কোটা রানি (মৃত্যু: ১৩৩৯), কাশ্মীরে হিন্দু লোহারা রাজবংশের শেষ শাসক ছিলেন। তিনি তার ছেলের নাবালকত্বকালীন সময়ের শাসক ছিলেন এবং ১৩৩৯ সাল পর্যন্ত রানি হিসাবে রাজত্ব করেছিলেন। তিনি শাহ মীর দ্বারা পদচ্যুত হন, যিনি কাশ্মীরের প্রথম মুসলিম শাসক হয়েছিলেন।

জীবনীসম্পাদনা

কোটা রানি কাশ্মীরের লোহারা রাজবংশের রাজা সুহাদেবের সর্বাধিনায়ক রামচন্দ্রের কন্যা ছিলেন। [১] রামচন্দ্র একজন প্রশাসক নিয়োগ করেছিলেন, যার নাম রিঞ্চন, তিনি একজন লাদাখী ছিলেন। রিঞ্চন উচ্চাভিলাষী হয়ে ওঠেন। তিনি বণিকদের ছদ্মবেশে দুর্গে একটি বাহিনী প্রেরণ করেছিলেন, যারা বিস্মিত রামচন্দ্রের লোকদের নিয়ে গিয়েছিলেন। [১] [পৃষ্ঠা নম্বর প্রয়োজন] রামচন্দ্রকে হত্যা করা হয়েছিল এবং তার পরিবারকে বন্দী করা হয়েছিল।

স্থানীয় সমর্থন অর্জনের জন্য, রিঞ্চন রামচন্দ্রের পুত্র রাবণচন্দ্রকে লার এবং লাদাখের প্রশাসক নিযুক্ত করেছিলেন এবং তাঁর বোন কোটা রানিকে বিয়ে করেছিলেন। তিনি শাহ মীরকে বিশ্বস্ত রাজসভাসদ হিসাবে নিয়োগ করেছিলেন, যিনি আগেই কাশ্মীরে প্রবেশ করেছিলেন এবং তাকে সরকারে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। রিঞ্চন ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিলেন এবং সুলতান সদরউদ্দিন নাম গ্রহণ করেছিলেন। তিন বছর শাসনকার্য পরিচালনার পর তিনি গুপ্তহত্যার স্বীকার হন।

রাজত্বসম্পাদনা

কোটা রানি প্রথমে রিঞ্চনের ছোট ছেলের শাসক হিসাবে নিয়োগ পেয়েছিলেন। পরে তিনি প্রবীণদের পরামর্শে উদয়নদেবকে বিয়ে করতে রাজি করেছিলেন। উদয়নদেব ১৩৩৮ সালে মারা যান।

কোটা রানির দুইটি ছেলে ছিল। রিঞ্চনের পুত্র শাহ মীরের দায়িত্বে ছিলেন এবং উদয়নদেবের পুত্রকে ভট্ট ভিক্ষণ শিক্ষা দিয়েছিলেন। কোটা রানি তার নিজ অধিকারে শাসক পদে আসীন হয়েছিলেন এবং ভট্ট ভিক্ষণকে তাঁর প্রধানমন্ত্রী নিযুক্ত করেছিলেন।

শাহ মীর অসুস্থ হওয়ার ভান করেছিলেন, এবং ভট্ট ভিক্ষণ তাঁর সাথে দেখা করতে গেলে শাহ মীর তার বিছানা থেকে লাফিয়ে উঠে তাকে হত্যা করেন। [২] ঐতিহাসিক জোনরাজের মতে, কোটা রানি আত্মহত্যা করেছিলেন এবং বিবাহের উপহার হিসাবে তাঁর নিজের অন্ত্র প্রস্তাব করেছিলেন। তাঁর ছেলেদের কী হয়েছিল তা পরে আর জানা যায়নি।

উত্তরাধিকারসম্পাদনা

তিনি খুব বুদ্ধিমান এবং দুর্দান্ত চিন্তাবিদ ছিলেন। তিনি শ্রীনগর শহরকে ঘনঘন বন্যার হাত থেকে বাঁচিয়েছিলেন, একটি খাল খনন করে, যার নামকরণ করা হয়েছিল তার নিজের নামের সাথে মিল রেখে "কুটে কোল"। এই খালটি শহরে প্রবেশের মুখে ঝিলাম নদী থেকে পানি পায় এবং শহরের সীমানা ঘুরে আবার ঝিলাম নদীতেই মিশে যায়।

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতেসম্পাদনা

রাকেশ কৌলের ঐতিহাসিক উপন্যাস ''দ্য লাস্ট কুইন অফ কাশ্মির'' কোটা রানির জীবন ও কিংবদন্তি অবলম্বনে নির্মিত। [৩]

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Hasan, Kashmir under the Sultans 1959
  2. Culture and political history of Kashmir, Prithivi Nath Kaul Bamzai, M.D. Publications Pvt. Ltd., 1994.
  3. Mihir Balantrapu, Kota, the fortress (Book review of The Last Queen of Kashmir), The Hindu, 5 August 2016.

গ্রন্থ-পঁজীসম্পাদনা

  • Kashmir under the Sultans, ১৯৫৯  Kashmir under the Sultans, ১৯৫৯