"বাতজ্বর" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বানান, replaced: কারন → কারণ (2)
(সম্প্রসারণ, তথ্যসূত্র যোগ/সংশোধন, চিত্র)
(বানান, replaced: কারন → কারণ (2))
<!-- Definition and symptoms -->
'''বাতজ্বর''' ({{lang-en|Rheumatic fever}}) হলো প্রদাহজনিত রোগ যা হার্ট, চর্ম, জয়েন্ট, মস্তিষ্ক কে আক্রান্ত করতে পারে।<ref name=RobbinsPath/> এই রোগ সাধারণত গলায় সংক্রমণের দুই থেকে চার সপ্তাহ পরে শুরু হয়। <ref name=Lee2012>{{cite journal|last1=Lee|first1=KY|last2=Rhim|first2=JW|last3=Kang|first3=JH|title=Kawasaki disease: laboratory findings and an immunopathogenesis on the premise of a "protein homeostasis system".|journal=Yonsei medical journal|date=March 2012|volume=53|issue=2|pages=262–75|pmid=22318812|doi=10.3349/ymj.2012.53.2.262}}</ref> লক্ষণসমূহ হচ্ছে জ্বর, জয়েন্টে ব্যথা,কোরিয়া, ইরায়থেমা মারজিনেটাম।<ref name=RobbinsPath/> প্রায় অর্ধেক ক্ষেত্রে হার্ট আক্রান্ত হয়।<ref name=RobbinsPath>{{cite book |author=Cotran, Ramzi S.; Kumar, Vinay; Fausto, Nelson; Nelso Fausto; Robbins, Stanley L.; Abbas, Abul K. |title=Robbins and Cotran pathologic basis of disease |publisher=Elsevier Saunders |location=St. Louis, Mo |year=2005 |pages= |isbn=0-7216-0187-1 |url=http://www.robbinspathology.com/ |oclc= |doi= |accessdate=}}</ref> বাতজ্বরের জন্য দায়ী ব্যাক্টেরিয়া হলো ''স্ট্রেপটোকক্কাস পায়োজেনস''। <ref>{{cite book|last1=Ashby|first1=Carol Turkington, Bonnie Lee|title=The encyclopedia of infectious diseases|date=2007|publisher=Facts On File|location=New York|isbn=9780816075072|page=292|edition=3rd|url=https://books.google.ca/books?id=4Xlyaipv3dIC&pg=PA292}}</ref>
 
 
এই রোগে ব্যক্তির নিজের শরীরের টিস্যুর বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়।<!-- <ref name=Lancet2012/> --> তবে যাদের শরীরে এই রোগের জিন রয়েছে তারা অন্যদের তুলনায় খুব সহজে এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে। <!-- <ref name=Lancet2012/> --> অন্যান্য ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়গুলোর মধ্যে রয়েছে পুষ্টিহীনতা, দারিদ্র্য প্রভৃতি। <ref name=Lancet2012/> এই রোগ শনাক্ত করার ক্ষেত্রে উপসর্গগুলোর পাশাপাশি স্ট্রেপ্টোকক্কাস দ্বারা সংক্রমিত হবার প্রমাণ থাকা জরুরি। <ref>{{cite web|title=Rheumatic Fever 1997 Case Definition|url=http://wwwn.cdc.gov/NNDSS/script/casedef.aspx?CondYrID=823&DatePub=1/1/1997%2012:00:00%20AM|website=cdc.gov|accessdate=19 February 2015|date=3 February 2015}}</ref>
 
<!-- Prevention and treatment -->
স্ট্রেপ্টোকক্কাস দ্বারা কণ্ঠনালীর সংক্রমণে [[পেনিসিলিন]] দ্বারা চিকিৎসা করালে বাতজ্বর হবার সম্ভাবনা অনেক কমে যায়। <ref>{{cite journal|last1=Spinks|first1=A|last2=Glasziou|first2=PP|last3=Del Mar|first3=CB|title=Antibiotics for sore throat.|journal=The Cochrane database of systematic reviews|date=5 November 2013|volume=11|pages=CD000023|pmid=24190439|doi=10.1002/14651858.CD000023.pub4}}</ref>
 
<!-- Epidemiology -->
{{legend|#cb0000|more than 330}}
{{refend}}]]
==বাতজ্বর হওয়ার কারনকারণ==
এই জ্বর সাধারনত বিটা হেমোলাইটিক স্ট্রেপটোকক্কাস নামক এক ধরনের জীবাণুর আক্রমণের কারনেকারণে হয়ে থাকে। দারিদ্র্য, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার অভাব, ঠাণ্ডা স্যাঁতসেঁতে পরিবেশে এবং অজ্ঞতাই এ রোগের প্রধান কারণ। যেসব শিশুর দীর্ঘ দিন ধরে খোসপাঁচড়া ও টনসিলের রোগ থাকে, তাদের বাতজ্বরে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা অনেক বেশি থাকে।<ref>http://health.thereport24.com/article/149/index.html</ref>
 
==উপসর্গ==
[[File:Pos strep.JPG|thumb|স্ট্রেপ্টোকক্কাল ফ্যারিঞ্জাইটিসে আক্রান্ত ১৬ বছরের রোগী]]
 
বাতজ্বরের রোগীর সাধারণত নিম্নলিখিত উপসর্গসমূহ দেখা দেয়।
 
• জ্বর
 
• অস্থিসন্ধিতে মৃদু বা তীব্র ব্যথা যা প্রায়ই পায়ের গোড়ালি, হাঁটু, কনুই অথবা হাতের কবজি এবং কখনো কখনো কাঁধ, কোমর, হাত, পায়ের পাতায় হয়ে থাকে।<!-- <ref name=Lancet2012/> -->
• ব্যথা সাধারণত এক অস্থিসন্ধি থেকে আরেক অস্থিসন্ধিতে ছড়িয়ে পড়ে যা মাইগ্রেটরি পলি-আর্থ্রাইটিস নামে পরিচিত। <!-- <ref name=Lancet2012/> -->
 
• জয়েন্ট লাল,উষ্ণ ও ফোলা থাকে।
 
• ত্বকের নিচে ক্ষুদ্র ব্যথাহীন পিন্ড বা সাবকিউটেনিয়াস নডিউল থাকে। <!-- <ref name=Lancet2012/> -->
 
• শ্বাসকষ্ট হয় ইত্যাদি।
 
 
 
 
 
==প্যাথজেনেসিস==
[[File:Rheumatic heart disease - 3a - very high mag.jpg|thumb|মাইক্রোস্কপিক চিত্রটিতে অ্যাস্কফ বডি দেখানো হয়েছে]]
 
গ্রুপ-এ বিটা হিমোলাইটিক স্ট্রেপ্টোকক্কাস দ্বারা ফ্যারিংসে সংক্রমণ হওয়ার ২ থেকে ৪ সপ্তাহ পর বাতজ্বর দেখা দিতে পারে। সে সময় ফ্যারিঞ্জাইটিসের লক্ষণসমূহ আর থাকেনা। তবে একতৃতীয়াংশ রোগীর ক্ষেত্রে ফ্যারিঞ্জাইটিসের কোনো ইতিহাস থাকেনা। গ্রুপ-এ স্ট্রেপ্টোকক্কাসের কোষপ্রাচীরে এম প্রোটিন থাকে যা খুবই অ্যান্টিজেনিক।<ref name=RobbinsPath/><ref>{{cite journal |authors=Faé KC, da Silva DD, Oshiro SE, etal |title=Mimicry in recognition of cardiac myosin peptides by heart-intralesional T cell clones from rheumatic heart disease |journal=J. Immunol. |volume=176 |issue=9 |pages=5662–70 |date=May 2006 |pmid=16622036 |doi= 10.4049/jimmunol.176.9.5662|url=http://www.jimmunol.org/cgi/pmidlookup?view=long&pmid=16622036}}</ref> <ref name=RobbinsPath/>
 
শরীরের ইমিউন সিস্টেম উক্ত প্রোটিনের বিরুদ্ধে [[অ্যান্টিবডি]] তৈরি করে যা হার্ট, জয়েন্ট ওমস্তিষ্কের টিস্যুর সাথে ক্রসরিয়াকশন করে।<ref>{{cite book | last1 = Abbas | first1 = Abul K. | last2 = Lichtman | first2 = Andrew H. | last3 = Baker | first3 = David L. | title = Basic immunology: functions and disorders of the immune system | edition = 2 | publisher = Elsevier Saunders | year = 2004 | location = Philadelphia, Pennsylvania | isbn = 978-1-4160-2403-3|display-authors=etal}}</ref>
চিকিৎসাবিজ্ঞানী T. Duckett Jones ১৯৪৪ সালে এইরোগ নির্ণয়ের জন্য একটি নীতিমালা প্রণয়ন করেন যা ''জোন’স ক্রাইটেরিয়া''নামে পরিচিত।<ref>{{cite journal | last = Jones | first = T Duckett |title=The diagnosis of rheumatic fever |journal=[[Journal of the American Medical Association|JAMA]] |volume=126 |issue= 8|pages=481–4 |year= 1944 | doi= 10.1001/jama.1944.02850430015005}}</ref>
এই নীতিমালা অনুসারে বাতজ্বরের উপসর্গগুলোকে মেজর ও মাইনর দুই শ্রেণিতে ভাগ করা হয় এবং বাতজ্বরের ক্ষেত্রে দুটি মেজর ক্রাইটেরিয়া অথবা একটি মেজর ও দুটি মাইনর ক্রাইটেরিয়া মিলতে হবে এবং এর সাথে গ্রুপ-এ স্ট্রেপ্টোকক্কাস দ্বারা সংক্রমণের প্রমাণ থাকতে হবে।<ref>{{cite journal | last =Ferrieri | first = P |title=Proceedings of the Jones Criteria workshop | journal = Circulation | volume=106 |issue=19 |pages=2521–3 |year=2002 |pmid=12417554 |doi = 10.1161/01.CIR.0000037745.65929.FA |url=http://circ.ahajournals.org/cgi/content/full/106/19/2521?ck=nck | publisher =Jones Criteria Working Group | last2 =Jones Criteria Working | first2 =Group}}</ref>
এই নীতিমালা শুধু প্রথম বার বাতজ্বরে আক্রান্ত হলে প্রযোজ্য, এরপরে পুনরায় এই রোগে আক্রান্ত হলে এটি প্রযোজ্য হবেনা। সিডেনহাম কোরিয়া ও কার্ডাইটিসের লক্ষণ থাকলে এই নীতিমালা অনুসরণ না করে সরাসরি বাতজ্বর রোগ নির্ণয় করা যায়। <ref>{{cite web |url= http://www.emedicine.com/emerg/topic509.htm | work = eMedicine | title = Rheumatic Fever | first = Steven J | last = Parrillo | publisher = DO, FACOEP, FACEP | accessdate=14 July 2007}}</ref><ref>{{cite journal | title= Guidelines for the diagnosis of rheumatic fever. Jones Criteria, 1992 update | publisher = Special Writing Group of the Committee on Rheumatic Fever, Endocarditis, and Kawasaki Disease of the Council on Cardiovascular Disease in the Young of the American Heart Association |journal=JAMA |volume=268 |issue=15 |pages= 2069–73 | year = 1992 |pmid=1404745 |doi = 10.1001/jama.268.15.2069}}</ref><ref>{{cite journal|first=Anita|last= Saxena | title =Diagnosis of rheumatic fever: Current status of Jones criteria and role of echocardiography|journal = Indian Journal of Pediatrics | volume =67|issue=4|pages=283–6|year=2000|pmid=11129913|doi= 10.1007/BF02758174}}</ref>
 
===মেজর ক্রাইটেরিয়া===
 
 
'''মাইগ্রেটরি পলি-আর্থ্রাইটিস'''
 
 
বাতজ্বরে আক্রান্ত ৭৫% রোগীর এই লক্ষণটি প্রকাশ পায়। সাধারণত হাঁটু, গোড়ালির গাঁট, কব্জি ও কনুই এর মতো বড় জয়েন্টগুলো আক্রান্ত হয়। আক্রান্ত জয়েন্ট ফুলে লাল হয়ে যায়, অত্যন্ত ব্যথা ও গরম থাকে। সাধারণত ১-৩ দিনের মধ্যে স্বাভাবিক হয়ে যায়। মেরুদণ্ড, হাত ও পায়ের ছোট ছোট জয়েন্ট ও নিতম্বের জয়েন্ট আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।
 
 
 
'''কার্ডাইটিস'''
 
 
৫০-৬০% রোগীর ক্ষেত্রে এটি হয়।বাতজ্বরে হার্টের তিনটি স্তরেই (এন্ডোকার্ডিয়াম, মায়োকার্ডিয়াম, পেরিকার্ডিয়াম)প্রদাহ হয় বলে এটা প্যানকার্ডাইটিস নামে পরিচিত। হার্টের ভালব বা কপাটিকা বিশেষ করে মাইট্রাল ভালব ক্ষতিগ্রস্ত হয়। মাইট্রাল ভালবের সাথে কখনো কখনো অ্যাওর্টিক ভালবও আক্রান্ত হতে পারে। তবে শুধু অ্যাওর্টিক ভালব বা ডানপার্শ্বীয় ট্রাইকাসপিড ভালব সাধারণত আক্রান্ত হয়না।
 
 
'''সিডেনহাম কোরিয়া'''
 
