আইসিসি মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপ

আইসিসি নারী চ্যাম্পিয়নশিপ একটি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট টুর্নামেন্ট যেটি নারী ক্রিকেট বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জনের একটি পর্যায় হিসেবে খেলা হয়।[১] টুর্নামেন্টের প্রথম দুটি আসরে আইসিসি র‍্যাংকিং অনুযায়ী সেরা আটটি দল অংশগ্রহণ করেছিল। ২০১৪–২০১৬ আইসিসি নারী চ্যাম্পিয়নশিপ ছিল টুর্নামেন্টটির প্রথম আসর, যেটি ২০১৪ সালের এপ্রিল মাসে শুরু হয়ে ২০১৬ সালের নভেম্বর মাসে শেষ হয়েছিল। অস্ট্রেলিয়া ছিল প্রথম আসরের বিজয়ী দল।[২] টুর্নামেন্টটির দ্বিতীয় আসর ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে শুরু হয়, এবং আসর শেষে সেরা চারটি দল সরাসরি ২০২২ নারী ক্রিকেট বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ লাভ করে।[৩]

আইসিসি নারী চ্যাম্পিয়নশিপ
আইসিসি নারী চ্যাম্পিয়নশিপের লোগো
ব্যবস্থাপকআন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল
খেলার ধরনএকদিনের আন্তর্জাতিক
প্রথম টুর্নামেন্ট২০১৪–২০১৬
শেষ টুর্নামেন্ট২০১৭–২০২০
দলের সংখ্যা১০
বর্তমান চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া (২য় শিরোপা)
সর্বাধিক সফল অস্ট্রেলিয়া (২টি শিরোপা)
২০২২–২০২৫

২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) অংশগ্রহণকারী দলের সংখ্যা বৃদ্ধির মাধ্যমে টুর্নামেন্টটি সম্প্রসারণের ঘোষণা দেয়।[৪][৫] ২০২১ সালের আগস্ট মাসে আইসিসি নিশ্চিত করে যে ২০২১ নারী ক্রিকেট বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব টুর্নামেন্টের সেরা পাঁচটি দল নারী চ্যাম্পিয়নশিপের পরবর্তী আসরে উত্তীর্ণ হবে।[৬][৭] কিন্তু ২০২১ সালের নভেম্বর মাসে আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চলে গুরুতর তীব্র শ্বাসযন্ত্রীয় রোগ সৃষ্টিকারী করোনাভাইরাস ২-এর নতুন এক ধরন প্রকাশ পাওয়ায় বাছাইপর্ব টুর্নামেন্টটি চলার মাঝপথেই বাতিল করা হয়।[৮][৯] সে কারণে র‍্যাংকিং-এ এগিয়ে থাকার সুবাদে আয়ারল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, পাকিস্তান, বাংলাদেশশ্রীলঙ্কা ২০২২–২৫ আইসিসি মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপে খেলার যোগ্যতা লাভ করে।[১০][১১]

টুর্নামেন্টের ইতিহাস সম্পাদনা

আসরভিত্তিক সম্পাদনা

বছর দলসমূহ বিজয়ী বিশ্বকাপে সরাসরি উত্তীর্ণ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে উত্তীর্ণ
২০১৪–২০১৬   অস্ট্রেলিয়া   ইংল্যান্ড,   ওয়েস্ট ইন্ডিজ,   নিউজিল্যান্ড   দক্ষিণ আফ্রিকা,   পাকিস্তান,   ভারত,   শ্রীলঙ্কা
২০১৭–২০২০   অস্ট্রেলিয়া   ইংল্যান্ড,   দক্ষিণ আফ্রিকা,   নিউজিল্যান্ড,   ভারত   ওয়েস্ট ইন্ডিজ,   পাকিস্তান,   শ্রীলঙ্কা
২০২২–২০২৫ ১০

দলভিত্তিক সম্পাদনা

দল ২০১৪–২০১৬
(৮)
২০১৭–২০২০
(৮)
২০২২–২০২৫
(১০)
অংশগ্রহণ
অস্ট্রেলিয়া   ১ম ১ম
ইংল্যান্ড   ২য় ২য়
দক্ষিণ আফ্রিকা   ৬ষ্ঠ ৩য়
ভারত   ৫ম ৪র্থ
নিউজিল্যান্ড   ৩য় ৬ষ্ঠ
ওয়েস্ট ইন্ডিজ   ৪র্থ ৭ম
পাকিস্তান   ৭ম ৫ম
শ্রীলঙ্কা   ৮ম ৮ম
বাংলাদেশ   অংশ নেয়নি
আয়ারল্যান্ড  

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. "About the ICC Women's Championship"আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (ইংরেজি ভাষায়)। ৩০ জুন ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১৫ 
  2. "Australia win Women's Championship, qualify for World Cup"ইএসপিএনক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  3. "Revised financial model passed and new constitution agreed upon"আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০১৭ 
  4. "Bangladesh, Ireland could feature in next Women's Championship cycle"ইএসপিএনক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  5. "Tigresses could feature in next Women's Championship cycle"দ্য ডেইলি স্টার (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১৮ 
  6. "Zimbabwe to host ICC Women's Cricket World Cup Qualifier"আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০২১ 
  7. "Women's ODI World Cup qualifier shifted from Sri Lanka to Zimbabwe; to begin in November"ইএসপিএনক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০২১ 
  8. "Women's World Cup qualifier in Zimbabwe called off following concerns over new Covid-19 variant"ইএসপিএনক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০২১ 
  9. "ICC Cricket World Cup Qualifier called off; Bangladesh, Pakistan, West Indies to qualify for New Zealand 2022"উইমেন'স ক্রিকজোন (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০২১ 
  10. "ICC Women's Cricket World Cup Qualifier 2021 called off"আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০২১ 
  11. "ICC Women's CWC Qualifier in Zimbabwe abandoned amid Covid-related uncertainty"আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০২১