ড. ডেভিড ফ্রলে যার বর্তমান নাম বামাদেব শাস্ত্রী,একজন বিখ্যাত পশ্চিমা বৈদিক পন্ডিত যিনি ১৯৭০ সালে হিন্দু ধর্মে দীক্ষিত হন এবং আচার্য অবধুত শাস্ত্রীর কাছ থেকে শ্রী বামাদেব শাস্ত্রী নাম গ্রহণ করেন।

ডেভিড ফ্রলে ( বামাদেব শাস্ত্রী)
David Frawley.jpg
২০০৭ সালে ডেভিড ফ্রলে
জন্ম (1950-09-21) সেপ্টেম্বর ২১, ১৯৫০ (বয়স ৭০)
উইসকনসিন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
জাতীয়তামার্কিন
পেশাবেদাচার্য, আয়ুর্বেদিক শিক্ষক, বৈদিক জ্যোতিষ, লেখক
দাম্পত্য সঙ্গীযোগিনী শম্ভবী চোপড়া
ওয়েবসাইটwww.vedanet.com

জীবনসম্পাদনা

ডেভিড ফ্রলে আমেরিকায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বর্তমানে একজন যোগ শিক্ষক এবং বেদ বিশেষজ্ঞ। তিনি মূলত মহর্ষি দয়ানন্দ কর্তৃক অনুপ্রানিত শ্রী অরবিন্দ এর ভাবধারী যিনি আমেরিকান ইনস্টিটিউট অব বেদিক স্টাডিস,সান ফে,নিউ ম্যক্সিকোর প্রধান। তাঁকে জর্জ ফুরস্টেইন ও এন্ড্রু হার্ভের সাথে পশ্চিমা বিশ্বের সেরা তিনজন বৈদিক পন্ডিতদের একজন ধরা হয়। ড. ফ্রলে মূলত বেদ,যোগ,আয়ুর্বেদ নিয়ে গবেষণা করেন। ২০০০ সালে তাঁর বিখ্যাত বই 'হাউ আই বিকেম এ হিন্দু' বইটি প্রকাশিত হয়।এছাড়া বিবেকানন্দের সার্ধশত জন্মবার্ষিকীতে তাঁর আরেকটি বই,"Vivekananda,the maker of modern era" প্রকাশিত হয়। তিনি তাঁর অন্যতম গ্রন্থ 'ইন সার্চ অব ক্রেডল অব বেদিক সিভিলাইজেশন' বইটিতে আর্য আগমন তত্ত্বের খন্ডন করেন এবং সমগ্র পৃথিবীতে একসময় বৈদিক সভ্যতা বিরাজ করার প্রমাণ উপস্থাপন দেন। ২০০২ সালের আগস্ট মাসে The Sonaton Hindu পত্রিকায় তাঁর দুটি প্রবন্ধ প্রকাশিত হয় যাতে তিনি পশ্চিমা ম্যাক্স মুলার,গ্রিফিথ ও পূর্বের সায়নদের কর্তৃক বেদের বিকৃত ভাষ্য ও অনুবাদের কঠোর সমালোচনা করেন[১]

পুরস্কারসম্পাদনা

২০১৫ সালে দক্ষিণাঞ্চলীয় শিক্ষা সমিতি (এসআইইএস)দ্বারা ভারতের মুম্বাইয়ে(যা কাঞ্চি কামাকোটি পিঠম অনুমোদিত) তাকে "বিশেষত জাতীয় ক্ষেত্রের আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞ হিসাবে" "জাতীয় সম্মাননা পুরস্কার" দিয়েছিল আয়ুর্বেদ, যোগ, এবং বৈদিক জ্যোতিষে বিশেষ অবদানের জন্য[২]। ২ জানুয়ারী ২০১৫, ভারত সরকার ফ্রলেকে পদ্মভূষণ সম্মাননা দিয়ে সম্মানিত করে[৩]

বইসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. U Mahesh Prabhu (২০১৪-০৭-০১)। "Welcome to the American Institute of Vedic Studies"American Institute of Vedic Studies (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-১৩ 
  2. "Suresh Prabhu gets SIES award for national eminence"। Economic Times। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসে ২০১৫ 
  3. "Padma Awards 2015"। Press Information Bureau। ২৮ জানুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জানুয়ারি ২০১৫ 

বাহ্যিক লিঙ্কসম্পাদনা