১০-১৫% রোগীর এই সমস্যা হয়।ঐচ্ছিক পেশির অনিয়মিতভাবে অনৈচ্ছিক আন্দোলন কে কোরিয়া বলে। এই রোগীদের হাত বেঁকে গিয়ে চামুচের মতো আকৃতি ধারণ করতে পারে, জিহ্বা বাইরে বের হয়ে লাফাতে থাকে। এছাড়া হাতের লেখা খারাপ হতে থাকে, লেখাপড়ায় অবনতি হয়। মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে। মানসিক চাপের সময় এই লক্ষণগুলো বাড়ে তবে ঘুমানোর সময় আর থাকেনা। <ref>{{cite journal|pmc=3724245|year=2013|last1=Kumar|first1=RK|last2=Tandon|first2=R|title=Rheumatic fever & rheumatic heart disease: The last 50 years|volume=137|issue=4|pages=643–658|journal=The Indian Journal of Medical Research|pmid=23703332}}</ref>
 
১০-১৫% রোগীর এই সমস্যা হয়।ঐচ্ছিক পেশির অনিয়মিতভাবে অনৈচ্ছিক আন্দোলন কে কোরিয়া বলে। এই রোগীদের হাত বেঁকে গিয়ে চামুচের মতো আকৃতি ধারণ করতে পারে, জিহ্বা বাইরে বের হয়ে লাফাতে থাকে। এছাড়া হাতের লেখা খারাপ হতে থাকে, লেখাপড়ায় অবনতি হয়। মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে। মানসিক চাপের সময় এই লক্ষণগুলো বাড়ে তবে ঘুমানোর সময় আর থাকেনা। <ref>{{cite journal|pmc=3724245|year=2013|last1=Kumar|first1=RK|last2=Tandon|first2=R|title=Rheumatic fever & rheumatic heart disease: The last 50 years|volume=137|issue=4|pages=643–658|journal=The Indian Journal of Medical Research|pmid=23703332}}</ref>
 
 
 
 
'''সাবকিউটেনিয়াস নডিউল'''
 
 
ত্বকের নিচে ব্যথাহীন কিছুটা শক্ত দলা পাওয়া যায়।
 
 
 
'''ইরাইথেমা মার্জিনেটাম'''
 
 
এক ধরণের লালচে চুলকানিমুক্ত ফুসকুড়ি যার মধ্যভাগ কিছুটা বিবর্ণ। এটিদেহ,হাত ও পায়ে হয়ে থাকে তবে মুখমণ্ডলে হয়না। চামড়া গরম হলে ফুসকুড়ি বেশি হয়।
* আর্থ্রালজিয়া বা জয়েন্টে ব্যথা।
* রক্তে অ্যাকিউট ফেজ প্রোটিন বেড়ে যাওয়া যেমন CRP, ESR বেশি হওয়া।
* ইসিজিতে পি-আর বিরতি(PR interval) দীর্ঘ হওয়া।<ref name="davidson617">Ed Boon, Davidson's General Practice of Medicine, 20th edition. P. 617.</ref><ref>{{cite web | url = http://www.utmb.edu/pedi_ed/CORE/Cardiology/page_40.htm | title = Rheumatic Fever | accessdate = 6 August 2011 | last = Aly | first = Ashraf | year = 2008 | work = Core Concepts of Pediatrics | publisher = University of Texas}}</ref>
 
==চিকিৎসা==
স্ট্রেপ্টোকক্কাস দ্বারা কণ্ঠ নালীর সংক্রমণে অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারকরে বাতজ্বর প্রতিরোধ করা যায়।<ref name="aha">{{cite web|title=What About My Child and Rheumatic Fever?|url=http://www.heart.org/idc/groups/heart-public/@wcm/@hcm/documents/downloadable/ucm_300321.pdf|publisher=American Heart Association|accessdate=23 February 2014|format=PDF}}</ref>
স্ট্রেপ্টোকক্কাস পায়োজেন্স এর বিরুদ্ধে টিকা উদ্ভাবনের চেষ্টা চলছে তবে স্ট্রেপ্টোকক্কাস প্রজাতির বৈচিত্র্যের জন্য এখনো এটি সফলতার মুখ দেখেনি। <ref>{{cite web|title=Initiative for Vaccine Research (IVR) - Group A Streptococcus|url=http://www.who.int/vaccine_research/diseases/soa_bacterial/en/index3.html|publisher=World Health Organization|accessdate=15 June 2012}}</ref>
 
 
 
==তথ্যসূত্র==
২,৪৯৫টি

সম্পাদনা