বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
(→‎ইতিহাস: wl সাইয়েদ আবুল আ'লা মওদুদী)
সম্পাদনা সারাংশ নেই
জামায়াত ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার এবং পাকিস্তান বিভক্তির বিরোধীতা করেছিল।<ref>জনতার আদালতে জামাতে ইসলামী- দিব্য প্রকাশ, ৩৮/২ ক, বাংলাবাজার, ঢাকা, পৃষ্ঠা-১৮</ref><ref> দৈনিক পাকিস্তান, ২৮শে নভেম্বর, ১৯৭১ , সাভারে রাজাকার বাহিনীর কমান্ডারদের ট্রেনিং শেষে জেনারেল নিয়াজী বলেনঃ"একদিকে তাদের ভারতীয় চরদের সকল চিহ্ন মুছে ফেলতে হবে, অন্যদিকে বিপথগামী যুবকদের সঠিক পথে আনতে হবে।"</ref> দলটি পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদী, বুদ্ধিজীবী এবং সংখ্যালঘু হিন্দুদের হত্যায় সহযোগিতা করেছিল।<ref>[http://books.google.com.bd/books?id=fustp5GGqHIC&pg=PA48&dq=Jamaat+intellectuals+killing&hl=bn&sa=X&ei=AI60UpWoAo6qrAeatIHQBA&ved=0CEEQ6AEwAw#v=onepage&q=Jamaat%20intellectuals%20killing&f=false ''"The Ruling Enemy"''] page. 47-48</ref><ref>[http://books.google.com.bd/books?id=6XYp-z5aP4MC&pg=PA257&dq=Jamaat+intellectuals+killing&hl=bn&sa=X&ei=AI60UpWoAo6qrAeatIHQBA&ved=0CGsQ6AEwCQ#v=onepage&q=Jamaat%20intellectuals%20killing&f=false ''"Century of Genocide"''] Samuel Totten, William S. Parson, Page 257</ref> দলটির অনেক নেতা-কর্মী সেসময় গঠিত অঅধা-সামরিক বাহিনীতে যোগদান করেছিল<ref name="Rubin2010"/>, যারা গণহত্যা, বিশেষ করে হিন্দুদের ধর্ষণ এবং জোড়পূর্বক ইসলাম ধর্মে স্থানান্তরের মত যুদ্ধাপরাধে জড়িত থাকায় অভিযুক্ত।<ref>{{cite news|title=Bangladesh party leader accused of war crimes in 1971 conflict|url=http://www.guardian.co.uk/world/2011/oct/03/bangladesh-party-leader-accused-war-crimes|accessdate=5 February 2013|newspaper=The Guardian|date=3 October 2011}}</ref><ref name=new_age_1>{{cite news|title=Charges pressed against Ghulam Azam|url=http://newagebd.com/newspaper1/archive_details.php?date=2011-12-12&nid=43333|accessdate=23 January 2013|newspaper=New Age|date=12 December 2011}}</ref><ref name=daily_star_1>{{cite news|title=Ghulam Azam was 'involved'|url=http://www.thedailystar.net/newDesign/news-details.php?nid=208936|accessdate=23 January 2013|newspaper=[[The Daily Star (Bangladesh)|The Daily Star]]|date=2 November 2011}}</ref><ref>{{cite news|title=Bangladesh: Abdul Kader Mullah gets life sentence for war crimes|url=http://www.bbc.co.uk/news/world-asia-21332622|accessdate=5 February 2013|newspaper=BBC News|date=5 February 2013}}</ref> জামায়াতে ইসলামীর সদস্যরা আধাসামরিক বাহিনী [[শান্তি কমিটি]], [[রাজাকার]] ও [[আলবদর]] গঠনে নেতৃত্ব দিয়েছিল।<ref name="Rubin2010">{{cite book|last=Rubin|first=Barry A.|title=Guide to Islamist Movements|url=http://books.google.com/books?id=wEih57-GWQQC&pg=PA59|accessdate=6 March 2013|year=2010|publisher=M.E. Sharpe|isbn=978-0-7656-4138-0|page=59}}</ref><ref>{{cite news|title=ভারতীয় চক্রান্ত বরদাস্ত করব না (We will never tolerate Indian conspiracy)|newspaper=[[The Daily Sangram]]|date=13 April 1971}}</ref><ref name="Fair2010">{{cite book|last=Fair|first=C. Christine|title=Pakistan: Can the United States Secure an Insecure State?|url=http://books.google.com/books?id=RC-ANwtR_SoC&pg=PA22|accessdate=6 March 2013|date=16 June 2010|publisher=Rand Corporation|isbn=978-0-8330-4807-3|pages=21–22}}</ref>
 
১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা লাভের পর, নতুন সরকার জামায়াতকে রাজনীতি থেকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে এবং দলের নেতারা পাকিস্তানে নির্বাসনে চলে যান। পরবর্তীতে ১৯৭৫ সালে প্রথম রাষ্ট্রপতি [[শেখ মুজিবুর রহমান|শেখ মুজিব]] হত্যাকান্ডের পর এবং কয়েকটি সামরিক অভ্যুত্থানের পর ১৯৭৭ সালে মেজর জেনারেল [[জিয়াউর রহমান]] ক্ষমতায় এলে জামায়াতের উপর থেকে নিষেদ্ধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। দলটির নেতাকর্মীরা ফিরে আসার অনুমতি পান। জামায়াতে উদ্দেশ্য হলো শরীয়া ভিত্তিক একটি ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা যা পাকিস্তান ও সৌদি আরবের দেশসমূহে লক্ষ্য করা যায়। জামায়াতের বিরোদ্ধে হিন্দু ও বৌদ্ধ এবং আহমদীয়া মুসলমানদের উপর ধারাবাহিক আক্রমনের অভিযোগ করা হয়ে থাকে।{{citation needed}}
 
১৯৮০-এর দশকে জামায়াত গণতন্ত্রের পুনুরুদ্ধারের জন্য বহুদলীয় জোটে যোগদান করে। এসময় দলটি [[আওয়ামী লীগ]] ও সমসাময়িক বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে পরবর্তীতে দলটি [[বাংলাদেশের তত্ত্বাবধায়ক সরকার|তত্ত্বাবধায়ক সরকার]] ব্যবস্থা প্রবর্তনের জন্য আন্দোলন করে। পরবর্তীতে ২০০১ সালে নির্বাচনের পূর্ব মুহূর্তে [[বিএনপি]]র সাথে মিলিত হয়ে আরো অন্য দুটি দলসহ চারদলীয় ঐক্যজোট গঠন করে নির্বাচনে অংশগ্রহন করে। নির্বাচনে চারদলীয় ঐক্যজোট জয় লাভ করলে বেগম [[খালেদা জিয়া]] নেতৃত্বাধীন সরকারের অধীন জামায়াতের দুজন সদস্য মন্ত্রী নির্বাচিত হন। ২০০৮ সাল থেকে দলটির জনপ্রিয়তা কমতে শুরু করে এবং [[বাংলাদেশের সাধারণ নির্বাচন, ২০০৮|নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে]] দলটি ৩০০টি আসনের মধ্যে মাত্র ৫টি আসন লাভ করে। ২০১০ সালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার [[আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল|আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের]] মাধ্যমে ১৯৭১ সালে অভিযুক্ত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু করে; ২০১২ সালের মধ্যে দুজন বিএনপি নেতা ও জামায়াতের সাবেক ও বর্তমান সদস্যসহ ৮ জন নেতার বিরোদ্ধে যুদ্ধাপরাধের মামলা দায়ের করা হয়। ২০১৩ সালের জুলাই পর্যন্ত জামায়াতের সাবেক সদস্যসহ মোট চার জনকে অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় মৃত্যুদন্ড ঘোষণা ও একজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও সাবেক আমীর [[গোলাম আযম|গোলাম আযমকে]] ৯০ বছর কারাদন্ড প্রদান করা হয়।<ref name="বিবিসিবাংলা১">{{cite news | url=http://www.bbc.co.uk/bengali/news/2013/07/130715_an_ghulam_azam_verdit.shtml | title=গোলাম আযম দোষী প্রমাণিত, ৯০ বছরের কারাদণ্ড | work=বিবিসি বাংলা | date=১৫ জুলাই, ২০১৩ | accessdate=15 জুলাই 2013}}</ref><ref>http://bdnews24.com/bangladesh/2013/07/15/90-years-for-jamaat-guru-ghulam-azam</ref><ref name="সময়টিভি">{{cite news | url=http://www.somoynews.tv/details.php?id=15943 | title=গোলাম আযমের ৯০ বছরের কারাদণ্ড | work=সময় টিভি | date=১৫ জুলাই, ২০১৩ | accessdate=১৫ জুলাই, ২০১৩ | location=ঢাকা}}</ref><ref name="প্রথম১">{{cite news | url=http://www.prothom-alo.com/detail/date/2013-07-15/news/368067 | title=গোলাম আযমকে ৯০ বছরের কারাদণ্ড | work=দৈনিক প্রথম আলো | date=১৫ জুলাই, ২০১৩ | accessdate=15 জুলাই 2013 | location=ঢাকা}}</ref> রায়গুলোর প্রতিবাদে জামায়াত দেশের বিভিন্ন জায়গায় সহিংস প্রতিবাদ করে যাতে অনেক লোক নিহত হয় ও সরকারি সম্পত্তির ক্ষতি হয়।<ref name="BBC">[http://www.bbc.co.uk/news/world-asia-22058462 BBC (2013)], Bangladesh PM Sheikh Hasina rejects blasphemy law .</ref>
 
==সংগঠনের মৌলিক বিশ্বাস==
এই সংগঠনের সকল কার্যাবলীর প্রেরণা হল [[আল্লাহ]]র উপর বিশ্বাস রেখে, তাকে একমাত্র উপাস্য, কল্যাণকারী, আশ্রয়দাতা, সাহায্যকারী, রক্ষাকর্তা মেনে নেয়া এবং আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় [[কোরআন|কোরআনের]] বিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রে ইসলামের অনুশাসন প্রতিষ্ঠা করা। <ref>http://shujan.org/2009/07/20/জামায়াতে-ইসলামী-বাংলাদেশ/</ref>{{dead link}}
 
তবে ২০১২ সালের অক্টোবরে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী তাদের গঠনতন্ত্রে ব্যাপক সংশোধন আনে। নতুন সংশোধনীর মাধ্যমে দলটি গঠনতন্ত্র থেকে আল্লাহ প্রদত্ত ও রসুল প্রদর্শিত ইসলামী রাষ্ট্রব্যবস্থার কথা বাদ দিয়ে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থার কথা উল্ল্যেখ করে।<ref>[[http://sangbad21.com/?p=14591&calendar=2012-10 নিবন্ধন বাচাঁতে ‘আল্লাহ-রসুল’ বাদ দিল জামায়াত]</ref>
৪২৭টি

সম্পাদনা