প্রধান মেনু খুলুন

রবার্ট ডোনাট

ব্রিটিশ অভিনেতা

ফ্রিডরিখ রবার্ট ডোনাট (ইংরেজি: Friedrich Robert Donat; ১৮ই মার্চ ১৯০৫ - ৯ই জুন ১৯৫৮) ছিলেন একজন ইংরেজ চলচ্চিত্র ও মঞ্চ অভিনেতা।[১] তিনি অ্যালফ্রেড হিচকক পরিচালিত দ্য থার্টি নাইন স্টেপস্‌ (১৯৩৫) ও গুডবাই, মিস্টার চিপস্‌ (১৯৩৯) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য সর্বাধিক পরিচিত। দ্বিতীয় চলচ্চিত্রটিতে অভিনয়ের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে একাডেমি পুরস্কার অর্জন করেন।[২] দ্য এজ অব দ্য ড্রিম প্যালেস বইয়ে জেফ্রি রিচার্ডস লিখেন ডোনাট ছিলেন "১৯৩০-এর দশকে ব্রিটিশ চলচ্চিত্র শিল্পের একজন অবিসংবাদিত প্রণয়ধর্মী কেন্দ্রীয় অভিনেতা"।[৩]

রবার্ট ডোনাট
জন্ম(১৯০৫-০৩-১৮)১৮ মার্চ ১৯০৫
মৃত্যু৯ জুন ১৯৫৮(1958-06-09) (বয়স ৫৩)
লন্ডন, ইংল্যান্ড
মৃত্যুর কারণসেরেব্রাল থ্রম্বসিস
সমাধিইস্ট ফিঞ্চলি সিমেট্রি, লন্ডন
জাতীয়তাইংরেজ
পেশাঅভিনেতা
কার্যকাল১৯২৪-১৯৫৮
দাম্পত্য সঙ্গীএলা অ্যানেস্লি ভয়সি (বি. ১৯২৯; বিচ্ছেদ. ১৯৪৬)
রনে অ্যাশারসন (বি. ১৯৫৩; পৃথক ১৯৫৬)
সন্তান
আত্মীয়পিটার ডোনাট (ভাইপো)
রিচার্ড ডোনাট (ভাইপো)
পুরস্কারএকাডেমি পুরস্কার (১ বার)

জীবনীসম্পাদনা

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

ডোনাট ১৯০৫ সালের ১৮ই মার্চ ম্যানচেস্টারের উদিংটনে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা আর্নস্ট এমিল ডোনাট ছিলেন প্রুসীয় পোল্যান্ডে জন্মগ্রহণকারী জার্মান বংশোদ্ভূত পুর প্রকৌশলী ও ভাষাবিদ এবং তার মাতা রোজ অ্যালিস ডোনাট (জন্ম: গ্রিন, ১৯৫৫-১৯৬৪)।[৪] ডোনাট তার পিতামাতার চার সন্তানের মধ্যে সর্বকনিষ্ঠ। তার পূর্বপুরুষগণ ইংরেজ, পোলীয়, জার্মান ও ফরাসি ছিলেন। ডোনাট ম্যানচেস্টারের সেন্ট্রাল বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়াশুনা করেন। তিনি জেমস বের্নার্ডের কাছ থেকে ভাষণ বিষয়ক পাঠ গ্রহণ করেন।

প্রারম্ভিক কর্মজীবন ও বিবাহসম্পাদনা

১৯২১ সালে ১৬ বছর বয়সে হেনরি বেইন্টন কোম্পানির হয়ে বার্মিংহামের প্রিন্স অব ওয়েলস থিয়েটারে ডোনাটের মঞ্চনাটকে অভিষেক হয়। তার অভিনীত প্রথম মঞ্চনাটক জুলিয়াস সিজার, এতে তিনি লুসিয়াস চরিত্রে অভিনয় করেন। ১৯২৪ সালে শেকসপিয়ারীয় অভিনেতা স্যার ফ্রাংক বেনসনের কোম্পানিতে যোগ দেওয়ার পর তার সফলতা আসেন। তিনি এই কোম্পানিতে চার বছর কাজ করেন।

১৯২৯ সালে তিনি এলা অ্যানেস্লি ভইসির (১৯০৩-১৯৯৪) সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের তিন সন্তান জন্মগ্রহণ করে। ১৯৪৬ সালে তাদের বিবাহবিচ্ছেদ হয়।

চলচ্চিত্রে আগমনসম্পাদনা

 
দ্য কাউন্ট অব মন্টে ক্রিস্টো ছবিতে এলিসা ল্যান্ডির সাথে ডোনাট।

১৯৩০ ও ১৯৩১ সালের দিকে তিনি চলচ্চিত্র শিল্পে "স্ক্রিন টেস্ট" ডোনাট নামে পরিচিত ছিলেন, কারণ তিনি অনেকগুলো ব্যর্থ অডিশন দিয়েছিলেন।[৫] এমজিএমের প্রযোজক আরভিং থালবার্গ লন্ডনে এক মঞ্চের প্রেশাস বেন মঞ্চনাটকে অভিনয় করাকালীন তাকে নির্বাচন করেন এবং তাকে তার মার্কিন স্টুডিওর স্মাইলিন' থ্রো (১৯৩২) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের প্রস্তাব দেন। তিনি এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন। পরবর্তীতে আলেকজান্ডার কর্ডার মেন অব টুমরো (১৯৩২) চলচ্চিত্র দিয়ে তার বড় পর্দায় অভিষেক হয়। দীর্ঘ স্ক্রিন টেস্ট ডোনাটের হাসি দিয়ে সমাপ্ত হয়। কর্ডা তার হাসি প্রসঙ্গে বলেন, "এটি আমার জীবনে শুনা সবচেয়ে স্বাভাবিক হাসি ছিল। কি অভিনয়! তাকে দ্রুত চুক্তিবদ্ধ করুন।"[৫] পরবর্তীতে তিনি দ্যাট নাইট ইন লন্ডন (১৯৩২) ও ক্যাশ (১৯৩৩) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ডোনাটের প্রথম সফলতা আসে তার চতুর্থ চলচ্চিত্র দ্য প্রাইভেট লাইফ অব এইটথ হেনরি (১৯৩৩)-এর মধ্য দিয়ে।[৬]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Obituary Variety, ১১ জুন ১৯৫৮।
  2. "Robert Donat: The Forgotten Man Who Stole Clark Gable's Oscar"বেস্ট মুভিস বাই ফার। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুন ২০১৮ 
  3. রিচার্ডস, জেফ্রি (২০১০)। The Age of the Dream Palace: Cinema and Society in 1930s Britain (ইংরেজি ভাষায়)। আই. বি. তোরিস। পৃষ্ঠা ২২৫। আইএসবিএন 9781848851221। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুন ২০১৮ 
  4. "Robert Donat's Mother Dies"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। ২১ ডিসেম্বর ১৯৬৪। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুন ২০১৮ 
  5. "Mr. Donat Captures Hollywood"The Milwaukee Journal। ৯ জুলাই ১৯৩৯। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুন ২০১৮ 
  6. "NOTES ON FILMS"Sunday Herald (Sydney, NSW : 1949 - 1953)। ২৩ জুলাই ১৯৫০। পৃষ্ঠা ৬। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুন ২০১৮ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা