খানদেশ হলো মধ্য ভারতের একটি ভৌগোলিক অঞ্চল, এটি মহারাষ্ট্রের উত্তর-পশ্চিম অংশ এবং মধ্যপ্রদেশের বুরহানপুর জেলার অংশ নিয়ে গঠিত।[১]

খানদেশ
ঐতিহাসিক অঞ্চল
ধুলে জেলায় তাপি নদীর ভূদৃশ্য।
নীল: মহারাষ্ট্রে খানদেশ; হালকা নীল: মধ্যপ্রদেশে খানদেশ (বুরহানপুর)
নীল: মহারাষ্ট্রে খানদেশ; হালকা নীল: মধ্যপ্রদেশে খানদেশ (বুরহানপুর)
দেশভারত
রাজ্যমহারাষ্ট্রমধ্যপ্রদেশ
জেলা১. জলগাঁও
২. ধুলে
৩. নন্দুরবার
৪. বুরহানপুর
বৃহত্তম শহরজলগাঁও
ভাষামারাঠি, খানদেশি
উচ্চতা২৪০ মিটার (৭৯০ ফুট)
বিশেষণখানদেশি
মহারাষ্ট্রের খানদেশ অঞ্চল নিয়ে গঠিত এলাকা।
খানদেশের মানচিত্র

এই অঞ্চলের বহুল প্রচলিত ভাষাটি হচ্ছে আহিরানি ভাষা, তবে এই অঞ্চলের নাম অনুযায়ী ভাষাটিকে খানদেশি ভাষা বলা হয়।

মারাঠির সাথে এই ভাষার পারস্পরিক বোধগম্যতার কারণে অনেক সময় ভাষাটিকে মারাঠি ভাষার উপভাষা হিসেবে বিবেচনা করা হয়, এবং সে কারণেই এই অঞ্চলের মানুষ ভাষা হিসেবে মরঠিকে বেছে নেয়, ফলে আদমশুমারিতে এর ভাষাভাষীর সংখ্যা কম মনে হয়।

খানদেশ পশ্চিম ভারতে মহারাষ্ট্রের উত্তর-পশ্চিম কোণে, তাপ্তি নদীর উপত্যকায় অবস্থিত। এটি উত্তরে সাতপুরা রেঞ্জ দ্বারা, পূর্বে বেরার (ভারহাদ) অঞ্চল দ্বারা, দক্ষিণে অজন্তার পাহাড় (মহারাষ্ট্রের মারাঠওয়াড়া অঞ্চলের অন্তর্গত) এবং পশ্চিমে পশ্চিমঘাট পর্বতমালার উত্তরাংশ দ্বারা আবদ্ধ।

এই অঞ্চলের প্রধান প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্য হল তাপি নদী[২] দাক্ষিণাত্যের বাকি অংশের বিপরীতে, যার নদীগুলি পশ্চিমঘাটে উঠে বঙ্গোপসাগরে পূর্ব দিকে প্রবাহিত হয়, তাপি দক্ষিণ মধ্যপ্রদেশের হেডওয়াটার থেকে আরব সাগরে খালি হয়ে পশ্চিম দিকে প্রবাহিত হয়। তাপি নদীর তেরোটি প্রধান উপনদীর উৎপত্তি খানদেশে অঞ্চলে। এই নদীগুলির মধ্যে কোনটিই নৌচলাচলের যোগ্য নয়, এবং তাপি একটি গভীর খাতে প্রবাহিত হয় যা ঐতিহাসিকভাবে সেচের জন্য ব্যবহার করা কঠিন করে তুলেছে। খানদেশ অঞ্চলের অধিকাংশ এলাকা তাপি নদীর দক্ষিণে অবস্থিত এবং গিরনা, বোরি এবং পাঞ্জরা ইত্যাদি উপনদীর মাধ্যমে নিষ্কাশিত হয়। তাপির উত্তরে পলল সমভূমিতে খানদেশের কিছু উর্বর এলাকা রয়েছে এবং ধিরে ধিরে উচু হয়ে সাতপুরা পাহাড়ের দিকে উচ্চভূমিতে মিশেছে। অনুর্বর নিম্ন পাহাড়ের সম্বলিত কিছু এলাকা ছাড়া মধ্য ও পূর্বের এলাকাগুলো সমতল। উত্তর ও পশ্চিমে, সমভূমি এলাকটি রুক্ষ পাহাড়ে উত্থিত হয়ে ঘন জঙ্গলে পরিণত হয়েছে এবং এই এলাকায় মূলত ভীল উপজাতি মানুষ বসবাস করে।[৩]

আরও দেখুন

সম্পাদনা

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "Welcome to Khandesh!"। Khandesh.com। ২০১৭-০৮-১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-০১ 
  2. Patil, M.V. (২০১৫)। An Inventory on Agrobiodiversity and Homestead Gardens in Tribal Tehsils of Khandesh Maharashtra। North Maharashtra University। পৃষ্ঠা Chapter 6–1। 
  3.   One or more of the preceding sentences একটি প্রকাশন থেকে অন্তর্ভুক্ত পাঠ্য যা বর্তমানে পাবলিক ডোমেইনেচিসাম, হিউ, সম্পাদক (১৯১১)। "Khandesh, East and West"। ব্রিটিশ বিশ্বকোষ15 (১১তম সংস্করণ)। কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস। পৃষ্ঠা 771। 

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা