"মহাসাগর" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

→‎আবিস্কার: পানির থেকে জলের শব্দ রূপান্তরিত করেছি।
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
(→‎আবিস্কার: পানির থেকে জলের শব্দ রূপান্তরিত করেছি।)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
 
== আবিস্কার ==
মহাসাগরে ভ্রমণ ও [[ব্যবসা|ব্যবসা-বাণিজ্যে]] অতিপ্রাচীনকাল থেকেই [[নৌকা]] [[যোগাযোগ|যোগাযোগের]] একটি প্রধান [[পরিবহন]] হিসেবে সু-খ্যাতি অর্জন করেছে। কিন্তু আধুনিক যুগে পানিরজলের নীচ দিয়েও ভ্রমণ করা সম্ভবপর হয়েছে। গভীরতম স্থান হিসেবে প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপ হিসেবে [[নর্দার্ন মারিয়ানা|নর্দার্ন মারিয়ানা দ্বীপের]] '''মারিয়ানা খাতের''' স্থান নির্ণিত হয়েছে। এর গভীরতা ১০,৯৭১ মিটার। [[ব্রিটিশ]] [[নৌযান]] [[চ্যালেঞ্জার-২]] ১৮৫১ সালে স্থানটি জরিপ করে এবং সবচেয়ে গভীর স্থানকে নামকরণ করেছে ‘[[চ্যালেঞ্জার ডিপ]]’ হিসেবে। ১৯৬০ সালে ট্রিস্ট দু’জন ক্রু-সহ ‘চ্যালেঞ্জার-২’-এর কেন্দ্রবিন্দুতে পৌঁছতে সফলকাম হন।
অধিকাংশ মহাসাগরের কেন্দ্রস্থল এখনো আবিস্কৃত হয়নি এবং স্থানও নির্ণিত হয়নি। ১৯৯৫ সালে [[মহাকর্ষ|মহাকর্ষীয় সূত্র]] প্রয়োগ করে ১০ কিলোমিটারেরও অধিক বৃহৎ ভূ-চিত্রাবলীর দৃশ্য ধারণ করা হয়েছে।
 
বেনামী ব্যবহারকারী