মৌচাক

মৌমাছির থাকার জায়গা ও সন্তান পালনের ঘর

মৌচাক হলো ভারী ষড়ভুজাকার মধূত্থ কোষ যাতে মৌমাছিরা তাদের বাসা তৈরি করে। এটি তাদের মধু এবং পরাগের দোকান।

মৌচাক
প্রাকৃতিক মৌচাকের নিচের অংশ কিছু খালি কোষ সহ

মৌমাছি পালনকারীরা মৌচাক কেটে সমগ্র মধু সংগ্রহ করে। মৌমাছিরা প্রতিটি মৌচাকে প্রায় ৮.৪ পাউন্ড (৪.৮ কেজি) মধু উৎপন্ন করে এবং ১ পাউন্ড মধু (৪৫৪ গ্রাম) মৌচাক তৈরিতে করতে ব্যবহার করে।[১] মৌচাক থেকে বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে মধু সংগ্রহ করা হয়, সংগ্ৰহের পর মৌমাছিকে মৌচাক ফিরিয়ে দেওয়া হয় যাতে সে পুনরায় মধু উৎপাদন করতে পারে। মৌচাকের মূল কাঠামো মূলত অক্ষত রাখতে আনপ্যাপিং এবং স্পিনিং পদ্ধতি ব্যবহার করে মধু সংগ্রহ করা হয়। এই কাজটি একটি কেন্দ্রীভূত যন্ত্র— "মধু নিষ্কর্ষক" দিয়ে করা হয়।

কৃত্রিম মৌচাকের ভিত্তি প্লেট যেখানে মৌমাছিরা কিছু কোষ তৈরি করেছে।

মৌচাকের পাত তৈরি হয় ষড়ভুজাকার প্যাটার্নের উপর ভিত্তি করে। মৌচাকের ভিত্তির পাত (ফাউন্ডেশন শীট) মৌমাছিদের মৌচাক তৈরিতে সাহায্য করে। ড্রোন মৌমাছিরা মধুর অপচয় রুখতে কর্মী মৌমাছিদের নতুন করে বড় আকারের মৌচাক কোষ তৈরি করা থেকে নিরুৎসাহিত করে। অক্ষত মধুচক্র থেকে পাওয়া নতুন পরিষ্কার মধু বিক্রি করা অথবা ব্যবহার করা হয়। বিশেষত মধু রান্নার কাজে মিষ্টির বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা হয়।[২]

মৌচাকের আকারসম্পাদনা

 
দালানে প্রাকৃতিক মৌচাক
 
মৌচাকে ডিম এবং লার্ভা
 
মৌমাছিরা প্রতিটি মৌচাকের কোষ উপর থেকে নির্মাণ শুরু করে। যখন একটি কোষ মধু দ্বারা পূর্ণ হয় তখন মোম দিয়ে সিল করে দেয়।
 
খুবই কাছ থেকে থাইল্যান্ডের একটি মৌচাক। এখানে মৌচাকের শক্তি বৃদ্ধি করে একটি শক্তিশালী কাঠামো তৈরির জন্য মোমের পরিমাণ কমিয়ে দেওয়া হয়েছে।

মৌচাকের কোষের অক্ষ সবসময় প্রায় অনুভূমিক, পিছনের দিক থেকে খোলা এবং প্রান্ত গুলো উঁচু হয়। একটি কোষের খোলা প্রান্তকে সাধারণত কোষের শীর্ষ, অন্যদিকে বিপরীত প্রান্তকে নীচের দিক বলে উল্লেখ করা হয়। কোষগুলো ৯° থেকে ১৪° এর মধ্যে খোলা প্রান্তের দিকে সামান্য ঝুঁকে থাকে।

মৌচাক কেন অন্যান্য কোন আকৃতির বদলে হেক্সাগন দিয়ে গঠিত হয় দুটি সম্ভাব্য ব্যাখ্যা পাওয়া যায়। প্রথমত, ষড়ভুজাকৃতি র্যালিংয়ের সাথে সমান আকারের কোষের সাথে একটি বিভাজন তৈরি করে যাতে কোষের মোট সীমানা বা আকার হ্রাস পায়। জ্যামিতিতে এটি "মৌচাকের অনুমান" নামে পরিচিত, প্রথমে এই ধারণাটি প্রদান করেন জান ব্রোয়েক এবং পরে টমাস হেলস এটি প্রমাণ করেন। এইভাবে, একটি ষড়ভুজ কাঠামো একটি নির্দিষ্ট আয়তনের মধ্যে কোষের একটি ল্যাটিস তৈরি করতে ন্যূনতম উপাদান (মধু) ব্যবহার করে। ডি'আর্কি ওয়েন্টওয়ার্থ থম্পসনের দেওয়া দ্বিতীয় কারণটি হচ্ছে, এই আকৃতি শুধুমাত্র স্বতন্ত্র মৌমাছিকোষগুলোকে একত্রিত করার প্রক্রিয়ার ফলাফল: সাবানবুদবুদের ক্ষেত্রে সৃষ্ট সীমানা আকৃতির সাথে কিছুটা সামঞ্জস্যপূর্ণ। এই দাবির সমর্থনে তিনি উল্লেখ করেন যে “রাণী কোষ, যাও একভাবে নির্মিত হয় কোন অনিয়মিত এবং দক্ষতা কোন আপাত প্রচেষ্টা ছাড়াই।”[৩]

মৌচাক কোষের বন্ধ প্রান্ত যদিও ত্রিমাত্রিক এটিও জ্যামিতিক দক্ষতার একটি উদাহরণ। সমাপ্তি প্রান্তটি ত্রিহেড্রাল (অর্থাৎ তিনটি আলাদা অংশ নিয়ে গঠিত)।[৪] রম্বিক ডোডেকাহেড্রার সঙ্গে সমস্ত সংলগ্ন পৃষ্ঠের ডাইহেড্রাল কোণ ১২০°, এটি এমন কোণ যা প্রদত্ত পরিমাণের জন্য পৃষ্ঠের ক্ষেত্রফলকে হ্রাস করে। (পিরামিডাল শীর্ষের প্রান্তগুলি দ্বারা গঠিত কোণ, যা টিট্রাহেড্রাল কোণ হিসাবে পরিচিত যা প্রায় ১০৯°২৮'১৬" 28 '16 "(আনু. =(−১/৩)) হয়।

 
একটি মৌচাক কোষের ত্রিমাত্রিক আকৃতি

কোষের আকৃতি এমন যে দুটি বীপরিত মৌচাকের স্তর একে অপরের উপর বাসা তৈরি করে। এক কোষের বন্ধ প্রান্তের দিকে বীপরিত কোষ তৈরি হয়।[৪]

 
বীপরিত মৌচাকের কোষ একসাথে

স্বতন্ত্র এই কোষগুলোতে জ্যামিতিক পূর্ণতা দেখা যায় না না: একটি নিয়মিত কোষে, "নিখুঁত" ষড়ভুজ আকৃতি থেকে কয়েক শতাংশ বিচ্যুতি ঘটে।[৪] ড্রোন চিরুনির বৃহত্তর কোষ এবং শ্রমিক চিরুনির ছোট কোষের মধ্যে রূপান্তর অঞ্চলে অথবা যখন মৌমাছিরা কোন বাধা সম্মুখীন হয় তখন প্রায়শই আকৃতি বিকৃত করা হয়। এছাড়াও মধু শুকিয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করতে কোষগুলোকে অনুভূমিক থেকে প্রায় ১৩° কোণে বাঁকা করা হয়।[৫]

 
মৌচাকে কর্মী মৌমাছি থেকে ড্রোন মৌমাছিতে রূপান্তরের সময় অনিয়মিত এবং পাঁচ কোণা আকৃতির কোষ তৈরি করে (লাল বিন্দু দ্বারা চিহ্নিত)।
 
পাশ্চাত্যের মৌমাছি এবং মধু

১৯৬৫ সালে লাসলো ফেজেস টথ ত্রিহেড্রাল পিরামিড আকৃতির কোষ (যা তিনটি রোমবি দ্বারা গঠিত) আবিষ্কার করেন, যা তাত্ত্বিকভাবে সর্বোত্তম ত্রিমাত্রিক আকৃতির জ্যামিতি নয়। এটি দুটি ষড়ভুজ এবং দুটি ছোট রোমবাস নিয়ে গঠিত।[৬][৭]

মোমের তাপমাত্রার প্রভাবসম্পাদনা

যখন সক্রিয়ভাবে মোমের তাপমাত্রা বেশি থাকে তখন মৌমাছিরা মৌচাক নির্মাণের সময় তাদের এন্টেনা, ম্যান্ডেবল এবং পা ব্যবহার করে।[৮] ষড়ভুজ কোষ নির্মাণের সময় মোমের তাপমাত্রা সাধারণত ৩৩.৬ থেকে ৩৭.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস মধ্যে থাকে। ৪০° সেলসিয়াস তাপমাত্রার নিচে থাকা মোম নতুন মৌচাক নির্মাণ শুরু করার জন্য আদর্শ বলে ধারণা করা হয়।[৮] মৌমাছির শরীরের তাপমাত্রা মৌচাক কোষ নির্মাণ করার সময় আদর্শ মোম তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য একটি বড় ফ্যাক্টর।[৯]

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Graham, Joe. The Hive and the Honey Be. Hamilton/IL: Dadant & Sons; 1992; ISBN.
  2. "Glossary of Bee Terms – Montgomery County Beekeepers Assoc., Maryland, USA"। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  3. Thompson, D'Arcy Wentworth (1942). On Growth and Form. Dover Publications. ISBN.
  4. Nazzi, F (২০১৬)। "The hexagonal shape of the honeycomb cells depends on the construction behavior of bees"Scientific Reports6: 28341। ডিওআই:10.1038/srep28341পিএমআইডি 27320492পিএমসি 4913256  
  5. Frisch, Karl von (১৯৭৪)। Animal Architecture । New York: Harcourt Brace Jovanovich। 
  6. Bessiere, Gustavo (১৯৮৭)। Il Calcolo Differenziale e Integrale—Reso Facile ed Attraente.IL (ইতালীয় ভাষায়) (VII সংস্করণ)। Milan: Hoepli। আইএসবিএন 9788820310110 
  7. Gianni A. Sarcone. "The solved angular puzzle of the honeycombs' cells". 2004.
  8. Bauer, D; Bienefeld, K (২০১৩)। "Hexagonal comb cells of honeybees are not produced via a liquid equilibrium process"। Naturwissenschaften100 (1): 45–9। ডিওআই:10.1007/s00114-012-0992-3পিএমআইডি 23149932 
  9. Pirk, C. W.; Hepburn, H. R.; Radloff, S. E.; Tautz, J (২০০৪)। "Honeybee combs: Construction through a liquid equilibrium process?"। Naturwissenschaften91 (7): 350–3। ডিওআই:10.1007/s00114-004-0539-3পিএমআইডি 15257392 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা