গ্রিক পুরাণ অনুসারে ক্লিও (/ˈkl./; গ্রিক: Κλειώ; অর্থ: "বিখ্যাত বানানো") যাকে কখনো কখনো ক্লেয়ো[১] বলেও সম্বোধন করা হয়, ছিলেন ইতিহাসের মিউজ.[২]; কোন কোন পুরাণে তাকে সুরের লহরের দেবী বলেও চিহ্নিত করা হয়েছে।[৩] অন্যান্য সকল মিউজদের ন্যায় তিনিও ছিলেন দেবতা জিউস এবং টাইটান দেবী নেমোসাইনে-এর সন্তান।

পুরোনো সিনেট চেম্বারে অবস্থিত রথ ঘড়ি যা ১৮১৯ সালে কার্লো ফ্রাঞ্জোনি কর্তৃক 'ইতিহাসের গাড়ি' শিরোনামে দেবী ক্লিও-এর ভাস্কর্য।
আর্টেমসিয়া জেন্টিলিসি অঙ্কিত ক্লিও: ইতিহাসের মিউস চিত্র।
পিয়েরে মিগনার্ড অঙ্কিত ক্লিও চিত্র।

প্রাচীন ভূমধ্যসাগরের পূর্ব প্রান্তে ঈজিয়ান সমূদ্রের তীরে গড়ে উঠেছিলো  মহান গ্রীক সভ্যতা। গ্রীক এবং রোমান পুরাণে নয়জন দেবীর অনেক গল্প আছে। এরা জিউস এবং মেনোমসিনের কন্যা; একত্রে এঁদের Nine muses বলা হয়। এঁদের নামগুলি যথাক্রমে, কাল্লিয়োপে,  ক্লিও, এরাতো, এউতের্পে, মেল্পোমেনে, পলিহিম্নিয়া, তের্প্সিকোরে, থালিয়া এবং উরানিয়া  ।  এই নয়জন দেবী হলেন দেবতাদের রাজা জিউসের কন্যা এবং তাঁদের মা হলেন স্মৃতির দেবী মেনোমসিন। জিউস এবং মেনোমসিন জুটি পরপর নয় রাত জুড়ে একত্রে থাকার পরে একসঙ্গে এঁদের জন্ম হয়েছিল। প্রতিটি মিউজ সুদৃশ্য, করুণাময় এবং লোভনীয় এবং একটি বিশেষ শৈল্পিক প্রতিভা সহ মাইথোলজীতে বিবৃত বা উপস্থিত হয়েছেন। মিউজগুলি তাদের গান, নাচ এবং কবিতা  দিয়ে দেবতা ও মানবকে আনন্দিত করে এবং মানব শিল্পীদের আরও শৈল্পিক কৃতিত্বের জন্য অনুপ্রাণিত করতেন। জনশ্রুতি মোতাবেক, মিউজদেরকে বিভিন্ন মাউন্টে বসবাসকারী হিসাবে বর্ণনা  করা হয়েছিল l মাউন্ট অলিম্পাস, মাউন্টেন হেলিকন (বোয়েটিয়ায়), বা মাউন্ট পার্নাসাস। তাঁরা দেখতে সুন্দর ছিল এবং আশ্চর্যজনক হলো তাঁদের স্ব স্ব বিষয়ভিত্তিক প্রতিভা মাইথোলজীতে চ্যালেঞ্জ করা হয়নি।  কল্পকাহিনীতে অবধারিতভাবে চূড়ান্ত প্রতিদ্বন্দ্বীর সাথে সম্পর্কিত চ্যালেঞ্জের একটা বিষয় থাকে এবং  চ্যালেঞ্জটিতে পরাজিত হলে এক ভয়াবহ শাস্তি ভোগ করতেও হয়।


একটি পৌরাণিক  কাহিনী অনুসারে, ম্যাসিডোনের রাজা পিয়েরাস এর ঔরসজাত নয়টি কণ্যা জন্ম নেয়। রাজা পিয়েরাস তাঁর নয়টি কন্যার নাম মুইসদের নামেি রেখেছিলেন, তিনি বিশ্বাস করেছিলেন যে নামের বদৌলতে কণ্যাগণ হয়তবা মিউজদের মতোই সুন্দরী এবং মেধাবী হয়ে উঠবে। কিন্তু এর ফলে হিতে বিপরীত হয়েছিল, পিয়েরাসের কন্যারা সকলেই দোয়েল পাখিতে পরিণত হয়েছিল। মুইজ বা দেবীদের সম্পর্কিত তথ্যাদি  গ্রিস এবং এর বাইরে্র প্রাচীণ সাহিত্য, চিত্রকর্ম এবং ভাস্কর্যগুলিতে বিভিন্ন ভাব ও মাত্রায় হাজির রয়েছে। খ্রিস্টপূর্ব পঞ্চম এবং চতুর্থ শতাব্দীতে  ব্যবহৃত লাল এবং কালো মৃৎশিল্পগুলিতে প্রায়শঃই মিউজদের চিত্রাদি অংকিত থাকতে দেখা যেত। ফলে প্রমাণিত হয় যে মিউজেরা বেশ জনপ্রিয় ছিল; তাঁরা শতাব্দী জুড়ে বিজ্ঞান, চিত্রকলা, আর্কিটেকচার, ভাস্কর্য, এবং নৃত্যকলা  প্রতিটি ক্ষেত্রে  তাঁদের নিজস্বতা ও প্রতীক নিয়ে প্রতিনিধিত্বকারী হিসেবে হাজির হয়েছেন।  এঁদের একজন ক্লিও (Clio অথবা Kleio লেখা হয়)  যিনি অতিপ্রাচীণ মাইথোলজীগুলিতে সঙ্গীত, গান এবং নাচের দেবী হিসেবে এবং  পরবর্ত্তীতর ইতিহাসের দেবী হিসেবে উপস্থিত হয়ে আসছেন।প্রাচীণ গ্রীক ভাষার  ক্লিও শব্দের অর্থ  প্রচারক , ঘোষণাকারী, দি প্রক্লেইমার (The Pro claimer). গ্রীক  পুরাণ ছাড়াও রোমান পুরাণে দেবতা জীউস ও মেনোমসিণের  নয়কণ্যার কেচ্ছা-কাহিনী বিবৃত আছে। । অতীতের এসব ঐতিহ্যবাহী কাহিনী মানব সভ্যতার ক্রমঃউত্তরণে, শিল্পী, দার্শনিক এবং ব্যক্তিদেরকে সৃষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় অনুপ্রেরণা দিয়েছিল এবং কৃষ্টি, শিল্প ও সংস্কৃতিতে গভীর প্রভাব বিস্তার করে চলেছে ।   

২য় শতকের একটি রোমান প্রস্তরচিত্রে নয়জন দেবীর সাক্ষাত পাওয়া যায়, প্রস্তরচিত্রটি ( “Muses Sarcophagus”) লুভর মিউজিয়ামে সংরক্ষিত আছে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Harvey, Paul (১৯৮৪)। "Clio"। The Oxford Companion to Classical Literature (Revised 1984 সংস্করণ)। Oxford: Oxford University Press। পৃষ্ঠা 110। আইএসবিএন 0-19-281490-7 
  2. Leeming, David (২০০৫)। "Muses"। The Oxford Companion to World Mythology। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 274। আইএসবিএন 978-0-19-515669-0 
  3. Morford, Mark P. O.; Lenardon, Robert J. (১৯৭১)। Classical Mythology। New York: David McKay Company। পৃষ্ঠা 56–57। আইএসবিএন 0-679-30028-7