কারি লাইফ একটি যুক্তরাজ্য ভিত্তিক স্বতন্ত্র দ্বি-মাসিক বাংলাদেশী এবং ভারতীয় রেস্তোরাঁ এবং যুক্তরাজ্যের টেকওয়েজের জন্য বাণিজ্যক ম্যাগাজিন। [২]

কারি লাইফ
সম্পাদকসৈয়দ বেলাল আহমেদ[১]
বিভাগব্যবসা
প্রকাশনা সময়-দূরত্বদ্বি-মাসিক
প্রতিষ্ঠাতাসৈয়দ বেলাল আহমেদ
সৈয়দ নায়াস পাশা
প্রতিষ্ঠার বছরমার্চ ২০০৩ (2003-03)
প্রথম প্রকাশমার্চ ২০০৩ (2003-03)
দেশযুক্তরাজ্য
ভিত্তিইলফোর্ড, এসেক্স
ভাষাইংরেজি
ওয়েবসাইটwww.currylifemagazine.com

বিষয়বস্তু সম্পাদনা

কাররি লাইফ ২০০৩ সালের মার্চ মাসে প্রতিষ্ঠা হয়েছে। এটির প্রতিষ্ঠা সৈয়দ বেলাল আহমেদ ও সৈয়দ নায়াস পাশা [৩] তারাই এটির সম্পাদনা করেন [৪]

পত্রিকাটি নিউজলেটার হিসাবে শুরু হয়েছিল এবং এটি ৫০-পৃষ্ঠার ম্যাগাজিনে হয়েছিল [৩] । এটি যুক্তরাজ্যের ১২.০০০ এরও বেশি বাংলাদেশী এবং ভারতীয় রেস্তোঁরাগুলিতে [৪] এবং যুক্তরাজ্যের কারি রেস্তোঁরাগুলির জন্য বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে [৩] । নিউজ এজেন্টস এবং নির্বাচিত এশিয়ান সুপারমার্কেটে পাওয়া যায়, এবং সারা বিশ্বে এটি ব্যাপকভাবে বিতরণ ও পঠিত [৫] ।এটির আনুমানিক এক লক্ষাধিক পাঠক রয়েছে [৩] এবং ইউরোপ, মধ্য প্রাচ্য এবং দক্ষিণ এশিয়াতেও পাওয়া যায় [৫] ম্যাগাজিনটি ইউকে তে ২০ ডলার অন্য কোথাও ৩০ ডলার বার্ষিক সাবস্ক্রিপশন ফি [৪]

ম্যাগাজিনটি একমাত্র স্বাধীন ম্যাগাজিন [৩] এবং এটি "কারি শিল্পের কণ্ঠস্বর" হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে [৪] । এটিতে এশিয়ান ক্যাটারিং সেক্টরকে প্রভাবিত করে এমন বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কিত সংবাদ এবং বৈশিষ্ট্য রয়েছে [৪] । এটিতে রেস্তোরাঁর প্রোফাইল, সাক্ষাৎকার, রেসিপি, ফিল্ম পর্যালোচনা এবং ভ্রমণের নিবন্ধগুলিও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে এর লক্ষ্য হল রেস্তোঁরা শিল্পের জন্য আরও ভাল ব্যবসায়ের পরিবেশ তৈরি করা। [৩]

ম্যাগাজিনটি দক্ষিণ পূর্ব এশীয় দেশ যেমন বাংলাদেশ এবং ভারত, ইউরোপ এবং মধ্য প্রাচ্যের উৎসব আয়োজন করেছে [৬] । ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে, কারি লাইফ বিজনেস অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ডস চালু করা হয়েছিল [৭][৮][৯] । মার্চ ২০১৫-এ, কারি লাইফ হায়াট রিজেন্সি এর দ্য স্বাদ অফ ব্রিটেন কারি উৎসব আয়োজন করেছিল। [১০]

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. Badshah, Nadeem (৫ অক্টোবর ২০১৫)। "Curry house chef crisis: Britain's favourite dishes may be no more"Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৫ 
  2. "The heat is on for Amaya's chef shortlisted for national accolade"Ashbourne News Telegraph। ৬ অক্টোবর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৫ 
  3. "Curry Life and Taste of Britain Curry Festival Celebrates 10 Years of Success" (পিডিএফ)Curry Life (44)। পৃষ্ঠা 4। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৫ 
  4. "A taste for travel as Zoe leads the curry life"Driffield Today। ২১ ডিসেম্বর ২০১৪। ২৭ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৫ 
  5. "Imprint" (পিডিএফ)Curry Life। নং 44। পৃষ্ঠা 2। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৫ 
  6. "Curry Life and Taste of Britain Curry Festival Celebrates 10 Years of Success" (পিডিএফ)Curry Life। নং 44। পৃষ্ঠা 5। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৫ 
  7. "Curry Life honours top British business entrepreneurs"Bdnews24.com। Bangladesh। ২৭ ডিসেম্বর ২০১৪। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৫ 
  8. Shammas, John (৯ জানুয়ারি ২০১৫)। "Indian restaurant Curry Mahal swoops top award at Curry Life Business Awards"Get West London। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৫ 
  9. Oliphant, Victoria (৯ জানুয়ারি ২০১৫)। "Indian restaurant Curry Mahal shines at the Curry Life Business Awards"Harrow Times। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৫ 
  10. Elias, Esther (৯ মার্চ ২০১৫)। "When the curry came back British"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৫