"সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

+ সমাজ সংস্কারে
(+ রাজনৈতিক জীবন */)
(+ সমাজ সংস্কারে)
 
==রাজনৈতিক জীবন==
[[২৬ জুলাই]], [[১৮৭৬]] সালে সুরেন্দ্রনাথ সর্ব ভারতীয় আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে ভারতীয় সংঘ বা '''দি ইন্ডিয়ান এসোসিয়েশন''' প্রতিষ্ঠা করেন। [[১৮৭৮]] সাল হতে তিনি [[বেংগলীবেঙ্গলী]] শিরোনামে একটি কাগজ সম্পাদনা করতেন এবং নির্ভিক ও ঔৎসুক চিত্তে জাতির স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিশেষ করে [[সংস্কৃতি]], [[একতা]], [[স্বাধীনতা]] ও [[মুক্তি|মুক্তির]] বিষয়ে নিয়মিত লিখতেন।
 
এছাড়াও, সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় ভারতীয় [[বিধানসভা|বিধানসভার]] অন্যতম '''সদস্য''' ছিলেন। ১৮৭৬-১৮৯৯ সাল পর্যন্ত একাধারে [[কলকাতা কর্পোরেশন|কলকাতা কর্পোরেশনেও]] সদস্য হিসেবে ছিলেন।
তার সুদক্ষ ও সুচারু নেতৃত্বের ফলে ভারতীয় সংঘ অল্প সময়েই পরিস্ফুটিত হয়। [[১৮৮৩]] সাল থেকে ভারতের সকল এলাকা থেকে আগত প্রতিনিধিদের নিয়ে নিয়মিতভাবে বার্ষিক সভা পরিচালনা করতেন তিনি। [[১৮৮৫]] সালে [[কংগ্রেস|ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস]] প্রতিষ্ঠা পায় এবং এর লক্ষ্য, উদ্দেশ্যও ভারতীয় সংঘের সাথে মিল ছিল। ফলে, [[১৮৮৬]] সালে [[কলকাতা|কলকাতায়]] অনুষ্ঠিত কংগ্রেসের ২য় অধিবেশনে সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় সিদ্ধান্ত নিলেন ভারতীয় সংঘকে একীভূত করার। তিনি নতুন প্রতিষ্ঠিত কংগ্রেসকে আরো শক্তিশালী করার লক্ষ্যে দুইবার - [[১৮৯৫]] ও [[১৯০৭]] সালে এর সভাপতিত্ব করেন।
 
[[১৯০৫]] সালে সুরেন্দ্রনাথ [[বঙ্গভঙ্গ|বঙ্গভঙ্গের]] বিরুদ্ধে অবস্থান নেন এবং [[স্বদেশী আন্দোলন|স্বদেশী আন্দোলনে]] নেতৃত্ব দেন। অধিকন্তু [[হিন্দু-মুসলমান|হিন্দু-মুসলমানের]] মধ্যে [[সাম্প্রদায়িকতা]] মাথাচাড়া দিয়ে উঠে ও [[জাতীয়তাবাদী|জাতীয়তাবাদীদের]] উত্থান ঘটে। পরবর্তীতে তিনি মতানৈক্যজনিত কারণে [[১৯১৮]] সালে [[ভারতীয় কংগ্রেস|কংগ্রেস]] থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করে নেন এবং [[মধ্যপন্থী]] হিসেবে হিন্দু-মুসলিম উভয় পক্ষকে একীকরণে উদ্যোগী হন। [[১৯২১]] সালে তিনি [[নাইট]] [[উপাধি]] লাভ করেন এবং বাংলায় তৎকালীন সরকারের [[মন্ত্রী]] হিসেবে ১৯২১ থেকে [[১৯২৪]] সাল পর্যন্ত দেশের সেবা করেন।
 
==সমাজ সংস্কারে==
পরবর্তীতে তিনি মতানৈক্যের কারণে [[১৯১৮]] সালে [[কংগ্রেস]] থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করে নেন এবং [[মধ্যপন্থী]] হিসেবে উভয় পক্ষকে একীকরণে উদ্যোগী হন। [[১৯২১]] সালে তিনি [[নাইট]] [[উপাধি]] লাভ করেন এবং বাংলায় তৎকালীন সরকারের [[মন্ত্রী]] হিসেবে ১৯২১ থেকে [[১৯২৪]] সাল পর্যন্ত দেশের সেবা করেন।
[[শিক্ষক]] হিসেবে স্যার সুরেন্দ্রনাথ ব্যানার্জী ছাত্রদেরকে ভারতীয় জাতীয়তাবাদী চেতনায় উজ্জ্বীবিত, অনুপ্রাণিত ও উদ্বুদ্ধ করতে ব্যাপক ভূমিকা রাখতেন। একই সাথে তিনি ভারতীয়দের একতাবদ্ধতাসহ বিভিন্ন বিষয়ে [[বক্তৃতা]] দিতে শুরু করলেন। ঊনবিংশ শতকে [[রাজা রামমোহন রায়|রাজা রামমোহন রায়ের]] নির্দেশিত সমাজ-ধর্ম বিষয়ক পুণর্জাগরণ আন্দোলনকে আরো বেগবান করতে বিশেষভাবে সচেষ্ট হন।
 
==পরবর্তী জীবন==
৭৭,২২৯টি

সম্পাদনা