"জনি ওয়ারডল" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বিতর্কিত ভূমিকা - অনুচ্ছেদ সৃষ্টি
(অস্ট্রেলিয়া গমন, ১৯৫৪-৫৫ - অনুচ্ছেদ সৃষ্টি)
(বিতর্কিত ভূমিকা - অনুচ্ছেদ সৃষ্টি)
১৯৪৭ সালে শুষ্ক গ্রীষ্মের পরও [[গাবি অ্যালেন|গাবি অ্যালেনের]] নেতৃত্বাধীন [[মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাব|মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের]] সদস্যরূপে অনেকাংশে পরীক্ষামূলকভাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের জন্য দলে রাখা হয় জনি ওয়ারডলকে। ঐ সফরে তিনি তেমন ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শন করতে পারেননি। কিন্তু পরের বছরের ভেজা গ্রীষ্মে তিনি নিজেকে মেলে ধরতে সচেষ্ট হন। ১৯৪৯ সালে আঘাতের কারণে এক-চতুর্থাংশ সময় মাঠের বাইরে অবস্থান করতে বাধ্য হন। ঐ গ্রীষ্মের বৃষ্টিবিঘ্নিত পিচে মারাত্মক হয়ে উঠেন। তাঁর বোলিং ইয়র্কশায়ারকে শেষদিকে [[আনুষ্ঠানিক কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপ বিজয়ী দলের তালিকা|কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপার লড়াইয়ে]] নিয়ে আসে ও যৌথভাবে মিডলসেক্সের সাথে শিরোপা জয় করতে সমর্থ হয়।
 
১৯৫১ সালে স্পিন বোলারদ্বয় - [[জিম লেকার]] ও [[Roy Tattersall|রয় ট্যাটারসলের]] সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে টেস্ট দলে স্থান পাননি। তবে, অসুস্থতার শিকার [[বব এপলইয়ার্ড|বব এপলইয়ার্ডেে এপলইয়ার্ডের]] অনুপস্থিতির কারণে পরবর্তী দুই মৌসুমে ২০,৭২৩ বল করতে হয়। কেবলমাত্র টিচ ফ্রিম্যান তাঁর তুলনায় এগিয়ে ছিলেন।
 
১৯৫২ সালে ১১,০৮৪ বল করেন যা চতুর্থ সর্বোচ্চ ছিল। তন্মধ্যে, আগস্ট, ১৯৫২ সালে পরপর দুই খেলায় ১৬৫ ওভার বোলিং করতে হয়েছিল তাঁকে। ১৯৫৩ সালে ইয়র্কশায়ারের ভাগ্য অনুকূলে না থাকলেও ওল্ড ট্রাফোর্ডে বোলিং উপযোগী পিচে ৪/৭ লাভ করেন। ঐ বছরই তিনি উইজডেন কর্তৃক অন্যতম [[উইজডেন বর্ষসেরা ক্রিকেটার|বর্ষসেরা ক্রিকেটার]] হিসেবে মনোনীত হন।
টেস্টে তাঁর ব্যাটিং গড় ছিল ২০.৩৯। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর টেস্ট ক্রিকেটে স্বীকৃত যে-কোন স্পিন বোলারের তুলনায় তাঁর এ গড় সর্বনিম্ন।
 
== বিতর্কিত ভূমিকা ==
১৯৫৮ সালে উপযোগী পরিবেশে ওয়ার্ডল সফলতার মুখ দেখলেও ডেইলি মেইলে নিবন্ধ লেখার কথা ঘোষণা করলে ইয়র্কশায়ার কর্তৃপক্ষের সাথে মতবিরোধ ঘটে। আসন্ন [[দি অ্যাশেজ|অ্যাশেজ সিরিজকে]] সামনে রেখে এমসিসি দল ওয়ার্ডলকে অন্তর্ভূক্ত করলেও পরবর্তীতে তাঁকে বাদ দেয়া হয়। ল্যাঙ্কাশায়ারের বিপক্ষে [[Roses Match|গোলাপের খেলায়]] তাঁকে খেলানো হয়নি। এরপর তাঁরা আর তাকে খেলায়নি। ওয়ারডল নটিংহ্যামশায়ারের পক্ষে খেলার কথা জানালে ইয়র্কশায়ার কর্তৃপক্ষ দৃঢ়ভাবে বিশেষ নিবন্ধনটি প্রত্যাখ্যান করে।
 
এরপর ওয়ারডল বাদ-বাকী সময়ে পেশাদারী পর্যায়ে ল্যাঙ্কাশায়ার লীগে নেলসন ও রিশটনে খেলেন। এছাড়াও, ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত কেমব্রিজশায়ারের পক্ষে [[Minor counties of English and Welsh cricket|মাইনর কাউন্টিজ চ্যাম্পিয়নশীপে]] খেলেন।<ref name="Cric">{{cite web |url=http://www.espncricinfo.com/ci/content/player/22288.html |title=Johnny Wardle |author=''[[Wisden Cricketers' Almanack|Wisden]]'' |date= |work= |publisher=Espncricinfo.com |accessdate=30 April 2011}}</ref>
 
== খেলার ধরন ==
 
একমাত্র ইংরেজ বোলার হিসেবে এ পদ্ধতিতে একচ্ছত্র প্রভাববিস্তার করেছেন। এরফলে তিনি অনেক সফলতা পেয়েছেন। ১৯৫৬-৫৭ মৌসুমে দক্ষিণ আফ্রিকা গমন করেন। সেখানে তিনি ইংল্যান্ডের বাইরে এক মৌসুমে শতাধিক উইকেট লাভের ন্যায় অনন্য কৃতিত্ব প্রদর্শনে সক্ষমতা দেখান। এর পাশাপাশি সর্বোচ্চ পর্যায়ের ক্রিকেটে চায়নাম্যান বোলিং করেছেন।
 
১৯৫৭ সালে জনি ওয়ারডল নিজস্ব আত্মজীবনীমূলক ‘হ্যাপি গো জনি’ শিরোনামীয় পুস্তক প্রকাশ করেন।
 
ইয়র্কশায়ার ও এমসিসি কর্তৃপক্ষ উভয়েই জনি ওয়ারডলকে আজীবন সদস্য করার চেষ্টা চালিয়েছিলেন। ডনকাস্টারের কাছে থাকা কান্ট্রি ক্লাবের ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব পালন করেন।
 
== তথ্যসূত্র ==
 
== বহিঃসংযোগ ==
{{কমন্স বিষয়শ্রেণী|Johnny Wardle|জনি ওয়ারডল}}
* {{ক্রিকইনফো}}
* {{ক্রিকেটআর্কাইভ}}
৭৭,২৭৩টি

সম্পাদনা