রাজকুমারী বাসমা বিনতে তালাল

প্রিন্সেস বাসমা বিনতে তালাল (জন্মঃ ১১ মে, ১৯৫১) হলেন জর্দানের বাদশাহ তালাল ও রানী জেইনের একমাত্র কন্যা, বাদশাহ হুসেনের বোন এবং বর্তমান রাজা দ্বিতীয় আবদুল্লাহর পিতৃ-চাচী।

বাসমা বিনতে তালাল
প্রিন্সেস
Coat of arms of Jordan.svg
জন্ম (1951-05-11) ১১ মে ১৯৫১ (বয়স ৭১)
আম্মান, জর্ডান
দাম্পত্য সঙ্গীতাইমুর দাঘিস্তানি
(m. 1970; div. 197?)
ওয়ালিদ আল কুর্দি
(বি. ১৯৮০)
বংশধর
পূর্ণ নাম
বাসমা বিনতে তালাল
রাজবংশহাশেমি
পিতাতালাল
মাতাজেইন আল শারাফ
ধর্মইসলাম

পটভূমিসম্পাদনা

প্রিন্সেস বাসমা বিনতে তালালের জন্মের ২ মাস পর তার বাবা জর্দানের বাদশাহ হয়েছেন, কারণ তখন তার পিতামহকে জেরুজালেমে হত্যা করা হয়। বাদশাহ তালাল ১৯৫২ সালে স্বাস্থ্যের অবনতির কারণে পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। তখন প্রিন্সেস বাসমা বিনতে তালালের বয়স ছিলো মাত্র ১ বছর। বাদশাহ তালাল ১৯৭২ সাল পর্যন্ত বেঁচে ছিলেন। প্রিন্সেস বাসমা বিনতে তালালের মা ছিলেন রানী জেইন (১৯১৬-১৯৯৪)। তার বাবার পরে তার বড় ভাই হোসেন (১৯৩৫-১৯৯৯) সিংহাসনে আরোহণ করেছিলেন এব হোসেন সাবালক হওয়া পর্যন্ত তার মা রানী হিসেবে দেশ পরিচালনা করতেন।

 
প্রিন্সেস বাসমা বিনতে তালাল ও তার ভাইবোন (১৯৫২-১৯৫৩)

শিক্ষাসম্পাদনা

প্রিন্সেস বাসমা বিনতে তালাল আম্মানের আলিয়্যাহ স্কুল ফর গার্লস এবং তারপরে ইংল্যান্ডের বেনেনডেন স্কুলে (যেখানে তিনি প্রিন্সেস অ্যানের বন্ধু ছিলেন) পড়াশোনা করেন। তিনি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মডার্ন ল্যাঙ্গুয়েজস বিষয়ে পড়েন।

২০০১ সালে একটি থিসিসের জন্য তাকে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ডিফিল ডিগ্রি প্রদান করে। থিসিসের বিষয় ছিলো Contextualising development in Jordan: the arena of donors, state and NGOs

বিবাহসম্পাদনা

১৯৭০ সালের ২ এপ্রিল তিনি আম্মানে কর্নেল তাইমুর দাগিস্তানিকে বিয়ে করেন। তাদের দুটি সন্তান ছিল। তবে ১৯৭০ এর দশকের শেষদিকে বিবাহবিচ্ছেদ ঘটে। ১৯৮০ সালের ১৪ এপ্রিল তিনি ওয়ালিদ আল-কুরদীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন এবং তাদের দুটি সন্তানও হয়।

পেশাসম্পাদনা

  • কুইন আলিয়া জর্দান সমাজকল্যাণ তহবিলের কিউএএফ (কিউএফ) এর প্রতিষ্ঠাতা
  • আরব অ্যাসোসিয়েশন ফর উইমেন অ্যান্ড ডেভলপমেন্টের (আওয়াদ) সভাপতি
  • জর্দানের জাতীয় মহিলা কমিশনের সভাপতি (জেএনসিডাব্লু)
  • জর্দানিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর বয় স্কাউটস এবং গার্ল গাইডের সভাপতি
  • মাবারাত উম আল হোসেনের সভাপতি
  • গুডউইল ক্যাম্পেইনের সভাপতি
  • মানব বিকাশের জন্য জর্দানের হাশেমাইট তহবিলের চেয়ারপারসন
  • সেভ দ্য চিলড্রেন-জর্দান (এসসিজে) এর সভাপতি
  • জর্দানন্যশনা ফোরাম ফর ওম্যানের সভাপতি
  • জর্দানের মহিলা জেনারেল ফেডারেশনের সম্মানিত সভাপতি
  • মহিলা বিষয়ক জাতীয় কমিটির সভাপতি [১]
  • উচ্চ জনসংখ্যা কাউন্সিলের ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য
  • ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন এর কিশোর স্বাস্থ্য প্রোগ্রাম বৈজ্ঞানিক ও প্রযুক্তিগত পরামর্শদাতা সদস্য, ১৯৯১-৯৩
  • ১৯৯৩ সাল থেকে জাতিসংঘের উন্নয়ন কর্মসূচির সম্মানিত মানব উন্নয়ন রাষ্ট্রদূত
  • মহিলা স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা গ্লোবাল কমিশনের সদস্য, ১৯৯৪
  • ১৯৯৫ সাল থেকে মহিলাদের জন্য জাতিসংঘের উন্নয়ন তহবিলের শুভেচ্ছাদূত
  • ১৯৯৬ সাল থেকে আর্থ কাউন্সিলের সদস্য
  • ইউনেস্কো সংস্কৃতি ও উন্নয়ন পরিচালনা কমিটির সদস্য, ১৯৯৬–-১৯৯৭
  • ডেমোক্রেসি অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট, ১৯৯৯ সালে ইউনেস্কোর আন্তর্জাতিক প্যানেল সদস্য
  • ২০০১ সাল থেকে জাতিসংঘের জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপিএ) শুভেচ্ছাদূত [২]
  • ২০০১ সাল থেকে সমাজকল্যাণ বিষয়ক আন্তর্জাতিক কাউন্সিলের আন্তর্জাতিক উপদেষ্টা বোর্ডের সদস্য
  • আর্থ চার্টার আন্তর্জাতিক কমিশনের সদস্য।

উপাধি এবং সম্মানসম্পাদনা

উপাধিসম্পাদনা

  • ১১ মে, ১৯৫১ - বর্তমানঃ হার রয়েল হাইনেস প্রিন্সেস বাসমা বিনতে তালাল

সম্মানসম্পাদনা

জাতীয় সম্মানসম্পাদনা

বিদেশী সম্মানসম্পাদনা

পুরস্কারসম্পাদনা

জাতীয় পুরস্কারসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Jordan Embassy"। ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  2. "United Nations Population Fund"। UNFPA। 
  3. "HRH Princess Basma Bint Talal : Official Website"Princessbasma.jo। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৫-২৫