প্রধান মেনু খুলুন

বোয়িং সিএইচ-৪৭ চিনুক (ইংরেজি: Boeing CH-47 Chinook) হচ্ছে দুই ইঞ্জিন, ট্যানডেম পাখা বিশিষ্ট একটি ভারী পরিবহণ হেলিকপ্টার। এটির সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৭০ নট (১৯৬ মাইল বা ৩১৫ কিলোমিটার)। ১৯৬০-এর দশকে তৈরি হওয়া এই হেলকপ্টারটির গতিবেগ তৎকালীন সাধারণ ও আক্রমণাত্মক হেলিকপ্টারের চেয়েও বেশি ছিলো। এটি একই সাথে সেই সময়ে তৈরি হওয়া খুব অল্প কিছু হেলিকপ্টারের একটি যেগুলো বর্তমানেও তৈরি ও সরাসরি যুদ্ধে ব্যবহৃত হচ্ছে। এই মডেলের হেলিকপ্টার এখন পর্যন্ত মোট১,১৭৯টি তৈরি করা হয়েছে। এটি মূলত যে কাজে ব্যবহৃত হয় তার মধ্যে আছে, সৈন্য পরিবহণ, আর্টিলারি স্থানান্তর, যুদ্ধক্ষেত্রে রসদসরবরাহ করা। মালামাল পরিবহণের জন্য এটির তেলের ট্যাংকারের পাশে প্রশস্ত স্থান রয়েছে, এবং তিনটি অতিরিক্ত কার্গো হুক বিদ্যমান।

সিএইচ-৪৭ চিনুক
নেদারল্যান্ডস রাজকীয় বিমান বাহিনীর সিএইচ-৪৭ চিনুক হেলিকপ্টার
ভূমিকা পরিবহণ হেলিকপ্টার
নির্মাতা বোয়িং রোটরক্র্যাফট সিস্টেমস
প্রথম উড্ডয়ণ ২১ সেপ্টেম্বর, ১৯৬১
প্রবর্তন ১৯৬২
অবস্থা কর্মরত, উৎপাদন চলছে
মুখ্য ব্যবহারকারী ইউনাইটেড স্টেটস আর্মি
জাপান গ্রাউন্ড সেলফ ডিফেন্স ফোর্স
রয়্যাল নেদারল্যান্ডস এয়ার ফোর্স
নির্মিত সংখ্যা ১,১৭৯-এরও বেশি[১]
ইউনিট খরচ গড়ে ৩.৫ কোটি ডলার (২০০৮)[২]
উন্নয়নকৃত ভেরটোল মডেল ১০৭
রুপভেদ বোয়িং চিনুক (যুক্তরাজ্য রূপভেদ)

মার্কিন বিমান নির্মাতা প্রতিষ্ঠানে বোয়িং-এর অঙ্গ সংগঠন বোয়িং ভেরটোল ষাটের দশকের গোড়ার দিকে এই হেলিকপ্টারের নকশা প্রণয়ন করে ও উৎপাদন শুরু করে। বর্তমানে বোয়িং ডিফেন্স, স্পেস অ্যান্ড সিকিউরিটি এই হেলিকপ্টার উৎপাদন করছে। এখন পর্যন্ত মোট ১৬টি দেশে এই হেলিকপ্টার সরবরাহ করা হয়েছে। মার্কিন সেনাবাহিনী ও ব্রিটিশ রয়্যাল এয়ার ফোর্সসহ হচ্ছে এই হেলিকপ্টারের সর্বোচ্চ ব্যবহারকারী। সিএইচ-৪৭ সবচেয়ে ভারী পরিবহণ হেলিকপ্টারগুলোর মধ্যে অন্যতম।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. CH-47D/F Chinook page, Boeing
  2. "Chinook Replaces Blackhawk in Combat"। Air Transportation। ৫ মার্চ ২০০৮। 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা