কিষাণগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন

ভারতের বিহারের রেলওয়ে স্টেশন

কিশানগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন ভারতের বিহার রাজ্যের কিশানগঞ্জ জেলার কিষাণগঞ্জ শহরে পরিসেষা প্রদান করে।এটি গুরুত্বপূর্ণ রেলওয়ে স্টেশনগুলির মধ্যে একটি, কারণ এটি গুরুত্বপূর্ণ রেললাইনের উপর অবস্থিত, সেগুলি হল হাওড়া-নিউ জলপাইগুড়ি লাইন, কাটিহার-শিলিগুড়ি লাইন এবং বারাউনি-গৌহাটি লাইন ।কিষাণগঞ্জের কাছে গাইসাল রেলওয়ে স্টেশনে বিখ্যাত গইসাল ট্রেন বিপর্যয় ঘটেছে।

কিষাণগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন किशनगंज
Kishanganj
کشن گنج
Indian Railways Suburban Railway Logo.svg ভারতীয় রেল স্টেশন
Kishanganj at night.jpg
অবস্থানকিশানগঞ্জ জেলা বিহার
ভারত
স্থানাঙ্ক২৬°০৫′৫৩″ উত্তর ৮৭°৫৭′০১″ পূর্ব / ২৬.০৯৮০২° উত্তর ৮৭.৯৫০১৭° পূর্ব / 26.09802; 87.95017
উচ্চতা৫৩.০০ মিটার (১৭৩.৮৮ ফু)
মালিকানাধীনভারতীয় রেল
পরিচালিতউত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেল
লাইন
প্ল্যাটফর্ম
রেলপথ
নির্মাণ
গঠনের ধরনআদর্শ
পার্কিংআছে
অন্য তথ্য
অবস্থাসক্রিয়
স্টেশন কোডKNE
অঞ্চল উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেল
বিভাগ কাটিহার রেলওয়ে স্টেশন
ইতিহাস
চালু১৮১৫
আগের নামদার্জিলিং হিমালয়ান রেল
অবস্থান
কিষাণগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন বিহার-এ অবস্থিত
কিষাণগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন
কিষাণগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন
বিহারের মানচিত্র #ভারতের মানচিত্র
কিষাণগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন ভারত-এ অবস্থিত
কিষাণগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন
কিষাণগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন
বিহারের মানচিত্র #ভারতের মানচিত্র
কিষাণগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনের নামফলক, বিহার।

ইতিহাসসম্পাদনা

দার্জিলিং হিমালয়ান রেলওয়ে  ১৯১৫ সালে শিলিগুড়ি থেকে কিষাণগঞ্জ পর্যন্ত প্রশস্ত ন্যারো-গেজ লাইন সম্প্রসারণ করে। ১৯৪৮-৫০ সালে, দার্জিলিং হিমালয়ান রেলওয়ের কিষাণগঞ্জ শাখাকে আসাম রেল লিঙ্ক প্রকল্পটি সম্পূর্ণ করার উদ্দেশ্যে নেওয়া হয়, যা ন্যারোগেজ -এ রূপান্তরিত হয়। মিটার গেজ এবং বারসোইতে উত্তর পূর্ব রেলওয়ে নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত। [১] এলাকার রেললাইনগুলি ১৯৬০ সালে ব্রডগেজে রূপান্তরিত হয়।

 
কিষাণগঞ্জ

সুযোগ-সুবিধাসম্পাদনা

কিষাণগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনে নিম্নলিখিত সুবিধা রয়েছে: কম্পিউটারাইজড রেলওয়ে রিজার্ভেশন সিস্টেম, ওয়েটিং রুম, ফ্রি গুগল ওয়াইফাই, রিটায়ারিং রুম নিরামিষ এবং আমিষ খাবারের কক্ষ, বুকস্টল এবং সরকারি রেলওয়ে পুলিশ (জিআরপি) অফিস।

প্ল্যাটফর্মসম্পাদনা

কিশানগঞ্জে দুটি প্ল্যাটফর্ম রয়েছে এবং একটি নির্মাণাধীন, একটি আপ এবং অন্যটি ডাউন ট্রেনের জন্য। মালবাহী ট্রেন থেকে পণ্য আনলোড করার জন্য একটি ছোট প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করা হয়। সমস্ত প্ল্যাটফর্ম দুটি ফুট ওভারব্রিজের (এফওবি) সাথে ভালভাবে সংযুক্ত।

মূল ট্রেনসম্পাদনা

এখন পর্যন্ত, ১৫৭১৫ গরীব নওয়াজ এক্সপ্রেস কিষাণগঞ্জ থেকে দিল্লি হয়ে আজমিরের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে। ত্রি-সাপ্তাহিক ট্রেনটি প্রতি মঙ্গল, শুক্র এবং রবিবার সকাল ৬ টায় আজমিরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। ট্রেনটি তার ফিরতি যাত্রায় প্রতি সোম, মঙ্গলবার এবং বৃহস্পতিবার সকাল ৩ টা ৩০ মিনিটে পৌঁছায়।

অ-উৎপত্তিগত ট্রেনসম্পাদনা

  • কলকাতার জন্য মোট ২২টি ট্রেন (০১ শতাব্দী, ০১ হামসফর, ০১টি গরীব রথ এবং ০১টি এসি এক্সপ্রেস সহ)
  • নয়াদিল্লির জন্য মোট ১২টি ট্রেন (০৩টি রাজধানী এক্সপ্রেস সহ)
  • চেন্নাইয়ের জন্য মোট ০৭টি ট্রেন (০১টি হামসাফার এবং ০১টি এসি এক্সপ্রেস সহ)
  • বেঙ্গালুরুর জন্য মোট ০৪টি ট্রেন (০১টি হামসাফার এবং ০১টি এসি এক্সপ্রেস সহ)
  • উভয় দিক থেকে মোট ১৪১টি ট্রেন চলাচল করে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Alastair Boobyer। "India: the complex history of the junctions at Siliguri and New Jalpaiguri"। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১২-১০