আবুল হোসেন (জেনারেল)

বাংলাদেশী জেনারেল

মেজর জেনারেল আবুল হোসেন, এনডিসি, পিএসসি (জন্ম: ১৫ মার্চ ১৯৬২) একজন অবসরপ্রাপ্ত বাংলাদেশি জেনারেল। তিনি বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের মহাপরিচালক ছিলেন।[১]

মেজর জেনারেল

আবুল হোসেন

এনডিসি, পিএসসি
জন্ম নামআবুল হোসেন
জন্ম(১৯৬২-০৩-১৫)১৫ মার্চ ১৯৬২
আনুগত্য বাংলাদেশ
সেবা/শাখাবাংলাদেশ সেনাবাহিনী
বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ
কার্যকাল২৭ ডিসেম্বর ১৯৮১ - ২০২১
পদমর্যাদা মেজর জেনারেল
ইউনিটইঞ্জিনিয়ার্স কোর

শিক্ষাজীবন

সম্পাদনা

আবুল হোসেন ১৯৮০ সালের ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিতে যোগ দেন। তিনি বুয়েট থেকে পুরকৌশল বিষয়ে ডিগ্রি লাভ করেছেন। তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসসি, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিফেন্স স্টাডিজে মাস্টার্স ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ঢাকার ডিফেন্স সার্ভিস কমান্ড এন্ড স্টাফ কলেজ এবং ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজে পড়াশোনা করেছেন। এছাড়া তিনি আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ থেকে ইএমবিএ এবং বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস থেকে এমফিল (পার্ট‌-১) সম্পন্ন করেছেন।[১]

তিনি চীনে জুনিয়র অফিসার কমব্যাট ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সে অংশ নিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি তুরস্কে ব্যাটালিয়ন কমান্ডার কমান্ড কোর্স, যুক্তরাজ্যে ইন্টারন্যাশনাল বর্ডার সিকিউরিটি এন্ড ম্যানেজমেন্ট কোর্স, যুক্তরাষ্ট্রে এডভান্সড সিকিউরিটি কো-অপারেশন কোর্সে অংশ নিয়েছেন।[১]

সামরিক জীবন

সম্পাদনা

১৯৮১ সালের ২৭ ডিসেম্বর আবুল হোসেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ার্স কোরে কমিশন লাভের মাধ্যমে সেনাবাহিনীতে কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি সেনা সদরদপ্তরের ইঞ্জিনিয়ার ইন চীফ শাখার জিএসও এবং ১৪ স্বতন্ত্র ইঞ্জিনিয়ার ব্রিগেডের ব্রিগেড মেজর হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন। তিনি স্কুল অব মিলিটারি ইঞ্জিনিয়ারিং এর সিনিয়র প্রশিক্ষক ও প্রধান প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন।[১]

তিনি ১৭ ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশন ব্যাটালিয়ন, এক্সপোসিভ অর্ড‌ন্যান্স ব্যাটালিয়ন-কুয়েত, স্পেশাল ওয়ার্কস অর্গানাইজেশন এবং বিজিবির সেক্টর কমান্ডার হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন।[১]

আবুল হোসেন বিভিন্ন সরকারের বিভিন্ন পূর্ত কাজে জড়িত ছিলেন। তিনি চিম্বুক-থানচি সড়ক নির্মাণ প্রকল্পের প্রজেক্ট অফিসার ছিলেন। এছাড়া ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পূর্ত পরিচালক ও প্রধান প্রকৌশলী ছিলেন। তিনি এমআইএসটির কমান্ডান্ট ও সশস্ত্র বাহিনীর ইঞ্জিনিয়ার ইন চীফ ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ অর্ডন্যান্স ফ্যাক্টরির কমান্ডান্ট হিসেবেও নিয়োজিত ছিলেন।[১]

তিনি বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট এর আজীবন ফেলো এবং এশিয়া প্যাসিফিক সেন্টার ফর সিকিউরিটি স্টাডিজ, ইউএসএ এর একজন সম্মানিত ফেলো।[১]

বিজিবির মহাপরিচালক

সম্পাদনা

মেজর জেনারেল আবুল হোসেন ২০১৬ সালের ২ নভেম্বর বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের মহাপরিচালক হিসেবে সাবেক মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদের স্থলাভিষিক্ত হন।[২] ১৬ নভেম্বর তিনি তার দপ্তর শুরু করেন। বিজিবির মহাপরিচালক হওয়ার পূর্বে তিনি রাষ্ট্রপতির সামরিক সচিব ছিলেন।[১]

বিদেশি মিশন

সম্পাদনা

আবুল হোসেন বিদেশে সামরিক ও পেশাগত দায়িত্বপালন করেছেন। তিনি জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেন। এছাড়াও তিনি মোজাম্বিক এবং অপারেশন কুয়েত পুনর্গঠনে অংশ নিয়েছেন।[১]

ব্যক্তিগত জীবন

সম্পাদনা

আবুল হোসেন ব্যক্তিগত জীবনে দুই কন্যা সন্তানের জনক।[১]

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
সামরিক দপ্তর
পূর্বসূরী
মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ
বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের মহাপরিচালক
১৬ নভেম্বর ২০১৬ – ২৭ মার্চ, ২০১৮
উত্তরসূরী
মেজর জেনারেল মোঃ সাফিনুল ইসলাম