টেলিপ্যাথি

মন জানাজানি

টেলিপ্যাথি হচ্ছে এক ব্যক্তি থেকে অন্য ব্যক্তির কাছে বার্তা প্রেরণের মাধ্যম যেখানে কোনো সাধারণ মাধ্যম অথবা শরীরের বাহ্যিক অঙ্গ ব্যবহার করা হয় না। টেলিপ্যাথিতে শারীরিক কার্যকলাপের তেমন কোনো ভূমিকা নেই। এটি সাধারণত মনের ক্ষমতা ব্যবহার করে করা হয় যাকে অনেকে ষষ্ঠ ইন্দ্রিয় বা তৃতীয় নয়ন বলে থাকে।[১]

টেলিপ্যাথি

ইতিহাসসম্পাদনা

অধিকাংশ ঐতিহাসিক এবং বিজ্ঞানীদের মতে টেলিপ্যাথি ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে আবিষ্কৃত হতে পারে [২]

বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিভঙ্গিসম্পাদনা

টেলিপ্যাথি বোঝার জন্য বরাবরই বিজ্ঞানীরা নানা গবেষণা করে আসছেন,তবে এখনও এটির সপক্ষে কোনো বৈজ্ঞানিক যুক্তি খুঁজে পাওয়া যায়নি যার দ্বারা এটির সত্যতা প্রমাণিত হয়[৩][৪]। তবে কিছু দার্শনিক,গবেষক এবং বিজ্ঞানী বিশ্বাস করেন যে এটি কোনো কল্পনা নয়।যদিও তারা এর পক্ষে কোনো অকাট্য যুক্তি ও প্রমাণ দিতে পারেন নি।

কল্পকাহিনীতে ব্যবহারসম্পাদনা

টেলিপ্যাথি বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীতে ব্যবহৃত হয়েছে এবং তা যথেষ্ট জনপ্রিয়তাও অর্জন করেছে। এটি জন্যপ্রিয়তা পাওয়ার কারণে বিভিন্ন কল্পকাহিনীমূলক চলচ্চিত্র এবং গল্পেও ব্যবহার করা হয়।

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "এবার আসছে টেলিপ্যাথি মেইল"বাংলাদেশ প্রতিদিন। এপ্রিল ১, ২০১৭। 
  2. Oppenheim, Janet. (১৯৮৫)। The Other World: Spiritualism and Psychical Research in England, ১৮৫০-১৯১৪. কেমব্রীজ ইউনিভার্সিটি প্রেস। পৃ. ১৩৫-২৪৯। আইএসবিএন ৯৭৮-০৫২১২৬৫০৫৮ আইএসবিএন বৈধ নয়
  3. Simon Hoggart, Mike Hutchinson. (১৯৯৫). Bizarre Beliefs. Richard Cohen Books. পৃ. ১৪৫। আইএসবিএন ৯৭৮-১৫৭৩৯২১৫৬৫ আইএসবিএন বৈধ নয়
  4. Robert Cogan. (১৯৯৮). Critical Thinking: Step by step. ইউনিভার্সিটি প্রেস অব আমেরিকা। পৃ. ২২৭। আইএসবিএন ৯৭৮-০৭৬১৮১০৬৭৪ আইএসবিএন বৈধ নয়

টেমপ্লেট:Parapsychology টেমপ্লেট:Pseudoscience