কাস্তে

কৃষি যন্ত্র

কাস্তে ফসল কাটার কাজে ব্যবহৃত বাঁকা চাঁদের মত গঠনের হাতলওয়ালা একধরনের যন্ত্র। অনেক প্রাচীন কাল থেকেই এই যন্ত্রটির ব্যবহার হয়ে আসছে। সাধারণত কাস্তে বা কাচির অবতল দিক খাজকাটা ভাবে ধারালো করা থাকে।

কাস্তে

ইতিহাসসম্পাদনা

মেসোপটেমিয়ায় কাস্তের বিকাশ সেই সময়ের আগে নিওলিথিক যুগেও পাওয়া গেছে। ইসলায়েলের আশেপাশের এলাকায় খননকালে প্রচুর পরিমাণে কাস্তের ব্লেড পা ওয়া গেছে যা এপিপালিওলিথিক (খ্রিস্টপূর্ব ১৮০০০-৮০০০) যুগের। [১]

বানানোর পদ্ধতিসম্পাদনা

কাস্তে তৈরীর জন্য লাগবে লোহা। লোহাকে কয়লার আগুনে পুড়িয়ে লাল রং করা হয়। তারপর লাল লোহাকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে কাস্তে তৈরি করা হয়। এভাবে বেশ কয়েকবার পুড়িয়ে এবং হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে তৈরি করা হয় কাস্তে। কাস্তে তৈরীর কারিগরকে কামার বলা হয়।

ব্যবহারসম্পাদনা

বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে কাস্তে কৃষি কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। ধান পাকার পরে কৃষকেরা ধান কাটতে এটি ব্যবহার করে। এছাড়া গবাদিপশুর ঘাস, লতাপাতা এবং অন্যান্য অনেক সবজি ফসল কাস্তে দিয়ে কেটে সংগ্রহ করা হয়। এভাবেই বহু যুগ ধরে কাস্তে ব্যবহার হয়ে আসছে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Unger-Hamilton, Romana (জুলাই ১৯৮৫)। "Microscopic Striations on Flint Sickle-Blades as an Indication of Plant Cultivation: Preliminary Results"। World Archaeology17 (1): 121–6। ডিওআই:10.1080/00438243.1985.9979955