জামুগুড়ি হাট শোণিতপুর জেলা-এর অন্তর্গত জামুগুড়িহাট একটি ছোট শহর। জামুগুড়ি হাটকে নতুনভাবে শহর অঞ্চল বলে পরিকল্পনা করা হচ্ছে। এই অঞ্চলটি ব্রহ্মপুত্র নদীর উত্তর দিকে অবস্থিত। অঞ্চলটি কলা-কৃষ্টির দিক থেকে একটি অগ্রগণ্য অঞ্চল। মূলতঃ হিন্দু লোকপ্রধান অঞ্চলটির সর্বত্র শান্তি বিরাজমান।২০০ বছর পুরনো বারেশহরীয়া ভাওনা উৎসব[১] র জন্য জামুগুড়ি হাট বিখ্যাত।

জামুগুড়িহাট
Jamuguri hat
নগর
স্থানাঙ্ক: ২৬°৪৪′ উত্তর ৯২°৫৬′ পূর্ব / ২৬.৭৩° উত্তর ৯২.৯৩° পূর্ব / 26.73; 92.93স্থানাঙ্ক: ২৬°৪৪′ উত্তর ৯২°৫৬′ পূর্ব / ২৬.৭৩° উত্তর ৯২.৯৩° পূর্ব / 26.73; 92.93
Country India
রাজ্যআসাম
জেলাশোণিতপুর জেলা
সরকার
 • ধরননগর সমিতি
 • শাসকজামুগুড়ি হাট নগর সমিতি
আয়তন
 • মোট২০ বর্গকিমি (৮ বর্গমাইল)
উচ্চতা৭৩ মিটার (২৪০ ফুট)
জনসংখ্যা (2001)
 • মোট১৯,৭৪৩
 • জনঘনত্ব৯৯০/বর্গকিমি (২,৬০০/বর্গমাইল)
ভাষা
 • সরকারিঅসমীয়া ভাষা
সময় অঞ্চলIST (ইউটিসি+5:30)

ভৌগোলিক অবস্থানসম্পাদনা

বৃহৎ জামুগুড়ি অঞ্চলটি ব্রহ্মপুত্র নদীর উত্তর পারে গুয়াহাটি মহানগর থেকে ২৪৪ কিলোমিটার এবং তেজপুর শহর থেকে ৪৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।[২] এই অঞ্চলটি উত্তরে ২৬.৭৩° অক্ষাংশ এবং পূর্বে ৯২.৯৩° দ্রাঘিমাংশ। মূলতঃ চা এবং ধান চাষের ওপরেই এই শহরের অর্থনৈতিক অবস্থা নির্ভরশীল। ২০০১ সালের জনগণনা অনুসারে অঞ্চলটির ১৯,৭৪৩ জনসংখ্যা মোট ৫২টি গ্রামে বিভক্ত। অঞ্চলটিতে মূলতঃ অসমীয়া, নেপালী, বাঙালী, মুসলমান লোকরা সম্প্রীতি নিয়ে বাস করে। সর্বমোট ৬০টা নামঘর এবং মন্দির এই অঞ্চলে আছে। মোট জনসংখ্যার প্রায় ১৫% লোক সরকারি চাকরিজীবি,৩৫% লোক ব্যবসায়-বাণিজ্যর বিপরীতে ৫০% লোক চাষ-বাসের সঙ্গে জড়িত।কাণী দিকরাই এবং জিয়াভরলী নদীর মধ্যের এই জামুগুড়ির উত্তর পারে ছিজোচা বনভোজস্থল এবং দক্ষিণ পারে কাজিরাঙা জাতীয় উদ্যান আছে।

জলবায়ুসম্পাদনা

গ্রীষ্মকালীন উষ্ণতার বিপরীতে শীতকালে ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যভাগ পর্যন্ত রাতের উষ্ণতা যথেষ্ট নিম্নাগামী হয়। সকালে কুয়াশা পড়ে। সম্পূর্ণ বছরটিতে তাপমাত্রা ১৫° থেকে ২৩°র মধ্যে থাকে।অঞ্চলটির জলবায়ু বিভিন্ন প্রকার চাষের জন্য উপযোগী।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সমূহসম্পাদনা

শিক্ষার দিক থেকে জামুগুড়িহাট একটি উন্নত স্থান। এই অঞ্চলটিতে ২০০টি সরকারি এল.পি স্কুল, ২০টি এম.ই স্কুল, ৮টি সরকারি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় থাকার ছাড়াও ৪টি উচ্চৈত্রের মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং একটি সরকারি মহাবিদ্যালয় (ত্যাগবীর হেমবরুয়া মহাবিদ্যালয়) আছে। বৃহত্তর ন-দুয়ার অঞ্চলের এইটিই একমাত্র উচ্চ শিক্ষার প্রতিষ্ঠান। এই মহাবিদ্যালয়টি ১৯৬৩ সালেই জামুগুড়িহাটের মূল কেন্দ্র থেকে ৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত কুসুমটিলা অঞ্চলে তখনকার ৫২নং জাতীয় সড়কের (এখন ১৫নং জাতীয় সড়ক বলে নামকরণ হয়েছে) দাঁতিতে প্রতিষ্ঠিত হয়[৩]। অন্যদিকে ১৯২৫ সালে প্রতিষ্ঠিত জামুগুড়ি উচ্চৈত্রের মাধ্যমিক বিদ্যালয় বৃহত্তর জামুগুড়ি হাট অঞ্চলের প্রথম উচ্চৈত্রের মাধ্যমিক বিদ্যালয়। বর্তমান কয়েকটি ব্যক্তিগতখণ্ডের অসমীয়া এবং ইংরাজী মাধ্যমের বিদ্যালয় এবং একটি জুনিয়র কলেজ (কলা এবং বাণিজ্য শাখা) স্থাপিত হয়েছে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "People throng bhaona fest"www.telegraphindia.com 
  2. [http://alldistancebetween.com/in/distance-between/tezpur-jamugurihat-20815515ed93c22b29486a2057d422d6/ title=Distance http://alldistancebetween.com/in/distance-between/tezpur-jamugurihat-20815515ed93c22b29486a2057d422d6/ title=Distance] |ইউআরএল= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য)  line feed character in |ইউআরএল= at position 103 (সাহায্য); |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  3. "Tyagbir Hem Baruah College - Official Website"www.thbcollege.com 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা