প্রধান মেনু খুলুন

আফজালউদ্দৌলা, পঞ্চম আসাফ জাহ

ভারতীয় রাজনীতিবিদ

আফজালউদ্দৌলা, পঞ্চম আসাফ জাহ(১১ অক্টোবর ১৮২৭ – ২৬ ফেব্রুয়ারি ১৮৬৯) ছিলেন হায়দ্রাবাদের নিজাম। তিনি ১৮৫৭ থেকে ১৮৬৯ সাল পর্যন্ত শাসন করেছেন।

আফজালউদ্দৌলা, পঞ্চম আসাফ জাহ
হায়দ্রাবাদের নিজাম
হায়দ্রাবাদের নিজাম
রাজত্ব১৬ মে ১৮৫৭ - ২৬ ফেব্রুয়ারি ১৮৬৯
রাজ্যাভিষেক১৮৫৭
পূর্বসূরিনাসিরউদ্দৌলা, চতুর্থ আসাফ জাহ
উত্তরসূরিমাহবুব আলি খান, ষষ্ঠ আসাফ জাহ
জন্ম(১৮২৭-১০-১১)১১ অক্টোবর ১৮২৭
গুফরান মনজিল, হায়দ্রাবাদ রাজ্য, ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যু২৬ ফেব্রুয়ারি ১৮৬৯(1869-02-26) (বয়স ৪১)
হায়দ্রাবাদ, হায়দ্রাবাদ রাজ্য, ব্রিটিশ ভারত
সমাধিমক্কা মসজিদ, হায়দ্রাবাদ
দাম্পত্য সঙ্গীসাহেবজাদি মাহবুব বেগম
সাহেবজাদি আল্লাহ রাখি বেগম
সাহেবজাদি হুসাইনি বেগব সাহেবা
বংশধরষষ্ঠ আসাফ জাহ
পূর্ণ নাম
আফজালউদ্দৌলা, পঞ্চম আসাফ জাহ মীর তাহনিয়াথ আলি খান সিদ্দিকি
রাজবংশআসাফ জাহি রাজবংশ
পিতানাসিরউদ্দৌলা, চতুর্থ আসাফ জাহ
মাতাসাহেবজাদি দিয়ালওয়ারুনিসা বেগম সাহেবা
ধর্মইসলাম

আফজালউদ্দৌলার শাসনাধীন সমগ্র অঞ্চলকে ৫টি সুবা তথা প্রদেশে এবং ১৬টি জেলায় বিভক্ত ছিল। প্রত্যেক সুবা একজন সুবেদার এবং প্রত্যেক জেলা একজন তালুকদারের অধীনে থাকত। তার প্রধানমন্ত্রী সালার জং কিছু সংস্কার সাধন করেছিলেন। এর মধ্যে রয়েছে ১৮৫৫ সালে প্রতিষ্ঠিত সরকারি কেন্দ্রীয় কোষাগার। আফজালউদ্দৌলা হায়দ্রাবাদের রাজস্ব ও বিচার ব্যবস্থার সংস্কার করেছিলেন। তিনি ডাক বিভাগ চালু করেন এবং রেলপথ ও টেলিগ্রাফ নেটওয়ার্ক গড়ে তোলেন। ১৮৬১ সালে তাকে স্টার অফ ইন্ডিয়া পদকে ভূষিত করা হয়।

আফজালউদ্দৌলা ছিলেন চতুর্থ আসাফ জাহ ও তার স্ত্রী সাহেবজাদি দিয়ালওয়ারুনিসা বেগম সাহেবার জ্যেষ্ঠ পুত্র।

তিনি তিনবার বিয়ে করেছেন। তার প্রথম স্ত্রী সাহেবজাদি মাহবুব সাহেবা, দ্বিতীয় স্ত্রী সাহেবজাদি আল্লাহ রাখি বেগম এবং তৃতীয় স্ত্রী সাহেবজাদি হুসাইনি বেগম সাহেবা। তার চার পুত্র ও ছয় কন্যা ছিল। ১৮৬৯ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি তিনি হায়দ্রাবাদে ইন্তেকাল করেন। মক্কা মসজিদে তাকে দাফন করা হয়।

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

আফজালউদ্দৌলা, পঞ্চম আসাফ জাহ
পূর্বসূরী
নাসিরউদ্দৌলা, চতুর্থ আসাফ জাহ
হায়দ্রাবাদের নিজাম
১৮৫৭–১৮৬৯
উত্তরসূরী
মাহবুব আলি খান, ষষ্ঠ আসাফ জাহ