প্রধান মেনু খুলুন

মহীশূর জেলা

কর্ণাটকের একটি জেলা

মহীশূর জেলা (কন্নড়: ಮೈಸೂರು ಜಿಲ್ಲೆ, প্রতিবর্ণী. মৈসূরু জিল্লে) আনুষ্ঠানিকভাবে 'মৈসূরু' নামে পরিচিত) ভারতের কর্ণাটক রাজ্যের দক্ষিণ অংশে অবস্থিত প্রশাসনিক অঞ্চল। পূর্ব ও উত্তরপূর্ব মান্দায়া জেলা, দক্ষিণ-পূর্বে চামরাজনগর জেলা, দক্ষিণে কেরালা রাজ্য, পশ্চিমে কোদাগু জেলা এবং উত্তরে হাসান জেলা। এটি অনেক পর্যটক গন্তব্যস্থল। এই জেলায় মহীশূর প্যালেসনাগরহোল জাতীয় উদ্যান অবস্থিত। কর্ণাটকের ইতিহাসে এই জেলার একটি উল্লেখযোগ্য স্থান রয়েছে। জেলাটি ওয়াদিয়ার রাজবংশ দ্বারা ১৩৯২ সাল থেকে ১৯৪৭ সালে ভারতের স্বাধীনতা পর্যন্ত শাসিত হয়েছিল। মহীশূর জেলা মর্যাদা এই উপায়ে পাওয়া যায় যে, কর্ণাটক রাজ্যটি পূর্বে মাইসোর রাজ্যের নামে পরিচিত ছিল।

মহীশূর
ಮೈಸೂರು ಜಿಲ್ಲೆ
জেলা
ঘড়ির কাঁটার দিকে: মহীশূর প্যালেস, শিবসমুদ্র জলপ্রপাত মান্দায়া, ইনফোসিস ভবন, মান্দায়া মধ্যে বৃন্দাবন গার্ডেন মিউজিকাল ফোয়ারা, চেননাকেসভা মন্দির, ললিতা মহাল, সেন্ট। ফিলোমেনার চার্চ এবং চামুন্ডেশ্বরী মন্দির।
ভারতের কর্ণাটকে অবস্থান
ভারতের কর্ণাটকে অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ১২°১৩′ উত্তর ৭৬°২৯′ পূর্ব / ১২.২১° উত্তর ৭৬.৪৯° পূর্ব / 12.21; 76.49স্থানাঙ্ক: ১২°১৩′ উত্তর ৭৬°২৯′ পূর্ব / ১২.২১° উত্তর ৭৬.৪৯° পূর্ব / 12.21; 76.49
রাষ্ট্র ভারত
বিভাগমহীশূর বিভাগ
সদর দপ্তরমহীশূর
তালুকমহীশূর, তিরুমাকুদলু নরসীফুর, নঞ্জনগুড়, হিগাদদেবনাকোট, হুনসুর, পেরিয়াপাটনা, কৃষ্ণরাজানরা
সরকার
 • জেলা প্রশাসককে.বি.শিবকুমার ,আইএএস
আয়তন[১]
 • মোট৬৮৫৪ কিমি (২৬৪৬ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০০১)[১]
 • মোট৩১,০১,০২৭
 • জনঘনত্ব৪৫০/কিমি (১২০০/বর্গমাইল)
ভাষা
 • দাপ্তরিক ভাষাকন্নড়
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+৫:৩০)
আইএসও ৩১৬৬ কোডআইএন-কেএ
যানবাহন নিবন্ধনকেএ-০৯, কেএ-৪৫, কেএ-৫৫
ওয়েবসাইটমহীশূর.নিক.ইন

এটি কর্ণাটক রাজ্যের তৃতীয় বৃহত্তম জনবহুল জেলা (৩০ টির মধ্যে), ব্যাঙ্গালোর শহর জেলাবেলগাঁও জেলার পরে। [২]

পরিচ্ছেদসমূহ

নামের ব্যুৎপত্তিসম্পাদনা

মহীশূর জেলা তার নাম পায় মহীশূর শহরের থেকে, যা জেলার সদর দপ্তর। এই শহরটির মূল নাম ছিল মহীশাপুরা, যা মহীশাসুর নামে একটি দৈত্য থেকে উদ্ভূত। মহীশূর শহরের কাছাকাছি চামুন্ডি পাহাড়ের চূড়ায় মাহীশাসুরে একটি মূর্তি রয়েছে, যার নামটি থেকে শহরটির নামকরণ করা হয় এবং দেবী চামুন্ডেশ্বরীর একটি মুন্দির রয়েছে, এটি মূল উৎসের কিংবদন্তীর সাথে সম্পর্কিত।

ইতিহাসসম্পাদনা

ভূগোলসম্পাদনা

মহীশূর জেলা ১১°৪৫' থেকে ১২°৪০' উত্তর অক্ষাংশ এবং ৭৫°৫৭' থেকে ৭৭°১৫' পূর্ব দ্রাঘিমাংশের মধ্যে অবস্থিত। জেলার পূর্বদিকে ম্যান্ডায়া জেলা, দক্ষিণ-পূর্বের চামরাজনগর জেলা, দক্ষিণে কেরালা রাজ্য, পশ্চিমে কোডাগু জেলা, এবং উত্তরে হাসান জেলা। এটি ৬,৮৫৪ কিমি² (রাজ্যের মধ্যে ১২ তম স্থান) এলাকা নিয়ে গঠিত। মহীশূর জেলার প্রশাসনিক কেন্দ্র মহীশূর শহর। জেলাটি মহীশূর বিভাগের একটি অংশ। ১৯৯৮ সালে, মহীশূর জেলার থেকে চামরাজনগর জেলাকে পৃথক করা হয়েছিল।

 
গুনডাল নদী।
 
কোনানুরে অবস্থিত কৃষি ক্ষেত্র।

জেলা দাক্ষিণাত্য মালভূমির উপর অবস্থিত, কাবেরী নদীর জলবিভাজিকা নিয়ে,। কাবেরী নদী জেলার উত্তর-পশ্চিমে এবং পূর্ব অংশে প্রবাহিত হয়। কাবেরী নদী জুড়ে একটি বাঁধ নির্মাণ করে কৃষ্ণ রাজা সাগরা জলাশয় নির্মান করা হয়, যা জেলার উত্তর প্রান্তে অবস্থিত। মহীশূর জেলা এবং আংশিক ভাবে কোডাগু জেলা নিয়ে নাগরহোল জাতীয় উদ্যানটি গঠিত হয়।

জলবায়ুসম্পাদনা

জেলার তাপমাত্রা শীতকালে হয় গড়ে ১৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড এবং গ্রীষ্মকালে হয় গড়ে ৩৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড। মহীশূর জেলার গড় বৃষ্টিপাত ৭৮৫ মিমি। [৩]

ভূতত্ত্বসম্পাদনা

এই জেলায় পাওয়া মাটির প্রকারগুলি হল- লাল মৃত্তিকা (লাল কাল্পনিক মাটি, লাল লোম মাটি, লাল কাল্পনিক মাটির মাটি, লাল মাটির মাটি), ল্যাটেরাইট মাটি, গভীর কালো মাটি, লবণাক্ত এলুভো-কুলাউয়্যাল মাটি এবং বনভূমির বাদামী মাটি।[৪] এই জেলায় পাওয়া যায় কিছু খনিজ, যেমন- কানাইটি, সিলিমানাট, কোয়ার্টজ, ম্যাগনেসাইট, ক্রোমাইট, সোপস্টোন, ফেলাইট, করুন্ডাম, গ্রাফাইট, চুনাপাথর, ডলোমাইট, সিলিকনাইট এবং ডুনিটি। [৫]

জনসংখ্যার উপাত্তসম্পাদনা

২০০১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী মহীশূর জেলার জনসংখ্যা ২৯,৯৪,৭৪৪ জন,[২] আমেরিকা [18] বা যুক্তরাষ্ট্রের মিসিসিপি রাজ্যের জনসংখ্যার সমান। [৬] এটি ভারতের জেলাগুলির মধ্যে ১২৫ তম স্থান (মোট ৬৪০ টির মধ্যে) অধিকার করে জনসংখ্যার হিসাবে। [২] জেলার জনসংখ্যার ঘনত্ব হল প্রতি বর্গ কিলোমিটারে ৪৩৭ জন (১,১৩০/বর্গ মাইল)। [২] ২০০১-২০১১ দশকে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ছিল ১৩.৩৯%। [২] মহীশূরে প্রতি ১০০০ জন পুরুষের বিপরীতে ৯৮২ জন মহিলার রয়েছেন,[২] এবং জেলার সাক্ষরতার হার ৭২.৫৬%। [২]

জেলার মোট জনসংখ্যার ৮৭.৪৪% হিন্দু এবং ইসলাম ধর্মালম্বী ৮.৮৭%; জনসংখ্যার বাকি অংশ খ্রিস্টান, বৌদ্ধ এবং অন্যান্য ধর্মীয় গোষ্ঠীর অন্তর্গত। [৭]

কন্নড় এই জেলার প্রধান ভাষা। মহীশূর জেলায় বসবাসকারী কিছু জাতিগোষ্ঠী হল জেনু কুরুবা, বেটা কুরুবা, পানিয়া এবং পাঞ্জারী ইয়ারভাস ও সলিগাস। [৮]

অর্থনীতিসম্পাদনা

কৃষি এই জেলার অর্থনীতির মূলনীতি ভারতের বাকি অংশের মত। যদিও কৃষি বৃষ্টিপাতের উপর নির্ভরশীল। কাবেরী নদী ও কাবিনি নদী এই জেলায় কৃষি জন্য প্রয়োজনীয় সেচের জলের যোগান দেয়। ২০০১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী, প্রায় ৩,২৫,৮২২ জন কৃষক এই জেলায় চাষে সঙ্গে জড়িত। ২০০১ থেকে ২০০২ সালের ২২ শে অক্টোবর মহীশূর জেলায় ৬,০৮,৫৯৬ টন খাদ্যশস্য উৎপাদিত হয় যা বছরে রাজ্যে মোট খাদ্যশস্য উৎপাদনের ৬.৯৪% অবদান। [11] এই জেলার উৎপন্ন গুরুত্বপূর্ণ ফসলগুলি হচ্ছে তুলো, গ্রাম, বাদাম, জওয়ার, ভুট্টা, রাগি, চাল, আখ, সূর্যমুখী এবং তুরা। [12] অর্থনীতিতে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখে হর্টিকালচার; বিশেষ করে এইচ ডি কোট তালুকের পাম তেলের উৎপাদন। [13]

ছবির গ্যালারিসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Know India- Karnataka"। Government of India। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১১ 
  2. "District Census 2011"। Census2011.co.in। ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০ 
  3. Average Rainfall in the districts of Karnataka are specified by National Informatics Centre। "Rainfall"Webpage of the Agriculture Department। Govt. of Karnataka। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৪-০৩ 
  4. Types of soil found in Karnataka are described by National Informatics Centre। "Traditional Soil Groups of Karnataka and their Geographic Distribution"Webpage of the Agriculture Department। Govt. of Karnataka। 
  5. List of Mining Leases given out by the State of Karnataka is mentioned by National Informatics Centre। "Mining Leases"Webpage of the Department of Mines and Geology। Government of Karnataka। ১১ এপ্রিল ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৩-৩১ 
  6. US Directorate of Intelligence। "Country Comparison:Population"। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১০-০১Armenia 2,967,975 July 2011 est. 
  7. Data related to the 2001 Census; classified according to religion is provided in detail in the website of the Census department of India in this webpage ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৬ জুলাই ২০১০ তারিখে
  8. A detailed report on the tribes found in the Nagarhole National Park is presented by The Inspection Panel। "Report and Recommendation on Request for Inspection, India Ecodevelopment Project, Rajiv Gandhi (Nagarhole) National Park" (PDF)World Bank Internet Resource। The World Bank। ২০০৯-০৩-০৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৪-০৩ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা