মাসুদ রানা সিরিজ

সেবা প্রকাশনী কর্তৃক প্রকাশিত একটি থ্রিলার সিরিজ
(ধ্বংস পাহাড় (বই) থেকে পুনর্নির্দেশিত)

সেবা প্রকাশনী কর্তৃক মাসুদ রানা সিরিজে এই পর্যন্ত মোট ৪৭০ টি বই প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু, প্রকৃতপক্ষে বইগুলিতে মোট ৩২৩ টি গল্প আছে (অনেক বইয়ের দুটি, এমনকি তিনটি খন্ড থাকায় এমনটি হয়েছে)।

মাসুদ রানা সিরিজের "বন্দি রানা" বইয়ের প্রচ্ছদ

বইয়ের তালিকা

সম্পাদনা
  1. ধ্বংস পাহাড় (মৌলিক রচনা)। কাহিনী সংক্ষেপঃ এক প্রতিভাবান বিজ্ঞানী কবির চৌধুরী কাপ্তাই শহরের কাছে একটা পাহাড়ের ভেতর আলট্রা সোনিকস (অতিশব্দ) এবং অ্যান্টি-গ্র্যাভিটি নিয়ে গোপন গবেষণা করছিলো। কাপ্তাই বাঁধ তৈরির ফলে বিশাল লেকের নিচে তলিয়ে যাচ্ছে পাহাড়টা। তাই সে সিদ্ধান্ত নিলো পাকিস্তানের কোনো শত্রু দেশের (ভারত) সরবরাহ করা শক্তিশালী ডিনামাইট ফাটিয়ে উড়িয়ে দেবে বাঁধটা। আর সেটা ঠেকানোর দায়িত্ব পড়ে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের কাউন্টার ইন্টেলিজেন্স এজেন্ট মাসুদ রানার উপর।
  2. ভারতনাট্যম (মৌলিক রচনা)। কাহিনী সংক্ষেপঃ কিচ্ছু না, সাধারণ একটা সাংস্কৃতিক শুভেচ্ছা মিশন!বাংলাদেশ কাউন্টার ইন্টেলিজেন্সের মাসুদ রানাকে পাঠানো হলো ফটোগ্রাফারের ছদ্মবেশে। কিন্তু কেঁচো খুঁড়তে গিয়ে বেরিয়ে পড়লো মোলাসেস সেন্ট- অর্থাৎ চিটাগুড়ের গন্ধ। ব্যাপার কি? এ যে বিষাক্ত কেউটের চেয়েও ভয়ঙ্কর! রানার মৃত্যুসংবাদ প্রচার করেও কি ধোঁকা দেয়া গেল ওদের?
  3. স্বর্ণমৃগ (জেমস বন্ড সিরিজের "অন হার ম্যাজেস্টিস সিক্রেট সার্ভিস" ও "গোল্ডফিংগার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ইয়ান ফ্লেমিং)। কাহিনী সংক্ষেপঃ পাকিস্তান আমলের কথা। মাসুদ রানা চলেছে করাচী। সমুদ্রের ধারে পরিচয় হলো স্বর্ণমৃগের সাথে, খেলার ছলে। উপরি পাওনা হিসেবে রানার জীবনে এলো জিনাত সুলতানা। এক অভিনব পন্থায় সোনা চোরাচালান হচ্ছে বাংলাদেশে (তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানে)। রানার সাথে হলো প্রচণ্ড সংঘর্ষ। জীবনে এই প্রথম উপলব্ধি করল রানা, শক্তির দ্বন্দ্বে ওয়ালী আহমেদের ক্ষমতার কাছে সে একটি দুগ্ধপোষ্য শিশু-মাত্র। কিন্তু পিছিয়ে এলো না রানা, আহ্বান করল নিশ্চিত মৃত্যুকে।
  4. দুঃসাহসিক (জেমস বন্ড সিরিজ "ডায়মন্ডস আর ফরেভার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ইয়ান ফ্লেমিং)। কাহিনী সংক্ষেপঃ পিকিং শহর থেকে এল সাহায্যের আবেদন, একজন দুঃসাহসী বাঙালি লোক চাই। বন্ধু দেশ... যেতে হলো রানাকে। মুখোমুখি হতে হলো শক্তিশালী এক প্রতিপক্ষের।
  5. মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা (স্পাই থ্রিলার "দ্য লাস্ট ফ্রন্টিয়ার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন)। কাহিনী সংক্ষেপঃ মৃত্যুর সাথে পাঞ্জার কাহিনি আবর্তিত হয়েছে মূলত কাশ্মিরের মুসলমানদের উপর ভারতীয় সেনাবাহিনীর বন্দীদশা থেকে পাকিস্তানের বিজ্ঞানী সেলিম খানকে উদ্ধার করে নিরাপদে পাকিস্তানে নিয়ে আসার মধ্যে। মাসুদ রানা একাই এই মিশন নিয়ে কাশ্মীরের শ্রীনগরে রওনা হয় ছদ্মবেশ। পথে বিভিন্ন ঘটনার মধ্যে তার পরিচয় হয় জিঞ্জির এবং তার দলের সাথে। তারা কাশ্মীরের মুসলমানদের স্বাধীনতার জন্য লড়াই করছে। জিঞ্জির আগে সেনাবাহিনীতে ছিলেন। জিঞ্জিরের মেয়ে রুবিনা। সুন্দরী, অভিনেত্রী। অবধারিতভাবে রানার প্রেমে পড়ে যায়। ফজল মাহমুদও রুবিনাকে ভালোবাসে অনেকদিন থেকেই। কিন্তু মাহমুদের ক্যান্সার।
  6. দুর্গম দুর্গ (স্পাই থ্রিলার "দি গানস অফ ন্যাভারন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন)। কাহিনী সংক্ষেপঃ দূর যাত্রায় চলল দুঃসাহসী কয়েকজন পাকিস্তানি অভিযাত্রী। মাসুদ রানা তখন পাকিস্তান কাউন্টার ইন্টেলিজেন্সের স্পাই। যুদ্ধ চলছে পাকিস্তান আর ভারতের। ভারতের অভ্যন্তরের এক দুর্গম দুর্গের ৪ টা বিরাট বিরাট কামান ধ্বংস করা জরুরী হয়ে পড়েছে। কারণ ঐ কামানগুলোই মূলত শত্রুদের আক্রমণ প্রতিহত করে দেয়। এগুলো ধ্বংস করতে পাঠানো হল রানাকে, সাথে মিশ্রী খান, মাহবুব আর আলতাফ..শুরু দুর্ধর্ষ চার ব্যক্তির বিপদসংকুল অভিযান। তাঁদের নেতা মাসুদ রানা।
  7. শত্রু ভয়ঙ্কর (স্পাই থ্রিলার "ফিয়ার ইজ দ্য কী" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন)। কাহিনী সংক্ষেপঃ আসামীর কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে আছে রানা। ইস্তাম্বুলের সাধারণ বিচারকক্ষে বিচার হচ্ছে ওর। খুনের আসামী সে। RCD শিপ বিল্ডিং করপোরেশনের প্রথম জাহাজ এম ভি রুস্তম এবং রাশিয়ার নব আবিষ্কৃত আণবিক অস্ত্র Lenin M-315 কে ঘিরে সৃষ্টি হলো এক ভয়ঙ্কর ঘটনাচক্রের আবর্ত। তুফান উঠল ভূমধ্যসাগরে। রাশিয়ার KGB-এজেন্ট কর্নেল নিকিতা ম্যাখারভ, ইস্তাম্বুলের মাফিয়া-চীফ ইয়াকুব বে এবং পাকিস্তান কাউন্টার ইন্টেলিজেন্সের মাসুদ রানা জড়িয়ে পড়ল এক প্রচন্ড প্রাণঘাতী সংঘর্ষে। কে জয়ী হবে কে জানে!
  8. সাগর সঙ্গম (প্রথম খণ্ড) (জেমস বন্ড সিরিজের "মুনরেকার" ও "দি স্পাই হু লাভড মি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ইয়ান ফ্লেমিং)। কাহিনী সংক্ষেপঃ তাসের টেবিলে বাধল গোল। সেই থেকে শুরু। সংক্রামক রোগের মত বিস্তার লাভ করল ভয়ানক চক্রান্ত - ঢাকা থেকে চিটাগাং - সেখান থেকে কক্সবাজার। চিটাগাং-এর সাগর-সঙ্গমে রক্তলোভী হাঙ্গর আর বিদেশী সাবমেরিন, আন্দরকিল্লায় তিনটে ঘরভর্তি জালনোট, কক্সবাজারের হোটেল ড্রীমে অগ্নিকান্ড- সব মিলিয়ে জটলা পাকিয়ে যাচ্ছে না?
  9. সাগর সঙ্গম (দ্বিতীয় খণ্ড)। কাহিনী সংক্ষেপঃ ঐ
  10. রানা! সাবধান!! (স্পাই থ্রিলার "এসাইনমেন্ট-কং হাই কিল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এডওয়ার্ড এস এ্যারনস)। কাহিনী সংক্ষেপঃ রানা! সাবধান!! অতি যত্নের সঙ্গে প্ল্যানটা তৈরী করেছেন মেজর জেনারেল রাহাত খান, এটা তোমার জীবনের শ্রেষ্ঠ এ্যাসাইনমেন্ট। তুমি চলেছো ওঙ্কার দ্বীপে। কিন্তু তুমি কল্পনাও করতে পারবে না কি ভয়ঙ্কর ফাঁদ পেতে অপেক্ষা করছে ওরা তোমার জন্য। তোমার ভালর জন্যেই বলছি- রানা! সাবধান!!
  11. বিস্মরণ (একশন থ্রিলার "স্ট্রিক্টলি ফর ক্যাশ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ)। কাহিনী সংক্ষেপঃ ছুটিতে বেড়াতে গেল রানা সিংহলে। নিজের অজান্তেই জড়িয়ে পড়ল সে কান্ডির দুর্ধর্ষ সর্দার রঘুনাথ জয়ামান্নের এক হীন চক্রান্তে। তারপরই ঘটল বিস্মরণ।
  12. রত্নদ্বীপ (স্পাই থ্রিলার "হোয়েন এইট বেলস টোল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন)। কাহিনী সংক্ষেপঃ তেত্রিশ কোটি টাকার হাই কোয়ালিটি পাকিস্তানী এমারেল্ড নিয়ে উধাও হয়ে গেল অস্ট্রেলিয়াগামী ফ্রেটার Triton ভারত মহাসাগরে। দুর্ধর্ষ এক জলদস্যুদলের নিষ্ঠুর চক্রান্তের মধ্যে পড়ে হাবুডুবু খেল রানা অনেক। তারপর জটিল এক জাল পাতল সে সাতুলাগির ভয়ঙ্কর ঘূর্ণি আবর্তে।
  13. নীল আতঙ্ক (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "দ্য স্যাটান বাগ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন)। কাহিনী সংক্ষেপঃ আঁতকে উঠল সমগ্র দেশ। পৃথিবীটা ধ্বংস করে দেবে নাকি লোকটা? মাইক্রোবায়োলজিকাল রিসার্চ সেন্টার থেকে চুরি গেছে কালকূট। ঘুরে বেড়াচ্ছে এক ক্ষ্যাপা লোক। পৃথিবীর প্রতিটি প্রাণীকে হত্যা করার পক্ষে যথেষ্ট পরিমাণে ভাইরাস হাতে নিয়ে হুমকি দিচ্ছে, ভয় দেখাচ্ছে - তার কাছে নতি স্বীকার না করলে যে-কোন মুহূর্তে ফাটিয়ে দেবে সে ভাইরাসের বোতল! রানা, বাঁচাও!
  14. নীল আতঙ্ক (দ্বিতীয় খণ্ড)। কাহিনী সংক্ষেপঃ ঐ
  15. কায়রো (স্পাই থ্রিলার "এসাইনমেন্ট-সাইলন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এডওয়ার্ড এস এ্যারনস)। কাহিনী সংক্ষেপঃ বন্ধু আহসানের মৃত্যুর কারণ খুঁজতে গিয়ে কায়রোর মাটিতে পা দিয়েই টের পেল রানা, পা দিয়েছে ফাঁদে। ইসরাইলের দুর্ধর্ষ স্পাই সংস্থা জিওনিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইন্টারন্যাশনাল আষ্টেপৃষ্ঠে পেঁচিয়ে ফেলল রানাকে কুৎসিত জটিল এক চক্রান্তের বেড়াজালে।
  16. মৃত্যুপ্রহর (স্পাই থ্রিলার "হোয়্যার ঈগলস ডেয়ার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন)। কাহিনী সংক্ষেপঃ ইসরাইলের ছোট্ট শহর সাফেদের কাছাকাছি কানান পাহাড়ের মাথায় ফোর্ট টাগার্ট, বা বারাক বেন কানান। জিওনিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইন্টারন্যাশনালের দ্বিতীয় হেড কোয়ার্টার। সেই দুর্ভেদ্য দুর্গে বন্দী রয়েছেন বাংলাদেশ কাউন্টার ইনটেলিজেন্সের চীফ মেজর জেলারেল (অবঃ) রাহাত খান। ... চলল রানা।
  17. গুপ্তচক্র (স্পাই থ্রিলার "দি ডার্ক ক্রুসেডার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন)। কাহিনী সংক্ষেপঃ নিখোঁজ হয়ে গেছেন আটজন বিজ্ঞানী। একদম হাওয়ায় মিলিয়ে গেছেন যেন। মাসুদ রানাকে একজন সলিড ফুয়েল এক্সপার্টের ছদ্মবেশে সস্ত্রীক পাঠানো হলো ম্যানিলায়।
  18. মূল্য এক কোটি টাকা মাত্র (নিক কার্টার সিরিজের "ওয়েব অফ স্পাইস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ম্যানিং লি স্টোকস)। কাহিনী সংক্ষেপঃ ক্যাসাব্লাঙ্কা। হোটেল সাহার। ক্যাবারে-রুম। জ্বলে উঠল নীল স্পট। মুখ তুলে দর্শকদের দিকে তাকাল স্ট্রীজটিজ ড্যান্সার প্রিন্সেস জয়লতিকা। ... মিত্রা! রানা দেখল স্টেজে দাঁড়িয়ে মিত্রা সেন।
  19. রাত্রি অন্ধকার (থ্রিলার "ফোর্স টেন ফ্রম ন্যাভারন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন)। কাহিনী সংক্ষেপঃ বিয়ে খেতে এলো রানা কায়রো। জানা গেলো সাত হাজার ফেদাইনের একটা ডিভিশন আটকা পড়েছে প্যালেস্টাইনের নেবুলাস অঞ্চলে, তারিক উপত্যকায়। মৃত্যু প্রহর গুনছে সাত হাজার আরব। দু'এক দিনের মধ্যেই আক্রমন চালাবে ইসরাইলের জেনারেল ওটেন।
  20. জাল (মৌলিক রচনা)। কাহিনী সংক্ষেপঃ ওয়াশিংটন থেকে সোহানাকে নিয়ে মালয়শিয়া চলে গেলো জাল মাসুদ রানা এক বিশেষ অ্যাসাইনমেন্টে। আর জাল পরিচয়ে আসল মাসুদ রানা পার হলো কানাডার বর্ডার- অন্ধকার রাতে। ছুটলো এক ডকুমেন্টের পিছনে।
  21. অটল সিংহাসন (স্পাই থ্রিলার "এসএএস ভার্সাস দি সিআইএ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেরার্ড ডে ভিলিয়ার্স)। কাহিনী সংক্ষেপঃ সাধারণ একটা ব্রীফকেসে এক কোটি ডলার নিয়ে পৌঁছল রানা তেহরানে। বড় অদ্ভুত এক মিশন। ইরানের মাটিতে পা দিয়েই টের পেল বিপদ। টাকাগুলো বাঁচাবার চেষ্টা করল রানা, কিন্তু প্রকাশ্য দিবালোকে ওর হাত থেকে ছিনিয়ে নেয়া হলো ব্রীফকেস্টা। সাহায্য পাওয়া গেল না কারও।
  22. মৃত্যুর ঠিকানা (স্পাই থ্রিলার "ওয়েস্ট অফ জেরুজালেম" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেরার্ড ডে ভিলিয়ার্স)। কাহিনী সংক্ষেপঃ পাকিস্তান আমলের কথা। কাউন্টার ইন্টেলিজেন্সের করাচী শাখা-প্রধান জেনারেল ওয়াসিম আত্মহত্যা করে বসলেন। আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে অর্থহীন এই মৃত্যু। কিন্তু গভীর একটা চক্রান্ত আঁচ করতে পারলেন মেজর জেনারেল রাহাত খান। রানাকে সাজতে হলো নকল জেনারেল ওয়াসিম।
  23. ক্ষ্যাপা নর্তক (স্পাই থ্রিলার "এসাইনমেন্ট-দি কায়রো ড্যান্সার্স" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এডওয়ার্ড এস এ্যারনস)। কাহিনী সংক্ষেপঃ বারো জন প্রখ্যাত বৈজ্ঞানিক নিখোঁজ। শেষের জন নিখোঁজ হয়েছেন চোখের সামনে থেকেই।​ ডক্টর সাদেকের মাকে কথা দিয়েছে রানা, যেমন করেই হোক খুঁজে এনে দেবে সে তাঁর ছেলেকে। একমাত্র সূত্র হুবার্ট ডনফিল। ছুটল রানা লন্ডন হয়ে মিউনিখ।
  24. শয়তানের দূত (থ্রিলার "দি কোপেনহেগেন এ্যাফেয়ার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন ওরাম) কাহিনী সংক্ষেপ: অদ্ভুত গতিসম্পন্ন গোলাকৃতি একটা উড়ন্ত বস্তু ধরা পড়ে রাডারে দুই সেকেন্ডের জন্যে, পরমুহূর্তে অদৃশ্য হয়ে যায়। শব্দের চেয়ে এগারো গুণ বেশি গতিবেগ। কি ওটা? জানার ভার পড়ল পাকিস্তান (বর্তমান বাংলাদেশ) কাউন্টার ইন্টেলিজেন্সের অপারেটার মিস সোহানা চৌধুরীর উপর।
  25. এখনও ষড়যন্ত্র (মৌলিক রচনা) কাহিনী সংক্ষেপ: বাংলাদেশ আজ স্বাধীন। তবু কেন এখানে সেখানে খুন হচ্ছে অসংখ্য বাঙালী আজও? তবে কি এখনও তৎপর রয়েছে সেই কুখ্যাত আল-বদর, আল-শামস ও রাজাকারের দল?এখনও চলছে ষড়যন্ত্র? বেতারে নির্দেশ আসছে পাকিস্তান থেকে। এতবড় সাহস কোথায় পেল ওরা? টাকা পয়সা অস্ত্রশস্ত্র জোগান দিচ্ছে কে ওদের? কাদের ছত্রছায়ায় বসে কাজ করছে এরা নিশ্চিন্তে নিরপদে? কোনো বিদেশী মিশন? নির্দেশ এসেছে হত্যা করতে হবে মাসুদ রানাকে। অমোঘ আদেশ। কিন্তু কেন? কি দোষ করেছিল সে এদের কাছে? কেন অসহায় মৃত্যু বরণ করতে হলো রানাকে?
  26. প্রমাণ কই? (মৌলিক রচনা) কাহিনী সংক্ষেপ: সাব-ইন্সপেক্টর মাহবুবুল আলম। বৃষ্টিভেজা অন্ধকার রাতে হত্যা করে বসল সে স্বনামধন্য এক প্রতাপশালী ব্যক্তিকে। দেবতার সাথে যুদ্ধ চলেনা। কিন্তু তাই করতে হবে এবার মাসুদ রানাকে। জনমত ও সংবাদপত্রের দৌলতে মৃত্যুর পর যে লোক দেবত্ব লাভ করেছে,তাকে টেনে নামাতে হবে ধরার ধুলিতলে। কত বড় শত্রুর সাথে পাঞ্জা ধরতে হবে জানা ছিলনা রানার। সিনেমা দেখতে যাচ্ছিল সোহানাকে নিয়ে, সাহায্য চাইল যুদ্ধক্ষেত্রে পরিচিত এক সহচর। বিপদের কথা চিন্তা না করেই কথা দিয়ে দিল রানা, সাহায্য করবে। সহকারী সোহানা। তারপরই শুরু হয়ে গেল ভয়ঙ্কর সব ঘটনা। বন্ধু বেশে ঘুরছে শত্রু আশেপাশেই। চেনা যায় না তাদের। কখন বসাবে বিষাক্ত ছোবল বোঝার উপায় নেই। এক ধাঁধা থেকে উত্তরণ ঘটছে অন্যতর জটিলতর ধাঁধায়। সব ধোঁয়াটে লাগে। পিস্তলটা গেল কোথায়? ডাক্তার কি অপরাধী? কে জবাব দেবে এসব প্রশ্নের?
  27. বিপজ্জনক (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "দ্য লাস্ট ফ্রন্টিয়ার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন) কাহিনী সংক্ষেপ: পাকিস্তানের কোন একটি দুর্ভেদ্য কারাগারে বন্দী হয়ে আছেন মেজর জেনারেল রাহাত খান - এই খবর পেয়ে ছুটল রানা শত্রুপুরীতে, ছদ্মবেশে। অপ্রসন্ন ভাগ্যের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে একটার পর একটা বিপদ ও বাধা অতিক্রম করল সে অসম সাহস আর তীক্ষ্ণবুদ্ধির বলে। সিরিজের পঞ্চম কাহিনীর কিছু কিছু কৌশল ব্যবহার করল এবার রানা। প্রশ্ন অনেক। পারবে সে মেজর জেনারেলকে ফিরিয়ে আনতে? বিগ্রেডিয়ার জামানকে মুক্ত করতে? লায়লা জামানকে উদ্ধার করতে? সাড়ে তিনশো বন্দী মেয়েকে রক্ষা করতে?
  28. বিপজ্জনক (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  29. রক্তের রঙ (প্রথম খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ভারত-বাংলাদেশ-বর্মা সীমান্তের কাছাকাছি কোথাও জটিল এক ষড়যন্ত্রের আভাস পেয়েছেন মেজর জেনারেল রাহাত খান। তবে কি মুসলিম বাংলা সংক্রান্ত গুজবের মধ্যে কিছু সত্যতা আছে? বিশাল সমুদ্রের বুকে চিনেবাদামের খোসার মত একটা ছোট্ট ইয়টে করে পাড়ি দিল রাঙা দীর্ঘ নয়শো মাইল। গন্তব্য- ইয়ান গন। প্রাচ্যের দুর্ধর্ষতম দস্যু উ সেন মারা যায়নি প্লেন-ক্রাশে। বাংলাদেশের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলার এক ভয়ঙ্কর চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে সে। রানা চলেছে ছদ্ম-পরিচয়ে তারই দলে যোগ দিতে।কিভাবে বানচাল করবে রানা এই ষড়যন্ত্র? আট হাজার ট্রেইন্‌ড্‌ গেরিলার তুলনায় রানার শক্তি ও সামর্থ্য কতটুকু?
  30. রক্তের রঙ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  31. অদৃশ্য শত্রু (মৌলিক রচনা) কাহিনী সংক্ষেপ: দেবাশীষ দত্ত, আপাতদৃষ্টিতে সাধারন একজন ব্যবসায়ী, সেইসাথে তার বোন রিতা, সাহায্য চাইলো একযোগে রাহাত খান ও রানার কাছে। বাংলাদেশ কাউন্টার ইন্টেলিজেন্সের সাধারন একজন ইনফর্মার হলেও রাহাত খান কিম্বা রানা কেউই ওদের অনুরোধ উপেক্ষা করতে পারলো না। তাই অন্য কাজের অজুহাতে রানা ছুটলো কলকাতায়।বেনাপোল বর্ডারে দেবাশীষের সুটকেস বিনা চেকিংয়েই ছেড়ে দেয়া হলো। কিন্তু রানা হাল ছাড়লো না, শেষ পর্যন্ত দুয়ে দুয়ে চার ঠিকই মিললো। সব গড়বড়ের পিছনের হোতাটি যে কে, তা খু্ঁজে পেতে পেতে শেষ রক্ষা হবে তো?
  32. পিশাচ দ্বীপ (মৌলিক রচনা) কাহিনী সংক্ষেপ: সুখস্বপ্ন দেখছিল রানা। ফোন দিয়ে ঘুম ভাঙিয়েই জানালো সোহেল, সোহানাকে পাওয়া যাচ্ছে না। এরপর রানা হাজির হলো সেই দ্বীপে? তারপর????
  33. বিদেশী গুপ্তচর (প্রথম খণ্ড) (নিক কার্টার সিরিজের "মিশন টু ভেনিস" এর ছায়া অবলম্বনে,লেখক ম্যানিং লি স্টোকস) কাহিনী সংক্ষেপ:অসহায় এক মায়ের কথা ফেলতে পারল না মাসুদ রানা। যাবে সে ভেনিসে অনিল চ্যাটার্জির খোঁজে। কিন্তু ভারতীয় গুপ্তচর বিভাগ অনিলকে বিশ্বাসঘাতক হিসেবে চিহ্নিত করছে কেন? পৌঁছেই রানা টের পেল বিশাল এক সংঘবদ্ধ দলের বিরুদ্ধে লড়তে হবে ওকে একা। একদম একা। কিন্তু না, এগিয়ে এল বাতিস্তা আর ওস্তাদ স্টেফানো মন্টিনি। পাশে দাঁড়াল রানার। ঝাঁপিয়ে পড়ল ওরা মৃত্যুর মুখে। নীল প্লাস্টিকে মোড়া ছোট্ট লাল খাতাটা দখল করে প্রাণ নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে এখন রানা ও গিলটি মিয়া। ইটালী থেকে বেরোবার সব পথ বন্ধ করে দিয়েছে কোসা নোস্ট্রা। ওরা এখন তাড়া খাওয়া শেয়াল। কিভাবে রক্ষা পাবে এবার বিদেশী গুপ্তচর?
  34. বিদেশী গুপ্তচর (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  35. ব্ল্যাক স্পাইডার (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "মিশন টু সিয়েনা" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ: ঠান্ডা মাথায় খুন করে চলেছে অর্থলোলুপ, নিষ্ঠুর এক অর্ধোন্মাদ নরপিশাচ। হয় টাকা দাও, না হয় মৃত্যু। পাঁচ বছরের বাচ্চা মিমি যখন পিতৃহীন হল তখন ক্ষুধার্ত বাঘের মত ঝাপ দিলো রানা। গন্ধ শুঁকে শুঁকে হাজির হল বম্বের কাম্বালা হিলে
  36. ব্ল্যাক স্পাইডার (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:নিপুণ হাতে জাল বিস্তার করেছে সে সারা পৃথিবী জুড়ে। আমেরিকার এফ,বি,আই; ব্রিটেনের স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড, ফ্রান্সের ডুক্সেম ব্যুরো, সবাই হিমশিম খেয়ে গেছে লোকটির ভয়ঙ্কর কার্যকলাপে। শুধু সে আশ্চর্য ধূর্ত এক ব্ল্যাকমেইলারই নয়, ঠান্ডা মাথায় খুন করে চলেছে সে একটার পর একটা। অর্থলোলুপ, নিষ্ঠুর এক অর্ধোন্মাদ নরপিশাচ।
  37. গুপ্তহত্যা (থ্রিলার "দি এক্সটার্মিনেটর" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডব্লিউ. এ. বেলিংগার) কাহিনী সংক্ষেপ: দপ করে জ্বলে উঠল বৃদ্ধের তীক্ষ্ণ দুই চোখ। 'গুপ্ত ঘাতক লেলিয়ে দিয়েছে ওরা আমার বিরুদ্ধে।' 'কি করতে হবে আমাকে, স্যার?' প্রশ্ন করল স্তম্ভিত রানা। 'হত্যা করতে হবে হত্যাকারীকে।' ছুটল রানা। ঢাকা টু কায়রো, কায়রো থেকে পালারমো।
  38. তিন শত্রু কাহিনী সংক্ষেপ: আড়াই টন সোনা নিয়ে বঙ্গোপসাগরে ডুবে গিয়েছিল একটা পাকিস্তানী জাহাজ একাত্তরের অক্টোবরে। ন্যাভাল লেফটেন্যান্ট আহসানের সাহায্যে একটা নকশা তৈরি করিয়েছেন মেজর বাশার আগরতলায় বসে প্রত্যক্ষদর্শী শিল্পী রাশেদের সহযোগীতায়। সেই রাতেই আততায়ীর গুলিতে মারা গেল আহসান। মেজর বাশারের তাঁবুতে আগুন লেগে পুড়ে গেল ম্যাপের অর্ধেকটা। সাতদিন পর মারা গেল রাশেদ। গভীর সাগরে ডুবে রয়েছে আড়াই টন সোনা। কেউ জানে না কোথায়।
  39. অকস্মাৎ সীমান্ত (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "হ্যাভ দিস ওয়ান অন মি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ: বেড়াতে গিয়েছিল রানা গোলাপের দেশ তেহরানে। ভাবতেও পারেনি জটিল রায়ের কুটিল এক ফাঁদে পা দিচ্ছে সে সম্পূর্ণ অসতর্ক অবস্থায়। সেখানে ভ্রাতৃহত্যার প্রতিশোধ গ্রহণ করবার জন্যে অপেক্ষা করছে পাকিস্তান কাউন্টার ইন্টেলিজেন্সের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর লোক বিগ্রেডিয়ার তারিক আখতার। পরিচয় হল বিখ্যাত পপ গায়িকা স্পাই দিলারা দুররানীর সাথে। সে-ও আকন্ঠ ডুবে আছে বিপদে। শুরু হয়ে গেছে ঘটনা-সংঘাত। পালাচ্ছে ওরা। কুশলগড়ের পাহাড়ে ঘিরে ফেলল ওদের কয়েক হাজার পাক আর্মি।
  40. অকস্মাৎ সীমান্ত (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  41. সতর্ক শয়তান (থ্রিলার "দ্য ওয়ে টু ডাস্টি ডেথ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন) কাহিনী সংক্ষেপ: ফর্মুলা ওয়ান রেসিংএ অনেক কিছু ঘটছে।সম্প্রতি দুর্ঘটনার শিকার মরিস রেনার ভাবলো,এবার সময় দুর্ঘটনার কারণগুলো খুঁজে বের করার। কিন্তু দেখা গেল, সমস্যাগুলোর একটাও গাড়ি সংক্রান্ত নয়।
  42. নীল ছবি (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "দ্য উইফ অফ মানি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ: প্যারিস থেকে ছুটল রানা, উদ্ধার করবে তিনটি ছবির রীল। ফিরিয়ে আনবে শিখা শংকরকে। মুশকিল হলো, আরও অনেকে চায় ওগুলো। শেষ করে দিতে চায় অবাধ্য শিখাকে। জার্মানীর এক বিশাল পাঁচিল ঘেরা দুর্গে মুখোমুখি হলো সবাই।
  43. নীল ছবি (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  44. প্রবেশ নিষেধ (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "পাপেট অন আ চেইন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন) কাহিনী সংক্ষেপ: গোপন এক মিশন নিয়ে অতি গোপনে এমস্টারডামের শিফল এয়ারপোর্ট নামলো রানা। কিন্তু মাটিতে পা দিয়েই টের পেল প্রতিপক্ষের ক্ষমতা। অনুভব করলো সর্বক্ষণ রাখা হয়েছে ওকে পিস্তলের মুখে। একা, ফলে পাগলের মত একের পর এক ঝুঁকি নিতে হচ্ছে ওকে। যেকোন মুহূর্তে ঘটে যেতে পারে যা খুশি।
  45. প্রবেশ নিষেধ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  46. পাগল বৈজ্ঞানিক (নিক কার্টার সিরিজের "দ্য ডেঞ্জার কী" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক লিউ লাউডারব্যাক) কাহিনী সংক্ষেপ: বহুদিন বিদেশে কাজ করতে করতে ক্লান্ত হয়ে দেশে ফিরে আসছিল রানা। পরদিন রিজার্ভ করা হয়েছে প্লেনের সিট। এমনি সময়ে ইলেকট্রনিকসের এক দোকানের সামনে দেখা পেল সে কবির চৌধুরীর। রানার চিরশত্রু কবির চৌধুরী। সেই আশ্চর্য প্রতিভাবান পাগল বৈজ্ঞানিক কবির চৌধুরী।
  47. এসপিওনাজ (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "ইউ হ্যাভ ইয়োরসেলফ আ ডীল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ: একটি মেয়ে নিয়ে ঘটনা। রমনা পার্কে পাওয়া গেছে অজ্ঞাত পরিচয় এক যুবতীকে অজ্ঞান অবস্থায়। হাসপাতালে জ্ঞান ফিরে আসতেই দেখা গেল স্মৃতি হারিয়ে ফেলেছে সে। ও জানে না ও কে, কোথায় বাড়ি, কোত্থেকে এসেছে, কোথায় যাচ্ছিল - কিচ্ছু না। রানাকে বানিয়ে দেয়া হলো ওর নকল স্বামী। সবার সন্দেহঃ মেয়েটা স্পাই হাস্না কাওসার। যদি তাই হয়, অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য রয়েছে তার কাছে। শুরু হলো এসপিওনাজ। ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ - তিন দেশের তিনটি গোপন সংস্থা প্রচন্ডভাবে তৎপর হয়ে উঠল।
  48. এসপিওনাজ (দ্বিতীয় খন্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  49. লাল পাহাড় (ট্রেজার হান্টিং থ্রিলার "ম্যাকেনা'স গোল্ড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক উইল হেনরি) কাহিনী সংক্ষেপ: মুমূর্ষ এক বৃদ্ধ মরার আগে সাগর দেখতে চেয়েছিলেন। পিঠে তুলে পৌঁছে দিয়েছিল রানা ওকে সাগর তীরে। বিনিময়ে ওদের পবিত্র থাম্পা মন্দিরে যাওয়ার নকশা এঁকে দিল বুড়ো বালির উপর এবং মারা গেল। কিন্তু চমকে উঠল রানা রাইফেল কক্ করার শব্দে। চোখ তুলে দেখল স্থির হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে সাতজন অশ্বারোহী। পৌঁছে গেছে সীমান্তের আতঙ্ক নির্মম দস্যু মিরহাম মার্মা।
  50. হৃৎকম্পন কাহিনী সংক্ষেপ: শিকাগোর হিলো বারে পরপর কদিন ধরে মদ খাচ্ছে রানা, চিৎকার করছে; সুসানকে খুন করবে ও, করবেই। হ্যানোভার পাগলা-গারদে ভরে দেয়া হলো ওকে। সেখানে আত্মগোপনকারী দু'জন খুনীর খোঁজ নিতে গিয়ে উল্টো নিজেই খুনী সাব্যস্ত হলো রানা। আটকে দেয় হলো ওকে হাইলি ডেঞ্জারাস সেলে। শুরু হল ভুল ইঞ্জেকশন।
  51. প্রতিহিংসা (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "জাস্ট এনাদার সাকার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ: কে বলে রানা বুদ্ধিমান? যদি তাই হোত, জেলের ভাত খেতে হোত না ওকে ছয় মাস। কে বলে রানা কৌশলী? যদি তাই হোত, পা দিত না সে নোরমা গোনজালিসের মরণ ফাঁদে। কে বলে রানা মহৎ-হৃদয়? যদি তাই হোত, এমন ভাবে জ্বলত না সে প্রতিহিংসার আগুনে! আসলে ও আমাদের মতই সাধারণ এক মানুষ।
  52. প্রতিহিংসা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  53. হংকং সম্রাট (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "দ্য ফ্রিডম ট্র্যাপ একেএ দি ম্যকিনটশ ম্যান" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেসমন্ড ব্যাগলি) কাহিনী সংক্ষেপ: বেশ কিছুদিন যাবৎ বিভিন্ন দেশের দুর্ভেদ্য কারাগার থেকে পালিয়ে যাচ্ছে একের পর এক দুর্ধর্ষ কয়েদী।কারা যেন বের করে নিয়ে যাচ্ছে অভিনব কৌশলে। জানা গেল তাদের নাম ফোরটিন ক্যারেট। নেতার নাম হংকং সম্রাট। ন্যাশনাল সিকিউরিটির চিফ প্রতিজ্ঞা করলেন,যেমন করেই হোক রুখতে হবে ওদের। কথাটা প্রথমে কানেই তুলতে চাননি বাংলাদেশ কাউন্টার ইন্টিলিজেন্সের কর্ণধার মেজর জেনারেল (অব:) রাহাত খান। কিন্তু হঠাৎ বিদ্যুৎ চমকের মত খেলে গেল তাঁর মাথায়, "আরেহ,ওরা তো বের করে নিয়ে যাবে নিকোলাসকে ঢাকা জেল থেকে।" স্পাই নিকোলাসের হাতে রয়েছে তেল প্রাপ্তি সংক্রান্ত এমন কিছু তথ্য, যা প্রকাশ পেলে সর্বনাশ ঘনিয়ে আসবে বাংলাদেশের আকাশে। তাই প্রতিজ্ঞা নিলেন তিনিও, রুখতে হবে ওদের। কিন্তু কেমন করে???আসুন,স্বচক্ষে দেখা যাক।
  54. হংকং সম্রাট (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  55. কুউউ (থ্রিলার "ব্রেকহার্ট পাস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন) কাহিনী সংক্ষেপ: লক্করমার্কা এক ট্রুপ ট্রেন চলেছে ফোর্ট হাম্বোল্ডের উদ্দেশ্যে। ইউ এস ক্যাভালরির কর্নেল রুজভল্টের নেতৃত্বে। রিজ সিটিতে জুয়া খেলতে গিয়ে ধরা পড়ল রানা। হাত বেঁধে ওকেও তোলা হলো সেই ট্রেনে। একঘেয়ে, ক্লান্তিকর, দীর্ঘ যাত্রা।হঠাৎ করেই ট্রেনে বিচিত্র সব ঘটনা ঘটতে শুরু করল। আঁচ পাওয়া যাচ্ছে, মারাত্মক কোনো দুষ্ট পরিকল্পনার অংশ এসব, কিন্তু কিছুতেই পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে না। কি বিপদ ঘনিয়ে আসছে সবার মাথার উপর? আমি জানি। কিন্তু আগে থেকে বলে দিয়ে আপনাদের পড়ার আনন্দ মাটি করতে চাই না।
  56. বিদায় রানা (প্রথম খণ্ড) (আর্কটিক এডভেঞ্চার থ্রিলার "এ গ্রু অফ আইস একেএ দ্য ডিসএপিয়ারিং আইল্যান্ড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেফরি জেনকিনস) কাহিনী সংক্ষেপ: অযোগ্য ঘোষিত হয়েছে রানা। ছুটি দেয়ার ছলে কি আসলে বরখাস্ত করা হচ্ছে ওকে? কিংবদন্তীর নায়ক সেই মাসুদ রানার এখানেই পরিসমাপ্তি? বাজছে বিদায়ের ঘণ্টা। চলে যাচ্ছে রানা বাংলাদেশ কাউন্টার ইন্টেলিজেন্স ছেড়ে অনেক... অনেক দূরে।
  57. বিদায় রানা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  58. বিদায় রানা (তৃতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  59. প্রতিদ্বন্দ্বী (প্রথম খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: রানার সাথে দাতাকুর শত্রুতার শুরু নিয়তির এক অদ্ভূত খেলায়। রানা্র ভুল এক সিদ্ধান্তের কারণে খুনের দায়ে ফেঁসে গিয়েছিল নিরপরাধ দাতাকু। নিজের নির্দোষিতার কথা রানাকে বার বার বিশ্বাস করাতে চেয়ে, ক্ষমাপ্রার্থনা করেও অকাট্য প্রমাণ-পরিস্থিতির জন্য পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছিল তাকে রানা। ভুল যখন ধরা পড়ল, তা শোধরাবার উপায় ছিল না আর। ফলশ্রুতিতে দাতাকু তার ভালবাসার মানুষটি সহ সবকিছু হারিয়েছিল, আর নিয়েছিল রানার উপর চরম প্রতিশোধ নেবার প্রতিজ্ঞা। জেল থেকে বেরিয়ে দু’হাত পোড়া, ভুরুহীন, ভীতিকর চেহারার বিশালদেহী দাতাকু শুরু করে রানা-রেবেকাকে নিয়ে ইঁদুর-বেড়াল খেলা, সুকৌশলে একের পর এক আঘাত হানতে থাকে সে, যা একসময় ডেকে আনে রেবেকার মৃত্যু। জীবনে প্রথমবারের মত রানা শত্রুর মোকাবেলা না করে পালাতে সচেষ্ট হয়ে ওঠে, নিজের ভুলের মাশুলের অনুতপ্তবোধ থেকে দাতাকুর উপরে পাল্টা আক্রমণ চালানো থেকে বিরত থাকে, কিন্তু রেবেকার মৃত্যুতে আর কিছুই হারানোর থাকে না কারও। শেষ দৃশ্যে ভূমিকম্পের দ্বীপে আজন্ম আক্রোশে মুখোমুখি হয় দুই জন্মশত্রু। পাঠক পান আরেক অসামান্য কাহিনি। দাতাকুর ভূমিকা খোদিত হয়ে যায় রানার ইতিহাসে।
  60. প্রতিদ্বন্দ্বী (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  61. আক্রমণ (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "অ্যাটাক অ্যালার্ম" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক হ্যামন্ড ইনস) কাহিনী সংক্ষেপ: দেশদ্রোহিতার অভিযোগে আতাসী কারাবন্দী। খবরটা মার্শিয়া রানাকে জানানো মাত্রই রানা একজন সাধারণ গানার হিসেবে যোগ দিলো লেবাননের একটি এয়ারফাইটার স্টেশনে। যদিও রানার ধারণা, সে আর বিসিআই-এর সাথে নেই, কিন্তু আতাসী আর মার্শিয়ার কাছে যে তার অনেক ঋণ। দেখা যাক, শেষমেশ আতাসীকে রানা উদ্ধার করতে পারে কিনা।
  62. আক্রমণ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  63. গ্রাস (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "ল্যান্ডস্লাইড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেসমন্ড ব্যাগলি)
  64. গ্রাস (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  65. স্বর্ণতরী (প্রথম খণ্ড) (ট্রেজার হান্টিং থ্রিলার "দি গোল্ডেন কীল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেসমন্ড ব্যাগলি) কাহিনী সংক্ষেপ: মাতাল এক লোকের কথায় বিশ্বাস করে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় লুকিয়ে রাখা জার্মানদের গুপ্তধন উদ্ধারে চলল রানা। সঙ্গে আছে জাতযোদ্ধা লার্দো, রহস্যময়ী মোনিকা আর মাতাল পেপিনো। শুরুতেই টের পেল রানা, বিশ্বাঘাতক রয়েছে কেউ। গোদের উপর বিষফোঁড়ার মতো প্রথম থেকেই ওদের পিছনে লাগল চতুর আর্মস ডিলার ভিনসেন্ট গগল। কি চায় সে? রানা কি পারবে তার শ্যেনদৃষ্টিকে ফাঁকি দিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সোনা বিক্রি করতে? শেষপর্যন্ত কে জিতবে এই কূটবুদ্ধির খেলায়?
  66. স্বর্ণতরী (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  67. পপি (স্পাই থ্রিলার "দ্য স্পয়লার্স" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেসমন্ড ব্যাগলি) কাহিনী সংক্ষেপ: এই প্রথমবার এক দুশ্চরিত্রা, নিষ্ঠুর মহিলা স্মাগলারের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে হলো রানাকে। বিরাট স্কেলের এই চোরা কারবারে লাভের অঙ্কটা এতই বেশি যে দলনেত্রীর সামান্য আঙ্গুলী হেলনে রক্তের গঙ্গা বইয়ে দিতে দ্বিধা করছে না কেউ। ঘোরতর বিপদের মধ্যে জেনেশুনে পা বাড়াল মাসুদ রানা।
  68. জিপসী (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "ক্যারাভান টু ভ্যাকারেস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন) কাহিনী সংক্ষেপ: প্রভেন্সের দিকে চলেছে জিপসীদের ক্যারাভান - তীর্থযাত্রায়। প্রতি বছরই যায়। কিন্তু সাদা ও সবুজ রঙ করা ক্যারাভানে কি আছে? ওটার কাছে গেলেই কেন তেড়ে আসে জার্দার লোকজন? কেন প্রাণ নিয়ে পালাতে হচ্ছে রানাকে লে বোর প্রাচীন ধ্বংসস্তূপে? কেন ছুরি হাতে তাড়া করছে ওকে তিনটা জিপসী - মুরেল, এনকো, গাটো ?
  69. জিপসী (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  70. আমিই রানা (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "দি টাইটরোপ মেন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেসমন্ড ব্যাগলি) কাহিনী সংক্ষেপ: তেল আবিবের অভিজাত এলাকা জাফার একটি ফ্ল্যাটে নিজ বিছানায় ঘুমিয়ে ছিলো রানা। ঘুম ভাঙল নরওয়ের অসলো শহরে এক হোটেল কক্ষে। হাতের ঘড়িটা বদলে গেলো কি করে? পরনে পাজামা এল কোত্থেকে? রাস্তার দু'পাশে দোকানগুলোর সাইনবোর্ডে দুর্বোধ্য, অচেনা ভাষা কেন? স্বপ্ন দেখছে? বাথরুমে ঢুকল রানা। থমকে দাঁড়াল আয়নার সামনে। কে ও? চিনতে পারছে না নিজিকে! আশ্চর্য! স্মরণশক্তি সম্পূর্ণ হারিয়ে ফেলেছে ও। শুধু মনে আছে, ওর নাম মাসুদ রানা। মনে আছে, ও একজন দেশপ্রেমিক ইসরায়েলী!
  71. আমিই রানা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  72. সেই উ সেন (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "দ্য ডে অফ দ্য জ্যাকেল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ফ্রেডরিখ ফরসাইথ) কাহিনী সংক্ষেপ: কোন উ সেন? সেই যে বার্মায় রানার কাছে হেরে গিয়ে ক্রোধান্মত্ত এক দোর্দন্ডপ্রতাপ দস্যু শপথ নিয়েছিল - 'মাসুদ রানা। তুমি মস্ত ক্ষতি করলে আমার। বাঁচতে পারবে না তুমি আমার হাত থেকে। প্রস্তুত থেকো, আজ হোক, কাল হোক, দশ বছর পর হোক - প্রতিশোধ নেব আমি।' [রক্তের রঙ -২] - মনে আছে? এতদিন পর সেই প্রতিশোধ নিতে যাচ্ছে দুর্ধর্ষ গুপ্ত-সংগঠন ইউনিয়ন কর্সের সর্বাধিনায়ক কাপু - সেই উ সেন। মাসুদ রানার বিরুদ্ধে এটা তার ব্যক্তিগত আক্রোশ। পর পর ছয়বার আক্রান্ত হয়ে শেষে মরিয়া হয়ে ঘুরে দাঁড়াল রানা।
  73. সেই উ সেন (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  74. হ্যালো সোহানা (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "দ্য ডীপ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক পিটার বেঞ্চলি) কাহিনী সংক্ষেপ: সোহানাকে কথা দিয়েছিল রানা, পেনাং দ্বীপের 'পেস্তা পুলাউ' উৎসবে দেখা হবে দু'জনের। দিনে ডুব দেবে ওরা বাটু ফারেঙ্গী সৈকতের সমুদ্র গভীরে-ড্রাগনস্পটে, রাতে ডুব দেবে একে অপরের মনের গহীন গভীরে; তুলে আনবে মণি-মুক্তো যে যা পায়। ড্রাগনস্পটে ডুব দিয়ে সোহানা তুলে আনল ছুরি, কাঁটা, চামচ - ঘর সংসারের সামগ্রী। আর রানা? রানা তুলে আনল ছোট্ট একটা অ্যাম্পুল। কিসের অ্যাম্পুল ওটা? ভয় দেখাতে চাইছে কেন ওদের দুর্ধর্ষ বুকিত নাসেরী?
  75. হ্যালো সোহানা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  76. হাইজ্যাক (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "হাই সিটাডেল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেসমন্ড ব্যাগলি) কাহিনী সংক্ষেপ: ভাঙা এক ব্রিজের ওপারে সশস্ত্র সন্ত্রাসী দল, ব্রিজ মেরামত করে চলে আসার চেষ্টা করছে এপারে। এসেই খুন করবে সবাইকে, নির্বিচারে। যতভাবে সম্ভব শত্রুদেরকে ছয়টা দিন দেরি করিয়ে দেবার নির্দেশ দিয়ে সাহায্য আনতে চলল রানা আর লোপেজ। ভয়ঙ্কর হিমবাহ্ পেরিয়ে তুষার মোড়া আন্দেজ পর্বতমালার দুর্গম চূড়া ডিঙিয়ে, পৌছতে চাইছে ওরা আলটিমিরোসে – ওখানে যদি এয়ার ফোর্সের ফোরটিনথ স্কোয়াড্রন থাকে, তাহলে রক্ষা পাবে সবার জীবন। কিন্তু এইট্থ স্কোয়াড্রন থাকলেই সর্বনাশ! কি দেখবে ওরা অসাধ্য সাধন করে গিরিপথ পেরিয়ে? জানা কথা – ভুল লোকের হাতে গিয়ে পড়বে মাসুদ রানা......তাই হয়ে থাকে সাধারণত। জানা কথা–আগেই ব্রিজ পেরিয়ে এপারে এসে পড়বে শত্রুদল......সেটাই স্বাভাবিক, তাই না? কিন্তু তারপর? কি হবে তারপর?
  77. হাইজ্যাক (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  78. আই লাভ ইউ, ম্যান (প্রথম খণ্ড) (ট্রেজার হান্টিং এডভেঞ্চার থ্রিলার "দি আই অফ দ্য টাইগার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক উইলবার স্মিথ) কাহিনী সংক্ষেপ: বুড়োর শাস্তির কথা হচ্ছিল। 'আমার কথাই ধরো না', বলল রানা। 'চাকরিতে ঢোকার প্রথম দিকের কথা। সাংঘাতিক একটা ভুল করে ফেলেছিলাম। ব্যস, আর যায় কোথায়... একেবারে দ্বীপান্তর!' 'হোয়াট!' চোখ দুটো বড় বড় হয়ে উঠলো সোহানার। 'বলো কি! দ্বীপান্তর? কি অপরাধে?' 'সময় নেই, সোহানা। আরেক দিন বলব। আমি... ' রানা জানে না কার পাল্লায় পড়েছে সে। সেইদিনই রাত দশটায় ঘরে ফিরে দেখল সোহানা হাজির। শুরু হলো গল্প। সেই কাঁচা বয়সের কথা, জলকুমারীর কথা, অপূর্ব সুন্দর সেই দ্বীপের কথা, পঁচিশ একর ছায়া সুনিবিড় শান্তি আর নয়নাভিরাম সমুদ্র সৈকতের কথা, স্বর্ণহৃদয় রডরিক আর ল্যাম্পনির কথা। সেই সঙ্গে যোগ দিল লোভ, পাপ আর মৃত্যু - দুঃস্বপ্নের মত ভয়ঙ্কর!
  79. আই লাভ ইউ, ম্যান (দ্বিতীয খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  80. আই লাভ ইউ, ম্যান (তৃতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  81. সাগরকন্যা (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "সীউইচ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন) কাহিনী সংক্ষেপ: দুর্ধর্ষ এক বেদুইন সর্দারের ঘরে জন্ম নাফাজ মোহাম্মদের।নিজ গুনে আজ তিনি আমেরিকার সেরা তেল ব্যবসায়ী। একজন আরবের এই দোর্দণ্ড প্রতাপ কেন সহ্য হবে মার্কিন ধন-কুবেরদের? তাঁকে কাবু করতে হলে আঘাত হানতে হবে তাঁর সবচেয়ে দুর্বল জায়গায়। ধ্বংস করে দিতে হবে তাঁর আদরের সাগরকন্যাকে।ভাড়া করতে হবে তাঁর ভয়ঙ্করতম শত্রু জন হেকটরকে। কাজটা অন্যায় - কিন্তু পিছ-পা হলো না ওরা। কিন্তু ওরা কি জানত, এক ধিলে দুই পাখি মারতে চলেছে হেকটর? ওরা কি জানত, এই সাথে বাংলাদেশের এক বেয়াড়া যুবক মাসুদ রানাকেও এক হাত দেখে নিতে চাইছে সে? কী হতে চলেছে পরিণতিটা?
  82. সাগরকন্যা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  83. পালাবে কোথায় (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "রানিং ব্লাইন্ড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেসমন্ড ব্যাগলি) কাহিনী সংক্ষেপ:
  84. পালাবে কোথায় (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  85. টার্গেট নাইন (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "দি ডার্ক অফ দি সান" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক উইলবার স্মিথ) কাহিনী সংক্ষেপ: কাতাঙ্গা আর্মির স্পেশাল স্ট্রাইকার ফোর্স চলল পোর্ট রিপ্রিভে। নেতৃত্ব দিচ্ছে ক্যাপ্টেন লুইস পেগান - ওরফে মাসুদ রানা। জেনারেল ফ্রস্টের উন্মাদ বাহিনীর গুলি, মানুষখেকো বালুবাদের বিষাক্ত তীর তুচ্ছ করে চলেছে ওরা। নিজ দলে রয়েছে এক হিংস্র ম্যানিয়াক- পদে পদে বাধাবিঘ্ন। পাগল হওয়ার দশা রানার। একটা বাধা ডিঙালেই এসে হাজির হয় তারচেয়ে বড় আরেক বাধা। একটা বিপদ কাটলেই উঁকি দেয় আরেক বিপদ। এলিজাবেথ ভিলে বুঝি পৌঁছানো হলো না আর।
  86. টার্গেট নাইন (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  87. বিষ নিশ্বাস (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "হোয়াই পিক অন মি?" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  88. বিষ নিশ্বাস (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  89. প্রেতাত্মা (প্রথম খণ্ড) (ডার্ক পিট সিরিজের "ভিক্সেন থ্রি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  90. প্রেতাত্মা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  91. বন্দী গগল (থ্রিলার "ফিগার ইট আউট ফর ইয়োরসেলফ" ও "দি মারিজুয়ানা মব" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ: দশ লক্ষ ডলার দাবি করা হলো মুক্তিপণ। জায়গা মত পৌঁছে দেয়া হল সব টাকা। কিন্তু ফেরত এল না জাঁ দুবে। ভিনসেন্ট গগলের কামরায় আবিষ্কার করল পুলিশ একটা পিস্তল, একটা ডীপ-সী ফিশিং রড এবং বাদামী কাগজে মোড়া এক লক্ষ ডলারের প্যাকেট। বন্দী হল গগল।
  92. জিম্মি (থ্রিলার "হোস্টেজ টাওয়ার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন ডেনিস) কাহিনী সংক্ষেপ: বড়সড় একটা কাজে হাত দিয়েছে এবার কবির চৌধুরী। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে আগের সেই দশ বিলিয়ন ডলার তো বটেই, আরও দশ বিলিয়ন আদায় করে নেবে সে জরিমানা। বেচারা জানে না, একদা দুর্ধর্ষ গুন্ডা আলবার্তো ভেরিনো এখন মেজর রাহাত খানের লোক। আর রাহাত খান মানেই...
