দ্য রাইজ অব ইসলাম এণ্ড দ্য বেঙ্গল ফ্রন্টিয়ার

দ্য রাইজ অব ইসলাম এণ্ড দ্য বেঙ্গল ফ্রন্টিয়ার ইংরেজি ভাষায় লিখিত একটি গুরুত্বপূর্ণ ইতিহাস গ্রন্থ যাতে ভারতবর্ষের বঙ্গে ইসলামের আবির্ভাব এবং বিস্তার সম্পর্কে বিশদ আলোকপাত করা হয়েছে এবং, বিশেষ করে, এর কারণ তালাশ করা হয়েছে। এই গ্রন্থটির রচয়িতা প্রসিদ্ধ মার্কিন ইতিহাসবিদ অধ্যাপক রিচার্ড ম্যাক্সওয়েল ইটন[১]

প্রকাশনা তথ্যসম্পাদনা

শক্ত মলাটের দ্য রাইজ অব ইসলাম এণ্ড দ্য বেঙ্গল ফ্রন্টিয়ার গ্রন্থটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফর্ণয়া প্রেস (বার্কলে) কর্তৃক ১৯৯৩ খ্রিষ্টাব্দে প্রথম প্রকাশিত। জুলাই ১৯৯৬ এ প্রকাশিত পেপারব্যাক সংস্করণের (ISBN 9780520205079) পৃষ্ঠা সংখ্যা ৩৮৮।

কাঠামোসম্পাদনা

এই গ্রন্থে দুই খণ্ডে ১১টি অধ্যায় রয়েছে। প্রথম খণ্ডে `সুলতানদের রাজত্বে বঙ্গ' এই শিরোনামের অধীনে ৫টি এবং দ্বিতীয় খণ্ডে `মুঘলদের আমলে বঙ্গ' শিরোনামের অধীনে ৬টি অধ্যায় রয়েছে। গ্রন্থশেষে কিছু টাকশাল শহর ও বঙ্গের প্রধান শাসকদের (1204-1757) তালিকা, গ্রন্থপঞ্জী ইত্যাদি সংযোজন করা হয়েছে। গ্রন্থের শুরুতে রয়েছে লেখক রচিত একটি ভূমিকা। [২]

বিষয়বস্তুসম্পাদনা

এই মূল্যবান ইতিহাসগ্রন্থের বিষয়বস্তু বাংলায় ইসলামের প্রবর্তন ও ক্রমবিকাশ। বিশেষ করে ১২০৪ খ্রিষ্টাব্দ থেকে ১৭৬০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত কালপরিধিতে ইসলামের অপ্রতিরোধ্য গ্রহণযোগ্যতার কারণ অন্বেষণ করেছেন রিচার্ড ইটন। ভারতবর্ষের দক্ষিণের এই এলাকাই ইসলামকে দ্রুত এবং ব্যাপকারে গ্রহণ করেছে। তবে শুরুতে বঙ্গের আদি সামাজিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক অবস্থার বর্ণনা দিয়েছেন ইটন সাহেব। গুরুত্বের সঙ্গে ব্যাখ্যা করেছেন কেন, কোন পরিস্তিতিতে মানুষ তার ধর্ম বদল করে। বিবিধ নৃতাত্ত্বিক, পুরাতাত্ত্বিক, সাংস্কৃতিক প্রমাণ, গান, কবিতা, লোককাহিনী ও কথ্য ইতিহাস তিনি বিশ্লেষণ করেছেন যার মধ্য দিয়ে ভারতীয় সভ্যতা ও ইসলামের মধ্যে দীর্ঘ মিথস্ত্রিয়ার একটি তুলনারহিত বয়ান ফুটে উঠেছে। তিনি ব্যাখ্যা করেছেন কীভাবে ইসলামের সীমানা ক্রমশঃ এবং দ্রুত সম্প্রসারিত হয়েছে। [৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. The Rise of Islam and the Bengal Frontier, 1204-1760
  2. সূচীপত্র
  3. ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফর্ণয়া প্রেস

বহিঃসংযোগসম্পাদনা