমাকের গ্রেট মসজিদ

দেমাকের গ্রেট মসজিদ (ইন্দোনেশীয়: Masjid Agung Demak) ইন্দোনেশিয়ার প্রাচীন মসজিদগুলোর মধ্যে অন্যতম। এই মসজিদটি ইন্দোনেশিয়ার কেন্দ্রীয় জাভার দেমাক শহরের কেন্দ্রে অবস্থিত। ধারণা করা হয় যে, খ্রিস্টীয় পঞ্চদশ শতাব্দীতে প্রথম দেমাক সুলতান, “রেদেন পাতাহ” এর শাসনামলে এই মসজিদটি নির্মাণ করেন “সুনান কালিজগা” যিনি নয়জন মুসলিম আউলিয়ার (Wali Songo) একজন ছিলেন।[১]

Masjid Agung Demak
অবস্থান দেমাক, ইন্দোনেশিয়া
শাখা/ঐতিহ্য ইসলাম
প্রশাসন দেমাক সরকার
স্থাপত্য তথ্য
মিনার নাই

বৈশিষ্ট্যসম্পাদনা

যদিও এই মসজিদে অনেকবার নবরুপদান সংঘটিত হয়েছে, তবুও এর আসল স্থাপনাটি এখনো বিদ্যমান।[২] এই মসজিদটি ঐতিহ্যবাহী জাভানিজ মসজিদের সর্বোৎকৃষ্ট নমুনা। মধ্যপ্রাচ্যের অন্যান্য মসজিদের মতই এই মসজিদটিও কাঠ দিয়ে নির্মাণ করা হয়। গম্বুজের তুলনায়, ইন্দোনেশিয়ায় ঊনবিংশ শতাব্দীর আগ পর্যন্ত কোন মসজিদে গম্বুজ ছিল না। এই মসজিদটি সারি সারি ছাদ বিশিষ্ট যা, সেগুন কাঠের স্তম্ভের উপর দন্ডায়মান।[২] জাভা ও বালী দ্বীপের হিন্দু-বৌদ্ধ স্থাপনায় এই সারিবদ্ধ ছাদ লক্ষ্য করা যায়। এই মসজিদটি প্রধান প্রবেশপথের সদর দরজা দুইটি, যা বিশেষভাবে কারুকার্জময়। এই দরজায় বিভিন্ন ধরনের জিনিস যেমন, ফুল, টব, মুকুট এবং দাঁত বের করে থাকা একটি প্রানীর মাথা খোদাই করা আছে। এইটা বলা হয়ে থাকে যে, এই কারুকাজগুলো “কি আগেং সেলো” র তুষারঝড়ে আক্রান্ত হওয়ার স্মৃতি বহন করে। তাই এই দরজার নাম “লাওয়ান বেল্ধেগ” (“Lawang Bledheg”) বা “ঝড়ের দরজা” (the doors of thunder)। এই যুগের অন্যান্য মসজিদের ন্যায়, এই মসজিদটি স্থাপনার পরিচয় মক্কার কাছাকাছি।[২]

খোদাইচিহ্নসম্পাদনা

 
১৯ শতকের শেষের দিকে "Masjid Agung Demak"' এর ছবি

এই মসজিদের দেয়ালে ভিয়েতনামিয়ান সিরামিক আছে। তাদের আকার আকৃতি দ্বারা জাভানিজ কাঠ খোদাইশিল্প ও ইটের কারুকাজের চিরাচরিত রীতি আহরণ করা যায়, এগুলো বিশেষভাবে ফরমাশ দিয়ে তৈরী।[৩] ধারণা করা হয় যে, পারস্যের মসজিদগুলোর অনুকরণে এই মসজিদে পাথরের পরিবর্তে সিরামিক ব্যবহার করা হয়েছে।[৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Florida, Nancy K Writing the past, inscribing the future: history as prophesy in colonial Java Durham, N.C. : Duke University Press, 1995 - Chapter. 5. The Demak Mosque: A Construction of Authority (Babad Jaka Tingkir). আইএসবিএন ০-৮২২৩-১৬২২-৬
  2. Turner, Peter (নভেম্বর ১৯৯৫)। Java। Melbourne: Lonely Planet। পৃষ্ঠা 78–79। আইএসবিএন 0-86442-314-4 
  3. Schoppert, Peter; Damais, Soedarmadji & Sosrowardoyo, Tara (১৯৯৮), Java Style, Tokyo: Tuttle Publishing, পৃষ্ঠা 41, আইএসবিএন 962-593-232-1 .
  4. Schoppert, Peter; Damais, Soedarmadji & Sosrowardoyo, Tara (১৯৯৮), Java Style, Tokyo: Tuttle Publishing, আইএসবিএন 962-593-232-1 .

আরো দেখুনসম্পাদনা

টেমপ্লেট:Indonesian architecture