"অবস্থান্তর ধাতু" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
প্রথম সংজ্ঞাটি সাধারণ এবং প্নচলিত। অবস্থান্তর মৌলগুলোর অনেক বিশেষ বৈশিষ্ট তাদের আংশিক পূর্ণ d-সাবশেলের কারণে হয়ে থাকে। পর্যায় সারণীর অন্যান্য অংশ থেকে d-ব্লক মৌলসমূহ কম পর্যায় ধর্মবিশিষ্ট। এদের ক্ষেত্রে ভ্যালেন্সের পরিবর্তন না হওয়ায় অণূতে যুক্ত ইলেকট্রনটি সর্ববহিঃস্থ শেলে না গিয়ে ভেতরের শেলে গমন করে। ফলে এর শিল্ড শক্তিশালী হয়।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি |শিরোনাম=সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি |ইউআরএল=http://www.jce.divched.org/Journal/Issues/2005/Nov/abs1660.html |সংগ্রহের-তারিখ=১১ অক্টোবর ২০০৭ |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20070708042822/http://www.jce.divched.org/Journal/Issues/2005/Nov/abs1660.html |আর্কাইভের-তারিখ=৮ জুলাই ২০০৭ |অকার্যকর-ইউআরএল=হ্যাঁ }}</ref>
 
প্রথম সংজ্ঞানুসারে অবস্থান্তর ধাতু হল ৪০ টি রাসায়নিক উপাদান যা পর্যায় সারণীর ২১ থেকে ৩০, ৩৯ থেকে ৪৮, ৭১ থেকে ৮০ এবং ১০৩ থেকে ১১২ নম্বর অবস্থানে অবস্থিত। “অবস্থান্তর” শব্দটি পর্যায় সারণীতে তাদের অবস্থানের কারণে এসেছে। চারবার আবির্ভূত হবার প্রত্যেক ক্ষেত্রে এই উপাদানগুলির d অরবিটালে একটি করে ইলেকট্রন যোগ করার প্রতিনিধিত্ব করে। এভাবে করে অবস্থান্তর ধাতু [[গ্রুপ ২ উপাদান]] ও [[গ্রুপ ১৩ উপাদান]]গুলোর পরিবর্তনের প্রতিনিধিত্ব করে।d উপশক্তিস্তর > p উপশক্তিস্তর।[faiaz]
 
{| border="1" align="center" cellpadding="4" cellspacing="0" style="margin: 1em 1em 1em 1em; background: #ffe; border: 1px #aaa solid; border-collapse: collapse; font-size: 95%;"
১০টি

সম্পাদনা