আহমেদ রুশদি ছিলেন একজন পাকিস্তানি নেপথ্য সংগীত শিল্পী। আহমেদ রুশদি কে দক্ষিণ এশিয়ার সর্বশ্রেষ্ঠ শিল্পীদের মধ্যে একজন হিসেবে গণ্য করা হয়। তাঁর স্বরের ভাবভঙ্গিমার জন্য তিনি বিশেষ পরিচিত। পাকিস্তানি চলচ্চিত্রের স্বর্ণযুগের একজন উল্লেখ্য ব্যক্তি হলেন আহমেদ রুশদি। [১]

আহমেদ রুশদি
Ahmed Rushdi playback singer 1954.jpg
প্রাথমিক তথ্য
জন্ম নামসায়েদ আহমেদ রুশদি
জন্ম(১৯৩৪-০৪-২৪)২৪ এপ্রিল ১৯৩৪
মৃত্যু১১ এপ্রিল ১৯৮৩(১৯৮৩-০৪-১১)

তিনি তৎকালীন হায়দরাবাদ রাষ্ট্রএ জন্মগ্রহণ করেন। তিনি পরে পাকিস্তানে স্থানান্তরিত হন। আহমেদ রুশদি কে দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম পপ শিল্পী হিসেবে গণ্য করা হয়। তাঁর গাওয়া কো কো করিনা হল দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম পপ সংগীত। সংগীতটি ছিল আরমান সিনেমার অন্তর্গত। [২][৩]

১৯৫৪ সালে আহমেদ রুশদি ও কয়েকজন সংগীতজ্ঞ মিলে পাকিস্তানের জাতীয় সংগীত রেকর্ডিং করেন। পাকিস্থানী চলচ্চিত্রের ইতিহাসে তিনি সর্বাধিক গান গেয়েছেন। তিনি উর্দু, হিন্দি, সিন্ধি, পাঞ্জাবি, বাংলা ও গুজরাটি ভাষায় গান গেয়েছেন। ১৯৫০ দশকের মধ্য থেকে ১৯৮০ দশকের সময়কালে তিনি সর্বাধিক সাফল্য পেয়েছেন।[৪] স্টেজ পারফরম্যান্স এর ক্ষেত্রেও তিনি খ্যাতি অর্জন করেন। তাঁর জীবীনকালের শেষপর্যায়ে মৃত্যুর আগে তিনি খারাপ স্বাস্থ্যে ভুগেছেন। তিনি ৪৮ বছর বয়সে মারা যান। মৃত্যুর আগে পর্যন্ত তিনি ৫৮৩টি সিনেমায় প্রায় ৫০০০ এর অধিক গান গেয়েছেন। তাঁর মৃত্যুর পরেও তিনি একাধিক সম্মানে ভূষিত হন।

তাঁর মৃত্যুর ২০ বছর পর ২০০৩ সালে তৎকালীন পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রী পারভেজ মুশাররফ তাঁকে সীতারা-এ-ইমতিয়াজ উপাধি প্রদান করেন। করাচি শহরের একটি রাস্তাও তাঁর মানে নামাঙ্কিত করা হয়েছে।[৫]

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

আহমেদ রুশদি তৎকালীন হায়দরাবাদের একটি ধার্মিক, সংস্কারমূলক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবা সায়েদ মঞ্জুর মোহাম্মদ ছিলেন হায়দরাবাদের আউরাঙ্গাবাদ কলেজের একজন অধ্যাপক। রুশদির বয়স যখন ৬, তাঁর বাবা মারা যান। ছেলেবেলা থেকেই রুশদি ছিলেন সংগীতের অনুরাগী, গান শুনতে পছন্দ করতেন। তিনি কারও কাছে সংগীত শিক্ষা লাভ করেননি। তাঁর পরিবারের কেউই সংগীতের অনুরাগী ছিল না। পরে তিনি স্থানীয় একটি সংগীতের বিদ্যালয়ে সংগীত শিক্ষা গ্রহণ করেন।

তিনি শাস্ত্রীয় সংগীতেরও অধ্যায়ন করেননি।

১৯৫১ সালে তিনি প্রথম নেপথ্যে গাওয়ার সুযোগ পান। ১৯৫৪ সালে তিনি করাচিতে চলে আসেন। ১৯৫৪ সালে প্রথম তিনি নন-ফিল্ম গান করেন।

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

৩০ নভেম্বর ১৯৬৩ সালে আহমেদ রুশদি হুমেরার সঙ্গে বিবাহিত হন। রুশদির মৃত্যুর ৯ বছর পর তাঁর স্ত্রীর মৃত্যু হয়। খারাপ স্বাস্থ্যের জন্য তিনি তাঁর কর্মজীবনের শেষ কয়েক বছরে অপেক্ষাকৃত কম গান করেন।[৬]

কর্মজীবনসম্পাদনা

তিনি পাকিস্তানি সিনেমাতে প্রায় ৫০০০ এর অধিক গানে বাগদান করেছেন। তিনি দক্ষিণ এশিয়ায় অত্যন্ত জনপ্রিয় ছিলেন। তিনি ভারত ও বাংলাদেশি চলচ্চিত্র জগতেও জনপ্রিয় ছিলেন। আহমেদ রুশদিকে দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম পপ সংগীতকার হিসেবে ধরা হয়।

মৃত্যুসম্পাদনা

আহমেদ রুশদি ১৯৭৬ সাল থেকেই হৃদরোগি ছিলেন। ডাক্তারের বারণ সত্ত্বেও তিনি গান গাওয়া চালিয়ে যান। তিনি ৪৮ বছর বয়সে মারা যান।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. https://nation.com.pk/12-Apr-2011/rushdi-remembered-as-magician-of-voice
  2. http://www.pakium.com/2010/08/19/the-history-of-pakistani-pop-music
  3. https://web.archive.org/web/20100618091924/http://www.chowk.com/articles/8459
  4. https://tribune.com.pk/story/363008/ahmed-rushdi-remembering-the-voice-of-ko-ko-korina/
  5. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১৪ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৯ 
  6. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১৮ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৯