"বাংলাদেশ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সংশোধন, সম্প্রসারণ, তথ্যসূত্র যোগ/সংশোধন
(Firozahmedht (আলাপ)-এর সম্পাদিত 5045628 নম্বর সংশোধনটি বাতিল করা হয়েছেঃপরীক্ষামূলক)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা পূর্বাবস্থায় ফেরত উচ্চতর মোবাইল সম্পাদনা
(সংশোধন, সম্প্রসারণ, তথ্যসূত্র যোগ/সংশোধন)
 
বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় তিন পদ্ধতি প্রচলিত। প্রথমত সাধারণ পদ্ধতির স্কুলগুলোতে সরকারি পাঠ্যক্রম অনুসৃত হয়। এসব স্কুলে শিক্ষাপ্রদানের ভাষা বাংলা। দ্বিতীয়ত রয়েছে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল। এগুলোতে পশ্চিমা পাঠ্যক্রম অনুসরণ করা হয়। তুলনামূলকভাবে সীমিত সংখ্যক হলেও উচ্চ মানের শিক্ষা ব্যবস্থার জন্য এই স্কুলগুলো প্রসিদ্ধ। তৃতীয়ত রয়েছে মাদ্রাসা শিক্ষা। শেষোক্ত শিক্ষা ব্যবস্থার মূল ইসলাম ধর্মীয় শিক্ষা। তবে ভাষা, গণিত, বিজ্ঞান, ব্যবসায় ইত্যাদি সকল বিষয়ও পাঠ্য।
[[চিত্র:University of Asia Pacifc - UAP.jpg|থাম্ব|[[ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক]] বাংলাদেশের একটি [[বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়|বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়]]]]
 
[[চিত্র:ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এর ক্যাম্পাস.jpg|থাম্ব|[[ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি]] বাংলাদেশের একটি [[বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়|বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়]]]]
বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়সমূহকে তিনভাগে ভাগ করা যায়: [[সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়]], [[বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়]] এবং [[আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়]]। বাংলাদেশে ৩৭টি সরকারি, ৮৩টি বেসরকারি এবং দুটো আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয় চালু রয়েছে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর সংখ্যা বিবেচনায় বৃহত্তম এবং [[ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়]] (১৯২১ খ্রিষ্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত) প্রাচীনতম। [[ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি]] আন্তর্জাতিক সংস্থা [[ওআইসি]]-র একটি অঙ্গসংগঠন, এশিয়া, আফ্রিকা, ইউরোপ এবং দক্ষিণ আমেরিকা উপমহাদেশের প্রতিনিধিত্ব করছে। [[এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেন]] এশিয়ার ১৪টি দেশের প্রতিনিধিত্ব করছে। ফ্যাকাল্টির সদস্যবৃন্দ [[এশিয়া]], [[উত্তর আমেরিকা]], [[মধ্যপ্রাচ্য]], [[অস্ট্রেলিয়া (মহাদেশ)|অস্ট্রেলিয়া]] প্রভৃতি স্থানের বিখ্যাত সব প্রতিষ্ঠান থেকে এসেছেন।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20130722093959/http://www.ugc.gov.bd/university/?action=international|শিরোনাম=University Grants Commission of Bangladesh|লেখক=|তারিখ=22 July 2013|কর্ম=web.archive.org|সংগ্রহের-তারিখ=31 October 2019}}</ref> [[বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়|বুয়েট]], [[রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়|রুয়েট]], [[খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়|কুয়েট]], [[চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়|চুয়েট]], [[বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়|বুটেক্স]] এবং [[ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়|ডুয়েট]] দেশের ছয়টি সরকারি প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। কিছু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিও বাংলাদেশে রয়েছে। তাদের মধ্যে [[শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়]], [[মিলিটারি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স এ্যান্ড টেকনোলজি]], [[হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়]], [[নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়]], [[পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়]] উল্লেখযোগ্য। এছাড়াও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে [[ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়]], [[নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়]], [[ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি]], [[ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক]] উল্লেখযোগ্য।
 
বিংশ শতাব্দীর শেষভাগে বাংলাদেশে উচ্চ শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ শুরু হয়। এর ফলে ব্যক্তিখাতে বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হতে শুরু করে। ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দ নাগাদ বাংলাদেশে ব্যক্তিখাতে স্থাপিত বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা ৭৮টি।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি |ইউআরএল=http://www.ugc.gov.bd/university/?action=private |শিরোনাম=ইউনিভার্সিটি গ্র্যান্টস কমিশন তথ্যতীর্থ |প্রকাশক=Ugc.gov.bd |তারিখ= |সংগ্রহের-তারিখ=2015-12-03 |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20110808174337/http://www.ugc.gov.bd/university/?action=private |আর্কাইভের-তারিখ=২০১১-০৮-০৮ |অকার্যকর-ইউআরএল=হ্যাঁ }}</ref>
৩৯টি

সম্পাদনা