ভরত মুনি

প্রাচীন ভারতীয় নাট্য ও সঙ্গীত বিশারদ

ভরত মুনি ছিলেন একজন প্রাচীন ভারতীয় নাট্য ও সঙ্গীত বিশারদ। তিনি প্রাচীন ভারতীয় নাটক, বিশেষ করে সংস্কৃত মঞ্চনাটক, ও অভিনয় বিদ্যা বিষয়ক নাট্যশাস্ত্র রচনা করেছেন। ভরতকে ভারতীয় নাট্যধারার জনক বলা হয়ে থাকে। এটি রচনার সঠিক সময় পাওয়া যায় নি। তবে ধারণা করা হয় তা খ্রিস্টপূর্ব ২য় শতাব্দী থেকে খ্রিষ্টীয় ২য় শতাব্দীর মধ্যে রচিত হয়।[১]

প্রাচীন ভারতীয় নৃত্য ও সঙ্গীতের মূল পাওয়া যায় নাট্যমে। ভরত অভিনয়ের তিনটি রূপের উল্লেখ করে বলেন তামিল নাটকের উল্লেখযোগ্য অংশ হল ধ্রুপদী ভারতীয় সঙ্গীত ও নৃত্য। ভরত সংস্কৃত অলঙ্কারশাস্ত্রের দশটি গুণের উল্লেখ করেন, যার মধ্যে নাটক একটি।[২] এছাড়া ভরত কিছু রস ও অভিব্যক্তির বিষয়ে আলোকপাত করেছেন, যা ভারতীয় নৃত্য, সঙ্গীত ও মঞ্চনাটকের বৈশিষ্ট বর্ণনা করে।

তিনি ভরতনাট্যম নৃত্যধারার প্রবর্তন করেছেন বলে অনুমান করা হয়।[৩] তামিল নাড়ুর মন্দিরের ভাস্কর্য ভরতনাট্যম নৃত্যধারার একমাত্র নিদর্শন। ফলে ধারণা করা হয় ভরতনাট্যম প্রধানত তামিল মঞ্চনাটকে ব্যবহৃত হত। পুরাণে উল্লেখ রয়েছে নৃত্যকলার দেবতা নটরাজ এই নৃত্যধারার সৃষ্টি করেছেন। এই নৃত্যধারার সকল প্রাচীন সাহিত্য তামিল ভাষায় রচিত।


তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. দে, শঙ্কর প্রসাদ (১৬ নভেম্বর ২০১৬)। "ট্রাম্পের উত্থান ও ভরতনাট্যমের আমেরিকা বিজয়"দৈনিক আজাদী। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৭ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. "নন্দনতত্ত্ব"অনুশীলন। ১৪ মার্চ ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৭ 
  3. "শেষ হলো ছায়ানটের নৃত্য–উৎসব"দৈনিক প্রথম আলো। ১৫ নভেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৭ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা