প্রধান মেনু খুলুন

ইয়োহানেস গুটেনবের্গ

মুদ্রণযন্ত্রের উদ্ভাবক

ইয়োহানেস গুটেনবের্গ (জার্মান: Johannes Gutenberg) জার্মানির মাইন্‌ৎস শহরে ১৩৯৮ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি স্যাকরার দোকানে কাজ করতেন। ১৪১৯ থেকে ১৪৩৪ পর্যন্ত তাঁর ব্যাপারে তেমন কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। ১৪৩৪ সালের মার্চ মাসে তাঁর লেখা একটি চিঠি থেকে জানা যায় যে তিনি ষ্ট্রাসবুর্গ শহরে বসবাস করছিলেন। সেখানে তিনি কমপক্ষে ১৪৪৪ সাল অবধি ছিলেন। ১৪৪০ সালে তিনি ছাপাকল তৈরি পদ্ধতির উপর তাঁর গবেষণা প্রকাশ করেন।

ইয়োহানেস গুটেনবের্গ
Johannes Gutenberg.jpg
একটি ১৬ শতকের তামায় খোদাই করা গুটেনবার্গের ছবি
জন্ম১৩৯৮ সালে
মৃত্যু১৪৬৮ সালের ৩রা ফেব্রুয়ারি
পেশাখোদাই কাজ, আবিস্কারক এবং মুদ্রাকর
পরিচিতির কারণঅস্থাবর টাইপ ছাপাখানার উদ্ভাবন

তিনি একাধারে জার্মান উদ্ভাবক এবং প্রকাশক যিনি ইউরোপে মুদ্রণযন্ত্রের সাহায্যে ইউরোপে মুদ্রণ চালু করেন। যান্ত্রিক চলমান প্রকারের প্রিন্টিংয়ের প্রবর্তন; ইউরোপে প্রিন্টিং বিপ্লব শুরু করে এবং যা মানব ইতিহাসের দ্বিতীয় সহস্রাব্দের একটি মাইলফলক হিসেবে গণ্য করা হয়।এটি রেনেসাঁ এবং বৈজ্ঞানিক বিপ্লবে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এবং আধুনিক জ্ঞান ভিত্তিক অর্থনীতি এবং জনসাধারণের শিক্ষার বিস্তারের জন্য গুরুত্বপূর্ণ উপাদান এটি কাজ করে।

১৪৫৫ সালে ইয়োহান ফাউস্টের কাছে তিনি অর্থ আত্মসাত মামলায় হেরে যান। ১৪৫৭ সালে বাইবেল ছাপা হয়। ১৪৬৮ সালের ৩রা ফেব্রুয়ারি তিনি মারা যান।

গুটেনবার্গ বাইবেল, লাইব্রেরি অফ কংগ্রেস, ওয়াশিংটন, ডি.সি.

চলমান প্রকারের মুদ্রণযন্ত্রের আগে, লোকেরা ব্লক প্রিন্টিং ব্যবহার করত, যেখানে প্রিন্টারটি একটি টুকরা ধাতু বা কাঠের একটি টুকরা থেকে একটি সম্পূর্ণ পৃষ্ঠা প্রিন্ট করে। চলমান প্রকারের সাথে, মুদ্রণযন্ত্রের একটি টুকরা থেকে একটি চিঠি (A, B, C ... ...) বিভিন্ন শব্দে আবার এবং আবার এটি ব্যবহার করতে পারেন।গুটেনবার্গের এই আবিষ্কারের ফলে দ্রুত মুদ্রণ সম্ভব হয় । রেনেসাঁর সময় ইউরোপে, উন্নত তথ্য প্রযুক্তি কারনে তথ্য বিস্ফোরণ যটে - একটি সংক্ষিপ্ত সময়, মানুষ অনেক বিষয় সম্পর্কে জানতে পারে;অনেক নতুন বই মুদ্রিত হয় এই সময়ে।

গুটেনবার্গ একটি চতুর ব্যবসায়ী ছিলেন না এবং তিনি তার আবিস্কার থেকে বিক্রির প্রাপ্য টাকা পাননি।তিনি আইনি সমস্যার মধ্যে ছিলেন, এবং তার ব্যবসায়িক সঙ্গী জোহান ফউস্ট এর কাছে তার আবিষ্কৃত যন্ত্রের স্বত্ব হারান।সেই সময়ের আর্চবিশপ গুতেনবার্গের প্রতি সহানুভূতিশীল ছিলেন এবং সমাজে তার অবদানের কারনে,তাকে জামাকাপড়, ওয়াইন এবং শস্যের একটি বাৎসরিক ভাতার বাবস্থা করেন। ১৪৬৮ সালে গুটেনবার্গ মইনজে মারা যান।

বহিঃসংযোগসম্পাদনা