"ভৌগোলিক তথ্য ব্যবস্থা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
জি আই এস হল [[ভূতথ্যবিজ্ঞান]] -এর একটা বৃহত্তর অংশ।<ref>{{cite web|title=Geographic Information Systems as an Integrating Technology: Context, Concepts, and Definitions|url=http://www.colorado.edu/geography/gcraft/notes/intro/intro.html|publisher=Kenneth E. Foote and Margaret Lynch, The Geographer's Craft Project, Department of Geography, The University of Colorado at Boulder|accessdate=21 Apr 2015}}</ref>
 
সাধারণ ভাবে [[ভৌগলিক]] তথ্যের সংহতি, সংরক্ষণ, সম্পাদনা, বিশ্লেষণ, বন্টন ও প্রদর্শনে ব্যবহৃত তথ্য ব্বস্থা প্রনালীকে এই পরিভাষিক শব্দটির প্রকাশ করা যেতে পারে। [[জি আই এস আপ্লিকেশন]]-এর সাহায্যে উভ:ক্রিয় (interactive) [[query|জিজ্ঞাসা]] (ব্যবহারকারীকৃত অনুসন্ধান), দৈশিক তথ্যের বিশ্লষণ,মানচিত্রে উপাত্তের সম্পাদনা এবং এিএই সমস্ত কার্যাবলীর প্রদর্শন সম্ভব।<ref>Clarke, K. C., 1986. Advances in geographic information systems, computers, environment and urban systems, Vol. 10, pp. 175–184.</ref><ref name="Maliene V, Grigonis V, Palevičius V, Griffiths S 2011 1–6">{{cite web|url= http://www.palgrave-journals.com/udi/journal/v16/n1/abs/udi201025a.html | vauthors=Maliene V, Grigonis V, Palevičius V, Griffiths S|title=Geographic information system: Old principles with new capabilities |journal=Urban Design International |volume=16 |issue= 1 |pages= 1–6 |year= 2011 |doi= 10.1057/udi.2010.25 }}</ref> ভৌগলিক তথ্যবিজ্ঞান (Geographic information science) হল ভৌগলিক ধারণা, ব্যবহার ও ব্যবস্থা প্রণালীর ভিত্তিগত বিজ্ঞান।<ref>{{cite journal|doi=10.5311/JOSIS.2010.1.2|title=Twenty years of progress: GIScience in 2010|year=2010|last1=Goodchild|first1=Michael F|journal=Journal of Spatial Information Science}}</ref>
জি আই এস ব্যপক অর্থে বিভিন্ন প্রযুক্তি, প্রক্রিয়া ও পদ্ধতিকে নির্দেশ করে। প্রকৌশল, পরিকল্পনা, ব্যবস্থাপনা, পরিবহন. বীমা, দূরসঞ্চার এবং ব্যবসা বাণিজ্যের বিভিন্ন ক্ষেত্রে জি অই এসের ব্যবহার করা হয়।<ref name="Maliene V, Grigonis V, Palevičius V, Griffiths S 2011 1–6"/>এই কারণে, জি আই এস এবং অবস্থানিক বোধবিদ্যা ([[location intelligence]]) ব্যবহার অবস্থান ভিত্তিক পরিসেবা প্রদানের অধার হতে পারে। অবস্থানকে সূচক চল গণ্য করে সম্পর্কহীন তথ্যকে GIS-এর মাধ্যমে সম্পর্কযুক্ত করা সম্ভব।পৃথিবীতে অবস্থান বা পরিসর বা [[স্থান কাল]]কে ঘটনার তারিখ/সময় দিয়ে ও x, y z [[স্থানাঙ্ক|স্থানাঙ্কে]] যথাক্রমে [[দ্রাঘিমা]], [[অক্ষাংশ]] ও [[উচ্চতা(ভূগোল)|উচ্চতা]] দ্বারা প্রকাশ করা যায়।
 
১২টি

সম্পাদনা