তাপমণ্ডল (থার্মোস্ফিয়ার নামেও পরিচিত) প্রায় ৮০ কিলোমিটার (৫০ মাইল;২৬০.০০০ ফুট) উপরে অবস্থিত এবং মেসোবিরতি থেকে তাপবিরতি পর্যন্ত এই স্তরের তাপমাত্রা উচ্চতা বৃদ্ধি সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে যা এক্সোমণ্ডলে প্রবেশ করলে উচ্চতার সঙ্গে সঙ্গে ধ্রুবক হয়। যেহেতু তাপবিরতি এক্সোমণ্ডলের নিচে অবস্থিত তাই একে এক্সোবেসও বলা হয়। এর গড় উচ্চতা পৃথিবী থেকে প্রায় ৭০০ কিলোমিটার কিন্তু প্রকৃতপক্ষে সৌর ক্রিয়া ও ব্যাপ্তি সঙ্গে পরিবর্তিত হয় ৫০০ থেকে ১০০০ (৩১০-৬২০ মাইল; ১৬০০০০০-৩৩০০০০০ ফুট) কিলোমিটার পর্যন্ত।[১] এই স্তরের তাপমাত্রা সর্বোচ্চ ১,৫০০° সেলসিয়াস (২,৭০০° ফাঃ) পর্যন্ত হয়। আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন-এর কক্ষপথ এই স্তরের ৩২০ থেকে ৩৮০ কিলোমিটারের (২০০ এবং ২৪০ মাইল) মধ্যে অবস্থিত। মেরুজ্যোতি যা উত্তর গোলার্ধে অরোরা বোরিয়ালিস (aurora borealis) এবং দক্ষিণ গোলার্ধে অরোরা অস্ট্রালিস (aurora australis) নামে পরিচিত তা মাঝেমধ্যে তাপমণ্ডল এবং এক্সোমণ্ডল নিচের অংশ দেখা যায়।

মহাকাশ থেকে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডল যেমন দেখায়, দিগন্তে বিভিন্ন রঙের ব্যান্ডের মতো। নিচ থেকে, অন্তরাগ ট্রপোমণ্ডলকে মেঘের সিলুয়েটের সাথে কমলা রঙে এবং স্ট্র্যাটোমণ্ডলকে সাদা ও নীল রঙে আলোকিত করে। এরপর মেসোমণ্ডল (গোলাপী এলাকা) কার্মান রেখার ঠিক নীচে একশ কিলোমিটার এবং নিম্ন তাপমণ্ডলের (অন্ধকার) গোলাপী রেখা পর্যন্ত প্রসারিত হয়। এটি কয়েকশো কিলোমিটারের বেশি সবুজ এবং লাল অরোরাকে ধারণ করে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Randy Russell। "তাপমণ্ডল"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-১০-১৮  অজানা প্যারামিটার |সাল= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)