জীহান ইব্রাহিম

জীহান ইব্রাহিম একজন মিশরীয় নাগরিক সাংবাদিক,[১] বিপ্লবী সমাজতন্ত্রী,[২]আন্দোলনকর্মী[৩] তিনি ২০১১ সালের মিশরীয় বিপ্লবের সময় বিক্ষোভের ঘটনাগুলির প্রতিবেদন করতে টুইটার ব্যবহার করেছিলেন। তিনি পশ্চিমা গণমাধ্যমের বেশিরভাগের জন্য মিশরের ঘটনাগুলির মুখ হয়ে উঠেছিলেন, যা খুব কমই তার রাজনৈতিক মতামত উল্লেখ করেছিল। তিনি প্রতিবাদ অব্যাহত রেখেছিলেন এবং ২০১৩ সালে মিশরের অভ্যুত্থানের মাধ্যমে টুইটারকে একটি প্ল্যাটফর্ম হিসাবে ব্যবহার করেছিলেন, পরে কায়রোতে একটি জুতা তৈরির কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

জিহান ইব্রাহিম
২০১১ সালের মে মাসে জিহান ইব্রাহিম
২০১১ সালের মে মাসে জিহান ইব্রাহিম
জন্ম১৯৮৬/১৯৮৭ (৩৫–৩৬ বছর)[১]
জাতীয়তামিশরীয়
মাতৃশিক্ষায়তনকায়রোর আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয়
পেশানাগরিক সাংবাদিক, আন্দোলনকর্মী

প্রাথমিক জীবন ও শিক্ষাসম্পাদনা

তার জন্ম ক্যালিফোর্নিয়ার লং বিচে মিশরীয় পিতামাতার কাছে। যখন তিনি এক বছর বয়সী ছিলেন, পরিবারটি আবার মিশরে চলে যায়। তার মা মারা যাওয়ার পর, তার বাবা ১৪ বছর বয়সে তাকে পরিবারের সাথে ক্যালিফোর্নিয়ায় নিয়ে যান।[৪] তিনি ২০০৫ সালে কর্নেলিয়া কননেলি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে স্নাতক হন[৫] এবং তারপর ক্যারিফোর্নিয়ায় অ্যানাহেইমে অরেঞ্জ কোস্ট কলেজে[৪][৬][৭] অধ্যয়ন করেন, কায়রোর আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থানান্তরের আগে[৮][৯], যেখান থেকে তিনি ২০১০ সালে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতক হন[৪]

মিশরের রাজনীতিতে সম্পৃক্ততাসম্পাদনা

 
জীহান ইব্রাহিম ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারিতে একটি বিক্ষোভে

তিনি বিপ্লবী সমাজতান্ত্রিক দলের সদস্যা।[১০][১১] তিনি আল জাজিরাকে বলেছিলেন যে তার রাজনৈতিক সক্রিয়তা শুরু হয়েছিল যখন তিনি শ্রমিক আন্দোলনের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের সাথে কথা বলা শুরু করেছিলেন এবং তবে তার পরিবারের কাছে তার প্রতিবাদে অংশগ্রহণের বিষয়টি অস্বস্তিকর ছিল।[১২] তিনি একজন সংগঠক হিসাবে[৯][১৩] ২০১১ সালের মিশরীয় বিপ্লবে জড়িত হয়েছিলেন,[১][১৪] প্রতিবাদে অংশ নেওয়ার সময় টুইটার সহ[১১][১৫][১৬] সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করেন "যারা এখানে নেই তাদের জন্য সঠিক তথ্য ছড়িয়ে দিতে ও মাটিতে একটি ছবি আঁকতে"।[৬] তার টুইটগুলি মানবাধিকার গোষ্ঠীর জন্য গ্রেপ্তার ও রাষ্ট্রীয় সহিংসতা[১৭] নথিভুক্ত করতেও সাহায্য করেছিল।[১৮] ২০১১ সালের অক্টোবরে, তিনি রিপোর্ট করেছিলেন যে কায়রোতে গণপরিবহন শ্রমিকদের ধর্মঘট কর্মরত অবস্থায় তাকে সংক্ষিপ্তভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল এবং তার ফুটেজ মুছে ফেলার জন্য সম্মত হওয়ার পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল।[১৯]

তার ২০১২ সালের শীতকালে টুইটারে ৩০,০০০ এরও বেশি অনুসারী ছিল এবং তিনি সশস্ত্র বাহিনীর সুপ্রিম কাউন্সিলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সক্রিয় ছিলেন।[২০]

