তিন গিরিসংকটের বাঁধ, চীন। এটি জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের বাঁধ এবং পৃথিবীর বৃহত্তম শক্তি উৎপাদন কেন্দ্র।
সেন্ট অ্যান্টনি ফলস, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, এখানে আটার কলে জলবিদ্যুৎ ব্যবহৃত হত।

জল শক্তি বা জলবিদ্যুৎ (গ্রিক থেকে: ύδωρ, "জল") হল পতনশীল বা চলমান জলের শক্তি, যা দরকারী উদ্দেশ্যে সরবরাহ করা যেতে পারে। প্রাচীনকাল থেকেই অনেক ধরনের ওয়াটারমিল থেকে জলবিদ্যুৎ, সেচ জন্য নবায়নযোগ্য শক্তির উৎস এবং এই ধরনের গ্রিস্টমিল, সায়মিল, টেক্সটাইল মিল, ট্রিপ হাতুড়ি, ডক সারস গার্হস্থ্য ওপরও এবং আকরিক মিলের বিভিন্ন যান্ত্রিক ডিভাইস, চালনার জন্য ব্যবহার করা হয়েছে জল শক্তি। একটি ট্রোম্প, যা পানি স্খলন থেকে সংকুচিত হাওয়া উৎপন্ন করে, কখনও কখনও একটি দুরত্ব অন্যান্য যন্ত্রপাতি ক্ষমতায় ব্যবহার করা হয়।

১৯ শতাব্দীর মধ্যে, জল শক্তি বিদ্যুৎ উৎপাদিত জন্য একটি উৎস হয়ে ওঠে। এর মধ্যে নর্থআম্বারল্যান্ড ক্রাগসাইট ১৮৭৮[১] সালে জল শক্তি দ্বারা চালিত প্রথম ঘর এবং প্রথম বাণিজ্যিক জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র ১৮৭৯ সালে নায়াগ্রা জলপ্রপাত- এ নির্মিত হয়েছিল। ১৮৮১ সালে নায়াগ্রা জলপ্রপাত এর জল শক্তি থেকে উৎপাদিত জলবিদ্যুৎ দ্বারা শহরের রাস্তায় আলো জ্বালানো হয়।

২০ শতাব্দীর প্রথম দিকে যেহেতু শব্দটি জলবিদ্যুৎ আধুনিক উন্নয়ন সাথে প্রায় একচেটিয়াভাবে ব্যবহার করা হয়েছে। বায়ুমন্ডলে কার্বন কম পরিমাণে যোগ ছাড়া যেমন অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য বিশ্ব ব্যাংকের দৃশ্য একটি উপায় হিসেবে জলবিদ্যুৎ আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান, কিন্তু বাঁধের উল্লেখযোগ্য নেতিবাচক সামাজিক ও পরিবেশগত প্রভাব থাকতে পারে।

[২][৩]

ইতিহাসসম্পাদনা

 
সরাসরি জলচালিত আকরিক মিল, উনিশ শতকের শেষের দিকে

ভারতে, জল চাকার এবং ওয়াটরমিল তৈরী করা হয়েছে; রোম সাম্রাজ্যে, জল চালিত মিলে শস্য থেকে ময়দা উত্পাদিত হত, এবং কাঠ ও পাথর করাতের জন্য ব্যবহার করা হয়; চীন মধ্যে, ওয়াটার মিল ব্যাপকভাবে হান রাজবংশ থেকে ব্যবহার করা হয়। চীন এবং এখানে ইস্ট বাকি সালে হাইড্রোলিক পরিচালিত "পাত্র চাকা" পাম্প ফসল বা সেচ খালে জল উত্তলিত হত। একটি ট্যাংক থেকে মুক্ত জলের তরঙ্গ শক্তি পদ্ধতিতে ধাতু আকরিক থেকে ধাতু নিষ্কাশন জন্য ব্যবহৃত হত জল শক্তি যা ঢাকচাক হিসাবে পরিচিত। পদ্ধতিটি প্রথম ৭৫ খ্রিষ্টাব্দ থেকে ওয়েলসে ডোলাওকোথি স্বর্ণের খনি এ ব্যবহার করা হয়, কিন্তু লাস মেডুলাস খনি- এ স্পেন উন্নত হয়েছে। ঢাকচাক ব্যাপকভাবি মধ্যযুগীয় এবং পরে সময়সীমার ব্রিটেনের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছিল লেড এবং টিনের আকরিক থেকে ধাতু বের করে আনতে।[৪] যখন ক্যালিফোর্নিয়া গোল্ড রাশ সময় ব্যবহৃত হত। অবশ্য জলবাহী খনির মধ্যে বিবর্তিত হয়েছে।

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Cragside Visitor Information"। The National Trust। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুলাই ২০১৫ 
  2. Howard Schneider (৮ মে ২০১৩)। "World Bank turns to hydropower to square development with climate change"The Washington Post। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০১৩ 
  3. Nikolaisen, Per-Ivar . "12 mega dams that changed the world (in Norwegian)" In English Teknisk Ukeblad, 17 January 2015. Retrieved 22 January 2015.
  4. Hunt, Robert (১৮৮৭)। British Mining: A Treatise in the History, Discovery, Practical Development, and Future Prospects of Metalliferous Mines of the United Kingdom (2nd সংস্করণ)। London: Crosby Lockwood and Co। পৃষ্ঠা 505। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০১৫