"তেজস্ক্রিয়তা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
(→‎বৈশিষ্ট্য: সংশোধন, সম্প্রসারণ, পরিষ্কারকরণ, রচনাশৈলী)
ট্যাগ: পুনর্বহালকৃত মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
'''তেজস্ক্রিয়তা''' হলো কোন কোন ভারী মৌলিক পদার্থের একটি গুণ যেগুলোর নিউক্লিয়াস থেকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অবিরত [[আলফা কণা|আলফা]], [[বিটা কণিকা|বিটা]] ও [[গামা রশ্মি]] বিকরীত হয়।
 
== আবিষ্কার ==🥰
[[চিত্র:Alfa beta gamma radiation.svg|right|300px|thumb|আলফা কণিকা কাগজের মধ্যে দিয়ে সম্পূর্ণভাবে, বিটা কণিকা অ্যালুমিনিয়াম প্লেটের মধ্যে দিয়ে সম্পূর্ণভাবে এবং গামা রশ্মি সীসার মধ্যে দিয়ে আংশিকভাবে প্রতিহত<!-- এর চেয়ে ভালো শব্দ মনে আসছে না --> হচ্ছে]]
ফরাসি বিজ্ঞানী [[অঁতোয়ান অঁরি বেকরেল]] ১৮৯৬ সালে [[এক্সরে]] নিয়ে গবেষণা করার সময় এমন একটি স্বতঃস্ফূর্ত প্রাকৃতিক ঘটনা আবিষ্কার করে ফেলেন যা সারা বিশ্বের বিজ্ঞান জগতে দারুন আলোড়ন সৃষ্টি করে। তিনি দেখতে পান যে, [[ইউরেনিয়াম]] ধাতুর [[নিউক্লিয়াস]] থেকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অবিরত বিশেষ ভেদন শক্তি সম্পন্ন রশ্মি বা বিকিরন নির্গত হয়। তার নামানুসারে এই রশ্মির নাম দেওয়া হয় [[বেকরেল রশ্মি|বেকারেল রশ্মি]]। তিনি লক্ষ করেন যে মৌল থেকে এই রশ্মি নির্গত হয়, তা একটি সম্পূর্ন নতুন মৌলে রুপান্তরিত না হওয়া পর্যন্ত এই রশ্মি নির্গমন অব্যাহত থাকে। পরবর্তীকালে [[মারি ক্যুরি|মাদাম কুরি]] ও তার স্বামী [[পিয়ের ক্যুরি|পিয়ের কুরি]] ব্যাপক গবেষণা চালিয়ে দেখতে পান যে [[রেডিয়াম]], [[পোলোনিয়াম]], [[থোরিয়াম]], [[আ্যক্টিনিয়াম]] প্রভৃতি ভারী মৌলের নিউক্লিয়াস থেকেও বেকরেল রশ্মির মত একই ধরনের রশ্মি নির্গত হয়, যা এখন তেজষ্ক্রিয় রশ্মি নামে পরিচিত। যে সব মৌল হতে তেজষ্ক্রিয় রশ্মি নির্গত হয় তাদেরকে তেজষ্ক্রিয় মৌল বলে। তেজষ্ক্রিয় রশ্মি নির্গমনের এই ঘটনাকে তেজষ্ক্রিয়তা(Radioactivity)
বেনামী ব্যবহারকারী