গীতি কাব্য: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

 
==মহাকবি==
একজন গীতিকবি যেমন আত্মসচেতন, মহাকবিও তেমনই আত্মসচেতন। তাঁদের মধ্যেকার পার্থক্য শ্রেণীগত নয, ভাবগত কারণে। গীতি কবি আপনাকে কেন্দ্র করে নিজের উপলদ্ধ জগৎ সৃষ্টি করেন। [[মহাকবি|মহাকবির]] ব্যক্তি-পরায়ণতা আরও বিস্তৃত। গীতিকবি অন্ধ, মহাকবি সহস্র-চক্ষু, গীতিকবি আত্মরতিসম্পন্ন, মহাকবি স্বকীয় কল্পনার আলোকে নির্বাচিত বিষয়বস্তু অবলম্বনে সর্বজনীন মানবতাকে নিরীক্ষণ করেন। [[জন মিল্টন|মিল্টন]] [[কিথা আর্থার|আর্থারের]] কাহিনী পরিত্যাগ করে [[বাইবেল|বাইবেল-বর্ণিত]] আদিম মানবের পতন কাহিনীকেই [[মহাকাব্য|মহাকাব্যের]] সামগ্রীরূপে গ্রহণ করেছিলেন। কারণ এটি তাঁর বিপুল ব্যক্তিত্বের রসে রসায়িত হয়ে এমন [[কাব্য]] রচনার সাহায্য করবে, যাতে তিনি ঐশ্বরিক বিধানকে মানবভাগ্যের সাথে সংযুক্ত করে দেখাতে পারবেন। মধুসূদনও [[রামায়ণ|রামায়ণের]] যে-কাহিনী গ্রহণ করেছেন, তার ব্যঞ্জনা ব্যক্তি-নির্বিশেষ হলেও তা [[মাইকেল মধুসূদন দত্ত|মাইকেল মধুসূদন দত্তের]] কবি-মানসের ও জীবনদর্শনের সহায়ক।
 
[[en:Lyric poetry]]
৭৭,৩১৬টি

সম্পাদনা