বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ড

বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ড বাংলাদেশ সরকারের অধীনস্থ একটি বোর্ড যা বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্টের সাথে বেসরকারী শিক্ষকদের পেনশন কার্যক্রম পরিচালনা করে।[১]

বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ড
গঠিত২০০২; ২২ বছর আগে (2002)
সদরদপ্তরঢাকা, বাংলাদেশ
যে অঞ্চলে
বাংলাদেশ
দাপ্তরিক ভাষা
বাংলা
ওয়েবসাইটterbb.gov.bd

ইতিহাস সম্পাদনা

বেসরকারী শিক্ষকের পেনশন প্রদান ও পরিচালনার জন্য ২০০২ সালে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ড প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।[২] অবসর গ্রহণের পর শিক্ষকরা বোর্ডের কাছ থেকে কল্যাণ ও অবসর গ্রহণের সুবিধা পান। বোর্ডের নিয়ম অনুসারে শিক্ষকরা ৬০ বছর বয়সে অবসর গ্রহণ করেন এবং তাদের সুবিধাগুলো পাওয়া শুরু করতে পারেন। এর মধ্যে মৃত্যু ঘটলে এই সুবিধাগুলি তাদের নিকটবর্তী পরিবারের সদস্যরা পান।[৩]

বাংলাদেশ শিক্ষিকা ইউনিয়ন, শিক্ষক ইউনিয়ন, ২০১৮ সালে তাদের বেতনের ছয় শতাংশ থেকে দশ শতাংশে কেটে নেওয়ার সরকারি আদেশের প্রতিবাদ জানিয়েছিল।[৪] ২০১৭ সালে প্রথম প্রস্তাব করা হলে ন্যাশনাল ফ্রন্ট অফ টিচার্স অ্যান্ড এমপ্লয়িজ নামে শিক্ষকদের আরেকটি ইউনিয়ন এই পদক্ষেপের প্রতিবাদ করেছিল।[৫] প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নভেম্বর ২০১৮ সালে বোর্ডকে ১০০ মিলিয়ন টাকা বরাদ্দ করেছিলেন।[৬]

আগস্ট ২০১৯ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বোর্ডকে ২৫০ মিলিয়ন টাকা সরবরাহ করেছিলেন। [৭]

ডেইলি সানের ৪ অক্টোবর ২০২০ তারিখে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, শিক্ষকদের পেনশনের জন্য ৪২,৪৩৩ টি আবেদন বেসরকারী কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ড এবং বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্টের কাছে আটকে রয়েছে। বেসরকারী কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ডের সদস্য সচিব শরীফ আহমেদ সাদি বলেন, প্রয়োজনীয় তহবিল না থাকায় তারা অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকদের তহবিল সরবরাহ করতে পারছেন না। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে তাদের অতিরিক্ত ১০ বিলিয়ন টাকা প্রয়োজন।[৮]

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. "Retired non-govt teachers, employees suffer"Daily Sun (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-২৯ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. "Non-govt teachers in grave misery"Daily Sun (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০২১ 
  3. "Government needs empathy for nongovernment teachers"Prothomalo (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-২৯ 
  4. "Non-govt teachers against extra pay cut for retirement benefits"New Age (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-২৯ 
  5. "MPO teachers resent govt move"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৭-১৪। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-২৯ 
  6. "PM announces 5pc increment for teachers under MPO"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-১১-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-২৯ 
  7. "PM provides financial assistance to 8 organisations"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-০৮-২৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-২৯ 
  8. "Non-govt teachers in grave misery"Daily Sun (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০২১