২০১৩ সালের জুলাই মাসে, বিপ্লব থেকে অনেক আন্দোলনকর্মী ২০১৩ সালের মিশরীয় অভ্যুত্থানের পর সরে যান, কিন্তু ইব্রাহীম থেকে যায়।[২১] জুলাই ২০১৩ পর্যন্ত, ইব্রাহিম নসর শহরে বসবাস করছিলেন এবং সক্রিয়তা ও বিক্ষোভে অংশগ্রহণ অব্যাহত রেখেছিলেন।[২২]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Ourdan, Rémy (ফেব্রুয়ারি ২১, ২০১১)। "Egypte : le "journalisme citoyen" de Mona et Gigi sur Twitter"Le Monde (ফরাসি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ মে ২২, ২০২১ 
  2. Mason, Paul (২০১৩)। Why It's Still Kicking Off Everywhere: The New Global RevolutionsVerso Books। পৃষ্ঠা 56আইএসবিএন 978-1-78168-245-6ওসিএলসি 859326591 
  3. Snider, Laura (এপ্রিল ৬, ২০১১)। "Q&A: Gigi Ibrahim on 'Inside the Egyptian Revolution' panel at CWA"Boulder Daily Camera (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ মে ২২, ২০২১ 
  4. Sandy, Bennett; Laso, Maria (মার্চ ১, ২০১৩)। "20 Women to Watch"OC Metro। মে ৩১, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. "Gigi Ibrahim '05"Cornelia Connelly High School। জুন ২২, ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২২, ২০২১ 
  6. Rogers, Tony (জানুয়ারি ২৮, ২০১১)। "Citizen Journalist Gigi Ibrahim Uses Tools of the Web to Spread News of Cairo Protests"About.com। Archived from the original on আগস্ট ২৬, ২০১২। সংগ্রহের তারিখ মে ২১, ২০২১ 
  7. Anas, Brittany (মার্চ ১৬, ২০১১)। "Egyptian activist Gigi Ibrahim to be among CU-Boulder's Conference on World Affairs guests"Boulder Daily Camera (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ মে ২২, ২০২১ 
  8. Mackey, Robert (জানুয়ারি ২৭, ২০১১)। "Interview With an Egyptian Blogger"The New York Times (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ মে ২২, ২০২১ 
  9. "Egyptian activist to speak at this year's CWA"University of Colorado Boulder (ইংরেজি ভাষায়)। মার্চ ১৬, ২০১১। সংগ্রহের তারিখ মে ২২, ২০২১ 
  10. Smet 2015, পৃ. 348-349।
  11. Fleishman, Jeffrey (ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১২)। "After revolution in Egypt, women's taste of equality fades"Los Angeles Times। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  12. Naib, Fatma (ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১১)। "Women of the revolution"Al Jazeera (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  13. Smet 2015, পৃ. 309।
  14. "Egypt unrest: Alert as mass protests loom"BBC News। জানুয়ারি ২৮, ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  15. Papacharissi, Zizi (মার্চ ৩, ২০১৬)। "Affective publics and structures of storytelling: sentiment, events and mediality"Information, Communication & Society (ইংরেজি ভাষায়)। Routledge19 (3): 7। আইএসএসএন 1369-118Xএসটুসিআইডি 146646767ডিওআই:10.1080/1369118X.2015.1109697Taylor & Francis-এর মাধ্যমে। 
  16. Allen, Bennett (এপ্রিল ৪, ২০১১)। "Citizen Journalism: Life on the Ground at the Egyptian Revolution"Vanity Fair। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  17. Hidalgo, Alonso। "Redes sociales, política y activismo" [Social media, politics and activism] (PDF)Quehacer (স্পেনীয় ভাষায়)। Centro de Estudios y Promocion del Desarrollo: 99। 
  18. England, Phil (মে ২০১১)। "A digital revolution in Egypt and beyond"New Internationalistআইএসএসএন 0305-9529 
  19. Tarek, Sherif (অক্টোবর ২, ২০১১)। "Activist Gigi Ibrahim to keep filming drivers' protests despite military arrest"Ahram Online (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  20. Woods, Elliott D. (২০১২)। "The Faces of Tahrir Square: Last spring's protests were only the beginning of a much longer struggle": 98। আইএসএসএন 0042-675Xজেস্টোর 26446367JSTOR-এর মাধ্যমে। 
  21. Jachmann, Luis (জানুয়ারি ২৫, ২০২১)। "Égypte – Gigi Ibrahim: " La contestation se fait désormais dans la clandestinité "" [Egypt – Gigi Ibrahim: "The protest is now done underground"]। Jeune Afrique (ফরাসি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  22. "Gigi Ibrahim Discusses What Happens Next in Egypt with Tim Pool"Vice News (ইংরেজি ভাষায়)। জুলাই ৫, ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১