আমানউল্লাহ আমান

বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ

আমান উল্লাহ আমান একজন বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) ভাইস চেয়ারম্যান ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও তিনি বিএনপির ঢাকা মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক এর দায়িত্ব পালন করছেন। [১]

আমান উল্লাহ আমান
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
১৯৯১ – ১৯৯৬
শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
অক্টোবর ২০০১ – ২০০৬
প্রধানমন্ত্রীখালেদা জিয়া
ঢাকা-৩ আসন আসনের
সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
১৯৯১ – ২৮ অক্টোবর ২০০৬
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1962-01-25) ২৫ জানুয়ারি ১৯৬২ (বয়স ৬০)
কেরাণীগঞ্জ, ঢাকা
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)
পেশারাজনীতিবিদ
আমান উল্লাহ আমান

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

আমান ১৯৬২ সালের ২৫ জানুয়ারি ঢাকার কেরাণীগঞ্জের হযরতপুর ইউনিয়নে জন্মগ্রহণ করেন।[২] তার পিতার নাম মেঘু মিয়া ও মাতার নাম করিমন নেসা।[২] তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেন।

রাজনৈতিক জীবনসম্পাদনা

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলে যোগদানের মাধ্যমে আমান রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। তিনি বিএনপির ঢাকা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। আমান নব্বইয়ের স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে নেতৃস্থানীয় ভূমিকায় ছিলেন।[৩] এছাড়া ১৯৯০-৯১ সেশনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সর্বশেষ নির্বাচনে ছাত্রদলে নেতা হিসেবে তিনি সহ-সভাপতি (ভিপি) নির্বাচিত হন।[৪][৫]

১৯৯১ সালের পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমান উল্লাহ আমান বিএনপির মনোনয়নে ঢাকা-৩ আসন থেকে নির্বাচন করে ৯৭,২৯৯ ভোট লাভ করেন ও তৎকালীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোস্তফা মোহসীন মন্টুকে পরাজিত করে প্রথমবারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।[৪][৬][৭] ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির একদলীয় নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়[৮]১৯৯৬ সালের সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একই আসনে ১,২৪,০৯৬ ভোট পেয়ে আওয়ামী লীগের শাহজাহানকে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।[৪][৭][৯] ২০০১ সালে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নসরুল হামিদকে পরাজিত করে ১,৬৯,৯৮০ ভোট পেয়ে পুনরায় বিজয়ী হন।[৭][১০][১১]

১৯৯১ সালের নির্বাচনের পর বিএনপি সরকার গঠন করলে আমান প্রথমে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পান।[৪] ২০০১ পুনরায় তার দল সরকার গঠন করার পর তাকে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয় যা তিনি ২৮ অক্টোবর ২০০৬ সাল পর্যন্ত পালন করেন।[৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. https://www.facebook.com/rtvonline। "দোয়া মাহফিলে গিয়ে বিএনপি নেতা আমান অবরুদ্ধ"RTV Online (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-০৭ 
  2. "বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন"। ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  3. কল্লোল, কাদির (২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮)। "জাতীয় কমিটির সভা: কোন পথে যাবে বিএনপি"বিবিসি বাংলা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  4. "বিএনপির ভরসা আমান তৎপর আরও পাঁচজন"সমকাল (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  5. নির্ঝর, উম্মে হাবিবা ও তারেক হাসান; ডটকম, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর। "ডাকসু নির্বাচন সবাই চায়, তবুও হচ্ছে না"বিডিনিউজ২৪.কম। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  6. "৫ম জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  7. "ঢাকা-৩"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ডিসেম্বর ২০১৮ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  8. "৬ষ্ঠ জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  9. "৭ম জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  10. "৮ম জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  11. "দেখে নিন পূর্ববর্তী ফলাফল"বিবিসি বাংলা (ইংরেজি ভাষায়)। ২৬ ডিসেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ডিসেম্বর ২০১৮