কর্মবিমুখতা বা কর্মে অনিহা হল শারিরীক সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও কর্মোদ্যমী না হওয়ার ইচ্ছা বা কাজ না করে অলস ও বেকার বসে থাকা। অন্ধত্ব, বধিরতা বা অন্য কোন প্রতিবন্ধকতার কারণে কোন ব্যক্তির কর্ম সম্পাদনে অক্ষমতা কর্মবিমুখতার মধ্যে পড়ে না। এটা বরং ব্যক্তির যোগ্যতা ও সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও এবং সম্পাদনযোগ্য কর্মের যথেষ্ট প্রাচুর্য থাকা সত্ত্বেও অলস ও কর্মহীন হয়ে পড়ে থাকাকে বোঝায়। অবসাদ, বিরহ, বিচ্ছেদ, আশংকা, মানসিক আঘাত সহ বিভিন্ন কারণে এমনকি ব্যক্তির স্বেচ্ছায় এই পরিস্থিতির উদ্ভব হতে পারে।

মনোরোগ বিদ্যার আলোকে ব্যাখ্যাসম্পাদনা

লক্ষণ ও বৈশিষ্ট্যসম্পাদনা

শারীরিক ও সামাজিক দৃষ্টিকোণসম্পাদনা

ধর্মীয় দৃষ্টিকোণসম্পাদনা

ধর্মগুলোতে কর্মবিমুখতাকে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে এবং একে মানবজীবনে অভিশাপরূপে চিহ্নিত করা হয়েছে। সূরা আল-জুমুআর ১০ নং আয়াতে আল্লাহ বলেন,

فإذا قضيت الصلوة فانتشروا في الارض وابتغوا من فضل الله

অর্থ : “অতঃপর সালাত সমাপ্ত হলে তোমরা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড় এবং আল্লাহর অনুগ্রহ সন্ধান কর।”

হাদিসে জীবিকা অর্জনের জন্য কাজকেও ফরজ ঘোষণা করা হয়েছে। মহানবি (স.) বলেছেন,

طلب كسب الحلال قريضة بعد الفريضة

অর্থ: “হালাল উপায়ে জীবিকা অন্বেষণ করা ফরজের পর আরও একটি ফরজ কাজ" । (বায়হাকি) রাসুলুল্লাহ (স.) বলেছেন, “নিজ হাতে উপার্জিত খাদ্যের চেয়ে উত্তম খাদ্য কেউ কোনোদিন খায়নি।” (বুখারি)

চিকিৎসাসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা