মুহাম্মদ ইবনে উমাইয়া

মরিস্কো বিদ্রোহীদের নেতা

মুহাম্মাদ ইবনে উমাইয়া (1520-1569), এছাড়াও ইবনে উমাইয়া নামেও পরিচিত (আরবি: محمد بن أمية‎‎), একজন আন্দালুসিয়ান নেতা ছিলেন যিনি গ্রানাডার নিকটবর্তী আলপুজারাস অঞ্চলে স্পেনের দ্বিতীয় ফিলিপের বিরুদ্ধে মরিস্কো বিদ্রোহের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।।

ইবনে উমাইয়া
Los Monfies de las Alpujarras Illustration pag 204.jpg
জন্ম১৫২০
মৃত্যু১৫৬৯

জীবনের প্রথমার্ধসম্পাদনা

ইবনে উমাইয়া ফার্নান্দো ডে ভালোর নামে মরিস্কো পরিবার জন্মগ্রহণ করেন। তার সম্পর্কে উন্নত বংশধারার ব্যাপারে দাবি করা হয় যে, তিনি উমাইয়া রাজবংশের উত্তরসূরী। আবেন হুমেয়া নামটি হ'ল আরবি নাম ইবনে উমাইয়ার স্পেনীয় সংস্করণ, যার অর্থ "উমাইয়ার পুত্র" এবং এই নাম দ্বারা উমাইয়াদের বংশোদ্ভূত হওয়ার ইঙ্গিত পাওয়া যায়।

মরিস্কোর বিদ্রোহ শুরুর আগে ইবনে উমাইয়া গ্রানাডার একজন কাউন্সিলর ছিলেন এবং সিটি কাউন্সিলের একটি ছিনতাইকারীকে টেনে তোলার জন্য গৃহবন্দী ছিলেন।

মরিস্কো বিদ্রোহ (১৫৬৮-১৫৭১)সম্পাদনা

অভিযোগ করা হয় যে, স্পেনের মরিস্কোদের দেশত্যাগে বাধ্য করতে উপযুক্ত কারণ হিসেবে তাদেরকে বিদ্রোহ করতে উসকে দিতে দ্বিতীয় ফিলিপ মুসলমানদের সাথে করা চুক্তিগুলির আগে তার প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করেছিলেন; যাতে তিনি স্পেনের মরিস্কোদেরকে বহিষ্কার করতে পারেন। এবং মরিস্কোদেরকে তাদের আরবি নাম ত্যাগ করার জন্য একটি আদেশ জারি করেছিলেন। ঐতিহ্যবাহী মুরিশ পোশাক এবং এমনকি আরবি এবং বারবার ভাষায় বলা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছিলেন। মরিস্কোদেরকে আরও বলা হয়েছিল যে, তাদের সন্তানদেরকে খ্রিস্টান পুরোহিতদের কাছে পড়াশোনা করতে পাঠাতে হবে।

গ্রানাডা আমিরাতের বাকী রয়ে যাওয়া মরিস্কো জনগণের উপর ধারাবাহিক নির্যাতন এই সশস্ত্র বিদ্রোহের সূত্রপাত করেছিল। এই বিদ্রোহের পরিকল্পনা করেছিলেন গ্রানাডা আমিরাত রাজপ্রাসাদের উত্তরসূরী ফারাজ বিন ফারাজ ও ডিয়েগো ল্যাপেজ বেন আবুর রাজকেন্দ্র থেকে এসেছিলেন। তারা সতর্কতার সাথে আলপুজারাসের বাসিন্দাদের অবস্থাগুলো পর্যবেক্ষণ করছিলেন যে, কোন জায়গায় রাজকীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে সর্বোত্তম অবস্থান তৈরি করা যেতে পারে। মরোক্কোর রাজাদের কাছ থেকে সাহায্য প্রার্থনা করেছিলেন এবং স্থানীয় দস্যুদের তাদের সাহায্য করার জন্য প্ররোচিত করেছিলেন।

১৫৬৮ সালের খ্রিস্টমাস উপলক্ষে গ্রানাডা, আলপুজারাস এবং অন্য বিভিন্ন জায়গা থেকে থেকে আগত লুকায়িত মুসলিমদের প্রতিনিধিরা ভেল ডি লেক্রিনে ডে ভালোরকে তাদের রাজা হিসেবে আনুগত্য প্রকাশ করতে গোপনে একত্রিত হয়েছিলেন, যার নাম তারা ইবনে উমাইয়া নাম রেখেছিলেন এবং ধর্মত্যাগ করেছিলেন। ইবনে উমাইয়া তার রাজনৈতিক শক্তিকে অধিকরূপে প্রকাশ করতে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে চারজন স্ত্রী গ্রহণ করেন।

ইবনে উমাইয়ার নেতৃত্বাধীন বিদ্রোহ দলটি আলপুজারা পর্বতমালায় ক্যাস্তিলান বাহিনীর বিরুদ্ধে গেরিলা যুদ্ধের রূপ নিয়েছিল। প্রথমদিকে মাত্র ৪,০০০ পুরুষের সংখ্যা ছিল, বিদ্রোহী বাহিনী দ্রুত বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় ২৫,০০০ হয়ে গিয়েছিল।

পরাজয় এবং নিহতসম্পাদনা

উগাজারের একজন মুসলিম, দিয়েগো আলওয়াজির, তার বিধবা চাচাত বোনকে জোর করে অপহরণ করে দাসী বানানোর কারণে ইবনে উমাইয়ার বিরুদ্ধে ক্রুদ্ধ ছিল। কেননা, তার সামাজিক মর্যাদার কারণে তাকে তার স্ত্রী হিসাবে গ্রহণ করা উচিত ছিল। আলওয়াজির ছয় বছর পরে তিতওয়ানে তাকে বিয়ে করে। তার চাচাত বোনের সম্মানের প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য, আলওয়াজির ইবনে উমাইয়ার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করে।

ইবনে উমাইয়া তার তুর্কি ও আফ্রিকান মিত্রদের উপর দীর্ঘদিন ধরেই অবিশ্বাস করে আসছিলেন, যাদেরকে তিনি তার শিবির থেকে আলমেরিয়ার সীমান্তে সরিয়ে দিয়েছিলেন এবং তার চাচাত ভাই ইবনে আবুর অধীনস্থ করে দিয়েছিলেন।

আলওয়াজির ইবনে উমাইয়া ও তুর্কির মিত্রের সাথে চলা অবিশ্বাসের রেশ ধরে তার ষড়যন্ত্র শুরু করে। সে তুর্কি দলের নেতার কাছে যায় এবং প্রস্তাব পেশ করে যে, “সে ইবনে উমাইয়াকে হাশিশ পান করাবে এবং সে যখন হাশিশের ঘোরে থাকবে, তখন যাতে তুর্কির নেতারা তাকে রাতের বেলায় হত্যা করেন এবং ক্ষমতা দখল করেন।” তুর্কিরা তার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে এবং বলে যে, “তুর্কির খেলাফত তাদেরকে মুরিশ রাজাকে সমর্থন করতে প্রেরণ করেছেন, মুরিশদের রাজা হতে নয়।”

তারা খলিফার অনুমতিক্রমে স্থানীয় কোন দায়িত্বের ব্যাপারে সচেতন, সবার বিশ্বস্ত এবং যিনি মুসলিমদের স্বার্থরক্ষায় কাজ করবেন; এমন কাউকে নেতৃত্বের দায়িত্ব দিতে পরামর্শ দেন।

২০ই অক্টোবর, ১৫৬৯ সালে তুর্কি সামরিক বিশেষজ্ঞদের অভ্যুত্থানে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয় এবং মুলি আবদাল্লা নামে ইবনে আবুকে মরিস্কোদের প্রধান হিসাবে ঘোষণা করা হয়। তাঁর উত্তরসূরী ইবনে আবুও শেষ পর্যন্ত তাঁর নিজের লোকদের হাতেই নিহত হয়েছিলেন।

ফিলিপের অবৈধ ভাই অস্ট্রিয়ার জন ২০ হাজার সৈন্যের নেতৃত্বে বিদ্রোহ দমন করতে উপস্থিত হয়। ইবনে উমাইয়া ও তার উত্তরসূরী ইবনে আবুর মৃত্যু আলপুজারাসে চলা দুই বছরের গেরিলা যুদ্ধের অবসান ঘটায়। আলপুজারাসের প্রায় সকল মানুষকে কিশতালা সাম্রাজ্য ও পশ্চিম আন্দালুসিয়ায় নির্বাসিত করা হয় এবং ২৭০ এর মত গ্রাম ও পল্লীকে উত্তর আন্দালুসিয়ায় নির্বাসন করা হয়। গ্রাম গুলো পরিত্যক্ত হয়ে যায়। এই ঘটনার ফলে বিভিন্ন দেশে রেশম শিল্পে ধ্বস নামে।

দ্বিতীয় রাজা ফিলিপ গ্রানাডার ৮০,০০০ মরিস্কোসকে দেশের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন। ফিলিপ আশা করেছিলেন যে, এটি মরিস্কো সম্প্রদায়কে টুকরো টুকরো করে দিবে এবং খ্রিস্টান জনগোষ্ঠীর মধ্যে তাদের অধিগ্রহণকে ত্বরান্বিত করবে। শেষপর্যন্ত গ্রানাডা থেকে আসা মরিস্কোরা ক্যাসটাইল সাম্রাজ্যে এসে বিক্ষিপ্ত হয়ে যায় জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল (বিশেষত আন্দালুসিয়া এবং এক্সত্রেমাদুরায়)। আসলে তারা স্থানীয় মরিস্কো; যারা খ্রিস্টধর্ম গ্রহণ করেছিল তাদের দ্বারা প্রভাবিত হয়। এই ধারাবাহিকতা শেষ পর্যন্ত মরিস্কোদের সামগ্রিক বহিষ্কারের সাথে সমাপ্ত হয়।

মন্তব্যসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা