রায়পুর জেলা

ছত্তীসগঢ় রাজ্যের একটি জেলা

রায়পুর জেলা ভারতের ছত্তীসগঢ় রাজ্যের একটি জেলা। রায়পুর শহরে জেলা প্রশাসনের সদর দপ্তর অবস্থিত। জেলাটি খনিজ সম্পদে সমৃদ্ধ। অনেক বন্যপ্রাণ অভয়ারণ্য এবং দর্শনীয় স্থান আছে এই জেলাতে। জেলার জনসংখ্যা ৪০ লক্ষ।

রায়পুর জেলা
ছত্তীসগঢ়ের জেলা
ছত্তীসগঢ়ে রায়পুরের অবস্থান
ছত্তীসগঢ়ে রায়পুরের অবস্থান
দেশভারত
রাজ্যছত্তীসগঢ়
সদরদপ্তররায়পুর
আয়তন
 • মোট১৩০৮৩ কিমি (৫০৫১ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০০১)
 • মোট৩০,০৯,০৪২
 • জনঘনত্ব২৩০/কিমি (৬০০/বর্গমাইল)
গড় বার্ষিক বৃষ্টিপাত১৩৮৫ মিমি
ওয়েবসাইটদাপ্তরিক ওয়েবসাইট

২০১১ সালের হিসাবে এটি ছত্তীসগঢ়ে সবচেয়ে বেশি জনসংখ্যাযুক্ত জেলা (২১ টির মধ্যে)।[১]

ইতিহাসসম্পাদনা

রায়পুর জেলা একসময়ে দক্ষিণ কোসালের অংশ ছিল এবং মৌর্য সাম্রাজ্যের অন্তর্গত ছিল। রায়পুর শহরটি হাইতি রাজাদের রাজধানী ছিল, দীর্ঘদিন ধরে তারা ছত্তিশগড়ের ঐতিহ্যগত দুর্গ নিয়ন্ত্রণ করেছিল। রায়পুর শহরটি ৯ শতকের পর থেকেই বিদ্যমান, শহরটির দক্ষিণ অংশে পুরাতন স্থান এবং দুর্গগুলির ধ্বংসাবশেষ দেখা যায়। দ্বিতীয় পর্যায়ে খ্রিস্টপূর্ব তৃতীয় শতাব্দী পর্যন্ত সাতবাহন রাজারা এই অংশটি শাসন করেছিলেন।

ভৌগলিক অবস্থানসম্পাদনা

জেলাটি ২২°৩৩' উত্তর থেকে ২১°১৪' উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮২°৬' পূর্ব থেকে ৮১°৩৮' পূর্ব দ্রাঘিমাংশের মধ্যে অবস্থিত। এটি উত্তরে মহানদী উপত্যকা এবং দক্ষিণ ও পূর্বের সীমান্তবর্তী অংশে পাহাড় অবস্থিত। সুতরাং, জেলাটি দুটি প্রধান ভূমিরূপে বিভক্ত: ছত্তীসগঢ় সমভূমি এবং পাহাড়ী এলাকা।

রায়পুর জেলার উত্তরে বিলাসপুর জেলা। দক্ষিণে ধামতড়ি জেলা ও গরিবান্দ জেলা। পূর্ব দিকে মহাসমুন্ড জেলা এবং পশ্চিমে দুর্গ জেলা

মহানদী এই জেলার প্রধান নদী।

জলবায়ুসম্পাদনা

রায়পুর
জলবায়ু লেখচিত্র
জাফেমামেজুজুসেডি
 
 
৬.৭
 
২৮
১৩
 
 
১২
 
৩১
১৭
 
 
২৫
 
৩৬
২১
 
 
১৬
 
৪০
২৫
 
 
১৯
 
৪২
২৮
 
 
১৯০
 
৩৭
২৭
 
 
৩৮১
 
৩১
২৪
 
 
৩৪৫
 
৩০
২৪
 
 
২৩০
 
৩১
২৪
 
 
৫৪
 
৩২
২২
 
 
৭.৪
 
৩০
১৭
 
 
৩.৭
 
২৭
১৩
সেলসিয়াস তাপমাত্রায় সর্বোচ্চ এবং সর্বোনিম্ন গড়
মিলিমিটারে বৃষ্টিপাতের মোট পরিমাণ
উৎস: IMD

বিভাগসম্পাদনা

রায়পুর জেলা প্রশাসকীয়ভাবে ১৩ টি তহসিল এবং ১৫ রাজস্ব ব্লকে বিভক্ত। এতে দুটি লোকসভা কেন্দ্র (রায়পুর ও মহাসমুন্ড) এবং ১৩ টি বিধানসভা (ছত্তিশগড় বিধানসভা) নির্বাচনী এলাকা রয়েছে। এই অঞ্চলের প্রধান ফসল ধান। এই জেলায় ৫০ টিরও বেশি বড় ও মাঝারী ধরনের শিল্প রয়েছে, যা ১০,০০০ এরও বেশি লোককে চাকরি দিয়েছে।

জনসংখ্যার উপাত্তসম্পাদনা

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে রায়পুর জেলার জনসংখ্যা ৪০,৬২,১৬০ জন,[১] যা প্রায় লাইবেরিয়া[২] বা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অরেগন রাজ্যের জনসংখ্যার সমান।[৩] এটি জনসংখ্যার হিসাবে ভারতের জেলাগুলির মধ্যে ৫৩ তম স্থান অধিকার করেছে (মোট ৬৪০ টির মধ্যে)।[১] জেলার জনসংখ্যা ঘনত্ব হল প্রতি বর্গ কিলোমিটারে ৩১০ জন (৮০০/বর্গ মাইল) অধিবাসী।[১] ২০০১-২০১১ দশকে তার জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ছিল ৩৪.৬৫%।[১] প্রতি ১০০০ জন পুরুষের বিপরীতে রায়পুর জেলায় ৯৮৩ জন নারী রয়েছেন[১] এবং জেলার শিক্ষার হার হল ৭৬.৪৩%।[১]

ভাষাসমূহসম্পাদনা

অঞ্চলে উপজাতির উপর নির্ভর করে জেলার ভাষাগুলি হল হিন্দী বা ছত্তিশগড়ী ভাষার অনুষঙ্গী উপভাষা হাল্বী, গোন্ডি, ভুঞ্জিয়া। প্রায় ৭,০০০ জন ভুঞ্জিয়া আদিবাসী দ্বারা কথিত ভুঞ্জিয়া।[৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "District Census 2011"। Census2011.co.in। ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০ 
  2. US Directorate of Intelligence। "Country Comparison:Population"। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১০-০১Liberia 3,786,764 July 2011 est. 
  3. "2010 Resident Population Data"। U. S. Census Bureau। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০Oregon 3,831,074 
  4. M. Paul Lewis, সম্পাদক (২০০৯)। "Bhunjia: A language of India"Ethnologue: Languages of the World (16th সংস্করণ)। Dallas, Texas: SIL International। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা