মাইক্রোসফটের সমালোচনা

মাইক্রোসফটের সমালোচনা মাইক্রোসফটের বিভিন্ন পণ্য ও ব্যবসায় কার্যক্রম নিয়ে। কোম্পানিটির সফটওয়্যারের ব্যবহার বান্ধবতা, বলিষ্ঠতা, এবং নিরাপত্তা সমালোচকদের প্রধান লক্ষবস্তু। ২০০০ এ ম্যালওয়্যারের উপদ্রব দেখা যায় মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ও তাদের অন্যান্য পণ্যে। মাইক্রোসফট তাদের বিক্রেতা ও ভোক্তাদের তাদের পণ্যে আবদ্ধ করে রাখার জন্যে আর সফটওয়্যার মানদণ্ড মেনে না চলার অভিযোগেও অভিযুক্ত।[১][২] গ্নু/লিনাক্স ও মাইক্রোসফট উইন্ডোজের মালিকানার সর্বমোট মূল্য চলমান বিতর্কের আরেকটি বিষয়।[৩]

বেআইনি একচেটিয়া ব্যবসায় কর্মকাণ্ডের জন্যে বিভিন্ন সরকার ও অন্যান্য কোম্পানির অনেকগুলো মামলা-মোকাদ্দমার বিষয়ও ছিলো এ কোম্পানি। ২০০৪-এ ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন মাইক্রোসফট কম্পিটেশন কেস-এ দোষী সাব্যস্ত করেছে।

বিক্রেতা আবদ্ধকরণসম্পাদনা

শুরু থেকেই মাইক্রোসফট নিজেদের একটি প্ল্যাটফর্ম কোম্পানি হিসেবে সংজ্ঞায়িত করে আসছে এবং তৃতীয় পক্ষের উন্নয়নকারীদের আকর্ষণের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেছে। প্রাথমিক সংস্করণগুলোয় তারা উন্নয়ন হাতিয়ার প্রদান, প্রশিক্ষণ, অংশিদারী প্রোগ্রাম ও মালিকানাধীন অ্যাপলিকেশন প্রোগ্রামিং ইন্টারফেস-এ প্রবেশাধিকার দিতো। যদিও ফলাফলস্বরূপ মাইক্রোসফট সফটওয়্যারের এ সর্বব্যাপীতা ব্যবহারকারীকে নেটওয়ার্ক প্রভাবের সুবিধা প্রদান করে, সমালোচক, এমনকি মাইক্রোসফট নিজেও এটি ব্যবহার করে স্ট্যান্ডার্ডসমূহের উপর এর অপ্রাতিষ্ঠানিক মালিকানার সমালোচনা করে। [৪][৫]

সফটওয়্যার ব্যবস্থা ক্রয়ের ক্ষেত্রে মাইক্রোসফট সফটওয়্যার সমূহ আইটি ব্যবস্থাপকদের কাছে "নিরাপদ" নির্বাচন হিসেবে উপস্থাপিত হয়। জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপনার কাছে মাইক্রোসফটের সি++ উন্নয়নের প্রধান, অ্যারন কন্টোরার, একটি অভ্যন্তরীণ মেমোতে বলেন:[৬]

স্বত্বাধিকার প্রয়োগসম্পাদনা

মাইক্রোসফট যখন আবিষ্কার করলো তাদের প্রথম পণ্য অল্টেয়ার ব্যাসিকের অননুমোদিত নকল বহুবিস্তৃত হয়ে পড়েছে, মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস শখের ব্যবহারকারীদের কাছে একটি উন্মুক্ত পত্র লিখেন যেখানে তিনি খোলাখুলিভাবে তাদের অনেককে চোর বলে অভিহিত করেন। গেটসের পত্র অনেকগুলো উত্তর পায়, যেগুলোর অনেকগুলোতে এমন অভিযোগের বিরোধিতা করে এবং অন্যগুলোতে প্রতিদানের নীতিমালাটিকে সমর্থন করে। [৭] সফটওয়্যার মালিকানাধীন হবে নাকি হবে না এমন বিতর্ক ফ্রি সফটওয়্যার আন্দোলনের নামে এখনও চলছে। মাইক্রোসফট জিপিএলের অধীনে লাইসেন্সকৃত ফ্রি সফটওয়্যারকে "Potentially Viral" (সাম্বাব্য ভাইরাসঘটিত) ও জিপিএলকে "Viral" (ভাইরাস) বলে অভিহিত করে যা মালিকানাধীন সফটওয়্যারকে আক্রমণ করে ও এর উন্নয়নকারীকে উৎস কোড প্রকাশে বাধ্য করে।[৮][৯]

১৯৯৮-এর শুরুর দিকে ওপেন সোর্স কম্যুনিটির কাছে প্রকাশিত হয়ে পড়া মাক্রোসফটের অভ্যন্তরীণ মেমো হেলোয়িন ডকুমেন্টে ইঙ্গিত পাওয়া যায় যে কিছু মাইক্রোসফট কর্মী উপলব্ধী করফে পারে যে ওপেন সোর্স সফটওয়্যার — বিশেষত গ্নু/লিনাক্স — সফটওয়্যার শিল্পে মাইক্রোসফটের অবস্থানের প্রতি দীর্ঘ-মেয়াদী ক্রমবর্ধমান হুমকি। এ নথিসমূহে স্বীকার করা হয় যে লিনাক্সের কিছু অংশ অই সময়ের মাইক্রোসফট উইন্ডোজের চেয়ে শক্তিশালী।

মাইক্রোসফট তাদের ২০০৬ সালের বার্ষিক প্রতিবেদনে জানায় তারা ৩৫টি প্যাটেন্ট ভঙ্গকারী মোকাদ্দমার আসামী ছিলো। [১০] এপ্রিল ২০০৪ থেকে মার্চ ২০০৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির মকদ্দমা ব্যয় ৪৩০ কোটি ডলার অতিক্রম করে, যার সাথে যুক্ত হয় ৪০০ কোটি জরিমানা ও ৩০০০ কোটি আইনি ফি।[১১]

সমালোচলকদের অন্য একটি উদ্বেগ হলো, মাইক্রোসফট শেয়ার্ড সোর্স সফটওয়্যারে বিতরণ ব্যবহার করে যেসব ব্যবহারকারীর কাছে মাইক্রোসফট কোড উন্মুক্ত করা হয় তাদেরকে প্রতিযোগী পণ্যের উন্নয়নের অংশীদার হতে আইনত বাধা দিতে বা দেওয়ার হুমকি দিতে পারে। এ বিষয়টি অ্যামেরিকান বার অ্যাসোসিয়েশন এবং ওপেন সোর্স ইনিশিয়েটিভে প্রকাশও হয়েছে। [১২][১৩]

১৯৯০-এর দশক থেকে মাইক্রোসফট লুকানো এপিআইয়ের জন্যে অভিযুক্ত।[১৪] কোর্টের আদেশের উত্তরে মাইক্রোসফট এর অপারেটিং সিস্টেম সফটওয়্যারের মধ্যকার ইন্টারফেস সমূহ প্রকাশ করে, যার মধ্যে রয়েছে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার, অ্যাক্টিভ ডিরেক্টরি, এবং উইন্ডোজ মিডিয়া

১০ অক্টোবর ২০১৮-তে মাইক্রোসফট ওপেন ইনভেনশন নেটওয়ার্ক কম্যুনিটিতে যোগদান করে, যদিও তাদের এখনও ৬০,০০০ প্যাটেন্ট রয়েছে।[১৫]

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Microsoft A History of Anticompetitive Behavior and Consumer Harm(মাইক্রোসফট অপ্রতিযোগী আচরণ ও ভোক্তা ক্ষতির ইতিহাস)" (পিডিএফ)। ইউরোপিয়ান কমিটি অব ইন্টেরোপেরাবল সিস্টেমস। ৩১ মার্চ ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  2. "Writing history with Microsoft's Office lock-in(মাইক্রোসফট অফিস লক-ইনের ইতিহাস লেখা)" 
  3. ওরজেয, ড্যান (২০০৯-০৪-২৯)। "Linux TCO: Less Than Half The Cost of Windows(লিনাক্স মালিকানার মোট মূল্য: উইন্ডোজের মোট মূল্যের অর্ধেক)"CIO Updates। ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  4. রজার, উইল (৮ নভেম্বর ১৯৯৮)। "Intel exec: MS wanted to 'extend, embrace and extinguish' competition"। জিডিনেট। ২০০৬-১২-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  5. "Expert Testimony of Ronald Alepin in Comes v. Microsoft - Embrace, Extend, Extinguish"। গ্রোকল। ৮ জানুয়ারি ২০০৭। ১৭ মে ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  6. "EU report takes Microsoft to task"। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  7. গেটস, বিল (এপ্রিল ১৯৭৬)। "A Second and Final Letter (দ্বিতীয় ও শেষ পত্র)"কম্পিউটার নোটস। ২৩ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  8. "Open source terror stalks Microsoft's lawyers(ওপেন সোর্স সন্ত্রাস মাইক্রোসফটের উকিলদের খোঁচাচ্ছে)" 
  9. "The EULA, the GPL and the Wisdom of Fortune Cookies" 
  10. "MSFT Annual Report 2006(এমএসএফটির বার্ষিক প্রতিবেদন ২০০৬)"। মাইক্রোসফট। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  11. "Patent Payouts(প্যাটেন্ট পরিশোধ)" (ইংরেজি ভাষায়)। সফটওয়্যার ফ্রিডম। ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  12. "Open Source Software - A Legal Framework (ওপেন সোর্স সফটওয়্যার - একটি আইনি ফ্রেমওয়ার্ক)" (PDF)। ১৬ মার্চ ২০০৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  13. "Shared Source: A Dangerous Virus (শেয়ার্ড সোর্স: ভয়াবহ এক ভাইরাস)"। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  14. Consumer Federation of America and Consumers Union (আমেরিকার কমজ্যুমার ফেডারেশন ও কনজ্যুমার ইউনিয়ন) (২৫ জানুয়ারি ২০০৫)। "Competitive Processes, Anticompetitive Practices and Consumer Harm in the Software Industry ( সফটওয়্যার শিল্পে প্রতিযোগিতার পদ্ধতিসমূহ, অপ্রতিযোগিতামূলক অনুশীলন ও ভোক্তা ক্ষতি)" (PDF)। ২৫ জুলাই ২০০৮ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  15. "Microsoft has signed up to the Open Invention Network. We repeat. Microsoft has signed up to the OIN" 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

মাইক্রোসফটের ব্যবসায় পদ্ধতির সমালোচনা:


সর্বমোট মালিকানা মূল্য:


কর ফাঁকি:


ব্যবহারকারী প্রতিক্রিয়া: