"সিলেটি রন্ধনশৈলী" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

"Sylheti cuisine" পাতাটি অনুবাদ করে তৈরি করা হয়েছে
("Sylheti cuisine" পাতাটি অনুবাদ করে তৈরি করা হয়েছে)
 
("Sylheti cuisine" পাতাটি অনুবাদ করে তৈরি করা হয়েছে)
'''সিলেটি''' রন্ধনশৈলী ({{Lang-syl|ꠍꠤꠟꠐꠤ ꠞꠣꠘꠗꠣ}}) মুলত [[সিলেটি|সিলেটিদের]] খাদ্য সংস্কৃতিকে উপস্থাপন করে। যার মধ্যে মশলাদার মুরগির টিক্কা মশলা থেকে শুরু করে টক জাতীয় [[সাতকরা|হাতকরা]], [[তুশা শিন্নি|নুনর বড়া]] থেকে শুরু মিষ্টান্নজাতীয় [[তুশা শিন্নি]] এবং [[হুটকি শিরা]] অন্তর্গত। [[সাতকরা|হাতকরা]] একটি সাধারণ পদ যা মাছ এবং [[মাংস|মাংসের]] সাথে বিভিন্ন খাবার রান্নায় ব্যবহৃত হয়। [[ভিটামিন সি]] এবং [[জারণরোধক|অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট]] সমৃদ্ধ, হাতকরা তরকারি ভাত দিয়ে খেতে সবথকে ভালো লাগে।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.mid-day.com/articles/mumbai-food-bangladeshi-dishes-straight-from-sylhet-at-restaurant-in-bkc/20740177|শিরোনাম=Mumbai Food: Bangladeshi Dishes Straight From Sylhet At Restaurant In BKC|তারিখ=Apr 14, 2019|সংগ্রহের-তারিখ=28 April 2020|প্রকাশক=[[Mid Day]]}}</ref> সিলেটিরা মূলত ভাত ও [[মাছ]] খাওয়া থাকলেও তাদের রন্ধনশৈলী সিলেটের বহিরাগতদের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা।<ref name="coursehero">{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.coursehero.com/file/p70ujoo/The-area-covered-by-Sylhet-Division-is-12569-km%C2%B2-which-is-about-8-of-the-total/|শিরোনাম=The area covered by sylhet division is 12569 km²|তারিখ=|সংগ্রহের-তারিখ=25 April 2020|প্রকাশক=[[coursehero.com]]}}</ref><ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.thestatesman.com/supplements/a-fillet-from-sylhet-89932.html|শিরোনাম=A fillet from sylhet|তারিখ=September 14, 2015|সংগ্রহের-তারিখ=28 April 2020|প্রকাশক=[[The Statesman (India)]]}}</ref> [[বারাক উপত্যকা]] থেকে [[সিলেট বিভাগ|সুরমা উপত্যকার]] বহু সংস্কৃতির লোক,<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://scroll.in/article/919904/in-assams-barak-valley-insecurities-about-citizenship-drive-bengali-hindus-to-the-bjp|শিরোনাম=In Assam’s Barak Valley, insecurities about citizenship drive Bengali Hindus to the BJP|তারিখ=Apr 15, 2019|সংগ্রহের-তারিখ=20 April 2020|প্রকাশক=scroll.in}}</ref> ও সিলেটি প্রবাসীরা যুগ যুগ প্রচলিত সিলেটি খাবার এবং আস্বাদনকে প্রভাবিত করেছে। এর মধ্যে [[খাসিয়া জনগোষ্ঠী|খাসি]], [[কুকি (জাতিগোষ্ঠী)|কুকি]] এবং অন্যান্য উপজাতির রন্ধনশৈলী লক্ষণীয়।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.bhorerkagoj.com/print-edition/2015/07/16/42488.php|শিরোনাম=সিলেটের উপভাষা ও জীবনধারা : ড. শ্যামল কান্তি দত্ত|তারিখ=16 July 2015|সংগ্রহের-তারিখ=20 April 2020|প্রকাশক=[[Bhorer Kagoj]]}}</ref> এই অঞ্চলে প্রাপ্ত [[শাকসবজি]] এবং পশুপাখির উপর নির্ভর করে ''সিলেটের'' রন্ধনশৈলী সমৃদ্ধ হয়েছে। মূলত দেশীয় কিছু বৈচিত্র্য সহ, সিলেটিদের খাদ্য সংস্কৃতি পরিবেশিত হয় যেখানে কিছু বাহ্যিক প্রভাবও রয়েছে। [[শাহ জালাল|শাহ জালালের]] ৩৬০জন সফর সঙ্গী এই অঞ্চলে কেবল তাদের বৈচিত্র্যময় সংস্কৃতিই নিয়ে আসেনি, তাদের নিজস্ব রান্নার স্বতন্ত্র স্টাইলও নিয়ে আসে। যার মধ্যে মুরগী, গরুরমাংস এবং ছাগল দিয়ে রান্না করা মুঘলাই, মধ্য-প্রাচ্য এবং উত্তর ভারতীয় স্টাইলের অনেকগুলি মাংসের খাবার রয়েছে। মুঘলাই পরটা, [[পোলাও]], [[কোর্মা|কোরমা]], কালিয়া, রোস্ট, [[বিরিয়ানি|বিরিয়ানী]] এবং [[কোফতা]] তরকারি হিসেবে, এবং জরদা, [[পায়েস|ফিরনি]] এবং [[পায়েস]] ডেজার্ট হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।
 
ঊননবিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধ থেকে, ইউরোপীয় এবং [[মুসলমান|মুসলমানরা]] সিলেট অঞ্চলে বিস্কুট এবং [[রুটি|ব্রেডের]] প্রচলন করেছিল যা [[উম্মাহ|মুসলিম সম্প্রদায়কে]] অত্যন্ত আকর্ষণ করে।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.sahapedia.org/our-food-their-food-historical-overview-of-the-bengali-platter|শিরোনাম=Our Food Their Food: A Historical Overview of the Bengali Platter|তারিখ=5 September 2016|সংগ্রহের-তারিখ=20 April 2020|প্রকাশক=Sahapedia}}</ref> এটি হিন্দুদের দ্বারা অনেক পরে জনপ্রিয়তা পায়।<ref name="das">{{বই উদ্ধৃতি|শিরোনাম=Culinary Culture in Colonial India|শেষাংশ=Ray|প্রথমাংশ=Utsa|তারিখ=5 January 2015|প্রকাশক=[[Cambridge University]] Press}}</ref> [[লন্ডন|লন্ডনে]], ১৯৪০-এর দশকে কিছু উদ্যোগী সিলেটি ক্যাফে স্থাপন শুরু করে এবং মেনুতে তরকারী এবং ভাত রাখে। কিন্তু আত্মবিশ্বাসের অভাবে [[ব্রিটিশ বাংলাদেশি|বাংলাদেশীরা]] তাদের খাবারকে ''ভারতীয়'' হিসাবে উল্লেখ করে।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.birminghammail.co.uk/whats-on/arts-culture-news/history-birmingham-curry-houses-traced-14113342|শিরোনাম=History of Birmingham curry houses traced in major city exhibition|তারিখ=4 Jan 2018|সংগ্রহের-তারিখ=28 April 2020|প্রকাশক=[[Birmingham Mail]]}}</ref> [[যুক্তরাজ্য|যুক্তরাজ্যে]], ১০টিরও বেশি ভারতীয় রেস্তোরাঁর ৮টিই বাংলাদেশিদের মালিকানাধীন,<ref name="bbc">{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.bbc.co.uk/worldservice/learningenglish/multimedia/london/unit6/read1_popup.html|শিরোনাম=BBC World Service|তারিখ=|সংগ্রহের-তারিখ=28 April 2020|প্রকাশক=[[BBC World]]|অবস্থান=London}}</ref> যার ৯৫% সিলেটি।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.theguardian.com/uk/2002/jun/21/religion.bangladesh|শিরোনাম=From Bangladesh to Brick Lane|তারিখ=21 Jun 2002|সংগ্রহের-তারিখ=28 April 2020|প্রকাশক=[[The Guardian]]}}</ref> ৮০% থেকে 90% ব্রিটিশ কারি-হাউস সরাসরি [[সিলেট|সিলেটে]]<nowiki/>র সাথে সম্পৃক্ত থাকা সত্ত্বেও [[সিলেট]] তার রন্ধনশৈলী জন্য পরিচিত নয়।<ref name="ft">{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.ft.com/content/2165379e-b4b2-11e5-8358-9a82b43f6b2f|শিরোনাম=The great British curry crisis|তারিখ=January 8, 2016|সংগ্রহের-তারিখ=28 April 2020|প্রকাশক=[[Financial Times]]}}</ref><ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.npr.org/sections/thesalt/2017/12/05/567004913/whats-the-difference-between-a-curry-house-and-an-indian-restaurant|শিরোনাম=What's The Difference Between A Curry House And An Indian Restaurant?|তারিখ=December 5, 2017|সংগ্রহের-তারিখ=28 April 2020|প্রকাশক=[[npr.org]]}}</ref> সিলেট অঞ্চলের রাঁধুনিরা ১৯৬০-এর দশক থেকে ব্রিটিশ তরকারীকে আরও বেশি পরিমাণে বিকশিত করেছে।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.aljazeera.com/indepth/features/british-taste-curry-changed-appetite-remains-strong-191007095240140.html|শিরোনাম=British taste for curry has changed, but appetite remains strong|তারিখ=7 Oct 2019|সংগ্রহের-তারিখ=20 April 2020|প্রকাশক=[[Al Jazeera]]}}</ref> সিলেটিদের দ্বারা উদ্ভাবিত চিকেন টিক্কা মশলাকে ব্রিটেনের পররাষ্ট্র সচিব [[রবিন কুক]] ২০০১ সাল ব্রিটেনের [[জাতীয় খাবার]] হিসাবে ঘোষণা দেন।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://books.google.com.bd/books?id=9rFIyN1OWfQC&pg=PA164&lpg=PA164&dq=food+culture+of+Sylhet&source=bl&ots=ovj-VReceJ&sig=ACfU3U3nLgoLP-juk9zEjMZr_EJmjpnJkQ&hl=en&sa=X&ved=2ahUKEwi98svXp__oAhWKSH0KHR8WC044RhDoATAIegQICBAB#v=snippet&q=Sylhet&f=false|শিরোনাম=Food Culture in Great Britain|কর্ম=Laura Mason|পাতা=164|সংগ্রহের-তারিখ=2020-04-27}}</ref><ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.historic-uk.com/CultureUK/The-British-Curry/|শিরোনাম=The British Curry|তারিখ=|সংগ্রহের-তারিখ=28 April 2020|প্রকাশক=www.historic-uk.com}}</ref> বাংলাদেশি রেস্তোঁরায় ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী [[টনি ব্লেয়ার|টনি ব্লেয়ারের]] কন্যার জন্মদিন উদযাপন সিলেটি রন্ধনশৈলীর জনপ্রিয়তার প্রমাণ দেয়।<ref name="tds">{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://archive.thedailystar.net/forum/2007/june/bangladeshish.htm|শিরোনাম=Bangladeshis: Moving with the times|তারিখ=June 2007|সংগ্রহের-তারিখ=28 April 2020|প্রকাশক=[[The Daily Star]]}}</ref> ঐ'''তিহাসিক লিজি কলিংহাম''' তাঁর ২০০৫ সালের বই ''কারি: এ বায়োগ্রাফি-তে'' লিখেছেন যে ''সিলেটি কারি রান্না "অবিকশিত ব্রিটিশ থালাকে" একটি নতুন স্বাদের বর্ণালীতে রূপান্তর করেছে''।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.theguardian.com/lifeandstyle/2017/jan/12/who-killed-the-british-curry-house|শিরোনাম=Who killed the great British curry house?|তারিখ=12 Jan 2017|সংগ্রহের-তারিখ=28 April 2020|প্রকাশক=[[The Guardian]]}}</ref>
 
== ভাত ==
[[চট্টগ্রাম|চাটগাইয়া]] এবং [[সিলেটি]] বাদে বেশিরভাগ [[বাংলাদেশী]] সিদ্ধ ভাত খেতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.banglatribune.com/national/news/248875|শিরোনাম=আতপ চাল খাওয়ার অভ্যাস কত দিনে হবে?|তারিখ=5 Oct 2017|সংগ্রহের-তারিখ=21 April 2020|প্রকাশক=Bangla Tribune|ভাষা=bn}}</ref><ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://m.banglanews24.com/economics-business/news/bd/603862.details|শিরোনাম=ওএমএসে আতপ চাল পেয়ে ক্ষুব্ধ ক্রেতারা|তারিখ=20 Sep 2017|সংগ্রহের-তারিখ=21 April 2020|প্রকাশক=banglanews24.com|ভাষা=bn}}</ref><ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.ntvbd.com/bangladesh/155181/%E0%A6%86%E0%A6%A4%E0%A6%AA-%E0%A6%9A%E0%A6%BE%E0%A6%B2-%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%87-%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%A4%E0%A6%BE-%E0%A6%B6%E0%A7%82%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%AF-%E0%A6%93%E0%A6%8F%E0%A6%AE%E0%A6%8F%E0%A6%B8%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%9A%E0%A6%BE%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%A6%E0%A7%8B%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%A8|শিরোনাম=আতপ চাল, তাই ক্রেতা শূন্য ওএমএসের চালের দোকান|তারিখ=20 Sep 2017|সংগ্রহের-তারিখ=21 April 2020|প্রকাশক=[[NTV (Bangladesh)]]|ভাষা=bn}}</ref><ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://archive.prothom-alo.com/detail/date/2013-08-31/news/131024|শিরোনাম=চট্টগ্রামসহ দুই বিভাগের জন্য আতপ চাল কিনছে সরকার|তারিখ=13 Feb 2011|সংগ্রহের-তারিখ=21 April 2020|প্রকাশক=[[The Daily Prothom Alo]]|ভাষা=bn}}</ref><ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://blog.bdnews24.com/sukantaks/225867|শিরোনাম=বঙ্গে নতুন উপদ্রপ- আতপ চালের ‘নক্তা’|তারিখ=19 Sep 2017|সংগ্রহের-তারিখ=21 April 2020|প্রকাশক=[[bdnews24.com]]|ভাষা=bn}}</ref> [[সিলেট অঞ্চল|সিলেট অঞ্চলে]]<nowiki/>র উল্লেখযোগ্য ধান হল আউশ, আমান, বোরো, ইরি, বিরইন, কালোজিরা, সোনালী জিরা ইত্যাদি। ''আলা ভাত'' (আতপ চাল) সিলেটিদের প্রধান খাদ্য।<ref name="syl">{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://www.sylheterdak.com.bd/details.php?id=9857|শিরোনাম=চুঙ্গা পিঠা : বাঁশ দিয়ে প্রাতঃরাশ|তারিখ=26 April 2020|কর্ম=[[Sylheter Dak]]|সংগ্রহের-তারিখ=3 Jan 2018|ভাষা=bn}}</ref> এটা কিছুটা চটচটে এবং সুস্বাদু।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.prothomalo.com/opinion/article/44618/%E0%A6%86%E0%A6%AE%E0%A6%B0%E0%A6%BE-%E0%A6%AF%E0%A7%87-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%A3%E0%A7%87-%E0%A6%AA%E0%A7%81%E0%A6%B7%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%AC%E0%A6%9E%E0%A7%8D%E0%A6%9A%E0%A6%BF%E0%A6%A4|শিরোনাম=আমরা যে কারণে পুষ্টিবঞ্চিত|তারিখ=5 Sep 2013|সংগ্রহের-তারিখ=21 April 2020|প্রকাশক=[[The Daily Prothom Alo]]|ভাষা=bn}}</ref> সিলেটিরা বিভিন্ন স্বাদের মিষ্টান তৈরিতে আঠালো ভাত পছন্দ করে। গবেষণায় দেখা গেছে যে সিলেটে উৎপন্ন ধানে বাংলাদেশের অন্যান্য অঞ্চলে একই ধরণের ধানের চেয়ে কম [[আর্সেনিক]] রয়েছে।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.iospress.nl/ios_news/low-arsenic-rice-discovered-in-bangladesh-could-have-major-health-benefits/|শিরোনাম=Low-Arsenic Rice Discovered in Bangladesh Could Have Major Health Benefits|তারিখ=Feb 18, 2013|সংগ্রহের-তারিখ=20 April 2020|প্রকাশক=[[IOS Press]]}}</ref><ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://frontline.thehindu.com/science-and-technology/lowarsenic-rice/article4434752.ece|শিরোনাম=Low-arsenic rice|তারিখ=Feb 20, 2013|সংগ্রহের-তারিখ=20 April 2020|প্রকাশক=frontline.thehindu.com}}</ref> বায়োমেডিকাল স্পেকট্রোস্কোপি এবং ইমেজিং জার্নাল অনুসারে, সিলেটি ভাতে প্রয়োজনীয় পুষ্টিউপাদান [[সেলেনিয়াম]] এবং [[জিঙ্ক|জিঙ্কের]] পরিমাণ অধিকতর।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.thehindubusinessline.com/news/world/scientists-find-lower-arsenic-bangladeshi-rice-strain/article23092738.ece|শিরোনাম=Scientists find lower arsenic Bangladeshi rice strain|তারিখ=Feb 14, 2013|সংগ্রহের-তারিখ=20 April 2020|প্রকাশক=thehindubusinessline.com}}</ref> [[ভারত]] ও [[পাকিস্তান|পাকিস্তানের]] সুপরিচিত [[বাসমতী]] সুগন্ধি চালের তুলনায় বেশ কয়েকটি জাতের সিলেটি সুগন্ধি চালও কম আর্সেনিক দূষিত।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.sciencedaily.com/releases/2013/02/130212100510.htm|শিরোনাম=Low-arsenic rice discovered in Bangladesh could have major health benefits|তারিখ=Feb 12, 2013|সংগ্রহের-তারিখ=20 April 2020|প্রকাশক=[[ScienceDaily]]}}</ref><ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.newsmax.com/t/health/article/490414?keywords=Low-Arsenic-Super-Nutritious-Rice-Discovered-Sylheti&year=2013&month=02&date=14&id=490414|শিরোনাম=Low-Arsenic, Super-Nutritious Rice Discovered|তারিখ=Feb 12, 2013|সংগ্রহের-তারিখ=20 April 2020|প্রকাশক=[[Newsmax]]}}</ref>
 
=== আখনি ===
'''আখনি''' হল [[ঘি]], [[মাংস]], [[শাক সবজি|শাকসবজি]] ইত্যাদি [[ঘি|দিয়ে]] তৈরি একটি মিশ্র চালের থালা। এটি আখনি বিরিয়ানী এবং আখনি পোলাও নামেও পরিচিত কারণ এটি [[বিরিয়ানি]] বা [[পোলাও|পোলাওর]] একটি বিশেষ প্রকার হিসাবে বিবেচিত হয়। এটি রমজান মাস এবং কোনও বিশেষ অনুষ্ঠানের একটি জনপ্রিয় খাবার।
 
=== বিরইন ভাত ===
'''বিরইন ভাত''' সিলেট অঞ্চলে এক ধরণের আঠালো চাল দিয়ে তৈরি একটি জনপ্রিয় খাবার। বিশেষ ধরণের লাল-সাদা আঠালো সুগন্ধী ''বিরইন চাল'' কেবল সিলেট অঞ্চলে পাওয়া যায়।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://jalalabadbarta.com/2018/12/7486/|শিরোনাম=সিলেটী বিরইন চালের ইতিহাস|তারিখ=26 April 2020|কর্ম=jalalabadbarta.com|সংগ্রহের-তারিখ=9 Dec 2018|ভাষা=bn}}</ref> ''সুগন্ধী'' এই ''বিরইন চাল'' ভাজা মাছ, [[মাংস]] বা [[কাবাব]], ''খিরশাহ, রসমালাই'', খেজুর গুড় ইত্যাদি দিয়ে রান্না করে খাওয়া হয়।<ref name="syl">{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://www.sylheterdak.com.bd/details.php?id=9857|শিরোনাম=চুঙ্গা পিঠা : বাঁশ দিয়ে প্রাতঃরাশ|তারিখ=26 April 2020|কর্ম=[[Sylheter Dak]]|সংগ্রহের-তারিখ=3 Jan 2018|ভাষা=bn}}</ref><ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://archive.thedailystar.net/lifestyle/2008/05/04/page02.htm|শিরোনাম=The Dailystar archive|তারিখ=26 April 2020|কর্ম=[[The Daily Star]]|সংগ্রহের-তারিখ=May 27, 2008}}</ref> ''বিরইন চাল'' [[সিলেট]] এবং [[চট্টগ্রাম|চট্টগ্রামের]] পার্বত্য অঞ্চলে চাষ করা একধরনের [[জৈব খাদ্য|জৈব ধান]]।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://bangladeshiweus.com/product/bironi-chal-binni/|শিরোনাম=Biroin Chal (Binni)|তারিখ=9 Dec 2018|কর্ম=bangladeshiweus.com|সংগ্রহের-তারিখ=26 April 2020}}</ref> এটি [[সিলেট অঞ্চল|সিলেট অঞ্চলের]] ঐতিহ্যবাহী পিঠা [[চুঙ্গা পিঠা]]<nowiki/>র প্রধান উপাদান।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://sylheterdak.com.bd/details.php?id=20749|শিরোনাম=বাংলার ঐতিহ্যবাহী পিঠা|তারিখ=2 January 2019|কর্ম=[[Sylheter Dak]]|সংগ্রহের-তারিখ=28 April 2020|ভাষা=bn}}</ref>
 
=== খিচুড়ি ===
'''নরম খিচুড়ি''' বা শুধু '''খিচুড়ি''' এক ধরনের [[চাল]] ভিত্তিক খাবার যা পরিজের অনুরূপ। এটি সিলেটি খাবারে একটি ঐতিহ্যবাহী খাবার। পবিত্র [[রমজান|রমজান মাসে]] [[ইফতার|ইফতারির]] জন্য প্রধান খাবার হিসাবে এটি বেশিরভাগ টেবিলে পরিবেশন করা হয়। '''খিচুড়ি''' রান্না সুগন্ধি চাল, [[ঘি]], কলজিরা ও [[মেথি]] সহ বিভিন্ন মশালা ব্যবহার করা হয়। নরম খিচুড়ি দুই প্রকার; সাদা নরম খিচুড়ি (জাউ) এবং হলুদ নরম খিচুড়ি ('''খিচুড়ি''' )।
 
== মাংস ==
কাঁচা এবং শুকনো মরিচ, মূল এবং মশলা বেঁটে তৈরি তরকারি সিলেটিদের কাছে খুব প্রিয়।
 
=== গরুর মাংসের হাতকরা ===
গরুর মাংসের হাতকরা একটি বিশেষ সাইট্রাস ফল [[সাতকরা|হাতকরা]] দিয়ে [[গরুর মাংস]] রান্না করে তৈরি করা হয়। এটি [[ঈদুল আযহা|ঈদুল আজহা]] উত্সবের সময় খুব বিখ্যাত একটি খাবার। সিলেটি হাতকরা রান্নার স্টাইল মোটেও [[বাংলাদেশী|বাংলাদেশীদের]] রান্নার মতো নয়। এর [[স্বাদ]] এবং গন্ধ উভয়ই অন্যান্য [[বাংলাদেশী রন্ধনশৈলী|বাংলাদেশি খাবারের]] চেয়ে আলাদা। এই ফলটি সাধারণত সিলেটি তরকারিতে ব্যবহৃত হয়। [[গরু|গরুর]] পা ও হাতকরার হাড় দিয়েই কেবল জনপ্রিয় খাট্টা বা টেঙ্গা তরকারি তৈরি হয় না, বিভিন্ন ধরণের মাংস দিয়েও হাতকরা রান্না করা হয়।
 
== আরো দেখুন ==