থিনিস বা থিস হল প্রাচীন মিশরের একটি জনপদের গ্রিক নাম। মিশরীয় ভাষায় এই জনপদ চেনি নামে পরিচিত ছিল। আবিডোসের নিকটবর্তী কোনও অঞ্চলে অবস্থিত[১] এই জনপদটি প্রথম ও দ্বিতীয় রাজবংশের আমলে মিশরের রাজধানী ছিল। এখনও পর্যন্ত অনাবিষ্কৃত হলেও বহু প্রাচীন লেখকের লেখাতেই এর উল্লেখ পাওয়া গেছে। এঁদের মধ্যে বিখ্যাত প্রাচীন ঐতিহাসিক মানেথোর নাম বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। তিনি থিনিসকেন্দ্রিক একটি উপজাতি সংঘের নেতা হিসেবে মেনেস বা নারমের'এর নাম উল্লেখ করেন; এই মেনেসের নেতৃত্বেই মিশর ঐক্যবদ্ধ হয় ও তিনি মিশরের প্রথম ফারাও হিসেবে গণ্য হন।

থিনিস
চেনি
হারিয়ে যাওয়া জনপদ
থিনিস মিশর-এ অবস্থিত
থিনিস
থিনিস
আধুনিক মিশরীয় মানচিত্রে সম্ভাব্য অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৬°২০′ উত্তর ৩১°৫৪′ পূর্ব / ২৬.৩৩৩° উত্তর ৩১.৯০০° পূর্ব / 26.333; 31.900স্থানাঙ্ক: ২৬°২০′ উত্তর ৩১°৫৪′ পূর্ব / ২৬.৩৩৩° উত্তর ৩১.৯০০° পূর্ব / 26.333; 31.900
দেশপ্রাচীন মিশর
নোমউচ্চ মিশরের অষ্টম নোম
প্রাচীনতম সাক্ষ্য৪০০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দের কাছাকাছি
সরকার
 • ধরনNomarch (Old Kingdom)
Mayor (New Kingdom)

তৃতীয় রাজবংশের আমল থেকে থিনিসের গুরুত্ব দ্রুত কমতে থাকে। রাজধানী সরে যায় মেমফিসে। পরবর্তী যুগে থিনিস আর কখনোই আগের গুরুত্ব ফিরে পায়নি। তবে আদি রাজত্বের সময়কালীন মূল প্রশাসনিক কেন্দ্র হিসেবে প্রাচীন মিশরীয় ধর্মশাস্ত্রে থিনিস ধীরে ধীরে একটি রূপকথার নগরীতে পরিণত হয়; যেমন বুক অব দ্য ডেড বা মৃতের বইতে এই নগর স্বর্গের এক স্থান হিসেবে উল্লিখিত।[২]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Gardiner, Sir Alan Henderson (1964) [1961]. Egypt of the pharaohs: An introduction. Oxford: Oxford University Press. ISBN 978-0-19-500267-6. পৃঃ - ৪৩০।
  2. Massey, Gerald (1907). Ancient Egypt: The light of the world. 2. London: T. Fisher Unwin. পৃঃ - ৬৩৭।