শেখানোর পিরামিড তত্ত্ব

শেখানোর পিরামিড তত্ত্ব। একে মোচা বা শঙ্কু আকৃতির শেখানোর তত্ত্ব, স্মৃতিশক্তি বজায় রাখার তত্ত্ব বা স্মৃতিশক্তি বজায় রাখার পিরামিড তত্ত্বও বলা হয়। শিক্ষা প্রদানের অনেক ধরনের পদ্ধতি ও ধারণার মধ্যে এটা জনপ্রিয় এক পদ্ধতি। শেখার এই পদ্ধতিতে বিভিন্ন স্তরকে শতাংশে পৃথক করে দেখানো হয়। এতে পিরামিড আকৃতি ব্যবহার করা হয়। তাই একে শেখানোর পিরামিড তত্ত্ব বলা হয়। একে সাধারণত ১০, ২০, ৩০, ৫০ এবং ৯০ শতাংশে ভাগ করা হয়। [১][২][৩]

বর্ণনাসম্পাদনা

প্রাথমিকভাবে এই ধারণাটি ১৯৫৪ সালে অডিও-ভিজ্যুয়াল মেথডস ইন টিচিং নামের বই থেকে নেওয়া হয়েছে। এই পিরামিড আকৃতির মডেলটি ১৯৬০ সালের দিকে ন্যাশনাল ট্রেনিং ল্যাবরেটরিজ ইনস্টিটিউট থেকে উদ্ভুত। মেইন শহরের বেথেলে এই ইনস্টিটিউটের এর প্রধান ক্যাম্পাসে এই পিরামিড মডেল তৈরি করা হয়। অবশ্য এর মূল গবেষণা হারিয়ে গেছে। এই এনটিএল (NTL-ন্যাশনাল ট্রেনিং ল্যাবরেটরিজ ইনস্টিটিউট) এর লার্নিং পিরামিড মডেলটি এখনও এই ধারণার একটি কেন্দ্রীয় বিষয় হয়ে উঠেছে। এই এনটিএল এর মডেল সাধারণত নিম্ন লিখিত চিত্র প্রদর্শন করে।

 
শেখানোর পিরামিড তত্ত্ব অথবা মোচা বা শঙ্কু আকৃতির শেখানোর তত্ত্ব
স্মৃতিশক্তি ধরে রাখার শতাংশ হিসাব পদ্ধতির কার্যক্রম
৯০% অন্য কাউকে শেখানো/অবিলম্বে ব্যবহার করা।
৭৫% যা শিখেছে তা অনুশীলন বা চর্চা করুন।
৫০% দলবদ্ধ আলাপ-আলোচনায় লিপ্ত হওয়া।
৩০% বাহ্যিক প্রকাশ করা।
২০% শুনুন এবং দেখুন।
১০% পড়ুন।
৫% একটি বক্তৃতা শুনুন।

সমালোচনাসম্পাদনা

আমেরিকান শিক্ষাবিদ এডগার ডেলের মোচা বা শঙ্কু আকৃতির শেখানোর তত্ত্ব বা মডেলের প্রাথমিক সংস্করণের কিছু সমালোচনা আছে। [১][২][৩] সমালোচকরা শেখার এবং গবেষণার পিরামিড মডেলের মধ্যে কিছু অসঙ্গতির দেখা পেয়েছেন। এনটিএল শেখার পিরামিড তত্ত্ব হারিয়ে গেছে। এজন্য ব্যাপারটি মূলত অজানা মানের একটি অজানা পদ্ধতির উপর দাঁড়িয়ে আছে এবং প্রভাবশালী বিষয় যেমন সময়, জনসংখ্যা পরীক্ষা ইত্যাদি, যা মূল গবেষণার ফলাফলকে অবিশ্বাসযোগ্য করে তুলেছে। [৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Subramony, D.P. (2003). “Dale’s Cone revisited: Critically examining the misapplication of a nebulous theory to guide practice”. Educational technology, 7-8, (25-30).
  2. Molenda, M. (2004). “Cone of experience. In A. Kovalchik & K. Dawson (Eds.), Education and Technology (161-165). California: ABCCLIO.
  3. Lalley, J. P. & Miller, R.H. (2007): “The learning pyramid: Does it point teachers in the right direction?” Education 128(1):64-79.
  4. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; Letrud_2012 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি