মতিলাল নেহেরু

ভারতীয় আইনজ্ঞ এবং রাজনীতিবিদ

মতিলাল নেহেরু ( জন্ম : ৬ মে ১৮৬১ - মৃত্যু : ৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৩১) এলাহাবাদের একজন বিখ্যাত আইনজীবী ছিলেন। [১] তিনি ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহ্‌রুর পিতা ছিলেন। তিনি ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রথম সক্রিয় কর্মীদের মধ্যে একজন। ১৯১৯-১৯২০ এবং ১৯২৮-১৯২৯ সাল পর্যন্ত তিনি দুই বার ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের সভাপতি ছিলেন।

মতিলাল নেহেরু

জীবন ও শিক্ষা সম্পাদনা

মতিলাল নেহেরু আগ্রায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবার নাম ছিল গঙ্গাধর । পাশ্চাত্য শিক্ষায়  প্রথম প্রজন্মের মধ্যে তিনি ছিলেন কয়েকজন। তিনি এলাহাবাদের মুরে সেন্ট্রাল কলেজে পড়াশোনা করেন কিন্তু বিএ পাস করেননি। পরে তিনি ক্যামব্রিজ থেকে "বার এট ল" নামক উপাধি গ্রহণ করেন এবং ইংরেজ আদালতগুলিতে উকিল হিসেবে কাজ শুরু করেন। মতিলাল নেহেরুর স্ত্রীর নাম ছিল রূপো রানী। জওহরলাল নেহরু তাঁর একমাত্র ছেলে। তাঁদের দুই মেয়ে ছিল। তার বড় মেয়েটির নাম বিজয়লক্ষ্মী। যিনি পরে বিজয়লক্ষী পণ্ডিত নামে বিখ্যাত হয়ে উঠেন। তার ছোট মেয়েটির নাম ছিল কৃষ্ণ। পরবর্তীকালে কৃষ্ণ হত্তীসিংহ বলা হয়। কিন্তু পরবর্তীতে তিনি তার সমর্থকতা ত্যাগ করেছিলেন এবং ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে কাজ করেছিলেন। ১৯২৯ সালে তিনি দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাসের পাশাপাশি কংগ্রেসের পক্ষ থেকে পৃথক হওয়ার পর তার স্বরাজ পার্টির প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯২৮ সালে তিনি কলকাতায় অনুষ্ঠিত কংগ্রেস কনভেনশন সভাপতি নির্বাচিত হন। তিনি ১৯২৮ সালে কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠিত ভারতীয় সংবিধান কমিশনের সভাপতি হন। এই কমিশন নেহরু রিপোর্ট জমা দিয়েছে। মতিলাল নেহরু এলাহাবাদে একটি আলিশান ঘর নির্মাণ করেন এবং তাকে আনন্দ ভবন নামে অভিহিত করেন। এরপর তিনি কংগ্রেস পার্টিতে নিজের পুরনো বাড়ি স্বরাজ ভবন দান করেন। ১৯৩১ সালে এলাহাবাদে মতিলাল নেহেরু মারা যান।

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. "Motilal Nehru Birth Anniversary: Lesser-known facts about Pandit Jawaharlal Nehru's father"Free Press Journal (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-১২