গাউছিয়া ইসলামিয়া ফাযিল (ডিগ্রী) মাদ্রাসা

গাউছিয়া ইসলামিয়া ফাযিল (ডিগ্রী) মাদরাসা বাংলাদেশের ঢাকায় অবস্থিত একটি ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ১৯৭৯ সালে প্রতিষ্ঠিত একটি স্থানীয় মক্তব থেকে এই প্রতিষ্ঠানটি ১৯৮২ সালে ইবতেদায়ী মাদ্রাসা হয়ে ১৯৯৮ সালে ফাজিল শ্রেণীতে পাঠ দান করার অনুমতি লাভ করে।[১]

গাউছিয়া ইসলামিয়া ফাযিল (ডিগ্রী) মাদরাসা
গাউছিয়া মাদরাসা
গাউছিয়া ইসলামিয়া ফাযিল (ডিগ্রী) মাদরাসা.png
নীতিবাক্যসত্যের পথে শিক্ষা
ধরনবেসরকারি, এমপিও ভুক্ত
স্থাপিত১ জানুয়ারি ১৯৮২; ৩৯ বছর আগে (1982-01-01)
প্রতিষ্ঠাতাগোলাম মোস্তফা
প্রাতিষ্ঠানিক অধিভুক্তি
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ (২০০৬- ২০১৬)
ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় (২০১৬- বর্তমান)
অধ্যক্ষমুহাম্মদ এজহারুল হক
মাধ্যমিক অন্তর্ভুক্তিবাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড
শিক্ষায়তনিক ব্যক্তিবর্গ
৫০
প্রশাসনিক ব্যক্তিবর্গ
০৫
শিক্ষার্থীপ্রায় ৩০০০
ঠিকানা
বাবর রোড, জহুরী মহল্লা, মোহাম্মদপুর
, ,
১২০৭
,
শিক্ষাঙ্গনশহুরে
EIIN সংখ্যা১০৮২৪৭
উপাধ্যক্ষআ.ন.ম. মাহবুবুর রহমান
সংক্ষিপ্ত নামগাউছিয়া (GIFM)
ওয়েবসাইটhttp://108247.ebmeb.gov.bd

অবস্থানসম্পাদনা

এটি ঢাকা শহরের মোহাম্মদপুরের জহুরী মহল্লায় অবস্থিত।[২]

নামকরণ ও ইতিহাসসম্পাদনা

মোহাম্মদপুরের জহুরী মহল্লায় জনাব গোলাম মোস্তফা ও স্থানীয়দের উদ্যোগে গড়ে উঠে গাউছিয়া ইসলামিয়া ফাযিল (ডিগ্রী) মাদরাসা। প্রথম দিকে মসজিদের বারান্দায় মক্তবের মাধ্যমে ছাত্র ছাত্রীদের শিক্ষা দেওয়া হয়। পরবর্তীতে ১৯৭৯ সালে মক্তবকে মসজিদ থেকে আলাদা করে একটি টিনশেড ঘর নির্মাণ করা হয়। ১৯৮৭ সালে মাদরাসাটিকে দাখিল পর্যায়ে উন্নীত করে বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের আওতাভূক্ত হয়। ১৯৯৩ এর ১লা জুলাই প্রতিষ্ঠানটি এম.পি.ও ভুক্ত প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক তালিকাভুক্ত হয় এবং ১৯৯৫ সালে আলিম ও ১৯৯৮ সালে এতে ফাযিল শ্রেণি খোলা হয়।

অবকাঠামোসম্পাদনা

মকতবের জন্য ১৯৭৯ সালে নির্মিত টিনশেড ঘর দিয়েই ইবতেদায়ী মাদরাসার কার্যক্রম শুরু হয়। মাদরাসার জন্য বরাদ্দকৃত জমির পরিমাণ ছিল ১৩ শতক। মসজিদের পাশ ঘেঁষে দক্ষিণ পাশেই ছিল এর অবস্থান। মকতব ও পরবর্তীকালে ইবতেদায়ীর ঘরটি ছিল পূর্বমুখী করে ঠিক পশ্চিম পাশে অবস্থিত। এরপর ১৯৮৭ সালে দাখিলের কার্যক্রম শুরুর প্রাক্কালে মাদরাসার জায়গায় নির্দিষ্ট ভাড়ার বিনিময়ে একটি ঘর মাদরাসার তহবিল হতে ক্রয় করে মাদরাসায় একীভূত করা হয়। এরপর ১৯৯৫-৯৬ অর্থ বছরে সরকারের ফ্যাসিলিটিজ বিভাগ হতে একাডেমিক ভবন নির্মাণের জন্য ১৭,০৭,৮৫১ টাকা বরাদ্দ হয়। পরবর্তীতে অধ্যক্ষের কার্যালয়সহ পূর্ব পাশের তিন তলা বিশিষ্ট বর্ধিত অংশটি নির্মিত হয়। ২০১৫ সালে মাদরাসাটিকে ৬তলা বানানোর কাজ শুরু হয়।

সাফল্যসম্পাদনা

২০০১ সালে এ প্রতিষ্ঠানটি ভাল ফলাফলের জন্য ‘জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ’ উপলক্ষে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ‘শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান’ সনদ লাভ করে। ২০০৫ সালের দাখিল পরীক্ষায় সামগ্রিক ফলাফল বিচারে গাউছিয়া মাদরাসা ছিল ঢাকার মধ্যে ৫ম অবস্থানে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "GAUSIA ISLAMIA FAZIL MADRASHA"ebmeb.gov.bd 
  2. "GAUSIA ISLAMIA FAZIL MADRASHA"amar-school.com 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা