"চন্দ্র বিভাজন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ধ্বংসপ্রবণতা হিসাবে চিহ্নিত MD. Nafis Bhuiyan (আলাপ)-এর করা 1টি সম্পাদনা বাতিল করে Yahya-এর করা সর্বশেষ সংস্করণে ফেরত। (টুইং)
(→‎নাসা'র আলোকচিত্র: সংশোধন, বানান সংশোধন)
(ধ্বংসপ্রবণতা হিসাবে চিহ্নিত MD. Nafis Bhuiyan (আলাপ)-এর করা 1টি সম্পাদনা বাতিল করে Yahya-এর করা সর্বশেষ সংস্করণে ফেরত। (টুইং))
ট্যাগ: পূর্বাবস্থায় ফেরত
{{মুহাম্মাদ}}
 
'''চন্দ্র বিভাজন''' বা '''চন্দ্র দ্বিখণ্ডন''' ({{lang-ar|انشقاق القمر}}) হল [[ইসলামের নবী]] [[মুহাম্মাদ]](সা) কর্তৃক প্রদর্শিত [[মুসলিম]] আখ্যানের একটি [[মুহাম্মাদের অলৌকিক ঘটনাসমূহ|অলৌকিক]] ঘটনা।{{r|ব্রিটানিকা}} এ সম্পর্কে ইসলামি গ্রন্থ [[কুরআন|কুরআনের]] সূরা [[সূরা আল-ক্বামার|আল-ক্বামারের]] {{cite quran|৫৪|১–২|style=nosup|expand=no}} আয়াত উদ্ভুত হয়েছে এবং [[শানে নুযূল|শানে নুযূলের]] (ওহির প্রেক্ষাপট) মতো মুসলিম আখ্যানের দ্বারা উল্লেখিত। কিছু মুসলিম ভাষ্যকার, বিশেষত মধ্যযুগে ঘটনাটিকে মুহাম্মদের(সা) দ্বারা [[চাঁদ|চাঁদের]] শারীরিক বিভাজন হিসেবেও ব্যাখ্যা করেছেন, আবার কেউ কেউ এটিকে [[ইসলামি পরকালবিদ্যা|বিচারের দিনে]] ঘটবে এমন ঘটনা হিসেবেও চিহ্নিত করেছেন।
 
আক্ষরিক ব্যাখ্যার সমর্থনকারী প্রাথমিক আখ্যানেরগুলি মুহাম্মদের(সা) [[সাহাবী]] [[আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস]], [[আনাস ইবনে মালিক]], [[আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ]] এবং অন্যানদের মাধ্যমে জানা যায়।{{r|কাসির}}{{r|তাবারি}} ভারতীয় মুসলিম পণ্ডিত [[আব্দুল্লাহ ইউসুফ আলী|আব্দুল্লাহ ইউসুফ আলীর]] মতে, বিচারের দিনে চাঁদ পুনরায় বিভক্ত হতে পারে। তিনি বলেছেন যে, আয়াতগুলির [[রূপক]] অর্থও থাকতে পারে, অর্থাৎ বিষয়টি চাঁদের ক্ষেত্রে স্পষ্ট হয়ে গেছে।{{sfn|মরিসন|২০০২|pp=}} কুরআনের আয়াত {{cite quran|৫৪|১–২|style=nosup|expand=no}} স্বর্গীয় দেহের অলঙ্ঘনীয়তার বিষয়টি মধ্যযুগীয় মুসলিম ধর্মতত্ত্ববিদ ও মুসলিম দার্শনিকদের মধ্যে বিতর্কের অংশ ছিল। ২০১০ সালে [[নাসার চান্দ্র বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের]] (এনএলএসআই) কর্মী বিজ্ঞানী ব্র্যাড বেইলি বলেছেন, "বর্তমান কোনও বৈজ্ঞানিক প্রমাণের খবর নেই যে চাঁদ কখনো দুটি (বা ততোধিক) অংশে বিভক্ত হয়েছিল এবং পরবর্তীতে যে কোনও সময়ে পুনরায় মিলিত হয়েছিল।"{{r|NASA}}
 
আখ্যানটি পরবর্তী কয়েকজন মুসলিম অন্যদের মুহাম্মদের [[নবুয়াত|নবুয়াত্য]] বোঝাতে ব্যবহার করেছিলেন।{{sfn|শিম্মেল|১৯৮৫|pp=৬৯–৭০}} এটি বিশেষত ভারতের কতিপয় মুসলিম কবিদের অনুপ্রাণিত করেছে।{{r|ওয়েনসিংক}}
কেয়ামত নিকটবর্তী এবং চাঁদ বিদীর্ণ হয়েছে। তবে যদি তারা কোনও নিদর্শন দেখে, তবে তারা মুখ ফিরিয়ে নেবে এবং বলবে, "এটা তো চিরায়ত জাদু।"</blockquote>
 
প্রাথমিক ঐতিহ্য ও কাহিনিগুলি এই আয়াতটিকে, [[কুরাইশ|কুরাইশদের]] কিছু সদস্যের অনুরোধে মুহাম্মদ(সা) দ্বারা সম্পাদিত একটি অলৌকিক ঘটনা হিসাবে ব্যাখ্যা করেছে।{{r|উদাহরণস্বরূপ}}{{r|তাবাতাবাঈ}} অধিকাংশ প্রাথমিক ও মধ্যযুগীয় মুসলিম ভাষ্যকাররা ঐতিহাসিক ঘটনা হিসেবে চন্দ্র বিভাজনের ইঙ্গিত করে সেই আখ্যানের সত্যতা গ্রহণ করেছিলেন।{{sfn|রাবিন|২০১০|pp=৪৯-৫১}} যা মূলত উল্লেখিত আয়াত ৫৪:২, "তবে যদি তারা কোনও নিদর্শন দেখে, তবে তারা মুখ ফিরিয়ে নেবে এবং বলবে, "এটা তো চিরায়ত জাদু" এই দৃষ্টিভঙ্গির সমর্থনে গৃহীত হয়েছে।{{r|তাবাতাবাঈ}} উত্তর-ধ্রুপদী ভাষ্যকার [[ইবনে কাসির]] এই ঘটনার উল্লেখ করে প্রাথমিক ঐতিহ্যগুলির একটি তালিকা সরবরাহ করেছেন: [[আনাস ইবনে মালিক|আনাস ইবনে মালিকের]] কর্তৃত্বে প্রেরিত একটি আখ্যানে বলা হয়েছে যে পৌত্তলিক মক্কাবাসীরা একটি অলৌকিক ঘটনার অনুরোধ করার পরে মুহাম্মদ(সা) চাঁদকে বিভক্ত করেছিলেন। মালেকের অপর একটি ঐতিহ্য বর্ণনার অন্যান্য শৃঙ্খলে প্রবাহিত হয়েছে, উল্লেখ রয়েছে যে [[Jabal al-Nour|নূর পর্বত]] চাঁদের দুই অংশের মাঝে দৃশ্যমান ছিল (নূর পর্বতটি [[হেজাজ|হেজাজে]] অবস্থিত)। মুসলিমরা বিশ্বাস করে যে এই পাহাড়ের [[হেরা গুহা|হেরা গুহায়]] মুহাম্মদ [[আল্লাহ|আল্লাহর]] নিকট থেকে তার প্রথম আয়াত লাভ করেছিলেন। [[Jubayr ibn Mut'im|যুবায়ের ইবনে মুতিমের]] একক শৃঙ্খলা দ্বারা বর্ণিত একটি আখ্যানে বলা হয়েছে যে চাঁদের দুটি অংশ দুটি পাহাড়ে দাঁড়িয়েছিল। এই আখ্যানে আরও বলা হয়েছে যে, মক্কাবাসী এই বলে সাড়া দিয়েছিল যে "মুহাম্মদ তার যাদু দ্বারা আমাদের কাবু করেছে... তিনি যদি আমাদের যাদু করে কাবু করতে সক্ষম হন তবে তিনি সমস্ত লোকের সাথে তা করতে সক্ষম হবেন না।" [[আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস]] কর্তৃত্বে প্রেরিত আখ্যানসমূহ সংক্ষেপে এই ঘটনার উল্লেখ করে এবং খুব বেশি বিবরণ দেয় না।{{r|কাসির}} [[আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ|আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদের]] কর্তৃত্বে প্রেরিত আখ্যানে ঘটনাটি নিম্নরূপ বর্ণনা করেছে:{{r|কাসির}}{{r|মুসলিম}}
 
<blockquote>আমরা মিনায় আল্লার বার্তাবাহকের সঙ্গে ছিলাম, তখন চাঁদ দুটি ভাগে বিভক্ত হয়েছিল। এর একটি অংশ ছিল পাহাড়ের পিছনে এবং অপর অংশটি ছিল পাহাড়ের পাশে। আল্লাহর বার্তাবাহক আমাদেরকে বলেছেন: এর সাক্ষ্য দাও {{Hadith-usc|muslim|০৩৯|৬৭২৫}}</blockquote>
[[চিত্র:Rima Ariadaeus-1.jpg|thumb|upright|১৯৬৯ সালে [[অ্যাপোলো ১০]]-এর ধারণকৃত নাসার আলোকচিত্র। রিমা আরিয়াদিয়াস, চাঁদের উপরিভাগের অন্যতম খাঁজ, যা ইন্টারনেট ফোরামে চাঁদের বিভাজনের প্রমাণ হিসাবে দাবি করা হয়েছে।{{r|hoax}}]]
 
অ্যাপোলো মিশনের আলোকচিত্র চাঁদের পৃষ্ঠের ৩০০ কিলোমিটার দীর্ঘ ফাটল রেখা রিমা আরিয়াদিয়াস প্রকাশিত হওয়ার পরে{{r|Ariadaeus}} কিছু ইন্টারনেট সাইটে মুসলমানরা পরামর্শ দিয়েছিল যে এটি কুরআনে বর্ণিত বিভাজনের ফলস্বরূপ। এই২০১০ নিয়েসালে, বিস্তরনাসার গবেষণাবিজ্ঞানী চলছে।ব্র্যাড বেলিকে এ-সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল এবং জবাব তিনি বলেন "আমার সুপারিশ হল আপনি ইন্টারনেটে যা পড়েন তা বিশ্বাস না করা। [[সমকক্ষ-পর্যালোচনা|সমকক্ষ-পর্যালোচিত]] নথিপত্রগুলি হল বৈজ্ঞানিকভাবে বৈধ তথ্যের উৎস। বর্তমানে কোনও বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই যে চাঁদ দুটি (বা এততোধিক) অংশে বিভক্ত হয়েছিল এবং অতীতের যে কোনও সময়ে পুনরায় একত্রিত হয়েছিল।"{{r|NASA}}
 
==আরও দেখুন==
৬৬,৪৬১টি

সম্পাদনা