  93. তুষার যাত্রা (প্রথম খণ্ড) (আর্কটিক এডভেঞ্চার থ্রিলার "এ্যাভালাঞ্চ এক্সপ্রেস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক কলিন ফর্বস) কাহিনী সংক্ষেপ:
  94. তুষার যাত্রা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  95. স্বর্ণ সঙ্কট (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "দি স্যাভেজ ডে" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জ্যাক হিগিনস) কাহিনী সংক্ষেপ:ইসরায়েলের অভ্যন্তরে প্রচন্ড নাশকতামূলক তৎপরতা চালাচ্ছে মনাদিল দাউদের অ্যাকশান পার্টি। মনে হচ্ছে এরা সাচ্চা মুক্তিযোদ্ধাই বটে।কিন্তু রানা লক্ষ করছে এদের অ্যাকশানের ফলে ইসরায়েলিদের কারও কোন ক্ষতি হচ্ছে না, মারা পড়ছে নিরীহ আরব শিশু, নারী, বৃদ্ধ। এই মনাদিল দাউদই কেড়ে নিতে যায় ফ্রিডম পার্টির জন্যে আনা অস্ত্র। চায় বশির জামায়োলের লুট করা বাংলাদেশের সম্পত্তি এক টন সোনার সন্ধান, তার ভাইঝির প্রেম !
  96. স্বর্ণ সঙ্কট (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  97. সন্ন্যাসিনী (থ্রিলার "দা খুফরা রান" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জ্যাক হিগিনস) কাহিনী সংক্ষেপ: বিরোধ মোনা এলিসনের বাবার এক মিলিয়ন পাউন্ড নিয়ে। ১৯৬৫ সালে আলজেরিয়া থেকে পালাবার সময়ে কুফরা মার্শে ডুবে গিয়েছিল সেটা। সিস্টার মোনা কি চায়? ঢাকার অদূরে ওদের আশ্রম আর হাসপাতাল জ্বালিয়ে দিয়েছিল পাক আর্মি। সে চায় এই টাকা দিয়ে আবার চালু করবে প্রতিষ্ঠানটা, সেবা করবে বাংলাদেশী জনগণের। কর্ণেল আবু তালেব কি চায়? টাকাগুলো চায় স্রেফ ছিনিয়ে নিতে। এ টাকায় নাকি হক আছে তার। কি করবে রানা? বুঝতেই পারছেন!
  98. পাশের কামরা (থ্রিলার "আ কফিন ফ্রম হংকং" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ: ডিউকের ছদ্মবেশে রানা যতই মাস্তানী করে বেড়াক না কেন, আসলে এ পরিচয়ে অত্যন্ত দুর্বল ও একা সে। এবং এই দুর্বলতার সুযোগই নিল অপরিচিত এক লোক। একটা টেলিফোন করে ফাঁসিয়ে দিল ওকে অদ্ভুত এক খুনের মামলায়। এইবার বোঝো ঠেলা।
  99. নিরাপদ কারাগার (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "ব্লাডি প্যাসেজ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জ্যাক হিগিনস) কাহিনী সংক্ষেপ: আশ্চর্য এক লোক এই সাল্ভাদর মারানজানা। এমন মানুষ জীবনে দেখেনি রানা। মাফিয়া-চীফ হিসেবে যেমন নিষ্ঠুরতার তুলনা নেই, তেমনি মৃতা স্ত্রীর আগের ঘরের ছেলের প্রতি তাঁর মমতা ও দুর্বলতারও বুঝি তুলনা হয় না। রানাকে ধরে এনেছে সিসিলিতে, যেমন করে হোক ইস্রায়েলী কারাগার থেকে উদ্ধার করে নিয়ে আসতে হবে তাঁর ছেলেকে। নইলে? নইলে পাহাড়ের ওপর থেকে ধাক্কা দিয়ে কয়েকশো ফুট নিচে ফেলে দেয়া হবে রানার একান্ত প্রিয় জন্মান্ধ এক মেয়েকে। বাধ্য হয়ে রাজী হল রানা। কিন্তু মনে মনে ও কি প্রতিজ্ঞা নিল, তা জানল না কেউ।​
  100. নিরাপদ কারাগার (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  101. স্বর্গরাজ্য (প্রথম খণ্ড) (ডার্ক পিট সিরিজের "আইসবার্গ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  102. স্বর্গরাজ্য (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  103. উদ্ধার (প্রথম খণ্ড) (আর্কটিক এডভেঞ্চার থ্রিলার "এ কেজ অফ আইস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডানকান কাইল)
  104. উদ্ধার (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  105. হামলা (প্রথম খণ্ড) (ডার্ক পিট সিরিজের "দ্য মেডিটারেনিয়ান কেপার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার)
  106. হামলা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  107. প্রতিশোধ (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "ম্যালোরি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ: ডিউককে যদি কেউ বলে অমুক লোকটাকে খুন করতে হবে - পারবে? প্রথমে সে জানতে চাইবে বিনিময়ে কত টাকা দেয়া হবে তাকে। দরে বনলে অর্ধেক টাকা অগ্রিম চাইবে সে। এবং টাকা নিয়ে কাজটা করবে না। কারও কিচ্ছুটি করবার উপায় নেই - এই নিয়ে তো আর থানা-পুলিশ চলে না। বেশ চলছিল এরকম। কিন্তু ভুলটা করল তখনই যখন আশি হাজার টাকা নিল সে কেয়া চৌধুরীর কাছ থেকে - যে জানে, টাকা নিয়ে কাজ করবার অভ্যাস নেই ওর।
  108. প্রতিশোধ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  109. মেজর রাহাত (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "দি হাইটস অফ যার্ভোস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক কলিন ফর্বস) কাহিনী সংক্ষেপ: মাউণ্ট জার্ভোসের ডগার একটি গ্রিক মনাস্টেরি দখলের চেষ্টা করছে জার্মানরা, যাতে সেখানে কামান বসিয়ে বিশাল একটি এলাকায় নিজেদের আধিপত্য বিস্তার করতে পারে। ছদ্মপরিচয়ে এদের দলে ভিড়ে গেল রাহাত খান।
  110. মেজর রাহাত (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  111. লেনিনগ্রাদ (প্রথম খণ্ড) (আর্কটিক স্পাই থ্রিলার "আইস স্টেশন জেব্রা" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন) কাহিনী সংক্ষেপ: সবার সাথে কিলারও উঠেছে ডুবোজাহাজ লেনিনগ্রাদে। অলক্ষে থেকে একের পর এক হামলা চালাচ্ছে যখন যার উপর খুশি। মনে হচ্ছে উদ্দেশ্যহীন ম্যানিয়াক একজন- খুনের নেশায় নিজেকে ধ্বংস করে দিতে দ্বিধা নেই যার। প্রথম দিকে বোকা বনে গেল রানা। কিন্তু তারপরই জটিল এক জাল পাতল অতি সাবধানে। আরও একটা খুন করার কিংবা আরও মারাত্মক কোন বিপদে ফেলার আগেই খুনিকে ধরতে হবে- প্রমাণ সহ। কিন্তু রানা কি ভাবতে পেরেছিল শেষ মুহূর্তে পিস্তল বের করে বসবে খুনী?
  112. লেনিনগ্রাদ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  113. অ্যামবুশ (প্রথম খণ্ড) (আর্কটিক স্পাই থ্রিলার "নাইট উইদাউট এন্ড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন) কাহিনী সংক্ষেপ: বিশাল এক ব্রিটিশ প্লেন ক্র্যাশ করল গ্রীনল্যাণ্ডের পুব উপকূলের কাছে বরফে ঢাকা এক জনবসতিহীন বিরান অঞ্চলে। সবচেয়ে কাছের জনপদ তিনশো মাইল দূরে। প্লেনের ভেতর দশ-বারোজন নারী-পুরুষ এখনও বেঁচে, কিন্তু শীঘ্রই না পেলে মারা পড়বে সবাই। এই বিপদের সময়ে ওদের পাশে গিয়ে দাঁড়াল মাসুদ রানা। তখন জানত না, প্লেন ক্র্যাশে মারা যায়নি পাইলট মরেছে কলজে বরাবর পিস্তলের গুলি খেয়ে। ঘাড় ভেঙে মারা যায়নি পেছনের সীটে বসা লোকটি বুকে গুলি করে তারপর ভাঙা হয়েছে ঘাড়। কারা করল এ কাজ? কেন? কী চায় তারা?
  114. অ্যামবুশ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  115. আরেক বারমুডা (প্রথম খণ্ড) (ডার্ক পিট সিরিজের "প্যাসিফিক ভোরটেক্স" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ: রানা জেনে ফেলল, চোখা কানওয়ালা তিন-পেয়ে ভিনগ্রহের সবুজ রঙের মানুষ নয়, জাহাজ ডুবি এই গ্রহেরই দু-পেয়ে এক মানুষের কারসাজি। কিন্তু ততক্ষণে শুরু হয়ে গেছে আক্রমণ। বিন্দুমাত্র সময় দিচ্ছে না রানাকে। হোটেলের দশতলায় নিজের ঘরেও নিরাপদ নয় সে। সেখানেও এসে হাজির হলো ওরা দলবেঁধে। ধরে নিয়ে গেল কোরিনকে। নিজের প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে শেষ চেষ্টা করে দেখবে বলে মনস্থির করল রানা- আদেশ অমান্য করে ঝাঁপ দিল আগু…থুড়ি…পানিতে।
  116. আরেক বারমুডা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  117. বেনামী বন্দর (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "ট্রিপল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক কেন ফলেট) কাহিনী সংক্ষেপ: আণবিক অস্ত্র তৈরি করছে ইসরায়েল। ঠেকাবার সাধ্য নেই কারও। মিশরীয় সিক্রেট সার্ভিসের চীফ আলী কারামের মাথা খারাপ হওয়ার দশা।নিউক্লিয়ার বোম হাতে পেলে অসহ্য হয়ে উঠবে ইসরায়েলের অত্যাচার। মধ্যপ্রাচ্যের মুসলিম দেশগুলোর এখন সর্বনাশ ঠেকাবার একমাত্র উপায় হচ্ছে বোমা তৈরি করা।তবে যদি রক্ষা করা যায় শক্তির ভারসাম্য। কিন্তু কে দেবে প্রয়োজনীয় ইউরেনিয়াম?খোলা বাজারে তো বিক্রি হয়না এ জিনিস। অবৈধভাবে সংগ্রহ করতে হবে একশো টন ইউরেনিয়াম-এমনভাবে, যেন কাকপক্ষীতেও টের না পায়। ফাঁস হয়ে গেলেই বানচাল হয়ে যাবে সব। এই অসাধ্য সাধনের ভার পড়ল মাসুদ রানার ওপর ।
  118. বেনামী বন্দর (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  119. নকল রানা (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "এয়ার ফোর্স ওয়ান ইজ ডাউন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন)
  120. নকল রানা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  121. রিপোর্টার (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "টেররস ক্রেডল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডানকান কাইল) কাহিনী সংক্ষেপ: রিপোর্টারের গতি সর্বত্র। একজন এজেন্ট বা অপারেটর যেখানে যেতে পারে না, একজন রিপোর্টার সেখানে ঢুকে পড়ে অনায়াসে। কাজেই কাভারটা ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিলেন বাংলাদেশ কাউন্টার ইন্টেলিজেন্সের সুযোগ্য কর্ণধার মেজর জেনারেল (অব) রাহাত খান। খুব একচোট প্রাণ খুলে হেসেছিল মাসুদ রানা বেচারি সোহানা, সলীল এবং জাহেদকে জার্নালিজমের ট্রেনিং নিতে দেখে। ওদের দুরবস্থায় লাভ করেছিল অনাবিল আনন্দ। কিন্তু…দ্বিতীয় ব্যাচে নোটিশ বোর্ডে উঠল রানার নাম। তারপর?
  122. রিপোর্টার (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  123. মরু যাত্রা (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "দিস ইজ ফর রিয়েল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ: জরুরী কাজে প্যারিসের বাইরে যেতে হচ্ছে রানা এজেন্সির শাখা প্রধান আশরাফ চৌধুরীকে। কিন্তু কোন কথা শুনবে না সীন ওয়াট, একটা কাজ তাকে করে দিতেই হবে। গুরুত্বপূর্ণ কী যেন তথ্য বিক্রি করতে চায় মাদাম স্যানডোরা। ব্যাপার কী খোঁজ নিয়ে জানতে হবে তাকে। ছুটি কাটাচ্ছে রানা প্যারিসে। বুদ্ধি চাইল আশরাফ। রানা পরামর্শ দিলঃ নিয়ে নাও হে, নিয়ে নাও। টাকার বড় দরকার। কাজটা হাতে নিল আশরাফ, তারপর হাসতে হাসতে ফাঁসিয়ে দিল রানাকে। রানার ঘাড়ে কাজটা চাপিয়ে দিয়েই সকল হাসি-কান্নার উর্ধ্বে চলে গেল আশরাফ চৌধুরী। শুরু হল গল্প।
  124. মরু যাত্রা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  125. বন্ধু (থ্রিলার "দ্য নাইনথ ডাইরেক্টিভ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এডাম হল) কাহিনী সংক্ষেপ: ব্যাঙ্ককে ডেকে পাঠানো হলো মাসুদ রানাকে। সোহেলের কাছে রিপোর্ট করল সে। সোহেল ওকে তৈরি করতে বলল ওরই এক অন্যতম ঘনিষ্ঠ বন্ধুকে হত্যা করার অব্যর্থ পরিকল্পনা। ব্যাপারটা কি! - ভাবছে রানা। সর্বক্ষণ ওকে অনুসরণ করছে কেন তিনজন বাঙালী? মেয়েটারই বা মতলব কি? কি চায়?
  126. সংকেত (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "দ্য কী টু রেবেকা" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক কেন ফলেট) কাহিনী সংক্ষেপ: দুর্গমগিরি কান্তার মরু পার হয়ে মিশরে প্রবেশ করল ইসরায়েলি এজেন্ট- আলেক বোগান। নানান ভাবে টের পাচ্ছে রানা, অনুভব করছে ওর উপস্থিতি, নিঃশব্দ নড়াচড়া- কিন্তু কিছুতেই পাচ্ছে না ওকে হাতের মুঠোয়। আশ্চর্য এক ধূর্ত, আত্মবিশ্বাসী, ঠাণ্ডা মাথার লোক মিশরীয় প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার খবর সংগ্রহ করে পাচার করছে ইসরায়েলে। আর ধীর, কিন্তু নিশ্চিত পদক্ষেপে ওর দিকে এগিয়ে আসছে মেজর মাসুদ রানা।
  127. সংকেত (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  128. সংকেত (তৃতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  129. স্পর্ধা (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "দি গোল্ডেন গেট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন) কাহিনী সংক্ষেপ: কবীর চৌধুরীর হাতে আটকা পড়েছেন খোদ মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সাথে রয়েছেন মধ্যপ্রাচ্যের দুই তেল সম্রাট- একজন বাদশা, আরেকজন প্রিন্স। ঘটনার আকস্মিকতায় বোকা হয়ে গেছে সবাই। কেউ যখন কোনও পথ দেখতে পাচ্ছে না, তখন এক এক করে বুদ্ধি দিতে শুরু করল প্রেসিডেন্টের সহযাত্রী ভারতীয় এক বাঙালী ছোকরা। সাংবাদিক। অদ্ভুত সব ঘটনা ঘটতে শুরু করল গোল্ডেন গেট ব্রিজে। পাগল হওয়ার দশা হলো পাগল বৈজ্ঞানিকের। কেন জানি ছোকরাটার সাথে মাঝে মাঝেই মিল পাচ্ছে কবীর চৌধুরী মাসুদ রানার।
  130. স্পর্ধা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  131. চ্যালেঞ্জ (ডার্ক সিরিজের তৃতীয় বই "ডার্ক স্ট্রিট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক পিটার চেইনি) কাহিনী সংক্ষেপ: রিসিভার তুলল রানা, 'হ্যালো?' 'রানা?' সেই ভারী, গুরুগম্ভীর কন্ঠস্বর। ছোট্ট করে উত্তর দিল, 'জ্বী!' 'আমি একটা ব্লান্ডার করে ফেলেছি, রানা। সর্বনাশ হয়ে গেছে। আমিই দায়ী...' 'স্যার!' মুখ দিয়ে আর কোন কথা সরল না রানার। 'বিসিআই থেকে রিজাইন করছি আমি। দুঃখ কি জানো, ব্যর্থতার গ্লানি নিয়ে...' 'আমি আসছি, স্যার।' আমেরিকা থেকে রানা ছুটে এলো ঢাকায়।
  132. শত্রুপক্ষ। কাহিনী সংক্ষেপ: দুরূহ, প্রায় অসম্ভব এক কাজের দায়িত্ব চাপল মাসুদ রানার কাঁধে- লন্ডনের এক ব্যাংক থেকে লুঠ করে আনতে হবে একশো টন সৌদি সোনা। সমস্যা একটা নয়ঃ সেফটি ভল্টে নাহয় ঢোকা গেল, এত সোনা সরাবে কী করে সে ওখান থেকে? সরাতে পারলেও ইংল্যান্ড থেকে বের করবে কী করে?
  133. চারিদিকে শত্রু (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "ফায়ারফক্স" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্রেইগ থমাস) কাহিনী সংক্ষেপঃ অতি গোপনে কঠোর প্রহরায় বিশ্বের ভয়ঙ্করতম যুদ্ধবিমান তৈরি করছে সোভিয়েত ইউনিয়ন-মিগ-৩১। জানে না, সি, আই.এ-র সহযোগিতায় এ-বিমান হাইজ্যাকের প্ল্যান করেছে ইসরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা।
  134. চারিদিকে শত্রু (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  135. অগ্নিপুরুষ (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "ম্যান অন ফায়ার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এ জে কুইনেল)("মাসুদ রানা" পড়ুয়াদের অধিকাংশেরও বেশি পাঠক এই বইটিকে রানার সেরা এবং অদ্বিতীয় উপন্যাস বলে আখ্যায়িত করেছেন) কাহিনী সংক্ষেপঃ পালিয়ে বেড়াচ্ছে মাসুদ রানা। সি,আই,এ এবং জিওনিস্ট ইন্টেলিজেন্সের মৃত্যু পরোয়ানা ঝুলছে মাথার ওপর। কদিন বিশ্রাম নেবে মনে করে আশ্রয় নিল সে বন্ধু রেমারিকের ওখানে, ইটালীতে। তারই সুপারিশে দেহরক্ষীর চাকরি নিল ইটালীর এক ধনী পরিবারে। সেখানে ছোট্ট একটি মেয়ে মিষ্টি একটা গান উপহার দিল রানাকে। দিয়েই চিরবিদায় নিল এ পৃথিবী থেকে। খুন করেছে ওকে কিডন্যাপাররা। কিছুর সাথে নিজেকে জড়াবে না - প্রতিজ্ঞা করেছিল রানা; কিন্তু কখন যে ওকে জয় করে নিয়েছিল কিশোরী মেয়েটা, টেরই পায়নি। এখন আর ঘুমাতে পারে না ও। দাউ দাউ করে জ্বলছে বুকে প্রতিশোধের আগুন।
  136. অগ্নিপুরুষ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  137. অন্ধকারে চিতা (প্রথম খণ্ড) (আফ্রিকান এডভেঞ্চার থ্রিলার "দি লেপার্ড হান্টস ইন ডার্কনেস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক উইলবার স্মিথ) কাহিনী সংক্ষেপ: ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের একটা কাজ নিয়ে আফ্রিকার জিম্বাবুয়ে পৌঁছলো রানা। ইচ্ছে, রেবেকার র‍্যাঞ্চে কদিন বিশ্রাম নেবে। কিন্তু ম্যাশোনা ও ম্যাটাবেল- চিরশত্রু দুই উপজাতির সশস্ত্র কোন্দলে জড়িয়ে পড়ল সে। বন্ধু পরিণত হলো শত্রুতে- অচেনা একজন বাড়িয়ে দিল বন্ধুত্বের হাত। সব ধোঁয়াটে। কেন কী ঘটছে কিছুই বোঝা যায় না। যখন স্পষ্ট জানা গেল, তখন আর সময় নেই-মৃত্যু এসে দাঁড়িয়েছে দোরগোড়ায়।
  138. অন্ধকারে চিতা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  139. মরণ কামড় (প্রথম খণ্ড) (জেমস বন্ড সিরিজের "লিভ এন্ড লেট ডাই" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক আয়ান ফ্লেমিং) কাহিনী সংক্ষেপ: সোনার মোহরে ছেঁয়ে গেছে বাজার। কোত্থেকে আসছে কেউ বলতে পারে না। কেসটা হাতে নিয়েই একের পর এক দুর্ঘটনার শিকার হতে লাগল রানা এজেন্সির লোকজন। ঠিক সময়টিতে ধুমকেতুর মত উদয় হলো মাসুদ রানা। মৌমাছির কেক ঢিল পড়ল। ওকে নিয়ে নির্দয় কৌতুক শুরু করে দিল মিস্টার ওয়াইজ। বিষাক্ত সাপ নিয়ে কিছু একটা চলছে সেন্ট পিটার্সবার্গে। কী সেটা?
  140. মরণ কামড় (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  141. মরণখেলা (প্রথম খণ্ড) (আর্কটিক এডভেঞ্চার থ্রিলার "টার্গেট ফাইভ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক কলিন ফর্বস) কাহিনী সংক্ষেপ: প্রচণ্ড ঝড়বৃষ্টি উপেক্ষা করে তীব্র বেগে ছুটে চলেছে ফ্লোরিডা এক্সপ্রেস। চলন্ত ট্রেনের দোলায় নিশ্চিন্তে ঘুমাচ্ছিল রানা স্লিপিং কারে, মৃদু মৃদু হাসছিল সুখ-স্বপ্নের ঘোরে। হঠাৎ অজায়গায় থেমে দাঁড়ালো ট্রেন; কয়েকজন ষণ্ডামার্কা লোক উঠে এলো। সি আই এ! অস্ত্রের মুখে নামানো হলো রানাকে ছোট্ট এক স্টেশনে, গ্রেফতার করা হলো বিনা অপরাধে। তারপর আবার কাজ চাপাতে চায়! খেপে যাবে রানা- সেটাই স্বাভাবিক নয়? কিন্তু ওরাও জোর খাটাবে, ভয় দেখিয়ে, টরচার করে কাবু করতে চাইবে ওকে- সেটাও স্বাভাবিক। নির্যাতনের এক পর্যায়ে রাজি হয়ে গেল রানা। পাঠক, কী মনে হয়? ও কি সাহায্য করবে সিআইএ- কে?
  142. মরণখেলা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  143. অপহরণ (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "সানফ্লাওয়ার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক মেরিলিন শার্প) কাহিনী সংক্ষেপ: প্রস্তাবটা পিলে চমকানো। মার্কিন প্রেসিডেন্টের একমাত্র মেয়েকে কিডন্যাপ করতে হবে। জানা কথা, এ-ধরনের প্রস্তাবে রাজি হবে না মাসুদ রানা। কিন্তু রাজি হলো। শুধু কিডন্যাপ করলেই হবে না, মেয়েটাকে নিয়ে সুরক্ষিত মার্কিন সীমান্ত পেরিয়ে চলে যেতে হবে দূর কোন এক দেশে। জানা কথা, এ-ধরনের ফাঁদে পা দেবে না রানা। কিন্তু দিল।
  144. অপহরণ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  145. আবার সেই দুঃস্বপ্ন (প্রথম খণ্ড) (ক্রাইম থ্রিলার "ডার্ক সাইড অফ দি স্ট্রিট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জ্যাক হিগিনস) কাহিনী সংক্ষেপ:
  146. আবার সেই দুঃস্বপ্ন (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  147. বিপর্যয় (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "ডাবল জিওপার্ডি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক কলিন ফর্বস) কাহিনী সংক্ষেপ:
  148. বিপর্যয় (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  149. শান্তিদূত (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "টেলেফন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ওয়াল্টার ওয়েজার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  150. শান্তিদূত (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  151. শ্বেত সন্ত্রাস (প্রথম খণ্ড) (একশন থ্রিলার "ওয়াইল্ড জাস্টিস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক উইলবার স্মিথ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  152. শ্বেত সন্ত্রাস (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  153. ছদ্মবেশী। কাহিনী সংক্ষেপ:
  154. কালপ্রিট (প্রথম খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:
  155. কালপ্রিট (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  156. মৃত্যু আলিঙ্গন (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "দি সুভারভ এডভেঞ্চার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডানকান কাইল) কাহিনী সংক্ষেপ:
  157. মৃত্যু আলিঙ্গন (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  158. সময়্সীমা মধ্যরাত (থ্রিলার "মিডনাইট প্লাস ওয়ান" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক গেভিন ল'য়াল) কাহিনী সংক্ষেপ:
  159. আবার উ সেন (প্রথম খণ্ড) (জেমস বন্ড সিরিজের "ফর স্পেশাল সার্ভিসেস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন গার্ডনার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  160. আবার উ সেন (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  161. বুমেরাং। কাহিনী সংক্ষেপ:
  162. কে কেন কীভাবে। কাহিনী সংক্ষেপ:
  163. মুক্ত বিহঙ্গ (প্রথম খণ্ড) (আফ্রিকান এডভেঞ্চার থ্রিলার "ক্রাই উলফ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক উইলবার স্মিথ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  164. মুক্ত বিহঙ্গ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  165. কুচক্র। কাহিনী সংক্ষেপ:
  166. চাই সাম্রাজ্য (প্রথম খণ্ড) (ডার্ক পিট সিরিজের "ট্রেজার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  167. চাই সাম্রাজ্য (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  168. অনুপ্রবেশ (প্রথম খণ্ড) (জেমস বন্ড সিরিজের "নোবডি লিভস ফরেভার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন গার্ডনার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  169. অনুপ্রবেশ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  170. যাত্রা অশুভ (প্রথম খণ্ড) (আর্কটিক এডভেঞ্চার থ্রিলার "দি হোয়াইট সাউথ একেএ দি সার্ভাইভারস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক হ্যামন্ড ইনস) কাহিনী সংক্ষেপ:
  171. যাত্রা অশুভ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  172. জুয়াড়ী (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "জাস্ট দ্য ওয়ে ইট ইজ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  173. জুয়াড়ী (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  174. কালো টাকা (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "দি সুইস কন্সপাইরেসি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক মাইকেল স্ট্যানলি) কাহিনী সংক্ষেপ:
  175. কালো টাকা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  176. কোকেন সম্রাট (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "হোয়াইট গামা" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেভিড চাকো) কাহিনী সংক্ষেপ:
  177. কোকেন সম্রাট (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  178. বিষকন্যা (প্রথম খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:
  179. বিষকন্যা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  180. সত্য বাবা (প্রথম খণ্ড) (জেমস বন্ড সিরিজের "স্করপিয়াস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন গার্ডনার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  181. সত্য বাবা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  182. যাত্রীরা হুঁশিয়ার। কাহিনী সংক্ষেপ:
  183. অপারেশন চিতা। কাহিনী সংক্ষেপ:
  184. আক্রমণ '৮৯ (প্রথম খণ্ড) (জেমস বন্ড সিরিজের "উইন, লুজ অর ডাই" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন গার্ডনার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  185. আক্রমণ '৮৯ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  186. অশান্ত সাগর (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "নাইট অফ এরর" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেসমন্ড ব্যাগলি) কাহিনী সংক্ষেপ:
  187. অশান্ত সাগর (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  188. শ্বাপদ সংকুল (প্রথম খণ্ড) (আফ্রিকান এডভেঞ্চার থ্রিলার "এ টাইম টু ডাই" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক উইলবার স্মিথ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  189. শ্বাপদ সংকুল (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  190. শ্বাপদ সংকুল (তৃতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  191. দংশন (প্রথম খণ্ড) (আফ্রিকান এডভেঞ্চার থ্রিলার "হোয়েন দ্য লায়ন ফিডস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক উইলবার স্মিথ) কাহিনী সংক্ষেপ: সোনা মেয়েদের অলংকার বা এমনকী অহঙ্কারও হতে পারে। কিন্তু পুরুষদের জন্য হয়ে উঠতে পারে ভয়ঙ্কর এক নেশা। অন্তত মাসুদ রানাকে এবার সেই নেশাতেই পেয়ে বসেছে। বিশ্বাস হয়, আফ্রিকার পাহাড় ঘেরা ছোট্ট এক গ্রামে মাইনারদের সাথে বক্সিং লড়ছে রানা, প্রতিদ্বন্দ্বী ধাওয়া করায় দৌড়ে পালাচ্ছে? চার্লি উডকক এমন একটি চরিত্র, নিজেকে একজন রাজা বা সম্রাট বানাবার কাজে ব্যস্ত সে। আসুন তার কথা ভুলে চোখ ফেরাই সুফিয়ার দিকে। সুন্দরী মেয়েটা ভালবাসে.. কিন্তু তার ভালবাসার পরিণতি কী? মাসুদ রানা সিরিজের দংশন রোমাঞ্চকর অ্যাডভেঞ্চার, নাটকীয় উত্থান-পতন, বিস্ময়কর প্রতিশােধ ও অতুলনীয় বন্ধুত্বের এক জলজ্যান্ত কাহিনী।
  192. দংশন (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  193. প্রলয় সংকেত (প্রথম খণ্ড) (সাই-ফাই থ্রিলার "দি ডুমসডে কন্সপাইরেসি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক সিডনি শেলডন) কাহিনী সংক্ষেপ:
  194. প্রলয় সংকেত (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  195. ব্ল্যাক ম্যাজিক (প্রথম খণ্ড) (এডভেঞ্চার থ্রিলার "দ্য স্পিয়ার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হার্বার্ট) কাহিনী সংক্ষেপ:
  196. ব্ল্যাক ম্যাজিক (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  197. তিক্ত অবকাশ (প্রথম খণ্ড) (ডিটেকটিভ থ্রিলার "ইউ ফাইন্ড হিম, আ'ল্ল ফিক্স হিম" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  198. তিক্ত অবকাশ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  199. ডাবল এজেন্ট (প্রথম খণ্ড) (জেমস বন্ড সিরিজের "নো ডিলস মিস্টার বন্ড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন গার্ডনার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  200. ডাবল এজেন্ট (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  201. আমি সোহানা (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "এ টেস্ট ফর ডেথ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক পিটার ও'ডোনেল) কাহিনী সংক্ষেপ:
  202. আমি সোহানা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  203. অগ্নিশপথ (প্রথম খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:
  204. অগ্নিশপথ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  205. জাপানী ফ্যানাটিক (প্রথম খণ্ড) (ডার্ক পিট সিরিজের "ড্রাগন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  206. জাপানী ফ্যানাটিক (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  207. জাপানী ফ্যানাটিক (তৃতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  208. সাক্ষাৎ শয়তান (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "আই, লুসিফার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক পিটার ও'ডোনেল) কাহিনী সংক্ষেপ:
  209. সাক্ষাৎ শয়তান (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  210. গুপ্তঘাতক (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "টাইম অফ দি এসাসিনস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন) কাহিনী সংক্ষেপ:
  211. গুপ্তঘাতক (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  212. নরপিশাচ (প্রথম খণ্ড) (আফ্রিকান এডভেঞ্চার থ্রিলার "এলিফ্যান্ট সং" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক উইলবার স্মিথ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  213. নরপিশাচ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  214. নরপিশাচ (তৃতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  215. শত্রু বিভীষণ (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "দি নেগোশিয়েটর" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ফ্রেডরিখ ফরসাইথ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  216. শত্রু বিভীষণ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  217. অন্ধ শিকারী (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "দি ফোর্থ প্রটোকল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ফ্রেডরিখ ফরসাইথ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  218. অন্ধ শিকারী (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  219. দুই নম্বর (প্রথম খণ্ড) (জেমস বন্ড সিরিজের "আইসব্রেকার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন গার্ডনার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  220. দুই নম্বর (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  221. কৃষ্ণপক্ষ (প্রথম খণ্ড) (জেমস বন্ড সিরিজের "ব্রোকেনক্ল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন গার্ডনার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  222. কৃষ্ণপক্ষ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  223. কালো ছায়া (প্রথম খণ্ড) (এডভেঞ্চার থ্রিলার "ব্লাডস্পুর" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস ম্যাকভিন) কাহিনী সংক্ষেপ:
  224. কালো ছায়া (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  225. নকল বিজ্ঞানী (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "বিলিভড ভায়োলেন্ট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  226. নকল বিজ্ঞানী (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  227. বড় ক্ষুধা (প্রথম খণ্ড) (ক্রিয়েচার হান্টিং থ্রিলার "দ্য বিস্ট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক পিটার বেঞ্চলি) কাহিনী সংক্ষেপ:
  228. বড় ক্ষুধা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  229. স্বর্ণদ্বীপ (প্রথম খণ্ড) (এডভেঞ্চার থ্রিলার "বেয়ার আইল্যান্ড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এলিস্টেয়ার ম্যাকলিন) কাহিনী সংক্ষেপ:
  230. স্বর্ণদ্বীপ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  231. রক্তপিপাসা (প্রথম খণ্ড) (ডার্ক পিট সিরিজের "ইনকা গোল্ড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  232. রক্তপিপাসা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  233. রক্তপিপাসা (তৃতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  234. অপচ্ছায়া (প্রথম খণ্ড) (জেমস বন্ড সিরিজের ডেথ ইজ ফরেভার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন গার্ডনার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  235. অপচ্ছায়া (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  236. ব্যর্থ মিশন (প্রথম খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:
  237. ব্যর্থ মিশন (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  238. নীল দংশন (প্রথম খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:
  239. নীল দংশন (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  240. সাউদিয়া ১০৩ (প্রথম খণ্ড) (মার্কাস ক্রিসি সিরিজের থ্রিলার "দি পারফেক্ট কিল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এ জে কুইনেল) কাহিনী সংক্ষেপ:
  241. সাউদিয়া ১০৩ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  242. কালপুরুষ (প্রথম খণ্ড) (ডিটেকটিভ থ্রিলার "দ্য স্যান্ডলার ইনকোয়ারি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক নোয়েল হাইন্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:
  243. কালপুরুষ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  244. কালপুরুষ (তৃতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  245. নীল বজ্র (প্রথম খণ্ড) (জেমস বন্ড সিরিজের "গোল্ডেনআই" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন গার্ডনার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  246. নীল বজ্র (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  247. মৃত্যুর প্রতিনিধি (প্রথম খণ্ড) (ক্রাইম থ্রিলার "কেপার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক লরেন্স স্যান্ডার্স) কাহিনী সংক্ষেপ:
  248. মৃত্যুর প্রতিনিধি (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  249. কালকূট (প্রথম খণ্ড) (ডার্ক পিট সিরিজের "সাহারা" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  250. কালকূট (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  251. কালকূট (তৃতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  252. অমানিশা (প্রথম খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:
  253. অমানিশা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  254. সবাই চলে গেছে (প্রথম খণ্ড) (একশন থ্রিলার "দি ওয়াইল্ড গীজ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ড্যানিয়েল কার্নি) কাহিনী সংক্ষেপ:
  255. সবাই চলে গেছে (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  256. অনন্ত যাত্রা (প্রথম খণ্ড) (থ্রিলার "ক্যাম্পবেল'স কিংডম" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক হ্যামন্ড ইনস) কাহিনী সংক্ষেপ:
  257. অনন্ত যাত্রা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  258. রক্তচোষা (থ্রিলার "দি আই অফ ডার্কনেস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডিন কুন্টজ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  259. কালো ফাইল (প্রথম খণ্ড) (পলিটিকাল থ্রিলার "আইকন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ফ্রেডরিখ ফরসাইথ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  260. কালো ফাইল (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  261. কালো ফাইল (তৃতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  262. মাফিয়া। কাহিনী সংক্ষেপ:
  263. হীরকসম্রাট (প্রথম খণ্ড) (ডার্ক পিট সিরিজের "শক ওয়েভ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  264. হীরকসম্রাট (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  265. সাত রাজার ধন (এডভেঞ্চার থ্রিলার "ম্যাডন'স রক" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক হ্যামন্ড ইনস) কাহিনী সংক্ষেপ:
  266. শেষ চাল (প্রথম খণ্ড) (ট্রেজার হান্টিং এডভেঞ্চার থ্রিলার "দি সেভেন্থ স্ক্রোল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক উইলবার স্মিথ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  267. শেষ চাল (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  268. শেষ চাল (তৃতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ঐ
  269. বিগ ব্যাং (একশন থ্রিলার "দি ডে বিফোর মিডনাইট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্টিফেন হান্টার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  270. অপারেশন বসনিয়া (থ্রিলার "ইনটু হেলস ফায়ার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডগলাস ক্যাভানাহ্) কাহিনী সংক্ষেপ:
  271. টার্গেট বাংলাদেশ (জেমস বন্ড সিরিজের "টুমরো নেভার ডাইজ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক রেমন্ড বেনসন) কাহিনী সংক্ষেপ:
  272. মহাপ্রলয়। কাহিনী সংক্ষেপ:
  273. যুদ্ধবাজ। কাহিনী সংক্ষেপ:
  274. প্রিন্সেস হিয়া (প্রথম খণ্ড) (ডার্ক পিট সিরিজের "ফ্লাড টাইড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ:
  275. প্রিন্সেস হিয়া (দ্বিতীয় খণ্ড)
  276. মৃত্যুফাঁদ (থ্রিলার "দেয়ার'স আ হিপ্পি অন দ্য হাইওয়ে" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ:
  277. শয়তানের ঘাঁটি। কাহিনী সংক্ষেপ:
  278. ধ্বংসের নকশা (জেমস বন্ড সিরিজের "লাইসেন্স রিনিউড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন গার্ডনার)
  279. মায়ান ট্রেজার (এডভেঞ্চার থ্রিলার "দি ভিভেরো লেটার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেসমন্ড ব্যাগলি)
  280. ঝড়ের পূর্বাভাস (থ্রিলার "ওয়্যাটস হারিকেন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেসমন্ড ব্যাগলি)
  281. আক্রান্ত দূতাবাস (একশন থ্রিলার "সিজ অফ সাইলেন্স" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এ জে কুইনেল)
  282. জন্মভূমি
  283. দুর্গম গিরি
  284. মরণযাত্রা (থ্রিলার "দি ক্যাসান্দ্রা ক্রসিং" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক রবার্ট ক্যাটজ)
  285. মাদকচক্র
  286. শকুনের ছায়া (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "অন উইংস অফ ঈগলস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক কেন ফলেট)
  287. শকুনের ছায়া (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  288. তুরুপের তাস
  289. কালসাপ (নিক কার্টার সিরিজের "দি কোবরা কিল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ম্যানিং লি স্টোকস)
  290. গুডবাই, রানা (জেমস বন্ড সিরিজের "লাইসেন্স টু কিল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন গার্ডনার)
  291. সীমা লঙ্ঘন
  292. রুদ্রঝড় (থ্রিলার "দি ট্রোজান হর্স" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক হ্যামন্ড ইনস)
  293. কান্তার মরু (নিক কার্টার সিরিজের "দি যেড ডকুমেন্ট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক হোমার এইচ মরিস)
  294. কর্কটের বিষ (মার্কাস ক্রিসি সিরিজের থ্রিলার "ব্ল্যাক হর্ন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এ জে কুইনেল)
  295. বোস্টন জ্বলছে (একশন থ্রিলার "বোস্টন ব্লিটয" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডন পেন্ডলিটন)
  296. শয়তানের দোসর
  297. নরকের ঠিকানা
  298. অগ্নিবাণ
  299. কুহেলি রাত (নিক কার্টার সিরিজের "ক্যাম্বোডিয়া" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জর্জ স্নাইডার)
  300. বিষাক্ত থাবা
  301. জন্মশত্রু
  302. মৃত্যুর হাতছানি
  303. সেই পাগল বৈজ্ঞানিক
  304. সার্বিয়া চক্রান্ত
  305. দুরভিসন্ধি (নিক কার্টার সিরিজের "ইনকা ডেথ স্কোয়াড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক মার্টিন ক্রুজ স্মিথ)
  306. কিলার কোবরা (নিক কার্টার সিরিজের "কোডনেম ওয়্যারওলফ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক মার্টিন ক্রুজ স্মিথ)
  307. মৃত্যুপথের যাত্রী (জেমস বন্ড সিরিজের "কোল্ড একেএ কোল্ড ফল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জন গার্ডনার)
  308. পালাও, রানা!
  309. দেশপ্রেম
  310. রক্তলালসা
  311. বাঘের খাঁচা
  312. সিক্রেট এজেন্ট
  313. ভাইরাস এক্স-৯৯
  314. মুক্তিপণ
  315. চীনে সংকট
  316. গোপন শত্রু
  317. মোসাদ চক্রান্ত
  318. চরসদ্বীপ
  319. বিপদসীমা
  320. মৃত্যুবীজ
  321. জাতগোক্ষুর
  322. আবার ষড়যন্ত্র (মৌলিক রচনা "ইরেজার" মুভি থেকে থিম নিয়ে লেখা)
  323. অন্ধ আক্রোশ
  324. অশুভ প্রহর (জেমস বন্ড সিরিজের "দি স্পাই হু লাভড মি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ইয়ান ফ্লেমিং)
  325. কনকতরী
  326. স্বর্ণখনি (প্রথম খণ্ড) (ডার্ক পিট সিরিজের "ভ্যালহ্যালা রাইজিং" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার)
  327. স্বর্ণখনি (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  328. অপারেশন ইজরাইল
  329. শয়তানের উপাসক (ইন্ডিয়ানা জোনস মুভি "ইন্ডিয়ানা জোনস এন্ড দি টেম্পল অফ ডুম" এর ছায়া অবলম্বনে)
  330. হারানো মিগ
  331. ব্লাইন্ড মিশন (একশন থ্রিলার "ক্লিয়ার দি ফাস্ট লেন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডগলাস রাদারফোর্ড)
  332. টপ সিক্রেট (প্রথম খণ্ড) (জেমস বন্ড সিরিজের "কর্নেল সান" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক কিংসলে এমিস)
  333. টপ সিক্রেট (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  334. মহাবিপদ সংকেত (জেমস বন্ড সিরিজের "মুনরেকার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্রিস্টোফার উড)
  335. সবুজ সংকেত
  336. অপারেশন কাঞ্চনজঙ্ঘা (জেমস বন্ড সিরিজের "হাই টাইম টু কিল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক রেমন্ড বেনসন)
  337. গহীন অরণ্য (আফ্রিকান এডভেঞ্চার থ্রিলার "কঙ্গো" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক মিশেল ক্রিচটন)
  338. প্রজেক্ট X-15
  339. অন্ধকারের বন্ধু (নিক কার্টার সিরিজের "দি সোলার মিনেস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক রবার্ট ই ভার্ডম্যান)
  340. আবার সোহানা
  341. আরেক গডফাদার
  342. অন্ধপ্রেম (জেমস বন্ড সিরিজের "দি ওয়ার্ল্ড ইজ নট এনাফ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক রেমন্ড বেনসন)
  343. মিশন তেলআবিব
  344. ক্রাইম বস
  345. সুমেরুর ডাক (প্রথম খণ্ড) (আর্কটিক স্পাই এডভেঞ্চার থ্রিলার "হোয়াইটআউট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডানকান কাইল)
  346. সুমেরুর ডাক (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  347. ইশকাপনের টেক্কা
  348. কালো নকশা (নিক কার্টার সিরিজের "দ্য লিস্ট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জিম বাউজার)
  349. কালনাগিনী
  350. বেঈমান
  351. দুর্গে অন্তরীণ
  352. মরুকন্যা (ইন্ডিয়ানা জোনস মুভি নভেলাইজেশন "ইন্ডিয়ানা জোনস এন্ড দি রেইডারস অফ দি লস্ট আর্ক" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্যাম্পবেল ব্ল্যাক)
  353. রেড ড্রাগন (একশন থ্রিলার "লাইক এ হোল ইন দ্য হেড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ)
  354. বিষচক্র (নিক কার্টার সিরিজের "ইস্তানবুল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ম্যানিং লি স্টোকস)
  355. শয়্তানের দ্বীপ (জেমস বন্ড সিরিজের "ডক্টর নো" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক আয়ান ফ্লেমিং)
  356. মাফিয়া ডন
  357. হারানো আটলান্টিস (প্রথম খণ্ড) (ডার্ক পিট সিরিজের "আটলান্টিস ফাউন্ড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার)
  358. হারানো আটলান্টিস (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  359. মৃত্যুবাণ (জেমস বন্ড সিরিজের "থান্ডারবল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক আয়ান ফ্লেমিং)
  360. কমান্ডো মিশন
  361. শেষ হাসি (প্রথম খণ্ড) (একশন এডভেঞ্চার থ্রিলার "টেম্পল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ম্যাথিউ রাইলি)
  362. শেষ হাসি (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  363. স্মাগলার (জেমস বন্ড সিরিজের "গোল্ডফিংগার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক আয়ান ফ্লেমিং)
  364. বন্দি রানা
  365. নাটের গুরু
  366. আসছে সাইক্লোন
  367. সহযোদ্ধা ("রেম্বো থ্রি" মুভির নোভেলাইজেশন এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেভিড মোরেল)
  368. গুপ্ত সংকেত (প্রথম খণ্ড) (মিস্ট্রি থ্রিলার "দি দা ভিঞ্চি কোড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ড্যান ব্রাউন)
  369. গুপ্ত সংকেত (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  370. ক্রিমিনাল (থ্রিলার "ফিগার ইট আউট ফর ইয়য়োরসেল্ফ" ও "দি মারিজুয়ানা মব" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ)
  371. বেদুইন কন্যা
  372. অরক্ষিত জলসীমা (নিক কার্টার সিরিজের "সাইগন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক মিখায়েল এভালন ও ভ্যালেরি মুলম্যান)
  373. দুরন্ত ঈগল (প্রথম খণ্ড) (স্পাই থ্রিলার "এসাইনমেন্ট-হোয়াইট রাজাহ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এডওয়ার্ড এস এ্যারনস)
  374. দুরন্ত ঈগল (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  375. সর্পলতা কাহিনী সংক্ষেপ: হঠাৎ সাগরে আশ্চর্য এক ধরনের লতা দেখা দিল। দ্রুত বাড়ছে। নীরব সাধনায় মগ্ন, সহজ-সরল, বিরল প্রতিভার অধিকারী এক জাপানি বিজ্ঞানী নিশিকাওয়া ফাকুদার গল্প এটা। অদৃষ্টের কী নির্মম পরিহাস, কেউ এক পয়সা দাম দেয় না ওঁকে। সব হারানোর বেদনা যখন খেপিয়ে তুলল বিজ্ঞানীকে, গোটা পৃথিবী পড়ে গেল মহা সংকটে। এখানে মাসুদ রানা সত্যি অসহায়। দুনিয়াকে বাঁচাবে কী, আগে নিজে বাঁচুক তো!
  376. অমানুষ (ক্রিয়েচার হান্টিং থ্রিলার "হোয়াইট শার্ক" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক পিটার বেঞ্চলি) কাহিনী সংক্ষেপ: ছোট্ট একটা দ্বীপ-অসপ্রে আইল্যান্ড, লিজ নিয়েছ রানা। মাঝে মাঝে ছুটি কাটাতে যায় ওখানে। সাগরের বিচিত্র দৃশ্য দেখতে ভাল লাগে ওর। মস্ত এক সাদা হাঙ্গরের ওপর নজর রাখছিল, ঠিক তখনই শুরু হল উৎপাত। কি যেন আছে সাগরের নিচে। রহস্যময়ভাবে হারিয়ে যাচ্ছে মানুষ-ভেসে উঠছে পচা লাশের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ। অকারনে পাখি ও অন্যান্য প্রানীকে ছিন্নভিন্ন করে রেখে যাচ্ছে কেউ। বিকৃত এক খুনের আনন্দে মেতেছে যেন ভয়ঙ্কর কোন রাক্ষস। এ কিসের আলামত? সমুদ্রের গভীরে কি ওটা? খুঁজছে ওকে রানা। মারাত্মক জিনিসটার দেখা যখন মিলল, চমকে গেল ও! কিভাবে ধ্বংস করবে ওটাকে?
  377. অখণ্ড অবসর (থ্রিলার "দ্য ডেননেকার কোড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জে সি পললক) কাহিনী সংক্ষেপ: রকি পবর্তমালার কোলে ছোট্ট শহর অ্যাসপেন। ওখানে গত চারমাস ধরে একাকী বাস করছে মায়াবী চোখের এক যুবক, জানে না ও কে। কারা যেন ইঞ্জেকশন দিয়ে স্মৃতি নষ্ট করে দিয়েছে ওর। তরুণী সাংবাদিক লিমা সোরেনসনের সঙ্গে পাহাড়ে ক্যাম্পিং করতে গিয়ে একটা লাশ পেল ও। মৃত মানুষটার ক্যামেরা কেস-এ লুকানো কোডটাই যেন কাল হলো ওদের। নিষ্ঠুর ভাবে পিটিয়ে আহত করা হলো ওকে, খুন হলো ওর বন্ধু পাগলাটে চার্লস রবিনসন, মারাত্মক জখম করা হলো ওর প্রিয় কুকুর হান্টারকে। সহ্যের সীমা অতিক্রম করতেই রুখে দাঁড়াল দুঃসাহসী বাঙালি যুবক।
  378. স্নাইপার (প্রথম খণ্ড) (বব লি সোয়েগার সিরিজের "পয়েন্ট অফ ইমপ্যাক্ট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্টিফেন হান্টার) কাহিনী সংক্ষেপ: এত বড় বিপদে খুব কমই পড়েছে মাসুদ রানা। এত বড় অভিযােগের আঙুলও খুব কমই উঠেছে ওর বিরুদ্ধে। আমেরিকার প্রেসিডেন্টকে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছে ও। কী, চমকে গেলেন? আগে পুরােটা পড়নই না! ভয়ঙ্কর জটিল। এক ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছে ও। ওসামা বিন লাদেনকে পিছনে ফেলে দুনিয়ার সমস্ত মােস্ট ওয়ান্টেড লিস্টের এক নম্বরে উঠে এসেছে মাসুদ রানার নাম, ওর। মাথার দাম ঘােষণা করা হয়েছে দুই কোটি ডলার! পালিয়ে বেড়াচ্ছে রানা, একা, আহত অবস্থায়। সাহায্য করার কেউ নেই। একটাই পথ । সামনে—নিজের সেই নিষ্ঠুর রূপটা আরেকবার সবাইকে দেখিয়ে দেয়া। পাঠক, দমবন্ধ করে বসুন। শুরু হচ্ছে যুদ্ধ!
  379. স্নাইপার (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  380. ক্যাসিনো আন্দামান (জেমস বন্ড সিরিজের "ক্যাসিনো রয়্যাল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক আয়ান ফ্লেমিং) কাহিনী সংক্ষেপ: আন্দামান সাগরে ফুঁসে ওঠা প্রলয়ঙ্করী সুনামি বঙ্গোপসাগর হয়ে ধেয়ে আসছে বাংলাদেশের দোরগোড়ায়। পরমাসুন্দরী এক রমণীকে অনুসরণ করে জায়গামতই পৌছাল মাসুদ রানা, মাত্র দশ হাজার কোটি টাকা দিয়ে চোদ্দো কোটি বাঙালীর নিয়তি বেঁধে দিতে চাইছে জঙ্গিরা, কাজেই এখন তো বেপরোয়া না হয়ে উপায় নেই রানার!
  381. জলরাক্ষস (ক্রিয়েচার হান্টিং থ্রিলার "কিলার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক পিটার টনকিন) কাহিনী সংক্ষেপ: পাঁচজন পুরুষ আর সুন্দরী এক তরুণী। আর্কটিক মহাসাগরের এক টুকরো বরফের উপর আটকা পড়ে গেছে। দলে রয়েছেন বাংলাদেশী একজন বিজ্ঞানী আবিষ্কারের ফর্মুলা নিয়ে মাসুদ রানাকে ফিরতে হবে দেশে কিন্তু হঠাৎ বিক্ষুব্ধ সাগর থেকে উঠে এল প্রকৃতির সবচেয়ে বিপজ্জনক প্রাণী, গোগ্রাসে গিলে ফেলছে সবকিছু। শুরু হলো অস্তিত্ব রক্ষার রোমহর্ষক লড়াই
  382. মৃত্যুশীতল স্পর্শ (প্রথম খণ্ড) (ফিলিপ মার্সার সিরিজের আর্কটিক এডভেঞ্চার থ্রিলার "প্যানডোরা'স কার্স" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জ্যাল দু ব্রুল) কাহিনী সংক্ষেপ:শুরুতেই হকচকিয়ে যাবেন আপনি- ইতিহাস-কুখ্যাত রাসপুটিন আর ১৯৫৩ সালে ক্র্যাশ হওয়া একটা বিমানের মধ্যে সম্পর্কটা কী? একটু এগিয়ে আরও পড়বেন ধাঁধায়- দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় লুঠ হওয়া আটাশ টন সোনা, পঙ্কিল অতীত ঢাকতে মরিয়া হয়ে ওঠা এক বহুজাতিক কর্পোরেশন আর নতুন পোপের ধর্মীয় মহাসম্মেলনের মাঝে মাসুদ রানার স্থান কোথায়? বন্ধু ববি মুরল্যান্ডকে নিয়ে ও তো চলেছে গ্রীনল্যান্ডে! জেনে রাখুন, আসলে সমস্ত রহস্যের জড় লুকিয়ে আছে ওখানেই, মাটির নীচের এক অন্ধকার গুহায়। আছে এমন এক জিনিস, যা ছড়ায় মৃত্যুর নির্যাস। বরফের মঞ্চে অভিনীত হতে যাচ্ছে এক শ্বাসরুদ্ধকর নাটক। কে বাঁচে, কে মরে, কোনও ঠিক নেই। বসে থেকে লাভ কী? চলুন, দেখে আসি কী ঘটছে ওখানে।
  383. মৃত্যুশীতল স্পর্শ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  384. স্বপ্নের ভালোবাসা (থ্রিলার "ফ্লেশ অফ দ্য অর্কিড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ: দুর্যোগের রাত। পাহাড়ি রাস্তা। এরইমধ্যে চলেছে ট্রাক ড্রাইভার গ্যারি চেস্টার মাল ডেলিভারি দিতে। বৃষ্টির মধ্যে রাস্তার পাশে দাঁড়ানো একটি মেয়েকে দেখে গাড়ি থামিয়ে জানতে চাইল সাহায্য চাই কিনা। কোনও কথা না বলে উঠে এল মেয়েটি পাশের সিটে। তারপর ভয়ঙ্কর এক দুর্ঘটনায় পড়ল ট্রাক। গ্যারি চেস্টারের জানা হলো না কে এই অদ্ভুত মেয়েটি। তবে মাফিয়া ডন মারকাস জানে। তাই দুজন স্নাইপারকে পাঠাচ্ছে সে।
  385. হ্যাকার (প্রথম খণ্ড) (মৌলিক রচনা) (কাজী আনোয়ার হোসেনের মৌলিক সৃষ্টির মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ, এবং মাসুদ রানা সিরিজের অন্যতম জনপ্রিয় বই) কাহিনী সংক্ষেপ: একটা খবর একই সঙ্গে কীভাবে ভাল আর মন্দ হয়, বলতে পারেন? ঠিক আছে, উদাহরণ দেয়া যাক। নাসার ডিপ স্পেস প্রোব ভয়েজার-টু'তে রিসিভ করা হয়েছে অত্যাশ্চর্য এক সিগনাল-ভিনগ্রহে বুদ্ধিমান প্রাণী থাকার অকাট্য প্রমাণ। সুসংবাদ, তাই না?কিন্তু খারাপ খবরটা হচ্ছে, ওটার ভিতর লুকিয়ে আছে এক ভয়ঙ্কর কোড, যা আগামী চারদিন পর সারা পৃথিবীর কম্পিউটার ব্যবস্থাকে সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দেবে। আর এর পিছনে যারা জড়িত, তারা কোনও ভিনগ্রহবাসী নয়, এই গ্রহেরই দু-পেয়ে জানোয়ার। এই মহাবিপর্যয়ের হাত থেকে সভ্যতাকে বাঁচাতে হ্যাকিং, সাইবার-ক্রাইম আর সাইবার-টেররিজমের সম্পূর্ণ অজানা-অচেনা অন্ধকার জগতে চুঁ মারতে চলেছে মাসুদ রানা। কিন্তু কাজটা সহজ নয় মোটেই। উদয় হয়েছে ওর পুরনো শত্রু ডগলাস বুলক ওরফে বুলডগ যে-কোনও মূল্যে রানাকে ঠেকাতে মরিয়া সে। রয়েছে অচেনা শত্রুর লেলিয়ে দেয়া ভয়ঙ্কর খুনীরাও। আগামী ৯০ ঘণ্টা নরক দর্শন করে ফিরবে রানা।
  386. হ্যাকার (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  387. খুনে মাফিয়া (থ্রিলার "আই'ল বিউরি মাই ডেড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস হ্যাডলি চেজ) কাহিনী সংক্ষেপ: মার্কিন যুক্ত্ররাষ্ট্র, ফ্লোরিডা। রানা এজেন্সির ক্যাটসকিল ও সানসিটি শাখা পরিদর্শনে এসেই চমকে গেল মাসুদ রানা। ওখানে ওর প্রিয়, বিশ্বস্ত এজেন্টরা একের পর এক আত্নহননের পথ বেছে নিচ্ছে কেন? একসময়, যতই অবিশ্বাস্য শোনাক, একজন সিরিয়াল খুনির সঙ্গে মাসুদ রানাকে মুখোমুখি বসানোর আয়োজন করা হলো। তারপর দুনিয়া থেকে ওকে চিরতরে সরিয়ে দেওয়ার জন্য আদাজল খেয়ে রাস্তায় নেমে এল স্বয়ং পুলিশ।
  388. নিঁখোজ (আমাজন এডভেঞ্চার থ্রিলার "দি বেন্ড ইন দ্য রিভার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেভিড জর্জ ডিউটশ) কাহিনী সংক্ষেপ: নিখোঁজ এক বাংলাদেশি আর্কিয়োলজিস্টকে উদ্ধারের জন্য সুদূর আমাজনের রেইন ফরেস্টে যেতে হচ্ছে মাসুদ রানাকে। নিষ্ঠুর এক জলদস্যু এবং তার চেয়েও ভয়ঙ্কর একদল রহস্যময় লোক ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে ওখানে। অপেক্ষা করছে ওর-ই জন্যে, ফাঁদ পেতে! মন্টে অ্যালেগ্রায় পা দিতেই শুরু হয়ে গেল একের পর এক আক্রমণ। গোদের ওপর বিষফোঁড়ার মত দলে রয়েছে একাধিক বিশ্বাসঘাতক। ইনকাদের হারানো শহর লস ডেল রিয়ো কি শেষ পর্যন্ত খুঁজে পাবে রানা ও তার সঙ্গীরা?
  389. বুশ পাইলট (থ্রিলার "ইস্ট অফ ডিসোলেশন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জ্যাক হিগিনস) কাহিনী সংক্ষেপ: গ্রীনল্যান্ডের ফ্রেডেরিকসবার্গে গত তিনটে বছর ধরে বুশ পাইলটের কাজ করছে রানা। বছরে দু’মাস। হঠাৎ সেখানে এসে হাজির হলো দুজন বীমা কোম্পানির লোক। সঙ্গে অপূর্ব সুন্দরী এক মহিলা, মিসেস মায়া নিভেন। আইস-ক্যাপের বরফে ঢাকা দুর্গম এক লেকে পৌঁছে দেয়ার অনুরোধ করল ওরা রানাকে। একটা প্লেনের ধ্বংসাবশেষের কাছে কবরে শুয়ে আছে মায়ার স্বামী। নিজের চোখে লাশ দেখে শনাক্ত করার জন্য মহিলা মরিয়া। কিন্তু জানেনা, যে-মৃত পাইলটের স্ত্রীর পরিচয়ে এখানে এসেছে সে, সে-ব্যক্তি স্বয়ং মাসুদ রানা। ইচ্ছের বিরুদ্ধে বাজে একটা জটিল ব্যাপারে জড়িয়ে পড়ল রানা নিয়তির অমোঘ টানে।
  390. অচেনা বন্দর (প্রথম খণ্ড) (একশন থ্রিলার "দি ডগস অফ ওয়ার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ফ্রেডরিখ ফরসাইথ) কাহিনী সংক্ষেপ:মাসুদ রানার বাহুতে রিমোট-কন্ট্রোলড্‌ বোমা প্ল্যাণ্ট করে নির্দেশ দেয়া হয়েছে : আমাদের কাজটা করে দাও, বাছা ; নইলে ছিন্নভিন্ন হয়ে যাবে। কারও সাধ্য নেই যে তোমাকে রক্ষা করে। হুমকিটা মিথ্যে নয়-প্রমাণ পেয়েছে ও। আতাসী, মার্সিয়া, ফায়জা ও মিশ্রী খানকে নিয়ে কাজে নেমে গেছে মাসুদ রানা। সঙ্গে অতিথি শিল্পীর মত অংশ নিল সোহেল ও গিলটি মিয়া।কিন্তু একদিকে বোমা, ও প্রতিপক্ষের তাগিদ ; অন্যদিকে ধরা পড়ার ভয়- সব মিলিয়ে চরম উদ্বিগ্ন ও। এতকিছু সামলে আস্ত একটা দেশ হজম করতে হবে ওকে। করতেই হবে। নইলে নিশ্চিত মৃত্যু !
  391. অচেনা বন্দর (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  392. ব্ল্যাকমেইলার (থ্রিলার "দি সিলভার মিস্ট্রেস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক পিটার ও'ডনেল) কাহিনী সংক্ষেপ: রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়েছে বাংলাদেশ কাউন্টার ইন্টেলিজেদের দুর্ধর্ষ এজেন্ট সলীল সেন। ফ্রেঞ্চ পুলিশ ওকে মৃত ধরে নিলেও রানা ও সোহানা বিশ্বাস করল না সে কথা। সলীলকে খুঁজতে বেরোল দুজনে। ফ্রান্সের এক প্রাচীন দুর্গ, প্রাগৈতিহাসিক গুহা আর সুড়ঙ্গ-সবকিছু যেন ধাঁধার জাল বুনে রেখেছে ওদের জন্য, পদে পদে রচনা করছে মৃত্যুফাঁদ। তারপর, ভয়াল, গভীর ভূগর্ভ হ্রদের কিনারে বাধল দানবের সঙ্গে রানার শেষ লড়াই...
  393. অন্তর্ধান (প্রথম খণ্ড) (মিস্ট্রি থ্রিলার "দ্য প্রোটেক্টর" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেভিড মোরেল) কাহিনী সংক্ষেপ: রাজি হলো রানা। কাজটা এক হিসেবে কঠিন কিছু নয়-একজন মানুষকে নাম-পরিচয় পাল্টে লুকিয়ে ফেলতে হবে। কিন্তু মক্কেল নিজেই যদি বেঈমানী করে বসে, তখন চোখের নিমেষে পাল্টে যায় পরিস্থিতি। মাসুদ রানার চোখের সামনে ঝরে গেল চার-চারটে তরতাজা প্রাণ-ওর এজেন্সির নিবেদিতপ্রাণ চার অপারেটর। প্রিয় শিষ্যদের শোকে এখন বুকে আগুন জ্বলছে রানার। সোহানাকে সঙ্গে নিয়ে খুঁজে বেড়াচ্ছে ও ধুরন্ধর ওই বিজ্ঞানীকে। কিন্তু সমস্যা হলো, আরও অনেকেই চায় তাকে। কেউ জীবিত, কেউ বা মৃত অবস্থায়। আর এর ভিতরে নাক গলিয়ে স্রেফ মরণ ডেকে আনছে রানা-সোহানা। চলুন পাঠক, দেখি, ওদের কোনোভাবে বাঁচানো যায় কি না।
  394. অন্তর্ধান (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  395. ড্রাগলর্ড (জেমস বন্ড সিরিজের "ডেভিল মে কেয়ার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক সেবাস্তিয়ান ফল্কস) কাহিনী সংক্ষেপ:প্যারিসের কানা গলিতে নৃশংসভাবে খুন হয়ে গেল এক মাদক ব্যবসায়ী। রানাকে পাঠালেন মেজর জেনারেল রাহাত খান ব্রিটিশ সিক্রেট সার্ভিসের অফিসে। বিশেষ অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে ফিরে এল রানা ফ্রান্সে-পরবর্তী গন্তব্য ইরান। ধীরে ধীরে বুঝতে পারল ও, কী ভয়ানক শত্রুর বিরুদ্ধে লেগেছে এবার।
  396. দ্বীপান্তর (শেন স্কোফিল্ড সিরিজের "হেল আইল্যান্ড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ম্যাথিউ রাইলি) কাহিনী সংক্ষেপ: প্রশান্ত মহাসাগরের বুকে ছোট্ট একটি দ্বীপ। কোনও মানচিত্রে খুঁজে পাবেন না ওটাকে।ওখানেই এয়ার-ড্রপ করা হলো তিনটি মার্কিন ও একটি বাংলাদেশি সামরিক বাহিনীর কমাণ্ডো গ্রুপকে। বাঙ্গালি গ্রুপটির নেতৃত্ব দিচ্ছে মাসুদ রানা। সাহায্যের আহবানে বাংলাদেশ সরকারকে জানিয়েছে ওরা: অনেক কিছু নাকি শেখার আছে ওখানে। নীচে নামার সঙ্গে সঙ্গেই শুরু হলো প্রচণ্ড হামলা। নির্মম, দক্ষ, অপরাজেয় একদল শত্রুর বিরুদ্ধে নামতে হলো ওদের মরণপণ যুদ্ধে। হ্যাঁ। শিখল রানা। তবে ওদেরও শিখিয়ে দিয়ে এল কিছু।
  397. গুপ্ত আততায়ী (প্রথম খণ্ড) (বব লি সোয়েগার সিরিজের "ব্ল্যাক লাইট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্টিফেন হান্টার) কাহিনী সংক্ষেপ: খামোকা গুলি খেল মাসুদ রানা। কারণ জানতে চার দশকের পুরনো কবর খুঁড়তে হলো। কবরে কফিন আছে, কিন্তু কঙ্কাল কই? এতদিন ধরে চলে আসা কাহিনি মিথ্যে হয়ে গেল? ঢিল পড়ল ভিম্রুলের চাকে? কেন? কারা আদাজল খেয়ে লেগেছে ওকে ঠেকাতে? টালিব্লু ট্রেইলে অ্যামবুশে পড়ল রানা আর জন। দশজন মার্কামারা খুনী, এক টন বুলেটের নীচে ওদের কবর দেবে, কথা আছে। ঘিরে ফেলেছে জুনিয়রের ঘাতক বাহিনী। পালাবার পথ নেই।
  398. গুপ্ত আততায়ী (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ: ফাঁদটা ভালই ছিল, কিছু না বুঝেই পা দিয়ে বসল মাসুদ রানা। ফেলিক্সকে খুঁজতে গভীর বনে হানা দিল। কে জানত ওখানে ডেপুটি আর স্নাইপার ওদের অপেক্ষায় আছে ফেলিক্সকে রানার বেইট বানিয়ে? স্নাইপারের স্কোপের বৃত্তের মধ্যেই আছে ও? খোঁড়া জনকে নিয়ে গেল ডেপুটি। রানার কিছু করার নেই। কারণ স্নাইপারের স্কোপের ক্রস হেয়ার ওর বুকে তাক্ করে ধরা আছে। এখন কী করবে ও?
  399. বিপদে সোহানা যেসমস্ত ছোট গল্প সংকলন-
    1. বিপদে সোহানা কাহিনী সংক্ষেপ: নড়বড়ে এক স্কটিশ দুর্গে সোহানাকে আটকে রেখে রানাকে হাতের মুঠোয় পেতে চাইছে এক পুরনো শত্রু। বোঝাই যায়, খবরটা শুনে মাথা খারাপ হয়ে গেল রানার। তারপর??
    2. খুনের দায় কাহিনী সংক্ষেপ: নিউ ইয়র্কের রানা এজেন্সিতে হাজির হলেন লইয়ার অ্যাডাম ক্লিপটন। নিখোঁজ এক লোককে খুঁজে বের করতে হবে। দায়িত্ব নিলো গিলটি মিয়া এবং খুঁজেও বের করে দিলো। কিন্তু সেইদিনই খুন হয়ে গেল সেই লোকটি। দায় পড়লো...
    3. রানা সোহানা (পূর্বে ঈদসংখ্যায় প্রকাশিত) কাহিনী সংক্ষেপ: রিচি হাওয়ার্ডের ইয়টের পার্টিতে ডাকাতি হওয়ায় মুক্তোর নেকলেস হারালো সোহানা। একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি???
    4. খুনে পিশাচ (জেমস বন্ড সিরিজের ছোটগল্প "ফর ইয়োর আইজ অনলি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক আয়ান ফ্লেমিং)(পূর্বে ঈদসংখ্যায় প্রকাশিত) কাহিনী সংক্ষেপ: বন্ধু হত্যার প্রতিশোধ নিতে রানাকে ওয়ান-ম্যান মিশনে পাঠালেন রাহাত খান। পথিমধ্যে দেখা হলো এক বনসুন্দরীর সাথে?কে এই মেয়ে???
    5. বিদেশি বৈজ্ঞানিক কাহিনী সংক্ষেপ: পাকিস্তানি বিজ্ঞানী তার একটি আবিষ্কার হস্তান্তর করবেন বাংলাদেশকে ,বিনিময়ে চান রাজনৈতিক আশ্রয়। রাহাত খানের নির্দেশে তাকে উদ্ধার করতে একজন শিক্ষানবিশসহ বের হয়ে পড়লো রানা।
  400. চাই ঐশ্বর্য (প্রথম খণ্ড) (ফিলিপ মার্সার সিরিজের একশন এডভেঞ্চার থ্রিলার "দ্য মেডুসা স্টোন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জ্যাক দু ব্রুল) কাহিনী সংক্ষেপ:বিশ বছর আগে মহাকাশ থেকে খসে পড়েছিল একটি মার্কিন স্পাই স্যাটেলাইট,ধ্বংস হবার পূর্বমুহূর্তে আবিষ্কার করে বসেছিল বিপুল ঐশ্বর্যের এক গোপন ভাণ্ডার। আজ, এত বছর পর সেটাই মহাবিপদ ডেকে এনেছে মাসুদ রানার জন্য। আফ্রিকার ভয়ঙ্করতম এলাকা -ইরিত্রিয়া-সুদান সীমান্তের রণভূমিতে ছুটে যেতে হচ্ছে ওকে সেই অবিশ্বাস্য ঐশ্বর্যের সন্ধানে। এক অর্ধোন্মাদ ইটালিয়ান টাইকুন, খুনে সুদানিজ বিপ্লবীদল আর নির্দয় ইজরায়েলি চরমপন্থীদের ত্রিমুখী সংঘাতের মাঝখানে পড়তে চলেছে ও। পড়তে চলেছে তিন হাজার বছর আগে জমাট বাঁধা এক দুর্ভেদ্য রহস্যের মাঝখানে। চারপাশে শুধু বিপদ আর বিপদ। ধৈর্য, বুদ্ধি আর সাহসের অগ্নিপরীক্ষা!
  401. চাই ঐশ্বর্য (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:কী লুকানো আছে মৃত ঐ উপত্যকার বুকে? কেন ওটা পাওয়ার জন্য উন্মাদ হয়ে উঠেছে সবাই? এ কি শুধুই হীরের নেশা, নাকি আরও কিছু?ধীরে ধীরে সবই জানবে মাসুদ রানা। জানবেন আপনিও, পাঠক! দেখবেন লোভের বশে কতটা নীচে নামতে পারে সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ জীব। হতে পারে কতটা নির্দয়... নৃশংস... ভয়ঙ্কর! অন্তরাত্মা কেঁপে উঠবে আপনার। রানার সংগ্রামে জড়িয়ে যাবেন নিজেরই অজান্তে। ফলাফল? এ-কাহিনির শেষে নিজেকে আবিষ্কার করবেন ক্লিষ্ট, জর্জরিত, এবং ভারাক্রান্ত অবস্থায়! একই সঙ্গে হাসবেন তৃপ্তির হাসি। কথাটা পরস্পরবিরোধী মনে হচ্ছে? বিশ্বাস না হলে নিজেই পরীক্ষা করে দেখুন।
  402. স্বর্ণ বিপর্যয় (প্রথম খণ্ড) (অরিগন ফাইলস সিরিজের "ডার্ক ওয়াচ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার ও জ্যাক দু ব্রুল) কাহিনী সংক্ষেপ: ইসরায়েলের অভ্যন্তরে প্রচণ্ড নাশকতামূলক তৎপরতা চালাচ্ছে। মনাদিল দাউদের অ্যাকশন পার্টি। মনে হচ্ছে এরা সাচ্চা মুক্তিযােদ্ধাই বটে! কিন্তু রানা লক্ষ করছে এদের অ্যাকশনের ফলে ইসরায়েলিদের কারও কোন ক্ষতি হচ্ছে না, মারা পড়ছে নিরীহ আরব শিশু, নারী, বৃদ্ধ । এই মনাদিল দাউদই কেড়ে নিতে যায় ফ্রিডম পার্টির জন্যে আনা অস্ত্র। চায় বশির জামায়ােলের লুট করা বাংলাদেশের সম্পত্তি এক টন সােনার সন্ধান, তার ভাইঝির প্রেম!
  403. স্বর্ণ বিপর্যয় (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  404. কিলমাস্টার কাহিনী সংক্ষেপ: মাসুদ রানা জানলো ওর বন্ধু ফেন্সিং ইন্সট্রাক্টর পিটার উইলকিন্স মারা গেছেন। উড়ে গেলো রানা সেন্ট লুইস-এ। খুনি ধরতে গিয়ে নিজের উপর বিপদ টেনে নিলো। বুঝল না কখন হ্যাকারদের জালে ফেঁসে গেছে এর মধ্যে রূপসী লায়লাকে জড়িয়ে নেয়া কি উচিত হলো? কিলমাস্টার মার্ডক পিয়ার ম্যাসন যখন জানল এই মাসুদ রানা কে, পাগল হয়ে উঠলো সে। রানাকে নিজের হাতে খুন না করা পর্যন্ত শান্তি নেই এই মৃত্যু কারিগরের। ভয়ানক নিষ্ঠুর মিষ্টার বার্নহার্ট রওনা হলো, যেমন করে হোক ধরে আনবে মাসুদ রানাকে। পণ করেছে রানাও, বন্ধু-খুনের প্রতিশোধ নেবেই, যেভাবে হোক আড়ালে বসে থাকা আততায়ীকে ধরবে। কিন্তু ও এখনো জানে না, ওর উপর পুরোপুরি নির্ভর করছে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর জীবন!
  405. মৃত্যুর টিকেট ("স্পিড টু: ক্রুজ কন্ট্রোল" মুভির নভেলাইজেশন এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জর্জ রায়ান) কাহিনী সংক্ষেপ: বিলাসবহুল জাহাজ লাভ অ্যাট সি, চলেছে সমুদ্রভ্রমনে । সোহানাকে নিয়ে ওতে উঠল রানা । দু’দিন না পেরতেই ওদের সাধারন ছুটি অসাধারন হয়ে উঠল । রানা-সোহানা কি জানত, আসলে ওরা কীসের টিকেট কেটেছে ? কম্পিউটার জিনিয়াস স্ট্রাথার হ্যালেক ঠিক করেছে প্রতিশোধ নিবে, যাত্রীসহ গোটা জাহাজ ধংস করে দিবে । তার চোখ পড়ল সুন্দরী সোহানার উপর । বন্দি হলো সোহানা । ওকে উদ্ধার করবে কে ? ওদিকে রানা নিজেই আটকা পড়েছে জাহাজের তলায় । তেলবাহী বিশাল এক ওয়েল ট্যাঙ্কারের দিকে ছুটছে জাহাজ ! দুই জাহাজে সংঘর্ষ ঠেকানোর জন্য পাগলের মত চেষ্টা চালাচ্ছে রানা । কিন্তু………….
  406. কুরুক্ষেত্র (প্রথম খণ্ড) (নুমা ফাইলস সিরিজের "লস্ট সিটি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার ও পল কেম্পারকস) কাহিনী সংক্ষেপ: ফ্রেঞ্চ আল্পস পর্বতমালার জমাট বরফের ভিতর পাওয়া গেল একশো বছরের পুরনো এক লাশ, কাছেই বরফশীতল হ্রদের গভীরে ডুবে আছে একটি পুরনো বিমান। কারা যেন উঠেপড়ে লেগেছে ব্যাপারটা ধামাচাপা দেওয়ার জন্য। ওদিকে মহামারীর মত আটলান্টিকের বুকে ছড়িয়ে পড়েছে এক ভয়ংকর শৈবাল, স্কটিশ দ্বীপপুঞ্জে তান্ডব শুরু করেছে হিংস্র একদল পিশাচ! সবকিছুই একসূত্রে গাঁথা। ঘটনাক্রমে জড়িয়ে গেল মাসুদ রানা। পর্দার অন্তরালে থাকা অসম্ভব ক্ষমতাশালী শত্রুর বিরুদ্ধে নামতে হলো অসম লড়াইয়ে।
  407. কুরুক্ষেত্র (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:পরিস্থিতি বড়ই নাজুক। শ্যাতো বুভারির দুর্ভেদ্য পাতালে আটকা পড়েছে মাসুদ রানা, সেইসঙ্গে আপনিও। ওকে যমের বাড়ি পাঠানোর সমস্ত আয়োজন সম্পন্ন। ওদিকে বন্দি হয়েছে বিজ্ঞানী দম্পতি আসিফ আর তানিয়া রেজাও। স্কটিশ উপকূলের এক নির্জন দ্বীপে পুরো রহস্যের জড় খুঁজে পেয়েছে ওরা। দেখা পেয়েছে মনুষ্য আকৃতির জলজ্যান্ত একদল পিশাচের। নিশ্চিত মৃত্যু অপেক্ষা করছে ওদের জন্য। কিন্তু চিন্তার কিছু নেই, পাঠক, আপনি রানার সঙ্গে আছেন। আপনি জানেন, চুপচাপ মৃত্যুকে বরণ করতে রাজি নয় ও, রাজি নয় প্রিয় বন্ধুদের মরতে দিতেও। তাই এবার তৈরি হোন রুদ্ধশ্বাস লড়াইয়ের জন্য।
  408. ক্লাইম্বার ("ক্লিফহ্যাংগার" মুভির নভেলাইজেশন এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক মিখায়েল ফ্রান্সসিলভস্টার স্ট্যালোন) কাহিনী সংক্ষেপ: মাঝ-আকাশে ঘটে গেল রুদ্ধশ্বাস ডাকাতি। কিন্তু তারপরেই দুবৃত্তদের বিমান আছড়ে পড়ল রকি পর্বতমালার উপর, একশাে মিলিয়ন ডলার ভর্তি তিনটে বাক্স হারিয়ে গেল উঁচু-নিচু পর্বতশৃঙ্গের মাঝে। বেতারে পাঠানাে হলাে সাহায্যের আবেদন। আবেদনে সাড়া দিল দু’জন উদ্ধারকারী। ওরা এলেই আটক করা হলাে তাদের। বাধ্য করা হলাে ডলার-ভর্তি বাক্স খুঁজে বের করতে। কাজ শেষ হওয়ামাত্র খুন করা হবে ওদের। কিন্তু উদ্ধারকারীদের একজনের নাম মাসুদ রানা, সেটা ওদের জানা ছিল না।
  409. আগুন নিয়ে খেলা (প্রথম খণ্ড) (ডার্ক পিট সিরিজের "ট্রেজার অফ খান" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার ও ডার্ক কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ: বৈকাল হদের অপূর্ব প্রাকৃতিক শােভা উপভােগ করতে গেছে মাসুদ রানা। তাই বলে পিস্তলটা রাখবে না সাথে? চিফের বারণ শুনে মস্ত ভুল করেছে ও। ওখানে জটিল এক ঝামেলায় জড়িয়ে গেল ওরা। কারা যেন ডুবিয়ে মারতে চায় রিসার্চ শিপের সবাইকে। প্রলয়ঙ্কর প্রাকৃতিক দুর্যোগে বিশাল ঢেউ থেকে যাদেরকে উদ্ধার করল ওরা, তাদেরই ভিতর রয়েছে কালনাগিনী! ঠিক সময়মত ফণা তুলল সে। কী করবে নিরস্ত্র রানা? চেষ্টা করেও তাে বিজ্ঞানীদের কিডন্যাপ হওয়া ঠেকানাে গেল না। এবার? বৈকাল হ্রদ ছেড়ে চলল ও মঙ্গোলিয়ার উলানবাটোরে বন্ধু ববি মুরল্যাণ্ডকে নিয়ে ঢুকে পড়ল ভয়ঙ্কর এক উন্মাদের আস্তানায়। চেঙ্গিস খানের সমাধির ভিতর পরিচিত বিজ্ঞানীর লাশ নীরবে বলল, বাঁচতে চাইলে পালাও, রানা! এ বিরান মরুভূমিতে কোথায় পালাবে রানা-ববি? হিংস্র-বর্বর প্রহরীদের আদেশ দিয়েছে জালাইর তেমুজিন: লাশ চাই আমি ওই লােকদুটোর!
  410. আগুন নিয়ে খেলা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:পালানাের উপায় কোথায় রানা-ববির? গগাবি মরুভূমি। চারদিকে ধু-ধু প্রান্তর, পাহাড়-টিলা, গিরি-সংকট, বালির উঁচু স্তৃপ বা গভীর খাদ। খেয়ালী প্রকৃতিকে নিয়ে খেলছে কেউ। বড় বাড় বেড়েছে ওই জালাইর তেমুজিনের। আগুন নিয়ে খেলছে ও! স্তব্ধ হয়ে এল মধ্যপ্রাচ্যের ক্রুড অয়েল রপ্তানি! হোঁচট খেল গােটা বিশ্বের অর্থনীতি! পাগল হয়ে উঠলেন তাবৎ রাজনীতিবিদ! মহাচিনকে পায়ের কাছে হাঁটুমুড়ে বসাতে চায় তেমুজিন। তার সামনে কোন্ সাহসে মাথা সােজা রাখছে রানা? সােহেল ও ববিকে নিয়ে আবার ঢুকল ও চেঙ্গিস খানের কমপাউণ্ডে। এমনি সময়ে খেপে উঠল প্রকৃতি। পড়ছে একের পর এক লাশ! শেষে সমাধির ভিতর জালাইর তেমুজিনের মুখােমুখি হলাে রানা
  411. মরুস্বর্গ কাহিনী সংক্ষেপ: কোথায় ওই ক্যাসিনাে? সব দেশের সিক্রেট সার্ভিস খুঁজছে ওটাকে। কেন? গােটা দুনিয়ার লেজে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে এক ভয়ানক দুবৃত্ত। ওই ক্যাসিনাে থেকেই নাকি আসছে সেই ড্রাগ। একবিংশ শতাব্দীর অভিশাপ। পাগল হয়ে উঠেছে গােটা বিশ্বের তরুণ-যুবা। এমন নেশা যে, একবার নিলে কী মরলে! আক্রমণাত্মক হয়ে উঠছে ওরা ড্রাগ না পেলে। শুধু ঢাকা শহরেই গত ছয় মাসে দেড় হাজার অ্যাডিক্ট। খুন করেছে সতেরাে হাজার নিরীহ মানুষকে। মাত্র এক শ' টাকার বিনিময়ে মিলছে মরণ-নেশা। সাপ্লাই বন্ধ হলে তিন থেকে সাত দিনের মধ্যেই মারা যাচ্ছে অভিউ। কিছুতেই বের করা যাচ্ছে না কার কাছ থেকে কীভাবে আসছে এ ড্রাগের চালান। প্রথম সুযােগেই ঢুকে পড়ল রানা ওই ক্যাসিনােয় । জানে না, ও শিকার না শিকারী!
  412. সেই কুয়াশা (প্রথম খণ্ড) (একশন থ্রিলার "দি ম্যাতারিস সার্কেল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক রবার্ট লুডলাম) কাহিনী সংক্ষেপ: প্রিয় পাঠক, বইয়ের নাম দেখে নিশ্চয়ই ভুরু কোচকাচ্ছেন? নিশ্চয়ই ভাবছেন, মাসুদ রানা সিরিজে কুয়াশা কেন? পড়তে শুরু করলেই পেয়ে যাবেন জবাবটা। ভয়ানক এক ষড়যন্ত্র চলছে গােটা দুনিয়া জুড়ে। তার পিছনে কলকাঠি নাড়ছে এমন এক গুপ্তসংঘ, যাদের হাতের মুঠোয় রয়েছে পৃথিবীর বড় বড় সমস্ত দেশের সরকার এবং অপরাধী-চক্র। কে ঠেকাবে ওদেরকে? রানা একা? উঁহু, একেবারেই অসম্ভব। কুয়াশাকেও চাই! তাই এই প্রথমবারের মত দুই কিংবদন্তির নায়ক মাসুদ রানা ও কুয়াশা আসছে একসঙ্গে... এক মিশনে! ফলাফল? পাতায় পাতায় রহস্য-রােমাঞ্চ আর অ্যাকশনে ভরা অবিস্মরণীয় এক কাহিনি... পাঠককে পাগল করে দেবার মত দুর্দান্ত এক অভিযান! আপনি আমন্ত্রিত।
  413. সেই কুয়াশা (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:বিশ্বাস করা কঠিন, পঁচাত্তর বছর আগেকার এক উনাদের নির্দেশে অশান্ত হয়ে উঠেছে আজকের পৃথিবী। আর তার সঙ্গে আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে গেছে রানা ও কুয়াশা। ভূমধ্যসাগরের এক ছােট্ট দ্বীপ থেকে শুরু করে। ইটালি, রাশা, জার্মানি, ইংল্যাণ্ড... যেখানেই যাচ্ছে ওরা, সেখানেই ফণা তুলে রেখেছে কাউন্ট বারেমির অশুভ ছায়া। কী এই ফেনিস? যেন পুরাণের কোনও ভয়াল দানব, একটা মাথা কাটলে বেরিয়ে আসছে দশটা। যার কাছেই সাহায্যের জন্য যাচ্ছে ওরা, যাকেই জিজ্ঞাসাবাদ করছে. সে-ই খুন হয়ে যাচ্ছে আততায়ীর হাতে। সবখানেই বাধা, বিপত্তি আর মৃত্যুফাদ। পাগল হবার দশা রানা-কুয়াশার। সাবধান করছি, পাঠক, দুই মহানায়কের প্রথম মিশন একই অবস্থায় ফেলবে আপনাকেও। একটাই অনুরােধ, হাল ছাড়বেন না। সাহসে বুক বেঁধে থাকুন ওদের সঙ্গে, দেখুন কী হয়!
  414. টেরোরিস্ট ("প্যাসেঞ্জার ফিফটি সেভেন" মুভির নভেলাইজেশন এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্টুয়ার্ট রাফিলড্যান গর্ডন) কাহিনী সংক্ষেপ: মানুষরূপী পিশাচ বলতে যা বােঝায়, ডেমিয়েন কেইন ঠিক তা-ই। পেশায় টেরােরিস্ট সে, ইন্টারপােলের অন্যতম মােস্ট ওয়ান্টেড। ধরা পড়ল সে। হাতকড়া পরিয়ে যাত্রীবাহী এক বিষয় বিচারে লস অ্যাঞ্জেলেসে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে তাকে। কিন্তু এত সহজে হার মানার বার্তা নয় কেইন। ছদ্ম-পরিচয়ে ওর সঙ্গীসাথীরা উঠেছে একই বিমানে। যথাসময়ে আত্মপ্রকাশ করল তারা, হাইজ্যাক করল বিমান। কিন্তু পাঠক, আপনাকে বলতে ভুলে গেছি, উল্লেখযােগ্য আরেকজন যাত্রী আছে এ বিমানে। দুধর্ষ এক বাঙালি যুবক-তার নাম আপনি জানেন।
  415. সর্বনাশের দূত (প্রথম খণ্ড) (অরিগন ফাইলস সিরিজের "প্লেগ শিপ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার ও জ্যাক দু ব্রুল) কাহিনী সংক্ষেপ: পশ্চিমা দুনিয়া তেলের লোভে গ্রাস করতে চাইছে মধ্য-প্রাচ্যের তেলসমৃদ্ধ দেশগুলোকে। এজন্য নীল নকশাও তৈরি করেছে ওরা। ওদের এই মাষ্টারপ্ল্যান্টের নীল নকশা ঘটনাচক্রে এসে পড়ল মাসুদ রানার হাতে। ওই কাজে বাধা দেওয়ার জন্য বিভিন্ন দেশে স্পাই তারকাদের নিয়ে তৈরি করা হলো একটি চৌকুস দল। তারা ওই কাজ সারাতে গিয়ে জড়িয়ে পড়ল আরেক ঝামেলায়। বিরাট ধ্বংসযজ্ঞ ডেকে আনছে এক উন্মাদ বিজ্ঞানী। এখন এই বিজ্ঞানীকে বাধা দিতে হবে,কিন্তু কীভাবে?
  416. সর্বনাশের দূত (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:এক কাজে গিয়ে জড়িয়ে গেল ওরা আরেক ঝামেলায়। প্রলয় ঘনিয়ে আনছে ভয়ঙ্কর এক উন্মাদ বিজ্ঞানী। কাজে নেমেছে তার অদ্ভুত বিপজ্জনক কাল্ট। চাইছে বিশ্বের আশি ভাগ মানুষকে নিশ্চিহ্ন করতে! হাতে অমােঘ মারণাস্ত্র ! রানা ও তার বন্ধুরা বুঝল, মানব সভ্যতা বাঁচাতে চাইলে এখনই সময়। কাজে নেমেই টের পেল ওরা কী ভয়ঙ্কর ফ্যানাটিক একটা দলের বিরুদ্ধে লেগেছে। ভীষণ বিপদে পড়ল রানা, সােহেল, ফু-চুং, উর্বশী, স্বর্ণা। এক পর্যায়ে বলল সােহেল, আর উপায় নেই রে, এখন দরকার ইজরায়েলের তৈরি জিব্রাইলের মুষ্টি। কিন্তু তা পেতে চাইলে মস্ত ঝামেলা পােহাতে হবে। তাই করল ওরা, মহাশূন্যে চলে গেল। পৃথিবী রক্ষা করতে পারবে ওরা?
  417. শুভ্র পিঞ্জর (প্রথম খণ্ড) (আর্কটিক এডভেঞ্চার টেকনো থ্রিলার "আইস হান্ট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস রোলিনস) কাহিনী সংক্ষেপ: প্রিয় পাঠক, মাসুদ রানার সঙ্গে আরও একবার সুমেরু অভিযানে আমন্ত্রণ জানাচ্ছি আপনাকে। এবারের গন্তব্য আর্কটিক সার্কেলের সাড়ে পাঁচশো কিলোমিটার উত্তরের নামহীন এক বরফ-দ্বীপ। দর্শনীয় অনেক কিছুই পাবেন ওখানে। দ্বীপের গভীরে আছে গোপন এক প্রাচীন গবেষণাগার, .....ভিতরে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে আছে অসংখ্য মানুষেল লাশ! আরও কিছু চাই? পাবেন। গবেষণাগারের পাশে ,জমাট বাঁধা করফের ভিতরে রয়েছে পঞ্চাশ হাজার বছর ধরে ঘুমিয়ে থাকা একদল হিংস্র ,রাক্ষুসে প্রাগৈতিহাসিক দানব! তবে রওনা দেবার আগে জানিয়ে রাখা ভাল ,দ্বীপের দখল নেবার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে মার্কিন সরকার। খবর পেয়ে সাবমেরিন নিয়ে রাশান এক রিয়ার অ্যাডমিরাল আসছেন ওটাকে নিউক্লিয়ার বোমা মেরে নিশ্চিহৃ করে দিতে। শুধু তা-ই নয়, শীতনিদ্রা ভেঙে খুব শীঘ্রি জাগতে চলেছে রাক্ষসে দানবের দল! ভীষণ খিদে ওদের পেটে । বুঝতেই পারছেন, যেতে হবে নিজ ঝুঁকিতে। রানা অবশ্য থাকছে আপনার সঙ্গে ...তবে...ওর নিজেরেই তো....ভালো করে ভেবে চিন্তে সিদ্ধান্ত নিন।
  418. শুভ্র পিঞ্জর (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ডু্বসাঁতার দিয়ে সারফেসের কাছাকাছি পৌঁছুতেই বরফে ঠুকে গেল রানার মাথা। বিস্মিত হয়ে উপরে তাকাল ও , পরক্ষণে আঁতকে উঠল আতঙ্কে। ভয়াবহ তুষার ঝড় জমিয়ে দিয়েছে জলাশয়ের উপরিভাগ-অন্তত চার ইঞ্চি পুরু হয়ে জমেছে বরফের আস্তর। ভেসে ওঠার কোনও উপায় নেই। আর্কটিকের পানিতে ডুবে মরতে চলেছে ও । আর তখুনি অনেক নিচে কী যেন একটা নড়ে উঠল। ভূরু কুঁচকে সে দিকে তাকাল রানা। সাদাটে তিনটা আকৃতি...ডুবন্ত একটা গুহ থেকে তীরবেগে বেরিয়ে এসেছে। পানির মধ্যে ঘুরপাক খেয়ে ধীরে ধীরে উঠে আসছে উপরদিকে-ওকে লক্ষ করে। রাক্ষুসে তিন গ্রেণ্ডেল! হাঁ করা মুখের ভিতর চকচক করছে ধারালো দাঁতের সারি! ভয় পেল না রানা, চমকেও উঠল না ,অদ্ভুত এক নির্বিকার ভাব ভর করেছে ওর মধ্যে। শান্ত ভঙ্গিতে মেনে নিল ভাগ্যকে। তা হলে ডুবে মরাও কপালে নেই ওর!
  419. সূর্যসৈনিক (প্রথম খণ্ড) (অরিগন ফাইলস সিরিজের "কর্সেয়ার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার ও জ্যাক দু ব্রুল) কাহিনী সংক্ষেপ:মুক্তিপণ আদার করবে বলে মালবাহী এক ফ্রাইটার দখল করেই বোকা বনে গেল সোমালি জলদস্যুরা। জাহাজে ভূত আছে। হলভর্তি লোক গায়েব হয়ে যাচ্ছে চোখের পলকে। এই আছে, এই নেই। ভৌতিক জাহাজ মার্ভেলকে হাইজ্যাক করে নিয়ে গেল ওরা ওদের ঘাঁটিতে। তারপর? ...একটা কাজ শেষ হতে না হতেই রানার কাঁধে চাপল আরেক দায়িত্ব। এখুনি জাহাজ নিয়ে ছুটতে হবে ত্রিপোলির পথে। শান্তি সম্মেলণে যোগ দিতে গিয়ে লিবিয়ার মরুভূমিতে ক্র্যাশ করেছে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী প্লেন। ক্র্যাশ ,না স্যাবোটাজ ,না কি হাইজ্যাক? প্রধানমন্ত্রী বেঁচে আছেন তো? এটা লিবিয়ার অস্থির সময়ের কাহিনী। দ্রুত ফুরিয়ে আসছে প্রেসিডেন্ট মুয়াম্মার গাদ্দাফির সময়। চলুন, রানার সঙ্গে দিয়ে দেখি আসলে কী ব্যাপার।
  420. সূর্যসৈনিক (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  421. ট্রেজার হাণ্টার (প্রথম খণ্ড) (টাইলার লক সিরিজের "দি ভল্ট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক বয়েড মরিসন) কাহিনী সংক্ষেপ: স্বর্ণলোভী রাজা মাইডাসকে অদ্ভুত এক বর দিয়েছিলেন দেবতারা-শুধু স্পর্শ দিয়ে যে-কোনও জিনিসকে সোনায় রূপান্তরিত করতে পারতেন তিনি। সেটা তার জন্য হয়ে দাঁড়ায অভিশাপ। ভুল করে নিজের মেয়েকে সোনার মূর্তি বানিয়ে ফেরেন তিনি। করুণ.... সেইসঙ্গে সুন্দর এক কাহিনি, তাই না? কিন্তু গল্পটা যদি গল্প না হয়? যদি ওটা সত্যি হয়ে থাকে? এত বছর পর পাগলাটে কোনও ভিনেন যদি সেই ক্ষমতার অধিকারী হতে চায়... খুঁজে পেতে চায় রাজা মাইডাসের সমাধি.... এবং মাসুদ রানাকে ওর ইচ্ছের বিরুদ্ধে বাধ্য করে সেই কাজ করে দিতে? কী ঘটবে তা হলে? না, পাঠক, কল্পনার সাগরে ভেসে যাবার কোনও দরকার নেই। এই বইয়ের ভিতরেই রয়েছে সমস্ত প্রশ্নের জবাব। সেই সঙ্গে রয়েছে পাতায় পাতায় দমবন্ধ করা উত্তেজনা, রক্ত গরম করা অ্যাকশন আর বুদ্ধির মারপ্যাঁচ-সহ অনেক কিছু। তা হলে আর দেরি কেন, চলুন রানার সঙ্গে যোগ দিই শ্বাসরুদ্ধকর আরেকটি অভিযানে। কথা দিচ্ছি, হতাশ হবেন না।
  422. ট্রেজার হাণ্টার (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:এ যেন অসম্ভবকে সম্ভব করবার চেষ্টা! গ্রিক পণ্ডিত আর্কিমডিসের তৈরি করা যে-ধাঁধা দু’হাজার বছরেও ভেদ করতে পারেনি কেউ, সেটাই সমাধান করতে চাইছে রানা মাত্র চারদিনে! নইলে খুন করা হবে পিতৃসম অ্যাডমিরাল হ্যামিলটনকে। পাগলের মত চষে বেড়াচ্ছে ও দু-দুটো মহাদেশ।
  423. লাইমলাইট (প্রথম খণ্ড) (অরিগন ফাইলস সিরিজের "স্কেলিটন কোস্ট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার ও জ্যাক দু ব্রুল) কাহিনী সংক্ষেপ: কোথায় গেলেন বিজ্ঞান আসিফ হায়দার চৌধুরী? কারা কিডন্যাপ করল তাঁকে?.. মরুভূমির ভেতর ডেভিলস ওয়েসিস কারাগার থেকে মুক্ত করতে হবে তাঁকে। একের পর এক বাধার মুখে পড়ে পড়ে রানার মনে হলো, এবার বুঝি হার মানতেই হবে। আসরে কারাগারের ভিতরে ঢোকা যত সোজা, তার চেয়ে ১০০ গুণ কঠিন বেরিয়ে আসা। রানা জানে না, আসলে বিজ্ঞানী আছেনিই বা কারাগারের ঠিক কোন জায়গাটিতে !
  424. লাইমলাইট (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  425. ডেথ ট্র্যাপ (প্রথম খণ্ড) (শেন স্কোফিল্ড সিরিজের "আইস স্টেশন" এর ছায়া অববলম্বনে, লেখক ম্যাথিউ রাইলি) কাহিনী সংক্ষেপ:কাজটা অত্যন্ত কঠিন: বরফ-মোড়া অ্যাণ্টার্কটিকার উইলকক্স আইস স্টেশনে আটকা পড়া কয়েকজন বাঙালি ও আমেরিকান বিজ্ঞানীকে তুলে নিয়ে তুষার ঝড়ের ভিতর দিয়ে নয়’শ মাইল দূরের ম্যাকামার্ডো স্টেশনে পৌঁছে দিতে হবে। বিসিআই চিফের নির্দেশে সব কাজ ফেলে ছুটল রানা। বস বলে দিয়েছেন : শুনেছি, ওই স্টেশনের নীচে রয়েছে একটা স্পেশশিপ। সম্ভব হলে ওটার বিষয়ে সমস্ত তথ্য জোগাড় করবে। তবে সাবধান, ভয়ানক বিপদের আশঙ্কা করছি। হোভারক্রাফটে চড়ে দলবল নিয়ে আইস স্টেশনে গিয়ে হাজির হলো সতর্ক রানা।পৌঁছুতে না পৌঁছুতে শুরু হলো হামলা। চোখের সামনে একের পর এক মারা যাচ্ছে ওর নিজের লোক। রুখে দাঁড়াতে চাইল রানা। কিন্তু ওর জানা নেই, একটি নয়,একাদিক প্রতাপশালী দেশের সেরা কমাণ্ডো ইউনিটগুলো হাজির হয়েছে ওদেরকে খুন করে স্পেসশিপ সরিয়ে নিতে । এই মরণ-ফাঁদ থেকে বাঁচার কোনও উপায় নেই রানা! নাকি আছে?
  426. ডেথ ট্র্যাপ (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ফ্রান্সের দো খমিয়েখ খেযিমন্ত প্যাখাশুতিস্ত দো’ইনফেন্তে খিয়্য দে মেখিন বা ফার্স্ট মেরিন প্যারাশুট রেজিমেণ্টের সদস্যদের হামলা ঠেকিয়ে দিয়েছে রানা। কিন্তু যখন জানল, এবার আসছেন ব্রিটিশ এসএএস এর লিজেণ্ডারি ব্রিটিশ কমাণ্ডার জেনারেল জুলিয়াস বি, গুণ্ডারসন স্বয়ং, তখন লেজ গুটিয়ে পালানো ছাড়া উপায় দেখল না। তিনি রানার শ্রদ্ধেয় গুরু..তিনিও শত্রু? তা হরে এবার হবে গুরু-শিষ্যের তুমুল লড়াই? গুণ্ডারসনের সঙ্গে আছে দুনিয়াসেরা কমাণ্ডো দল! অথচ রানার আছে সাধারণ ক’জন অফিসার ও সেনা সদস্য! এদের নিয়েই করতে হবে অসাধ্য সাধান। কীভাবে? ওদিকে যাদেরকে সাহায্য করছে রানা, তারাই হঠাৎ মারতে উদ্যত হলো কেন আবার? কী হচ্ছে এসব? আর ওই স্পেসশিপ? পাতাল গুহা থেকে গেল কোথায় ওটা? রানার চারপাশেই শত্রু..বন্ধু কোথায়?
  427. কিলার ভাইরাস (প্রথম খণ্ড) (শেন স্কোফিল্ড সিরিজের "এরিয়া সেভেন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ম্যাথিউ রাইলি) কাহিনী সংক্ষেপ: আমেরিকান প্রেসিডেন্ট চলেছেন এয়ার বেস (রেসট্রিকটেড) যিরাে নাইন পরিদর্শনে। কিন্তু মন বলছে ওখানে বিপদ হতে পারে। হােয়াইট হাউসে আমন্ত্রণ জানিয়ে গােপনে মাসুদ রানার সহায়তা চেয়ে বসলেন তিনি। ওদিকে রানাকে বললেন বিসিআই চিফ: ওই বেসে রয়েছে। দুনিয়ার সবচেয়ে ভয়ঙ্কর বায়ােলজিকাল এজেন্টমহাচিনের তৈরি ডুমস ডে ভাইরাস। যাও, রানা... তবে মনে রেখাে, কাজটা অত্যন্ত কঠিন। সম্ভব হলে, ওই ভাইরাসের নমুনা ও অ্যান্টিডােট নিয়ে এসাে। চিফের নির্দেশে ওখানে চলেছে দুঃসাহসী মাসুদ রানা, সঙ্গে কয়েকজন দুর্ধর্ষ অফিসার ও সৈনিক। কিন্তু ওই এয়ার বেসে ঢুকেই ওরা টের পেল, ওখানে চলছে মস্ত ভজকট। চারপাশে একের পর এক ষড়যন্ত্র, নানা বাধা। তারপর শুরু হলাে হামলা! বাঁচতে চাইলে লড়তে হবে। কিন্তু কীভাবে নিজেদেরকে রক্ষা করবে ওরা? ওই বেসে দুনিয়াসেরা পঞ্চাশজন এয়ার ফোর্স কমাণ্ডো খুঁজছে ওদেরকে খুন করার জন্য!
  428. কিলার ভাইরাস (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:বেদম তাড়া খেয়ে দলবলসহ পালাচ্ছে মাসুদ রানা। যেমন করে হােক ফাটবার আগেই নিষ্ক্রিয় করতে হবে চোদ্দটা নিউক্লিয়ার বােমা। আরও খারাপ খবর: কয়েক মিনিটের মধ্যে প্রেসিডেন্টের স্টিলের ব্রিফকেস খুলে সঠিক সময়ে তার হাত পাম অ্যানালাইযারে না রাখলে শুরু হবে দুনিয়া জুড়ে। তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ! কিন্তু প্রেসিডেন্ট আছেন কোথায়? ওদিকে চিনের তৈরি ডুমস ডে ভাইরাস ঠেকাতে পারে যে ছেলেটা, তাকে কিডন্যাপ করেছে দক্ষিণ-আফ্রিকার একদল বর্ণবাদী কমাণ্ডো। অবস্থা এমন হয়েছে, মাথা-খারাপ অবস্থা রানার। আমেরিকান এয়ার ফোর্সের লেফটেন্যান্ট জেনারেল আর্লিং এফ ব্রুকসের সঙ্গে রয়েছে দুনিয়াসেরা কমাণ্ডো দল! রানার সঙ্গে শুধু সাধারণ ক’জন অফিসার ও সৈনিক! লড়তে গিয়ে ও বুঝে গেল, এবার মৃত্যু অনিবার্য! কিন্তু তার পরেও উল্টো তাড়া করে গিয়ে উঠল রানা আমেরিকান এক অ্যাটাক শাটলের ভিতর! জমে উঠল এক....
  429. টাইম বম ("ডাই হার্ড ফোর: উইথ এ ভেনজেন্স" মুভির নভেলাইজেশন এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ডেবরাহ চিয়েল) কাহিনী সংক্ষেপ: গনগনে তপ্ত নিউ ইয়র্ক। বিখ্যাত ডিপার্টমেণ্টাল স্টোর ধসে পড়ল শক্তিশালী এক বোমার আঘাতে। জড়িয়ে পড়ল রানা। কারণ, হুমকি দিয়েছে টেরোরিস্ট, ওকে ডেকে না আনলে আরও অনেক বোমা ফাটবে শহরে। ডিটেকটিভ চিফ ক্যাপ্টেন জেরেমি জনসনের সনির্বন্ধ অনুরোধ রাখতে গিয়ে হারলেমের ক্রাইম জোনে যেতে হলো রানাকে। ডাক পিওনের মত ছুটছে ও শহরের এদিক থেকে ওদিক! এখানে-ওখানে-সেখানে ভয়ানক সব বোমা পেতে রেখেছে লোকটা! উড়িয়ে দিতে চাইছে কমিউটার ট্রেন, স্কুলের কচি শিশু ও নিরীহ জনসাধারণকে! ঠেকাতে গিয়ে অসহায়ভাবে বন্দি হলো রানা ও তার কালো বন্ধু জো মাইনার। এবার মরতে বসেছে দুজনই। বাইনারি বোমা দিয়ে ওদের সহ লোকটা উড়িয়ে দিল মস্ত জাহাজ।
  430. আদিম আতঙ্ক (ক্রিয়েচার হান্টিং থ্রিলার "মেগ: এ নভেল অফ ডিপ টেরর" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্টিভ অল্টেন) কাহিনী সংক্ষেপ: বিখ্যাত প্যালিয়ােনটলজিস্ট ডক্টর নাসিম আহমেদের লেকচার শুনতে গ্রেগ রনসন অডিটোরিয়ামে গেল মাসুদ রানা । ভদ্রলােক প্রিয় বন্ধু সােহেলের বড় ভাই। বেশকিছু কথা আগেই শুনেছিল, এবার নিজেই দেখল কোথায় হারিয়ে গেছেন ওদের সেই প্রাণােচ্ছল নাসিম ভাই। ওখানেই প্রথম দেখল ও জাপানি ললনা রূপসী মানামি সিনােসুকাকে। জড়িয়ে গেল ওরা আষ্টেপৃষ্ঠে।--~-- নাসিমের অনুরােধে মস্ত ঝুঁকি নিল রানা। ডুব দিল প্রশান্ত মহাসাগরের গভীরতম অঞ্চলে, যেখানে মাউন্ট এভারেস্টকে ছেড়ে দিলে টুপ করে তলিয়ে যাবে। সত্যি কি আছে সেখানে সেই প্রাগৈতিহাসিক প্রাণী বিশালকায় হাঙর কারকারােডন মেগালােডন? দেখতে গিয়ে মুশকিল হলাে। সাত মাইল নীচ থেকে ওপরে উঠে এল সেই আদিম আতঙ্ক! হাঙর, তিমি কাউকে ছাড়ছে না। শেষে সাবমারসিবল সহ কোঁৎ করে গিলে নিল রানাকেই!
  431. পার্শিয়ান ট্রেজার (প্রথম খণ্ড) (ফার্গো এডভেঞ্চার সিরিজের "স্পার্টান গোল্ড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ: ভাঙা একটা কাঁচের বােতল। তাতে এক উড়ন্ত মৌমাছির রহস্যময় ছবি। অদ্ভুত ওই প্রতীকটা বিপাকে ফেলে দিল রানা-সােহানাকে। একের পর এক মৃত্যুফাঁদ পাতা হচ্ছে ওদের জন্যে। কারণ, ভয়ঙ্কর এক মাফিয়াসর্দারের বিরাগভাজন হয়েছে। কৌশলে বিপদ এড়িয়ে যাচ্ছিল ওরা দুজনে। ঘুণাক্ষরেও ভাবেনি: যাকে সুহৃদ ভেবেছে, তারই বিশ্বাসঘাতকতায় ধরা পড়তে চলেছে ওরা শত্রুপক্ষের হাতে। এমন এক জায়গায় -- যেখানে গাের দেওয়া হয়েছে রহস্য সমাধানের চাবিকাঠি। শত্রু প্রবল, ওরা মাত্র দুজন। কী হয়, কী হয়!
  432. পার্শিয়ান ট্রেজার (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:মেলিখানের পাতা ফাঁদে ধরা পড়ল না রানা-সােহানা। বরং কোডবুকটা নিয়ে চলে এল নিরাপদে । এবার রহস্যভেদের পালা । কিন্তু একটা বােতল সিদোরভের কাছে। কোডটাও রানা-সােহানা সিদ্ধান্ত নিল, হানা দেবে সিংহের গুহায়। কৃষ্ণসাগরের তীরে সুরক্ষিত তার ম্যানসন ঝুঁকিটা বােধহয় বেশিই হয়ে গেল। ট্রেজারম্যাপটা কোথেকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছে ওদেরকে? শেষপর্যন্ত পরিস্থিতি রানার নিয়ন্ত্রণে থাকল না। পাচার হয়ে গেল গােপন খবর। কে জানত, রানাকে একহাত দেখে নিতে অবশেষে স্বয়ং হাজির হয়ে যাবে মাফিয়াসর্দার?
  433. বাউণ্টি হাণ্টার্স (প্রথম খণ্ড) (শেন স্কোফিল্ড সিরিজের "স্কেয়ারক্রো" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ম্যাথিউ রাইলি) কাহিনী সংক্ষেপ: রানা এজেন্সিতে এসেছিল ওই জরুরি ফোন। রানা জানল, মস্ত বিপদে পড়েছে ঘনিষ্ঠ বন্ধু রবিন কার্লটন। চিফের অনুমতি পেয়েই সাইবেরিয়ায় চলল রানা। জানে না, চলেছে নিশ্চিত মৃত্যুর দিকে। এ-ও জানে না, বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ব্যবসায়ী সংগঠন ঘােষণা দিয়েছে: পনেরাে জনের কল্লা চাই। তারা যতই দুর্ধর্ষ যােদ্ধা হােক, রক্ষা নেই কারও! প্রতিটি মাথার জন্য পাবে তেত্রিশ মিলিয়ন ডলার। ওই লিস্টে রয়েছে মাসুদ রানার নামও। সাইবেরিয়ায় পৌছেই ও বুঝল, সত্যিকারের বিপদ কাকে বলে। ওকে ঘিরে ফেলল একদল রক্তপিশাচ বাউন্টি হান্টার । লড়তে লড়তে শেষপর্যন্ত পাশে রইল শুধু তরুণ যােদ্ধা, হােসেন আরাফাত খবির। বাচবার উপায় নেই ওদের। বরফে ঢাকা শহরের পনেরােতলা দালানের ছাত থেকে শেষে প্যারাশুট ছাড়াই লাফ দিল ওরা।
  434. বাউণ্টি হাণ্টার্স (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:গম্ভীরদর্শন, ওই প্রকাণ্ড ফ্রেঞ্চ দুর্গ থেকে তিশাকে নিয়ে লেজ তুলে পালাচ্ছে রানা। কিন্তু ঘিরে ফেলেছে শত্রুরা। শেষে উঠতে হলাে এক এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ারে। ওখানেই জানল, ম্যাজেস্টিক-১২ কাউন্সিলের মাস্টার প্ল্যান। ওরা দখল করবে গােটা দুনিয়া। একের পর এক নিউক্লিয়ার মিসাইল দিয়ে উড়িয়ে দেবে মস্ত সব শহর। রানার এখনই চাই টাচলক-৯ ইউনিট।...ওদিকে কী চলছে আফ্রিকা মহাদেশ জুড়ে? রানার পথে বাধা হয়ে উঠল শত শত যুদ্ধ-বিমান। মক্কা শহরে পড়বে ইন্টারকন্টিনেন্টাল ব্যালেস্টিক মিসাইল। কখনও লাভ হয় মিসাইলের পিছু নিয়ে? তবু শেষ চেষ্টা করল রানা। সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল কুয়াশা। কী করে বাঁচাবে ওরা লাখ লাখ নিরীহ মানুষকে? নিশ্চিত মৃত্যুকে পরােয়া করল না ওরা। এবারই বুঝি চিরবিদায় নিতে চলেছে আমাদের মাসুদ রানা ও মহহৃদয় কুয়াশা।
  435. মৃত্যুদ্বীপ (শেন স্কোফিল্ড সিরিজের "স্কেয়ারক্রো এন্ড দি আর্মি অফ থিভস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ম্যাথিউ রাইলি) কাহিনী সংক্ষেপ: ফ্রান্স সরকারের মৃত্যু-পরােয়ানা ঝুলছে মাথার উপর, হেড অফিসের নির্দেশে তাই লুকিয়ে আছে রানা আর্কটিকে, গবেষণার ছুতােয় । আচমকা এল বিসিআই চিফের নির্দেশ: ‘রানা, এক্ষুনি রওয়ানা হয়ে যাও। রাশার পােলার আইল্যাণ্ডে গিয়ে ঠেকাতে হবে রাফিয়ান আর্মির অ্যাটমােসফেরিক হামলা। নইলে ভস্ম হয়ে যাবে আফ্রিকা, আমেরিকা, এশিয়া ও ইউরােপের বেশিরভাগ দেশ। পুড়ে ছাই হয়ে যাবে বাংলাদেশও। ক্যাপ্টেন নিশাত, দুই মেরিন, রানা নিজে ও তিনজন গবেষক - এই সাতজন চলল শীতল মৃত্যুদ্বীপে। বিপক্ষে দুইশাে বেপরােয়া, খুনি যােদ্ধা। আর ফ্রান্স থেকে আসা কমাণ্ডোরা। হামলা শুরু হতেই দিশেহারা হয়ে পড়ল রানা। সফেদ বরফের রাজ্যে কোথাও পালাবার রাস্তা নেই, মৃত্যু নিশ্চিত। কিছুই পরােয়া না করে পাল্টা আক্রমণে গেল রানা।। কিন্তু স্বপ্নেও ভাবেনি, এমন হঠাৎ করে মৃত্যু ঘটতে চলেছে ওর। কে আছে, যে মরণের ওপার থেকে ফিরিয়ে আনতে পারবে আমাদের প্রিয়, দেশপ্রেমিক, নিঃস্বার্থ রানাকে?
  436. জাপানী টাইকুন (প্রথম খণ্ড) (ফিলিপ মার্সার সিরিজের "রিভার অফ রুইন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জ্যাক দু ব্রুল) কাহিনী সংক্ষেপ: প্যারিসের এক অকশন হাউস থেকে পুরনাে। এক ডায়েরি কিনেই মস্ত বিপদে পড়ল মাসুদ রানা। সশস্ত্র তিনজন খুনি ধাওয়া করল ওকে,। কেড়ে নেবার চেষ্টা করল ডায়েরিটা। কিন্তু কেন? পাঠক, এ-প্রশ্নের জবাব পাবার জন্য রানার সঙ্গে পানামার গহীন জঙ্গলে ছুটে যেতে হবে আপনাকে, যেখানে রয়েছে। ছয়শাে বছরের পুরনাে ইনকা-গুপ্তধনের ভাণ্ডার। ভয়ঙ্কর এক ষড়যন্ত্র চলছে সেই গুপ্তধনকে ঘিরে, আর আড়াল থেকে তাতে কলকাঠি নাড়ছেন। প্রতিহিংসাপরায়ণ, অর্ধোন্মাদ এক জাপানি ধনকুবের। ভাবছেন আবারও ট্রেজার হান্টের গল্প শােনাতে চলেছি? উঁহু, এ-কাহিনি তারচেয়ে অনেক... অনেক জটিল। শুধু এটুকু জেনে রাখুন, এবারের অ্যাসাইনমেন্ট রানার ক্যারিয়ারের কঠিনতম অ্যাসাইনমেন্টগুলাের একটি।
  437. জাপানী টাইকুন (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:ঐ
  438. পাতকিনী (ফার্গো এডভেঞ্চার সিরিজের "দি মায়ান সিক্রেটস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ: কাছে-পিঠে প্রমোদতরী নিয়ে ছুটি কাটাচ্ছিল ওরা,ভয়ানক ভূমিকম্পের খবর পেয়েই ত্রাণ নিয়ে ছুটে গেল মেক্সিকোর দুর্গম এক পার্বত্য এলাকায়। ওখানে আকস্মিকভাবেই পেয়ে গেল মায়ান এক রাজপুরুষের মামি আর মহামূল্যবান মায়ান কোডেক্স। চুরি-জাকাতি এড়িয়ে চলে এল রানা-সোহানা যুক্তরাষ্ট্রে। খবরটা জানাজানি হতেই শুরু হয়ে গেল জটিল খেলা। লোভী এক ব্রিটিশ যুবতীর ওটা চাই-ই চাই। যেমন করে হোক। কিন্তু রানা-সোহানা ওকে দেবে না কিছুতেই। হারিয়ে যাওয়া বিপুল মায়ান ঐশ্বর্যের লোভে কৌশলে কজা করে নিল মেয়েটা ওই দুস্প্রাপ্য বইটি। এখন প্রতিযোগিতা রানা-সোহানা ও এলেনা হিউবার্টের মধ্যে। ওই কালনাগিনী শেষ করে দেবে ওদেরকে, নাকি ওরাই দেখিয়ে দেবে তাকে সাপের পাঁচ পা? দেখা যাক কী হয়! তবে, প্রিয় পাঠক, সেটা জানতে হলে যেতে হবে আপনাকে সুদূর গুয়াতেমালায়!
  439. নরকের কীট (প্রথম খণ্ড) (নুমা ফাইলস সিরিজের "দি স্টর্ম" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ: কেন ক্রমেই হ্রাস পাচ্ছে ভারত ও বাংলাদেশের গড় বৃষ্টিপাত? তবে কি আসছে মারাত্মক খরা, তারপর ভয়ঙ্কর দুর্ভিক্ষ? এ বিষয়ে রিসার্চ করতে গিয়েই গায়েব হয়ে গেল নুমার তিনজন গবেষক । রানা-সােহেল তখন ছুটিতে । বন্ধু রাহাত খানের সহায়তা চাইলেন নুমা চিফ অ্যাডমিরাল জর্জ হ্যামিলটন। মালদ্বীপে কার্যত বাতিল হলাে রানা ও সােহেলের ছুটি। বিসিআই চিফের নির্দেশে তৎপর হয়ে উঠল ওরা। রানা জানতে চাইল, কেন এক অদ্ভুত সুন্দরী চোখ রেখেছে ওদের ওপর। কিডন্যাপারদের কাছ থেকে মেয়েটাকে উদ্ধার করেই ছুটল ভাসমান এক দ্বীপের পিছনে, সেখান থেকে ছুটল দুই বন্ধু সুদূর ইয়েমেনে । পৌছেও গেল শত্রু-শিবিরে, দেখল ন্যানােবটের কারখানা, কিন্তু কিছু করার আগেই ফেলে দেয়া হলাে ওদেরকে। গভীর এক মৃত্যু-কূপে!
  440. নরকের কীট (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:সত্যিই সবুজ-শ্যামল-মায়াময় এই বাংলাদেশ হয়ে। যাবে ধূ-ধূ মরুভূমি? কিছুতেই না! | ইয়েমেনের মৃত্যু-কূপ থেকে মুক্ত হয়ে দুনিয়ার দুই দিকে ছুটল রানা ও সােহেল। শত্রু বিমান দখল করার পরও আকাশের বহু ওপর থেকে জ্বলন্ত বিমান ছেড়ে ঝাপ দিতে বাধ্য হলাে রানা ।। তারপর বন্দি হলাে রূপকথার মত অদ্ভুত এক সভ্যতা বিবর্জিত দেশে। ওদিকে শত্রু-ট্রাকে চেপে পৌছুলা সােহেল মিশরে । খুনি জায়েদের ন্যানােটগুলাে নাসের হ্রদের প্রকাণ্ড আসওয়ান ড্যাম উড়িয়ে দেয়ার আগেই। তা ঠেকাতে হবে! একা পারবে সােহেল? অবশেষে নৃশংস একদল খুনির মােকাবিলা করতে ভাসমান দ্বীপে গিয়ে উঠল রানা। সেখানে ওকে চিবিয়ে খেয়ে ফেলতে চায় সর্বভুক নরকের কীট!
  441. শার্প শুটার (ডার্টি হ্যারি সিরিজের ডিটেকটিভ থ্রিলার "ম্যাগনাম ফোর্স" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক মেল ভ্যালি) কাহিনী সংক্ষেপ: সিরিয়াল কিলিং শুরু হয়েছে লস অ্যাঞ্জেলেসে । টার্গেটদের কেউ ড্রাগডিলার, কেউ গ্যাংস্টার, কেউ আবার বেশ্যার দালাল, কেউ গডফাদার । মারা পড়ল রানা এজেন্সির এক এজেন্ট, জনিও। লাশটা দেখতে গিয়েছিল রানা, ওকে খেদিয়ে দিল পুলিশ। কিন্তু ঘটনাক্রমে তদন্তের দায়িত্ব পড়ল ওরই ওপর ।। কিছু পুলিশ অফিসার ভাবছে, খারাপ লােকরাই তাে মরছে, কাজেই অসুবিধা কী? জানা গেল, কোনও কোনও অফিসারের খুঁটির জোরের কাছে নতি স্বীকার করে নিয়েছেন পুলিশ ক্যাপ্টেন সুযােগটা পুরােপুরি নিচ্ছে খুনি, বিস্তার করছে ওর জাল । সে-জাল যে রানাকেই জড়িয়ে ধরবে অকস্মাৎ, ভাবেনি ও।। ঘাড়ে পিস্তল ঠেকিয়ে হাইওয়েতে নিয়ে যাওয়া হলাে ওকে মেরে ফেলে উধাও করে দেয়া হবে লাশ। খতম হয়ে যাবে রানার সমস্ত জারিজুরি ।
  442. পাশবিক (প্রথম খণ্ড) (ক্রিয়েচার হান্টিং থ্রিলার "হান্টার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক জেমস বায়রন হাগিনস) (সহযোগী লেখক কাজী মায়মুর হোসেন) কাহিনী সংক্ষেপ: অসুস্থ রানা ভাবতেও পারেনি, আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে যাবে এই জটিল ষড়যন্ত্রের জালে। যে হারিয়ে গেছে দশ হাজার বছর আগে, নতুন করে আবারও কি ফিরল সেই দানব? নির্মমভাবে খুন করছে সৈনিক, বিজ্ঞানী ও তাদের সহকারীদের। ইউ. এস. আর্মির অনুরোধে ভয়ঙ্কর বেপরোয়া ওই নৃশংস প্রাণীর পিছু নিল রানা, সঙ্গে দক্ষ ক’জন সশস্ত্র যোদ্ধা। কিন্তু হাড়ে হাড়ে বুঝল ওরা, বৃথা ওসব আধুনিক অস্ত্র! অনায়াসেই আলাস্কার তুষারাচ্ছন্ন অরণ্য-পর্বতে ওদেরকে হত্যা করছে ওটা! ধাওয়া খেয়ে পালাতে লাগল ওরা। তারপর আঁধার গিরিখাদে আহত রানার মুখোমুখি হলো ওই নিষ্ঠুর দানব। অন্তরের গভীরে বুঝে নিল রানা, আর কোনও উপায় নেই।
  443. পাশবিক (দ্বিতীয় খণ্ড) কাহিনী সংক্ষেপ:রানা জানতে চাইছে, সিআইএ-র কর্মকর্তা ডক্টর ডেভিড গ্রেবারের রহস্যময় ওই ল্যাবে কী আছে। ওদিকে ওরা জানে, ভয়ঙ্কর হিংস্র, রক্ত-পিশাচ ওই দানব আসছে ধেয়ে। গলা শুকিয়ে গেছে সবার। কেউ জানে না, একশ’ জনেরও বেশি সশস্ত্র সৈনিক ওটাকে ঠেকাতে পারবে কি না। ...প্রাণ বাঁচাতে চলল ওদের প্রতিরক্ষা প্রস্তুতি! আবারও কি রাতের আঁধারে শুরু হবে নিষ্ঠুর গণহত্যা, ভিজে যাবে মাটি অসংখ্য মানুষের তাজা রক্তে? ওই রাক্ষস-বধ করতে এবং সিআইএ-র কুটিল পরিকল্পনা ঠেকাতে গিয়ে শেষে মস্ত ঝুঁকি নিল রানা—দানবের মুখোমুখি হবে বলে চলে গেল আদিম যুগের বিশাল এক উত্তপ্ত মৃত্যু-গুহায়!
  444. গুপ্তসংঘ (মার্কাস ক্রিসি সিরিজের থ্রিলার "দ্য ব্লু রিং" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এ জে কুইনেল) (সহযোগী লেখক কাজী মায়মুর হোসেন) কাহিনী সংক্ষেপ:এ-গল্প এতিম শিশু টম ও মিষ্টি মেয়ে জেনির। বা মাসুদ রানা ও রামিন রেযার। অথবা ইতালির কারাবিনিয়ারি, মাফিয়া এবং দ্য ডায়মণ্ড রিং-এর। সেই সঙ্গে বাংলাদেশেরও। ভয়ঙ্কর এক নরখাদক দানব মেরে ফেলেছে বলে রানার ওপর খেপে গেছে সিআইএ-র চিফ। এজেণ্টদের ওপর নির্দেশ এল: নির্মূল করো বিসিআই-এর ওই এম.আর.নাইনকে! চিফের আদেশে গোপনে আমেরিকা ছেড়ে, গোজো দ্বীপে লুকিয়ে পড়ল রানা। জানত না, অনাথ টমের অনুরোধ আর লক্ষ্মী মেয়ে জেনির জন্যে নামতে হবে মাফিয়ার চেয়েও ক্ষমতাশালী, জটিল এক গুপ্তসংঘের বিরুদ্ধে। অশুভ ওই দলের নরপশুরা দেশে দেশে সুন্দরী মেয়েদেরকে ড্রাগ্-অ্যাডিক্ট করে বিক্রি করছে পতিতালয়ে। ক’জন বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে লড়তে গিয়ে টের পেল রানা, চালে সামান্য ভুল হলেই দুনিয়া ত্যাগ করতে হবে সবাইকে।
  445. বিষ নাগিনী (মার্কাস ক্রিসি সিরিজের থ্রিলার "মেসেজ ফ্রম হেল" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এ জে কুইনেল) (সহযোগী লেখক কাজী মায়মুর হোসেন) কাহিনী সংক্ষেপ: নিষ্ঠুর একদল অমানুষের বিরুদ্ধে লড়তে গিয়ে গভীর জঙ্গলে হারিয়ে গেছে নম্র, ভদ্র ছেলেটি। ওর সঙ্গে চার বছর আগে পরিচয় হয়েছিল রানার। জর্জের বৃদ্ধ, অসহায় বাবা অনেক খুঁজে বের করলেন রানাকে, চেয়ে বসলেন সাহায্য। তাদের কাছে জর্জের ডগট্যাগ ও রানার নাম লেখা কাগজ দিয়ে গেছে কেউ। অবাক ব্যাপার! যে এসেছিল, সেই লােকটা খুন হয়েছে কয়েক বছর আগে রানার হাতেই। খরচের টাকা দেবেন সে সাধ্য নেই, কিন্তু ছেলেকে ফিরে পেলে চিরকৃতজ্ঞ হবেন বুড়াে-বুড়ি। বুঝল রানা, টোপ ফেলেছে কেউ। রানাকে চায়। কিন্তু সে কে- কেনই বা এই ফাঁদ? জড়িয়ে গেল রানা অদ্ভুত এক রহস্যে। ওর সঙ্গে চলল দুর্ধর্ষ ক’জন ঘনিষ্ঠ বন্ধু। কিন্তু ওরা জানে না, ফণা তুলে অপেক্ষা করছে ভয়ঙ্কর এক বিষনাগিনী।
  446. নীল রক্ত (নিনা ওয়াইল্ড অ্যান্ড এডি চেজ সিরিজের "দ্যা হান্ট অফ অ্যাটলান্টিস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক অ্যান্ডি ম্যাকডার্মট)(সহযোগী লেখক কাজী মায়মুর হোসেন) কাহিনী সংক্ষেপ: ডক্টর লাবনী আলমকে ডুবন্ত গাড়ি থেকে উদ্ধার করেই মহা ঝামেলায় আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে গেল মাসুদ রানা। কিংবদন্তীর সেই আটলান্টিসের মহামূল্যবান এক আর্টিফ্যাক্ট ক্রয় করতে ইরানে গেল ওরা। ভুলেও ভাবেনি, কবর-লুঠেরা আরাশ খানসারি টাকা তাে নেবেই, খুনও করতে চাইবে ওদের।। মরতে আপত্তি আছে বলে প্রাণপণে লড়ল ওরা। ইরান থেকে ফিরেই ব্রাযিল, গালফ অভ কেডিয, তিব্বত। জটিল রহস্যের সব গিঁঠ যখন খুলল, রানা চিনল আসল শত্রুটা কে। পৃথিবীর পঁচাশি ভাগ— অর্থাৎ, সাড়ে পাঁচ শ’ কোটি মানুষের মৃত্যু ঠেকাতে ঝাঁপ দিতে হলাে ওকে মৃত্যুর মুখে। রেইভেন্সফিওর্ডের উপকূলে ভয়ঙ্কর ভাইরাস বহনকারী বিমানে উঠেই রানা বুঝল: পড়েছে উত্তপ্ত কড়াই থেকে জ্বলন্ত উনুনে
  447. দুরন্ত কৈশোর (ইয়ঙ বন্ড সিরিজের "সিলভার ফিন" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক চার্লি হিগসন। (সহযোগী লেখক ইসমাইল আরমান) এ বইটি রানা সিরিজের পঞ্চাশ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে প্রকাশিত এবং পাঠক সমাদৃত) কাহিনী সংক্ষেপ: লণ্ডনের এক অভিজাত ক্লাবে সমবেত হয়েছে ভিন্ন ভিন্ন পেশার তিনজন মানুষ - দু’জন পুরুষ ও একজন নারী। কারা এরা? এরা সবাই আমাদের অতি-প্রিয় মাসুদ রানার ছোটবেলার বন্ধু, আর এদেরকে জড়ো করা হয়েছে চতুর এক পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করবার জন্য, যার পিছনে রয়েছে রানারই খুব কাছের দুজন মানুষ - সোহানা চৌধুরি ও রায়হান রশিদ। কী চায় ওরা? ওরা জানতে চায় রানার অজানা অতীত... ওর ছেলেবেলার কথা। চলুন, পাঠক, আমরাও যোগ দিই সেই ষড়যন্ত্রে। জেনে নিই রানার রোমাঞ্চকর, ভয়াল, দুরন্ত কৈশোরের কাহিনি। সাধারণ এক কিশোরের দুর্ধর্ষ নায়কে রূপান্তরিত হবার অসামান্য উপাখ্যান।
  448. মৃত্যু ঘণ্টা (হকার অ্যান্ড লেইডলো সিরিজের "দ্য ইডেন প্রফেসি" এর ছায়া অবলম্বনে,লেখক গ্রাহাম ব্রাউন) (সহযোগী লেখক কাজী মায়মুর হোসেন) কাহিনী সংক্ষেপ: খুন হয়ে গেলেন জেনেটিক্স বিজ্ঞানী আহসান মোবারক। এবার খুন হবে তাঁর মেয়ে মোনা? বোমা বিস্ফোরণে উড়ে গেল বিজ্ঞানীর বাড়ি! ইউএন অফিসে কে বা কারা দিল ভাইরাস মাখা চিঠি? এ কোন্ কাল্ট, লড়ছে ধর্মের বিরুদ্ধে? দুবাইয়ের বুর্জ আল আরব হোটেলের বলরুমে রানার সঙ্গে বেধে গেল মরণপণ লড়াই! সত্যিই কি অমৃত তৈরি করছিল বাপ-বেটিতে মিলে? মস্ত ঝুঁকি নিয়ে খুঁজতে গেল ও উত্তপ্ত মরুভূমিতে।..... তারপর? মোনাকে উদ্ধার করতে গিয়ে ইরানের পরিত্যক্ত এক দ্বীপে রানা দেখা পেল ভয়ঙ্কর এক শত্রুর! কণ্ঠে অকৃত্রিম ঘৃণা নিয়ে সে বলল : 'এবার পারলে বাঁচতে চেষ্টা করো দেখি, বাঙালি গুপ্তচর!' বুঝল রানা, সত্যিই আজ বেজে গেছে ওর মৃত্যুঘন্টা!
  449. ইসাটাবুর অভিশাপ (ফার্গো এডভেঞ্চার সিরিজের "দি সলোমন কার্স" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার)(সহযোগী লেখক সায়েম সোলায়মান) কাহিনী সংক্ষেপ: ‘মাই গড...’ উঠে দাঁড়াল সোহেল, ‘বন্দি হয়েছে ও!’'মেসেজ তাই বলছে,' গম্ভীর রাহাত খান।‘এবং সাহায্য চেয়েছে।’ ‘স্যর...আমি কি...’‘ওকে ফেরত চাই আমি। জীবিত এবং অক্ষত।’ কপালের একটা শিরা টিপ টিপ করছে রাহাত খানের।ঝড়ের গতিতে বেরিয়ে গেল সোহেল।‘সোহেল যাচ্ছে,’ স্কাইপিতে বললেন রাহাত খান।‘ববিকে পাবে ও হেণ্ডারসন ফিল্ডে,’ বললেন অ্যাডমিরাল হ্যামিল্টন।
  450. মাস্টারমাইন্ড (নিনা ওয়াইল্ড অ্যান্ড এডি চেজ সিরিজের "দ্যা স্যাক্রেইড ভল্ট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক অ্যান্ডি ম্যাকডার্মট) (সহযোগী লেখক কাজী মায়মুর হোসেন) কাহিনী সংক্ষেপ: কিডন্যাপ্‌ড্‌ বাঙালি প্রত্নতাত্ত্বিক ডক্টর লাবনী আলমকে ফেরত চাইলে অমূল্য স্টাডা কোডেক্স লুঠ করতে হবে ইউএন-এর দুর্গম ভল্ট থেকে! তাই করল রানা! লাবনী ভারতে বন্দি জেনে চলল ওখানেই। দর্শকভরা স্টেডিয়ামে বসে ওকে খুন করবে ভারতীয় কোটিপতি, নাকি নিরস্ত্র অবস্থায় ছেড়ে দেবে ক্ষুধার্ত বাঘের অভয়ারণ্যে? বহু কষ্টে মেয়েটিকে উদ্ধার করে পৌঁছুল রানা বরফ-ছাওয়া হিমালয়ে মহাদেবের প্রাচীন গুহায়!বুঝে গেছে, কারা ধ্বংস করবে মানব-সভ্যতা! এদিকে শিবের বেদ রক্ষাকারী সশস্ত্র সাধু, অন্যদিকে মাস্টারমাইণ্ড অনুপম মঙ্গেলকার, তার পাষাণী স্ত্রী মাধুরী ও নিষ্ঠুর মার্সেনারিরা। বড় বিপদে আছে রানা বেচারা!
  451. মায়া মন্দির (হকার অ্যান্ড লেইডলো সিরিজের "ব্ল্যাক সান" এর ছায়া অবলম্বনে,লেখক গ্রাহাম ব্রাউন) (সহযোগী লেখক কাজী মায়মুর হোসেন) কাহিনী সংক্ষেপ: মিতা কিডন্যাপ হয়েছে শুনেই বিসিআই চিফ বললেন, ‘হাতে জরুরি কাজ নেই, তুমি যেতে পারো। বিদেশে মহা বিপদে পড়েছে মেয়েটা...’মিতা দত্তকে উদ্ধার করে আনতে ছুটল রানা হংকং-এ। ভাবতেও পারেনি ওই অদ্ভুত স্ফটিক আর পিচ্চি পাবলোর কারণে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ ঘনিয়ে তুলছে তিন পরাশক্তি মিলে! এদিকে পেছনে লেগে গেছে চিনা ও রাশান ভয়ঙ্কর দুই শত্রুর দল। ওদের পেছনে নিয়ে পৌঁছুল ও গুয়াতেমালার দুর্গম এক মায়া মন্দিরে! কিন্তু খালিহাতে কীভাবে ঠেকাবে রানা আধা-রোবট, হিংস্র ওই চিনে দস্যুকে? অসহায় বাঙালি গুপ্তচরকে বিশতলা উঁচু পাহাড় থেকে ল্যাং মেরে নিচে ফেলল চাইনিজ বিলিয়নেয়ার হুয়াং লি ল্যাং! এবার বুঝি শেষ হলো মাসুদ রানার লীলাখেলা!
  452. কালো কুয়াশা (নুমা ফাইলস সিরিজের "দি ফারাও'স সিক্রেট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) (সহযোগী লেখক সায়েম সোলায়মান) কাহিনী সংক্ষেপ: রেডিওতে শোনা গেল সাহায্যে আবেদন। অকুস্থলে জীবন্মৃত হয়ে আছে বিসিআই এর পাঁচ এজেন্ট। শুরুতে যা ছিল একটা এক্সপেডিশন কোর্স, তা শেষ পর‌্যন্ত রানা-সোহেলের জন্য হয়ে দাড়াঁল বিপদজ্জনক অ্যাসাইমেন্ট। কোঁচো খুঁড়তে গিয়ে মিলল ফ্যানাটিক হুসাইন আখতারের, যে প্রয়োজনে খুন করতে দ্বিধা করে না নিজের লোকদেরও। ওর পিছনে আছে সারওয়ার বিন জামাল। উত্তর আফ্রিকাকে পানিশূণ্য করে সেটার রাজনৈতিক মানচিত্র বদলে দিতে চায়। কয়েকবার মরনছোবল হানল ওরা রানা-সোহেলের উপর, বিফল হয়ে শেষে ফাঁদ পাতল মাটির নিচের এক শবপ্রকোষ্ঠে। রানা জানে, সারওয়ারকে গুলি করার জন্য মাত্র একটা সুযোগ পাবে ও। জানে জীবনের নিখুঁততম লক্ষ্যভেদ করতে হবে ওকে এবার!
  453. ধর্মগুরু (নিনা ওয়াইল্ড অ্যান্ড এডি চেজ সিরিজের পঞ্চম বই "দ্যা কাল্ট অফ ওসাইরিস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক অ্যান্ডি ম্যাকডার্মট) (সহযোগী লেখক কাজী মায়মুর হোসেন) কাহিনী সংক্ষেপ: সত্যিই কি আছে কিংবদন্তীর সেই পাঠাগার: হল অভ রেকর্ড্‌স্? বোধহয় আছে! কারণ খুনির ধাওয়া খেয়ে মাসুদ রানার সাহায্য চাইল বাঙালি আর্কিওলজিস্ট ডক্টর লাবনী আলম। জড়িয়ে গেল রানা অদ্ভুত এক রহস্যময় অভিযানে! হল অভ রেকর্ডসের পাতাল-দালানে ঢুকতেই হাড়ে হাড়ে টের পেল, কী চাইছে ওসাইরিয়ান টেম্পল! বাঁচতে হবে ধর্মগুরুর নিষ্ঠুর একদল খুনির হাত থেকে! ফ্রান্স, সুইটযারল্যাণ্ড, মোনাকো ঘুরে বহু ঘটনা-দুর্ঘটনা পেছনে ফেলে আবারও ফিরল রানা মিশরের রুক্ষ মরুভূমিতে। ঢুকল দেবতা-রাজা ওসাইরিসের গোপন পিরামিডের অভ্যন্তরে! তাতে ঘনিয়ে এল প্রলয়! কিন্তু শেষে সুইস আকাশে বহু ওপর থেকে ঝাঁপ দিয়েই বুঝল, কাঁচের উঁচু পিরামিড থেকে বেকায়দাভাবে নিচে পড়লেই সব খেলা খতম হবে ওদের!
  454. নরপশু (বেন হোপ সিরিজের তৃতীয় বই "দ্য ডুমসডে প্রফেসি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্কট ম্যারিয়ানি)(সহযোগী লেখক কাজী মায়মুর হোসেন) কাহিনী সংক্ষেপ: অসহায় প্রফেসরের স্ত্রীর নীরব কান্না বাধ্য করল রানাকে তাঁদের মেয়েকে খুঁজে দেয়ার দায়িত্ব নিতে। জানত না, জড়িয়ে যাচ্ছে কী গভীর ষড়যন্ত্রে।কোর্ফিউ দ্বীপে চোখের সামনে দেখল বোমা-বিস্ফোরণে ছিন্নভিন্ন হয়ে গেল ওর ঘনিষ্ঠ বন্ধু মউরোস। শপথ নিল রানা, শেষ দেখে ছাড়বে।আমেরিকায় যেতেই পিছু নিল নৃশংস একদল আততায়ী। এল একের পর এক হামলা! নানান বিপদ উতরে খুঁজেও পেল ও মেয়েটাকে। কিন্তু কী আছে তার কাছে যে জন্যে এমন হন্যে হয়ে উঠেছে সিআইএ? শত্রুর জাল ছিঁড়ে রানা জানল, ইযরায়েল থেকে শুরু হচ্ছে মহাপ্রলয়! তৃতীয় মহাযুদ্ধে দুনিয়া হবে নরক! বিসিআই চিফের কথা শুনে নিশ্চিত মৃত্যুর মুখে আর একবার ঝাঁপ দিল মাসুদ রানা!
  455. দুরাত্মা (জেমস বন্ড সিরিজের "ট্রিগার মর্টিস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক এন্থনী হরউইটস) (সহযোগী লেখক ইসমাইল আরমান) কাহিনী সংক্ষেপ: এক নামে সবাই চেনে তাকে। লিম ওয়ান-জু, ওরফে অ্যাণ্ডি লিম— মহাপরাক্রমশালী এক কোরিয়ান ধনকুবের। সেধে তার সঙ্গে টক্কর দিতে গেছে রানা, তার ফলও পেতে চলেছে হাতে-নাতে। ওর সামনে এখন মেলে ধরা হয়েছে তাসের ডেক, একেকটা তাসে একেক ধরনের মৃত্যুর পন্থা লেখা। সেখান থেকে বেছে নিতে হবে একটা। অস্ত্রের মুখে তাস টানতে বাধ্য হলো রানা। ফলাফল? জ্যান্ত কবর দেয়া হবে ওকে।
  456. টপ টেরর (সহযোগী লেখক কাজী মায়মুর হোসেন) কাহিনী সংক্ষেপ: কে এই অপরুপা? চোখ সরাতে পারল না রানা। জানল, মেয়েটা এর মৃত সহযোগী মাইকের বোন। অনুরোধ করল জুডি, খুঁজে দিতে হবে ওর বড়বোনকে। বিসিআই চিফও বললেন ‘মেয়েটাকে সাহায্য করা তোমার দায়িত্বের পর্যায়ে পড়ে।’ কিন্তু দুর্গম, নিষ্ঠুর পশ্চিমের লিটম ফোর্কে পা দিয়েই জড়িয়ে গেল রানা মস্ত ঝামেলায়। কেবলই বাড়ল লাশের ভিড়। শত্রু ভয়ঙ্কর। জোর করে তুলে নিয়ে গেল অসহায় জুডিকে। ওকে উদ্ধার করতে সুদূর এক র‍্যাঞ্চে হাজির হলো রানা। জানে, ওর জন্যে অপেক্ষা করছে একদল রক্তলোলুপ খুনি! সত্যি বলতে, সব বুঝেও মৃত্যুর মুখে ঝাঁপ দিল রানা। কে জানে বাঁচে কিনা!
  457. গুপ্তবিদ্যা (বেন হোপ সিরিজের প্রথম বই "দ্য অ্যালকেমিস্ট'স সিক্রেট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্কট ম্যারিয়ানি) কাহিনী সংক্ষেপ: করুণ আকুতি জানালেন ধনকুবের পিয়েরে উইনিং: মরতে বসেছে তাঁর নাতনি, ব্যর্থ হয়েছে আধুনিক চিকিৎসাবিজ্ঞান, এখন কেবল একটা মিথ…অ্যালকেমির পুরনো এক পাণ্ডুলিপিই হয়তো পারে মিনতিকে বাঁচাতে। চমকে গেল রানা মেয়েটির নাম শুনে। সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়ে রানা বুঝল, অনুরোধে ঢেঁকি গিলেছে। ওই পাণ্ডুলিপির অস্তিত্ব আছে কি না তা নিয়ে সন্দেহ তো আছেই, ঝামেলা হিসেবে সঙ্গে জুটে গেছে কানাডিয়ান এক একরোখা সুন্দরী। কোনও এক গুপ্তসংঘও নিজেদের স্বার্থ হাসিল করতে চায় ওটার সাহায্যে… যে-কোনও মূল্যে। একাধিকবার মরণফাঁদ পাতল তারা রানা-সেলেনার জন্য। উপযুক্ত জবাব দিল রানাও। কিন্তু ও জানত না, সব শেষ হয়ে গেছে ভেবে যখন সতর্কতায় ঢিল দিয়েছে একটু,তখনই চুপিসারে হাজির হয়ে যাবে শত্রুপক্ষের ভয়ঙ্করতম খুনিটা।
  458. মহাপ্লাবন (নুমা ফাইলস সিরিজের "দ্য রাইজিং" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার) কাহিনী সংক্ষেপ: জানালেন বিসিআই চিফ: গোটা পৃথিবী জুড়ে আসছে প্রলয়ঙ্করী মহাপ্লাবন। আগামী বছর তলিয়ে যাবে বাংলাদেশ। কাজেই, রানা, খোঁজ নাও কী ঘটছে। বসের নির্দেশে রহস্যময় অ্যাসাইনমেণ্টে জড়িয়ে গেল রানা। চিনা বিলিয়নেয়ারের পেটের খবর জানতে গিয়ে বন্দি হলো দুর্গম এক দ্বীপে। রানা ও সোহেলের গর্দান নিতে কুখ্যাত তলোয়ারে শান দিচ্ছে ভয়ঙ্কর খুনি ওরে চিচিওয়া! এদিকে করুণভাবে খুন হচ্ছেন জাপানি প্রধানমন্ত্রী, সেটা ঠেকাবে কে? কদিন পর পৃথিবীর উঁচু পাহাড়ের চূড়া ছাড়া আর কিছুই থাকবে না! মরিয়া হয়ে উঠল রানা। ঠিক করল, নিশ্চিত মৃত্যুর আগে লড়বে প্রাণপণে!
  459. অন্তর্যামী (স্যাম ড্রায়ডেন সিরিজের প্রথম বই "রানার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক প্যাটরিক লি) কাহিনী সংক্ষেপ: মেয়েটাকে দেখে চমকে উঠল রানা। ঠিক যেন লুবনা... লুবনা আভান্তি! ইটালিয়ান সেই মিষ্টি কিশোরী, যে রানার মন জয় করে নিয়েছিল...যে ওকে একটা গান উপহার দিয়েছিল... যাকে রক্ষার দায়িত্ব নিয়েও ব্যর্থ হয়েছিল রানা। সেই কষ্ট আজও তাড়া করে ফেরে ওকে। লুবনার মত এ-মেয়েটিও বিপন্ন। নিষ্ঠুর একদল খুনি তাড়া করছে তাকে, ছুটতে ছুটতে রাতদুপুরে রানার বুকে আছড়ে পড়েছে সে।এরপর কি আর চুপ করে থাকা যায়? সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল রানা। জড়িয়ে পড়ল ভয়ঙ্কর বিপদে।
  460. ডার্ক মেডিউসা (বেন হোপ সিরিজের ষষ্ঠ বই "দ্য লস্ট রেলিক" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্কট ম্যারিয়ানি) কাহিনী সংক্ষেপ: গাড়ি দূর্ঘটনা থেকে ছোট ছেলেটাকে বাচাতে গয়ে জড়িয়ে গেল রানা আর্ট গ্যালারির নৃশংস ঘটনায়। তাতে পেলো ইতালির মানুষের অঢেল ভালোবাসা। জানত না ঠিক পরদিনই পরিণত হবে ও খলনায়কে! প্রশ্ন হলোঃ রানা যদি না করে থাকে তাহলে কে খুন করলো ইতালির প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীকে? ব্রিটিশ ইন্টেলিজেন্স? কেন দূর্ধর্ষ এসএএস মেজর নোরা গোল্ডফিল্ডকে ওর পেছনে লেলিয়ে দিয়েছে ওরা? কী চায় ওর কাছে নিষ্ঠুর রাশান মাফিয়া ডন? সার্বক্ষণিক তাড়া ও গুলি খেয়ে আহত, মহাবিরক্ত রানা এখন জানতে চায়, কী কারনে মরিয়া হয়ে খুন করতে চাইছে এরা! কয়েকটি দেশের সশস্ত্র পুলিশ, দুর্ধর্ষ ব্রিটিশ মেজর ও ভয়ঙ্কর রাশান মাফিয়ার বিরুদ্ধে একা কতটুকু পারবে ও?
  461. অপশক্তি[১] (বেন হোপ সিরিজের একাদশতম বই "দ্য মার্টার'স কার্স" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্কট ম্যারিয়ানি) কাহিনী সংক্ষেপ: বিসিআই নির্দেশ দিল: রানা, আত্মগোপন করো! তোমাকে খুন করতে আসছে এমআই-সিক্সের একদল দুর্ধর্ষ এজেন্ট! সত্যিই ইতালিতে এসে হাজির হলো তারা। তাদের ক'জনকে খতম করে পালিয়ে গেল ও ফ্রান্সের দুর্গম এক পাহাড়ি অঞ্চলে। আশ্রয় পেল সরল মনের ক'জন সংসারত্যাগী সাধুর কাছে। একদিন বাজার থেকে ফিরে দেখল রানা: কারা যেন নিষ্ঠুরভাবে খুন করে গেছে মঠের সব সাধুকে। আগুন ধরে গেল রানার মাথায়। প্রতিজ্ঞা করল: এর শেষ দেখে ছাড়বে ও।পাঠক, এইবার দেখতে পাবেন কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারে মাসুদ রানার প্রতিশোধ!আপনার প্রিয় রানা জড়িয়ে গেছে আশ্চর্য রহস্যময় এক শ্বাসরুদ্ধকর জটিলতায়।
  462. এক্স এজেন্ট (বেন হোপ সিরিজের সপ্তাদশতম বই "দ্য মস্কো সাইফার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্কট ম্যারিয়ানি) কাহিনী সংক্ষেপ: রানার কাছে সাহায্য চাইলেন বিলিয়নেয়ার লুকা ব্রেযনেভ। বিসিআই চিফও চান তাঁকে সাহায্য করুক রানা। তবে দুর্ধর্ষ বাঙালি এজেণ্ট জানে না, মস্কোয় লক্ষ্মী মেয়ে ইউনাকে খুঁজতে গিয়ে আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে যাচ্ছে বিশ্বের ভয়ঙ্কর এক জটিল ষড়যন্ত্রে। ভবিষ্যতে জ্যান্ত মানুষ কি পরিণত হবে রোবটে? মহাবিপদে পড়ে হাড়ে হাড়ে টের পেল রানা, কাউকে উদ্ধার করা তো দূরের কথা, এখন নিজেকে রক্ষা করাও অসম্ভব। ওকে বন্দি করে নিজের আস্তানায় নিল নিষ্ঠুর এফএসবি মিশন চিফ। তার একটাই কথা: হয় যোগ দাও আমার সঙ্গে, নইলে স্রেফ খুন করে ফেলব। তা হলে কি প্রাণে বাঁচবে ইউনা ও তার বাবা? মারাত্মক ফাঁদ ছিঁড়ে বেরোতে গিয়ে শুরু হলো মরিয়া রানার প্রাণপণ সংগ্রাম।
  463. ছায়াঘাতক (বেন হোপ সিরিজের চতুর্থ বই "দ্য হেরেটিক'স ট্রেজার" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্কট ম্যারিয়ানি) কাহিনী সংক্ষেপ: টানা ক্লান্তিকর কাজ, তাই ছুটি পেয়ে খুশি হয়েছিল রানা। কিন্তু ফোন দিলেন কর্নেল (অব.) জন ব্রাউন। নিশ্চিত মৃত্যুর কবল থেকে ওকে রক্ষা করেছিলেন তিনি। জরুরি সাহায্য চাই তাঁর। যেতেই হলো রানাকে ইতালিতে। তারপর সুদূর মিশরে। ধরেও ফেলল কর্নেলের ছেলের খুনিকে। তবে বিসিআই এজেণ্ট জানে না, জড়িয়ে গেছে লাখ-কোটি ডলারের প্রাচীন গুপ্তধনের মারণজালে। এতেই শেষ নয় সমস্ত জটিলতা। উপকারী মানুষ কর্নেলের সুন্দরী, দ্বিতীয় স্ত্রী পাগলিনী হয়েছে রানার প্রেমে! চারপাশে ভয়ঙ্কর হিংস্র নৃশংস খুনি। যখন তখন রানাকে খতম করবে জঙ্গী নেতা জমির শেখ। আর ওই গুপ্তধন? ওটাই বা গেল কোথায়? মহাবিপদে পড়ে শ্বাস ফেলারও সময় রইল না ওর! চলুন, রানার সঙ্গে আমরাও দেখে আসি: সত্যিই ওসব আছে কি না।
  464. স্ট্রেন্জার (বেন হোপ সিরিজের অষ্টাদশতম বই "দ্য রেবেল'স রিভেঞ্জ" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্কট ম্যারিয়ানি) কাহিনী সংক্ষেপ: নিউ অরলিন্স এয়ারপোর্টে পৌঁছে রানা জানল, কাছেই ছোট্ট এক শহরে বাঁশি বাজাবেন দুনিয়া-সেরা বংশীবাদক পন্ডিত হরিপ্রসাদ চৌরাশিয়া। তখনই স্থির করে ফেলল ও, থেকে যাবে আর দুটো দিন, কিংবদন্তি মানুষটির বাঁশি শুনে তারপর ফিরবে দেশে। জানত না, সিদ্ধান্তটা ছিল কতবড় ভুল। জড়িয়ে পড়ল ও ভয়ঙ্কর এক বিপদে! গেস্টহাউসে উঠে যে হাসিখুশি কৃষ্ণাঙ্গিনী মহিলাকে বড়বোনের মত লেগেছিল, তারই খুনের দায়ে ফেঁসে গিয়ে পালাচ্ছে এখন রানা। কিন্তু পালিয়ে যাবে কোথায়? শুরু হয়েছে লুইযিয়ানার সবচেয়ে বড় ম্যান-হাণ্ট! একদিকে রক্তলিপ্সু কিছু লোক ও শত শত পুলিশ, অন্যদিকে রানা একা! যারা চরম অন্যায় করল লিযের ওপর, তাদেরকে ছেড়ে দেবে রানা? শুরু হয়েছে ওর প্রাণান্ত সংগ্রাম! শপথ নিয়েছে: প্রাণ থাকতে ছাড়বে না ওই বর্ণবাদী খুনি জানোয়ারগুলোকে!
  465. কাউন্ট কোবরা (বেন হোপ সিরিজের দ্বিতীয় বই "দ্য মোজার্ট কন্সপিরেসি" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্কট ম্যারিয়ানি) কাহিনী সংক্ষেপ: রানা ভেবেছিল কাজটা সহজ! যে ছিল ওর গভীর প্রেম, সেই প্রেয়সীকে নিরাপত্তা দেবে, আর জেনে নেবে কেন খুন হয়েছে ওর ঘনিষ্ঠ বন্ধু। রানা একটু দেরিতে টের পেল, জড়িয়ে গেছে অদ্ভুত গহীন এক জটিল রহস্যের জালে! এরা কারা, হাসতে হাসতে নরহত্যা করছে এত নিষ্ঠুরভাবে? এক দেশ থেকে অন্য দেশে গেলেও মাথার ওপর ঘনিয়ে আসছে নিশ্চিত মৃত্যুর ঘনঘটা! তবে কি এদের হাতেই খুন হয়েছেন মহান সুরকার মোযার্ট? ধাঁধার গভীর সাগরে হাবুডুবু খাচ্ছে রানা। নিজেই বাঁচবে না, তো বাঁচাবে কী করে প্রাণের চেয়েও প্রিয় লিয়াকে? মহাবিপদে পড়ে দিশেহারা হচ্ছে বিসিআই এজেণ্ট। প্লিয, আপনি দেখুন, কোনও ভাবে বাঁচাতে পারেন কি না মাসুদ রানাকে!
  466. ধ্বংসযজ্ঞ (নুমা ফাইলস্ সিরিজের নবম বই "ডেভিল'স গেটস" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক ক্লাইভ কাসলার ও গ্রাহাম ব্রাউন) কাহিনী সংক্ষেপ: সাগর থেকে হারিয়ে যাচ্ছে একের পর এক জাহাজ। কীভাবে, কেউ জানে না। বাংলাদেশি একটা জাহাজও যখন একইভাবে উধাও হয়ে গেল, রানাকে পাঠানো হলো খোঁজ নিতে। একটু একটু করে ভয়ঙ্কর এক ষড়যন্ত্রের জালে জড়িয়ে গেল ও। ছেঁড়া কাঁথায় শুয়ে লাখ টাকার স্বপ্ন দেখছেন আফ্রিকার এক দরিদ্র দেশের স্বৈরশাসক, হতে চাইছেন দুনিয়ার অধীশ্বর। ভয়ের কথা হলো, সেই স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দেবার মত বিধ্বংসী এক হাতিয়ার রয়েছে তাঁর হাতে। এর সঙ্গে যুক্ত হলো সাগরতলের এক অদ্ভুত এক বিস্ময়, আর সত্তর বছর আগে হারিয়ে যাওয়া এক বিমানের রহস্য। গোদের ওপর বিষফোঁড়ার মত দৃশ্যপটে উদয় হলো রানার পুরনো এক শত্রু, প্রতিশোধ নেবার জন্যে মরিয়া হয়ে উঠেছে। রানার এখন শনির দশা। একাকী কতদিক সামলাবে ও? পারবে তো?
  467. শকওয়েভ (বেন হোপ সিরিজের নবম বই "দ্য নেমেসিস প্রোগ্রাম" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্কট ম্যারিয়ানি) কাহিনী সংক্ষেপ: বিতর্কিত সার্বিয়ান বিজ্ঞানী নিকোলা টেসলা-র আবিষ্কারের সাহায্যে এক দল ষড়যন্ত্রকারী চাইছে পৃথিবীর বুকে ভয়াবহ বিষাক্ত ছোবল বসাতে। তাদের প্রলয়নেশায় ধস নামল পাহাড়ে, ফুঁসে উঠল সাগর, ভূমিকম্পে ধ্বংস হয়ে গেল আস্ত এক শহর। উদ্দেশ্যটা কী এদের? পুরানো বন্ধু সেলেনার সাহায্যের আবেদনে সাড়া দিয়ে বাংলাদেশ কাউন্টার ইন্টেলিজেন্সের মাসুদ রানা গিয়ে পড়ল প্রচণ্ড এই আবর্তের মধ্যে। ধীরে ধীরে খুলতে লাগল ভয়ঙ্কর এক চক্রান্তের গিঁট।
  468. স্বর্ণলিপ্সা (বেন হোপের একবিংশতম বই "দ্য প্রেটেন্ডার'স গোল্ড" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্কট ম্যারিয়ানি) কাহিনী সংক্ষেপ: রানার কমান্ডো ট্রেইনার দুর্ধর্ষ রিটায়ার্ড যোদ্ধা বেন হ্যানন হারিয়ে গেছেন স্কটল্যান্ডে। সাহায্য চাইল তাঁর ক্রন্দনরতা স্ত্রী, মিরান্ডা। রানা কি জানে, ওই দেশে গেলেই জড়িয়ে যাবে একদল বাজে লোকের জটিল প্যাঁচে? সোনার মোহরের জন্য সেখানে চলছে তুমুল জিঘাংসার ঝড়। সেই প্রবল ঝাপটায় যখন-তখন দপ্ করে নিভে যাচ্ছে মানুষের জীবন-প্রদীপ।রানা অবশ্য শপথ নিয়েছে, যেভাবে হোক খুঁজে বের করবে ওর স্নেহশীল ওস্তাদকে। পাশে এসে দাঁড়াল একজন সৎ পুলিশ অফিসার জেসিকা। কিন্তু প্রতিপক্ষের চোখে পড়ে গেছে ওরা। লেলিয়ে দেওয়া হয়েছে একদল হিংস্র হায়েনা। যেখানে নিজেই বাঁচে কি না সন্দেহ, সেখানে রানা কী করে উদ্ধার করবে আর কাউকে? চলুন, পাঠক, কী ঘটছে দেখি গিয়ে!
  469. কিলিং মিশন (বেন হোপের দ্বাবিংশতম বই "দ্য ডেমন ক্লাব" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্কট ম্যারিয়ানি) কাহিনী সংক্ষেপঃ স্কটল্যান্ডে ছুটি কাটিয়ে খুশিমনে ফ্রান্সে ফেরার পথে নাকে জড়লওয়ালা প্রৌঢ়ের সঙ্গে পরিচয় হলো রানার। ভাল করে বোঝার আগেই ওকে জড়িয়ে নিল সে ভয়ঙ্কর এক পৈশাচিক মারণজালে। তাদের অশুভ দলের হয়ে খুন করতে হবে ওর পরিচিত একজনকে, নইলে নৃশংসভাবে খুন হবে রানার প্রেমিকা জেসিকা। অদ্ভুত এক বিভ্রাটে পড়ে মানুষ খুনের কাজটা হাতে নিল রানা। ঘুণাক্ষরেও জানত না হিংস্র পশুর চেয়েও নিষ্ঠূর ওর শত্রুপক্ষ। দেশ-দেশান্তরে চরকির মত ঘুরছে ও। পদে পদে বিপদ-শিহরন-ভয় আর মৃত্যুর হাতছানি! চলুন, আমরা গিয়ে দেখি কীসে জড়িয়ে গেছে রানা!
  470. কালবেলা (বেন হোপের দশম বই "দ্য ফরগটেন হলোকাস্ট" এর ছায়া অবলম্বনে, লেখক স্কট ম্যারিয়ানি) কাহিনী সংক্ষেপঃ প্রিয় বন্ধু সোহেল জানালঃ বিসিআই চিফ চাইছেন মানবিক এক কাজ যেন করে দেয় রানা। সে দায়িত্ব পালন করে ফ্রান্স থেকে আয়ারল্যান্ড গিয়ে বেধড়ক মার খেল ও। খুন হয়ে গেল লাস্যময়ী বেলা ওয়েস। আর সেটা ঠেকাতে না পেরে জেদ চেপে গেল রানার মনে-ওর প্রাণ থাকতে ছাড়বে না নৃশংস খুনিদেরকে! অবশ্য, রানা জানে না, জড়িয়ে যাচ্ছে ভয়ঙ্কর জটিক ষড়যন্ত্রের জালে। পদে পদে ওর বিপদ, শিহরন ও মৃত্যুর হাতছানি। বহু যুগ আগে যার শুরু ব্রিটেনে, এবার বোধহয় তার চূড়ান্ত ফয়সালা হবে আমেরিকায়। কিন্তু দুর্ধর্ষ ক'জন প্রাক্তন সামরিক কর্মকর্তা, দুর্নীতিপরায়ণ পুলিশ চিফ ও অসংখ্য দস্যুর বিরুদ্ধে কীভাবে নিজেকে বাঁচাবে আনফিট রানা?

এছাড়াও মাসুদ রানা সিরিজের একমাত্র অগ্রন্থিত গল্প "অন্তরে পাপ"। কাজী আনোয়ার হোসেন-এর লিখা এই মাসুদ রানা উপন্যাসিকাটি মাসুদ রানা সিরিজের গোল্ডেন জুবিলি (অর্ধশত বর্ষপূর্তি) উদযাপনের অংশ হিসেবে রহস্য পত্রিকা মে, ২০১৬ তে প্রকাশিত হয়েছিলো।

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "Seba Prokashony Books: সেবা প্রকাশনী এর বই সমূহ | Rokomari.com"www.rokomari.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-২৩