গোল মার্কেট, নতুন দিল্লি

গোল মার্কেট হল ভারতের নতুন দিল্লির কেন্দ্রস্থলে একটি বাজার অঞ্চল, ১৯২১ সালে এডউইন লুটিয়েন্স একটি ট্রাফিক সংকেত অঞ্চলের চতুর্দিকে বৃত্তাকারে নির্মাণ করেছিলেন। এটি নয়াদিল্লির প্রাচীনতম উপনিবেশের বাজারগুলির মধ্যে একটি, যেটি এখনো চলছে এবং এটি স্থাপত্যগত দিক দিয়ে একটি উল্লেখযোগ্য কাঠামো হিসাবে বিবেচিত হয়। দশভূজাকৃতি বাজার এডউইন লুটিয়েন্সের নয়াদিল্লি বিন্যাসের অংশ হিসাবে পরিকল্পনা করে অক্ষরেখাতে নির্মিত হয়েছিল।[১] পেশোয়া রোড, রামকৃষ্ণ আশ্রম রোড, শহীদ ভগৎ সিং রোড এবং ভাই বীর সিং রোড হল বাজার থেকে ব্যাসার্ধ বরাবর আসা চারটি রাস্তা।[২]

গোল মার্কেট
আশেপাশের শহর
গোল মার্কেট দিল্লি-এ অবস্থিত
গোল মার্কেট
গোল মার্কেট
ভারতের দিল্লিতে অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৮°৩৮′০১″ উত্তর ৭৭°১২′২০″ পূর্ব / ২৮.৬৩৩৭° উত্তর ৭৭.২০৫৬° পূর্ব / 28.6337; 77.2056
দেশ ভারত
রাজ্যদিল্লি
জেলানতুন দিল্লি
সরকার
 • শাসকদিল্লির পৌর কর্পোরেশন
ভাষাসমূহ
 • সরকারিহিন্দি, ইংরেজি
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+০৫:৩০)
পিন১১০০০১
নিকটবর্তী শহরশাহদারা / লোনি
লোকসভা নির্বাচনী কেন্দ্রদক্ষিণ দিল্লি
নাগরিক সংস্থাদিল্লির পৌর কর্পোরেশন
গোল মার্কেট, নতুন দিল্লি।

ইতিহাস সম্পাদনা

 
গোল মার্কেট (পেশোয়া রোড, টি-বিন্দু) এম.এস. ফ্ল্যাটের ছাদ থেকে তোলা ছবি। পটভূমিতে সবুজ অঞ্চলটি হল কেন্দ্রীয় শৈল অরণ্য।

এডউইন লটিয়েন্স পরিকল্পিত অষ্টভুজাকৃতি বাজারটি, বিস্তৃত উন্নয়ন পরিকল্পনার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসাবে ১৯২১ সালে নির্মিত হয়েছিল। তার পরের বছরগুলিতে, কনট প্লেস বাজার অঞ্চলটি এর পাশেই নির্মিত হয়েছিল, আশেপাশের আবাসিক অঞ্চলে বসবাসরত হাজার হাজার সরকারী কর্মচারীর নিত্য প্রয়োজনীয় চাহিদা পূরণ করার জন্য ১৯২৫ সালে নির্মাণ করা হয়েছিল।[৩] এই কর্মচারীরা কাছের সচিবালয় বিল্ডিংএ কাজ করত, কারণ, ১৯৩১ সালে নতুন রাজধানী উদ্বোধন হওয়ার এক দশক আগেই বেশিরভাগ সরকারী অফিসগুলি পুরান দিল্লি থেকে স্থানান্তরিত হয়ে গিয়েছিল। বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি এবং মাদ্রাজ প্রেসিডেন্সিসহ ভারতের বহু দূর অঞ্চল থেকে অনেক কর্মচারীকে নতুন রাজধানীতে আনা হয়েছিল।[৪]

ভারত বিভাগের পরে, বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী বি.সি. সান্যাল ও তাঁর স্ত্রী গজল গায়ক এবং অভিনেত্রী স্নেহলতা গোল মার্কেটে চলে এসেছিলেন। তাদের "শরণার্থী স্টুডিও" নতুন দিল্লিতে শিল্পী এবং শিক্ষার্থীদের কেন্দ্রস্থল হয়ে উঠেছিল, ও পরে সেটিকে গ্যালারী ২৬ বলা হত। স্টুডিওটি পরে দিল্লি শিল্পী চক্রে পরিণত হয়, সান্যাল তাঁর বেশ কয়েকজন শিল্পী বন্ধুকে নিয়ে এটির প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। উত্তর ভারতের সমসাময়িক শিল্পে এই সংগঠনের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ছিল।[৫][৬]

পরে এনডিএমসি এই ঐতিহ্যশালী বাজারটিকে যাদুঘরে রূপান্তরিত করার নতুন পরিকল্পনা প্রকাশ করে। ফেব্রুয়ারি, ২০১৩ সালে, বাজারের আঠারজন দোকানদার, তাদের দোকান দখল করার জন্য এনডিএমসির পদক্ষেপের বিরুদ্ধে, দিল্লি উচ্চ আদালতে অভিযোগ করে আবেদন করেছিল। ২০শে জুন ২০১৩ সালে আদালত এনডিএমসির পক্ষে রায় দেয় তবে সম্পত্তিটি যাতে অ-বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার করা হয়, সেই বিষয়ে সতর্ক করে দিয়েছিল। আদালত ৩০শে জুন ২০১৩ সালের মধ্যে দোকানদারদের তাদের দোকানের দখল ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল।[৭] ২রা জুন, এক রায়ে সর্বোচ্চ আদালত, উচ্চ আদালতের রায়ে দেওয়া উচ্ছেদের তারিখ বহাল রেখেছিল।[৮]

গোল মার্কেটের আশেপাশের অঞ্চল সম্পাদনা

১৯৩১ সালে নির্মিত নতুন দিল্লি জেনারেল ডাকঘরটি গোল মার্কেট থেকে প্রায় ৮০০ মিটার দূরে অবস্থিত। এটি ভবনের অষ্টভুজ আকারের কারণে এটি গোল ডাক খানা নামেও পরিচিত। এটির পরিকল্পনা করেছিলেন রবার্ট টর রাসেল, যিনি ছিলেন পূর্ত বিভাগের (পিডব্লিউডি) প্রধান স্থপতি। পূর্বে আলেকজান্দ্রা প্লেস নামে পরিচিত একটি ব্যস্ত চকের ভিতরে এটি অবস্থিত,[৯] কাছাকাছি সেক্রেড হার্ট ক্যাথেড্রালকে যাতে পরিষ্কার দেখতে পাওয়া যায়, সেই জন্য এর উচ্চতা কম রাখা হয়েছিল।[১]

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. "Imperial Impressions"Hindustan Times। ২০ জুলাই ২০১১। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  2. Gole Market Delhi
  3. "From Bengal, but staunchly Delhiites"Hindustan Times। ৬ জুলাই ২০১১। ৪ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. "Capital story: Managing a New Delhi"Hindustan Times। ১ সেপ্টেম্বর ২০১১। ৮ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. "Art adda"Indian Express। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। 
  6. "B.C. Sanyal (1902 - 2003): No more brush strokes.."The Hindu। ১৩ জানুয়ারি ২০০৩। ৬ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ নভেম্বর ২০১৯ 
  7. "HC nod to turning Gole Market into museum"Hindustan Times। ২০ জুন ২০১৩। ২০ জুন ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১৩ 
  8. "SC removes hurdle for Gole Market's museum makeover"The Times of India। ২৮ জুন ২০১৩। ২ জুলাই ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১৩ 
  9. "On World Post Day, 'lady postman' recalls old days and ways"Indian Express। ৯ অক্টোবর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১৩ 

টেমপ্লেট:Neighborhoods of Delhi